শনিবার, ১৯শে আগস্ট, ২০১৭ ইং, ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১০:৫৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, February 24, 2017 9:03 am
A- A A+ Print

নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী খুন

7

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে ছুরিকাঘাতে জাকির খান (৪৪) নামে এক বাংলাদেশি রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী খুন হয়েছেন। স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে বাংলাদেশি-অধ্যুষিত ব্রঙ্কসে এ ঘটনা ঘটে। নিহত জাকিরের পরিবার জানায়, প্রতিদিনের মতো কাজ শেষে জাকির তার ভাড়া বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় তাকে ছুরিকাঘাত করেন বাড়ির মালিক। এতে জাকির মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। গুরুতর আহত অবস্থায় জাকিরকে জ্যাকবি মেডিকেল সেন্টারে নেয়া হলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার বুকে অন্তত সাতটি ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। স্থানীয় পুলিশ ৫১ বছর বয়সী ওই অ?্যাপার্টমেন্টের মালিককে গ্রেপ্তার করেছে। ভাড়া নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। নিহতের প্রতিবেশীরা জানান, বাড়িভাড়া নিয়ে জাকিরের সঙ্গে মালিকের বছরখানেক ধরে বিরোধ চলছিল। মিশরীয় ওই মালিকের বাসায় জাকির দীর্ঘদিন ধরে ভাড়া ছিলেন। জাকিরের খুন হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে প্রবাসী বাংলাদেশিদের অনেকেই হাসপাতালে জড়ো হন। ঘাতকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তারা। নিউ ইয়র্ক ডেইলি নিউজ জানিয়েছে, ঘাতক বাড়িওয়ালার নাম তাহা মাহরান। পুলিশ সূত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, তদন্তকারীরা একটি ছুরি উদ্ধার করেছে। মাহরানের বিরুদ্ধে হত্যা ও অস্ত্র বহনের অভিযোগ আনা হয়েছে। জাকিরের পারিবারিক বন্ধুর পরিচয় দিয়ে এক ব্যক্তি বলেন হামলাকারী বাড়ির বাইরে তার জন্য অপেক্ষা করছিল। জাকির যখন বাড়ি থেকে বের হয়ে আসছিলেন তখন তাকে কয়েকবার ছুরিকাঘাত করে তাহা মাহরান। ২০১২ সালে ডেইলি নিউজকে জাকির খান বলেছিলেন, বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমানোর পর দৈনন্দিন খরচ চালাতে পার্কচেস্টার ওবালের বার্গার কিংয়ে কাজ করতেন। ২০০২ সালে নিজের রিয়েল এস্টেট কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করতে সমর্থ হন তিনি। সে সময় জাকির বলেছিলেন, ‘আপনি ফ্রেঞ্চ ফ্রাইজ বিক্রি করছেন নাকি রিয়েল এস্টেট বিক্রি করছেন সেটা কোনো বিষয় নয়, আপনি যদি কঠোর পরিশ্রম করতে পারেন আর মানুষের সঙ্গে ভালো আচরণ করেন তাহলে আপনি অবশ্যই সফল হবেন।’ জাকিরকে নিয়ে নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্য আইনসভার আইনপ্রণেতা লুইস সেপুলভেদা বলেন, ‘আমি যতটা শুনেছি, তার কিছু আর্থিক সমস্যা ছিল। কিন্তু তিনি বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের জন্য অনেক কাজ করেছেন। এ সম্প্রদায়ের অনেক মানুষ তাকে চিনতো।’ সেপুলভেদা আরো জানান, জাকির খানের সঙ্গে তার পরিচয় হয় ২০১০ সালে যখন তিনি প্রথম আইনসভার জন্য নির্বাচন করেন। সে সময় সেপুলভেদাকে সমর্থন ও সহায়তা দেন জাকির খান। বাংলাদেশি-আমেরিকান সম্প্রদায়ের নেতৃত্বস্থানীয়দের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। জাকিরের হত্যাকাণ্ডের খবর শুনে দুঃখ প্রকাশ করে সেপুলভেদা বলেন, ‘আমি সত্যিই স্তম্ভিত। আমি তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করবো এবং আমার সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবো।’ প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানান, নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের বিভিন্ন দিবস উদযাপনের আয়োজনে সক্রিয় অংশগ্রহণ ছিল জাকিরের। দুদিন আগে ব্রঙ্কসে একুশ উদ্‌যাপনের কর্মসূচিতেও জাকির খানের ভূমিকা ছিল। প্রবাসীদের দাবি নিয়ে আলোচনার সূত্র ধরে স্থানীয় কংগ্রেস সদস?্য, সিনেটর ও অ্যাসেম্বলি সদস?্যদের সঙ্গেও তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল। ময়নাতদন্তের জন্য জাকিরের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার মরদেহ বাংলাদেশে পাঠানো হবে, নাকি নিউ ইয়র্কে দাফন হবে- এ বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। জাকিরের গ্রামের বাড়ি সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ থানার পাঠানটিলা গ্রামে। ১৯৯২ সালে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন নেন তিনি। ব্রঙ্কসের পার্কচেস্টার রিয়েল এস্টেট কোম্পানি নামে একটি ব্রোকার প্রতিষ্ঠান চালাতেন। ১৩ বছর বয়সী এক মেয়ে এবং দশ ও সাত বছর বয়সী দুই ছেলে রয়েছে তার।

Comments

Comments!

 নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী খুনAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী খুন

Friday, February 24, 2017 9:03 am
7

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে ছুরিকাঘাতে জাকির খান (৪৪) নামে এক বাংলাদেশি রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী খুন হয়েছেন। স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে বাংলাদেশি-অধ্যুষিত ব্রঙ্কসে এ ঘটনা ঘটে। নিহত জাকিরের পরিবার জানায়, প্রতিদিনের মতো কাজ শেষে জাকির তার ভাড়া বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় তাকে ছুরিকাঘাত করেন বাড়ির মালিক। এতে জাকির মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। গুরুতর আহত অবস্থায় জাকিরকে জ্যাকবি মেডিকেল সেন্টারে নেয়া হলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার বুকে অন্তত সাতটি ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।
স্থানীয় পুলিশ ৫১ বছর বয়সী ওই অ?্যাপার্টমেন্টের মালিককে গ্রেপ্তার করেছে। ভাড়া নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। নিহতের প্রতিবেশীরা জানান, বাড়িভাড়া নিয়ে জাকিরের সঙ্গে মালিকের বছরখানেক ধরে বিরোধ চলছিল। মিশরীয় ওই মালিকের বাসায় জাকির দীর্ঘদিন ধরে ভাড়া ছিলেন। জাকিরের খুন হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে প্রবাসী বাংলাদেশিদের অনেকেই হাসপাতালে জড়ো হন। ঘাতকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তারা।
নিউ ইয়র্ক ডেইলি নিউজ জানিয়েছে, ঘাতক বাড়িওয়ালার নাম তাহা মাহরান। পুলিশ সূত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, তদন্তকারীরা একটি ছুরি উদ্ধার করেছে। মাহরানের বিরুদ্ধে হত্যা ও অস্ত্র বহনের অভিযোগ আনা হয়েছে। জাকিরের পারিবারিক বন্ধুর পরিচয় দিয়ে এক ব্যক্তি বলেন হামলাকারী বাড়ির বাইরে তার জন্য অপেক্ষা করছিল। জাকির যখন বাড়ি থেকে বের হয়ে আসছিলেন তখন তাকে কয়েকবার ছুরিকাঘাত করে তাহা মাহরান।
২০১২ সালে ডেইলি নিউজকে জাকির খান বলেছিলেন, বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমানোর পর দৈনন্দিন খরচ চালাতে পার্কচেস্টার ওবালের বার্গার কিংয়ে কাজ করতেন। ২০০২ সালে নিজের রিয়েল এস্টেট কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করতে সমর্থ হন তিনি। সে সময় জাকির বলেছিলেন, ‘আপনি ফ্রেঞ্চ ফ্রাইজ বিক্রি করছেন নাকি রিয়েল এস্টেট বিক্রি করছেন সেটা কোনো বিষয় নয়, আপনি যদি কঠোর পরিশ্রম করতে পারেন আর মানুষের সঙ্গে ভালো আচরণ করেন তাহলে আপনি অবশ্যই সফল হবেন।’ জাকিরকে নিয়ে নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্য আইনসভার আইনপ্রণেতা লুইস সেপুলভেদা বলেন, ‘আমি যতটা শুনেছি, তার কিছু আর্থিক সমস্যা ছিল। কিন্তু তিনি বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের জন্য অনেক কাজ করেছেন। এ সম্প্রদায়ের অনেক মানুষ তাকে চিনতো।’ সেপুলভেদা আরো জানান, জাকির খানের সঙ্গে তার পরিচয় হয় ২০১০ সালে যখন তিনি প্রথম আইনসভার জন্য নির্বাচন করেন। সে সময় সেপুলভেদাকে সমর্থন ও সহায়তা দেন জাকির খান। বাংলাদেশি-আমেরিকান সম্প্রদায়ের নেতৃত্বস্থানীয়দের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। জাকিরের হত্যাকাণ্ডের খবর শুনে দুঃখ প্রকাশ করে সেপুলভেদা বলেন, ‘আমি সত্যিই স্তম্ভিত। আমি তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করবো এবং আমার সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবো।’
প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানান, নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের বিভিন্ন দিবস উদযাপনের আয়োজনে সক্রিয় অংশগ্রহণ ছিল জাকিরের। দুদিন আগে ব্রঙ্কসে একুশ উদ্‌যাপনের কর্মসূচিতেও জাকির খানের ভূমিকা ছিল। প্রবাসীদের দাবি নিয়ে আলোচনার সূত্র ধরে স্থানীয় কংগ্রেস সদস?্য, সিনেটর ও অ্যাসেম্বলি সদস?্যদের সঙ্গেও তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল।
ময়নাতদন্তের জন্য জাকিরের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার মরদেহ বাংলাদেশে পাঠানো হবে, নাকি নিউ ইয়র্কে দাফন হবে- এ বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। জাকিরের গ্রামের বাড়ি সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ থানার পাঠানটিলা গ্রামে। ১৯৯২ সালে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন নেন তিনি। ব্রঙ্কসের পার্কচেস্টার রিয়েল এস্টেট কোম্পানি নামে একটি ব্রোকার প্রতিষ্ঠান চালাতেন। ১৩ বছর বয়সী এক মেয়ে এবং দশ ও সাত বছর বয়সী দুই ছেলে রয়েছে তার।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X