শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:৩২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, October 23, 2017 3:34 pm
A- A A+ Print

নিজেকে পতিতার মতো মনে হচ্ছিল- আদ্রিয়েনে লাভ্যালি

88799_aro

প্রযোজক হারভে উইন্সটেনের পর এবার হলিউডের পরিচালক জেমস টোব্যাকের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ। কমপক্ষে ৩৮ জন নারী তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন। তারা বলেছেন, পরিচালক জেমস টোব্যাকে তাদের কাউকে ধর্ষণ করেছেন অথবা যৌন হয়রান করেছেন। একের পর এক এমন অভিযোগে হলিউডের অন্ধকার জগতের চেহারা ক্রমশ উন্মোচিত হচ্ছে। অভিনেত্রী, বিভিন্ন শ্রেণি, পেশার নারীদের এমন অভিযোগে দুনিয়াজুড়ে তোলপাড় চলছে। পরিচালক জেমস টোব্যাকের বিরুদ্ধে যেসব অভিনেত্রী এমন অভিযোগ এনেছেন তার মধ্যে অন্যতম আদ্রিয়েনে লাভ্যালি, টেরি কোন উল্লেখযোগ্য। এর মধ্যে আদ্রয়েনে লাভ্যালি বলেছেন, জমস টোব্যাকের হাতে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়ে আমার কাছে নিজেকে একজন পতিতা বলে মনে হচ্ছিল। নিজের ভিতর ভয়াবহ এক হতাশা কাজ করছিল। পিতামাতা, পরিবারের বন্ধুবান্ধব কারো কাছে সেই হতাশার কথা বলতে পারি নি। এটা কারো কাছে বলার মতো কথা নয়। অন্যদিকে টেরি কোন বলেছেন, আমি বিস্মিত হয়ে গিয়েছিলাম জমস টোব্যাকের আচরণে। আমি মুহূর্তে জমে গিয়েছিলাম। বুঝতে পারছিলাম না কি করতে হবে। আমার তখন মনে হচ্ছিল যদি আমি তাকে থামিয়ে দিই তাহলে পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে। তাই তিনি আমার ওপর শক্তিপ্রয়োগ করেন। নিউ ইয়র্ক টাইমস ও নিউ ইয়র্কার ফাঁস করেছে প্রযোজক হারভে উইন্সটেনের যৌনতার রগরগে কাহিনী। আর পরিচালক জমস টোব্যাকের কাহিনী ফাঁস করলো যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যানজেলেস টাইমস। তারা নির্যাতিত ৩৮ জন নারীর আলাদা আলাদাভাবে সাক্ষাতকার নিয়েচে। এতে বরা হয়েছে, অডিশনের নামে, সাক্ষাতকারের নামে, কোনো হোটেল রুমে, মুভি ট্রেলারের নামে, কোনো খোলা পার্কে দ্রুত যৌন সুবিধা নিতেন জমস টোব্যাকে। লস অ্যানজেলেস টাইমস লিখেছে, তিনি ম্যানহাটানের রাস্