বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:৩৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, January 24, 2017 7:57 pm
A- A A+ Print

নিজেকে জাহির করতে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের নয়া কৌশল

34

ওয়াশিংটন: বিশাল হোয়াইট হাউসে একা একা যেন কিছুতেই সময় কাটছে না প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। তাই সোমবার হঠাৎ করেই শহরের অনেককে হোয়াইট হাউসে আমন্ত্রণ জানান তিনি। মনে হচ্ছে প্রেসিডেন্ট ওয়াশিংটনের ডিনার পার্টির পরিসীমায় আঘাত করতে শুরু করেছেন। আসলে, তিনি শহরের মধ্যে একটি সেতু নির্মাণের চেষ্টা করছেন; যাতে তার অতিথিরা তার কাছে সহজেই আসতে পারে। সোমবার সন্ধ্যায় তিনি হোয়াইট হাউসে কংগ্রেসনাল নেতাদের প্রথম রাউন্ডের বৈঠক আয়োজন করেন। সেখানে ট্রাম্প বলেন, ‘সম্পর্ক তৈরি করা খুবই চমৎকার।’ তার এ কথায় উপস্থিত সবাই উল্লাস করেন। বিলি জোয়েলের একটি পিয়ানো অভিনয় ‘মাইন্ড নিউইয়র্ক স্টেটের’ মতো প্রেসিডেন্ট শীর্ষ রিপাবলিকান এবং ডেমোক্রেট নেতাদের একত্রে মিশিয়ে ফেলেন। ট্রাম্প ঘনিষ্টদের কাছে তার টিম স্বীকার করেছেন যে, প্রথম সপ্তাহান্তে তার ওভাল অফিসে অপ্রত্যাশিতভাবে অনেক দর্শনার্থী ও মিডিয়া কভারেজ নিয়ে যুদ্ধ করতে হতে পারে। যা অনেকেই নেতিবাচক হিসেবে অনুভব করছেন। উদ্বিগ্ন রিপাবলিকান নেতারা প্রেসিডেন্টের বার্তায় ধীরে ধীরে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য জোটের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। ট্রাম্পের স্ত্রী মেলানিয়া এবং পুত্র ব্যারন্সের সঙ্গে নিউইয়র্ক ফিরে ট্রাম্প তার উপদেষ্টাদের নির্দেশ দিয়েছেন, হোয়াইট হাউসে একটি ভিন্ন পরিবেশ তৈরি করতে তার সময়সূচি যেন দিন থেকে রাত পর্যন্ত প্রসারিত করা হয়। প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তার পরিবারের সঙ্গে ডিনারের জন্য প্রায়ই সন্ধ্যার পর তার ওভাল অফিস ছেড়ে যেতেন। প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ তার দিন শুরু করতেন দেরি করে এবং অফিসও শেষ করতেন যথাসময়ের কিছু আগে। প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন নিয়মিতভাবেই হোয়াইট হাউসে মধ্যরাতে তেল পোড়াতেন। যেখানে পলিসি ও কৌশল নিয়ে প্রায়ই রাতেই উপদেষ্টাদের সঙ্গে তার আলোচনা হতো। ট্রাম্প সম্ভবত তার তিন পূর্বসুরীদের মধ্যে কোথাও একটা ভারসাম্য আনার চেষ্টা করছেন। ট্রাম্পের পরামর্শদাতা কেলাইননি কনওয়ে জানান, অধিকাংশ সন্ধ্যায়ই প্রেসিডেন্টের সময়সূচীতে নৈশভোজনের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করতে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘মিডিয়ার সঙ্গে ট্রাম্পের যুদ্ধ ঘোষণা সত্ত্বেও, তিনি তার পরিকল্পনায় মিডিয়া নৈশভোজনের বিষয়টিও অর্ন্তভূক্ত করতে বলেছেন।’ অফিসে তার প্রথম পূর্ণ কাজের দিনে খুব দ্রুতই এটি স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে, ওয়েস্ট উইংয়ে ট্রাম্প তার দর্শনার্থীদের দেখাতে কতটা আগ্রহী ছিলেন, বিশেষত ওভাল অফিসে। এক সোমবার দিনই তিনি পৃথক ছয়টি ফটো সেশনে অংশ নেন। এর মধ্যে দুটি ফটো সেশন হয় ওভাল অফিসের রুজভেল্ট রুমে ইউনিয়ন নেতাদের সঙ্গে। ওই ফটো সেশনে উত্তর আমেরিকার বিল্ডিং ট্রেডস ইউনিয়নের সভাপতি শন ম্যাকগারভে ট্রাম্পের ঠিক পিছনেই ছিলেন। হোয়াইট হাউসের বাইরে এসে ম্যাকগারভে বলেন, ‘ওভাল অফিসে তিনি আমাদের প্রত্যেককেই আলাদা করে সময় দেন এবং বিশ্ব ক্ষমতার বিষয়টি আমাদের কাছে অনেকটা স্পষ্ট করে দেখানোর চেষ্টা করেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট আমাদেরকে যে সম্মান দেয়েছেন ...তা সত্যিই অবিশ্বাস্য।’ হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব শন স্পিসার বলেন, ‘তিনি এমন একজন ব্যক্তি যিনি আসলেই এ ধরনের বৈঠককে বেশ ভোগ করেন।’ তবে, এটি একটি খোলা প্রশ্ন আর তা হচ্ছে ডেমোক্রেটিক দলের কিছু নেতা ট্রাম্পের এই আমন্ত্রণকে কিভাবে প্রতিক্রিয়া দেখান, সেটিই দেখার বিষয়। উল্লেখ্য, আট বছর আগে, হোয়াইট হাউসে ওবামার একটি সামাজিক আমন্ত্রণে যোগ দিতে কয়েকজন রিপাবলিকান নেতা অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। ট্রাম্পের জন্য এটি একটি নতুন চ্যালেঞ্জ। সিনেট ডেমোক্রেটিক নেতা চাউক স্ক্যামার, হাউস ডেমোক্রেটিক লিডার ন্যানসি পলোসি এবং তাদের রিপাবলিকান প্রতিপক্ষের সঙ্গে সোমবার সন্ধ্যার ওই বৈঠকে মোটামুটি সবাই খুশি বলে পরে তারা জানান। বৈঠকে ট্রাম্প ঘোষণা দেন, ‘আমরা বড় কিছু করতে যাচ্ছি।’ সিএনএন অবলম্বনে
 

Comments

Comments!

 নিজেকে জাহির করতে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের নয়া কৌশলAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নিজেকে জাহির করতে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের নয়া কৌশল

Tuesday, January 24, 2017 7:57 pm
34

ওয়াশিংটন: বিশাল হোয়াইট হাউসে একা একা যেন কিছুতেই সময় কাটছে না প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। তাই সোমবার হঠাৎ করেই শহরের অনেককে হোয়াইট হাউসে আমন্ত্রণ জানান তিনি।

মনে হচ্ছে প্রেসিডেন্ট ওয়াশিংটনের ডিনার পার্টির পরিসীমায় আঘাত করতে শুরু করেছেন। আসলে, তিনি শহরের মধ্যে একটি সেতু নির্মাণের চেষ্টা করছেন; যাতে তার অতিথিরা তার কাছে সহজেই আসতে পারে।

সোমবার সন্ধ্যায় তিনি হোয়াইট হাউসে কংগ্রেসনাল নেতাদের প্রথম রাউন্ডের বৈঠক আয়োজন করেন। সেখানে ট্রাম্প বলেন, ‘সম্পর্ক তৈরি করা খুবই চমৎকার।’ তার এ কথায় উপস্থিত সবাই উল্লাস করেন।

বিলি জোয়েলের একটি পিয়ানো অভিনয় ‘মাইন্ড নিউইয়র্ক স্টেটের’ মতো প্রেসিডেন্ট শীর্ষ রিপাবলিকান এবং ডেমোক্রেট নেতাদের একত্রে মিশিয়ে ফেলেন।

ট্রাম্প ঘনিষ্টদের কাছে তার টিম স্বীকার করেছেন যে, প্রথম সপ্তাহান্তে তার ওভাল অফিসে অপ্রত্যাশিতভাবে অনেক দর্শনার্থী ও মিডিয়া কভারেজ নিয়ে যুদ্ধ করতে হতে পারে। যা অনেকেই নেতিবাচক হিসেবে অনুভব করছেন। উদ্বিগ্ন রিপাবলিকান নেতারা প্রেসিডেন্টের বার্তায় ধীরে ধীরে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য জোটের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

ট্রাম্পের স্ত্রী মেলানিয়া এবং পুত্র ব্যারন্সের সঙ্গে নিউইয়র্ক ফিরে ট্রাম্প তার উপদেষ্টাদের নির্দেশ দিয়েছেন, হোয়াইট হাউসে একটি ভিন্ন পরিবেশ তৈরি করতে তার সময়সূচি যেন দিন থেকে রাত পর্যন্ত প্রসারিত করা হয়।

প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তার পরিবারের সঙ্গে ডিনারের জন্য প্রায়ই সন্ধ্যার পর তার ওভাল অফিস ছেড়ে যেতেন। প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ তার দিন শুরু করতেন দেরি করে এবং অফিসও শেষ করতেন যথাসময়ের কিছু আগে।

প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন নিয়মিতভাবেই হোয়াইট হাউসে মধ্যরাতে তেল পোড়াতেন। যেখানে পলিসি ও কৌশল নিয়ে প্রায়ই রাতেই উপদেষ্টাদের সঙ্গে তার আলোচনা হতো। ট্রাম্প সম্ভবত তার তিন পূর্বসুরীদের মধ্যে কোথাও একটা ভারসাম্য আনার চেষ্টা করছেন।

ট্রাম্পের পরামর্শদাতা কেলাইননি কনওয়ে জানান, অধিকাংশ সন্ধ্যায়ই প্রেসিডেন্টের সময়সূচীতে নৈশভোজনের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করতে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘মিডিয়ার সঙ্গে ট্রাম্পের যুদ্ধ ঘোষণা সত্ত্বেও, তিনি তার পরিকল্পনায় মিডিয়া নৈশভোজনের বিষয়টিও অর্ন্তভূক্ত করতে বলেছেন।’

অফিসে তার প্রথম পূর্ণ কাজের দিনে খুব দ্রুতই এটি স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে, ওয়েস্ট উইংয়ে ট্রাম্প তার দর্শনার্থীদের দেখাতে কতটা আগ্রহী ছিলেন, বিশেষত ওভাল অফিসে।

এক সোমবার দিনই তিনি পৃথক ছয়টি ফটো সেশনে অংশ নেন। এর মধ্যে দুটি ফটো সেশন হয় ওভাল অফিসের রুজভেল্ট রুমে ইউনিয়ন নেতাদের সঙ্গে।

ওই ফটো সেশনে উত্তর আমেরিকার বিল্ডিং ট্রেডস ইউনিয়নের সভাপতি শন ম্যাকগারভে ট্রাম্পের ঠিক পিছনেই ছিলেন।

হোয়াইট হাউসের বাইরে এসে ম্যাকগারভে বলেন, ‘ওভাল অফিসে তিনি আমাদের প্রত্যেককেই আলাদা করে সময় দেন এবং বিশ্ব ক্ষমতার বিষয়টি আমাদের কাছে অনেকটা স্পষ্ট করে দেখানোর চেষ্টা করেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট আমাদেরকে যে সম্মান দেয়েছেন …তা সত্যিই অবিশ্বাস্য।’

হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব শন স্পিসার বলেন, ‘তিনি এমন একজন ব্যক্তি যিনি আসলেই এ ধরনের বৈঠককে বেশ ভোগ করেন।’

তবে, এটি একটি খোলা প্রশ্ন আর তা হচ্ছে ডেমোক্রেটিক দলের কিছু নেতা ট্রাম্পের এই আমন্ত্রণকে কিভাবে প্রতিক্রিয়া দেখান, সেটিই দেখার বিষয়।

উল্লেখ্য, আট বছর আগে, হোয়াইট হাউসে ওবামার একটি সামাজিক আমন্ত্রণে যোগ দিতে কয়েকজন রিপাবলিকান নেতা অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। ট্রাম্পের জন্য এটি একটি নতুন চ্যালেঞ্জ।

সিনেট ডেমোক্রেটিক নেতা চাউক স্ক্যামার, হাউস ডেমোক্রেটিক লিডার ন্যানসি পলোসি এবং তাদের রিপাবলিকান প্রতিপক্ষের সঙ্গে সোমবার সন্ধ্যার ওই বৈঠকে

মোটামুটি সবাই খুশি বলে পরে তারা জানান।

বৈঠকে ট্রাম্প ঘোষণা দেন, ‘আমরা বড় কিছু করতে যাচ্ছি।’

সিএনএন অবলম্বনে

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X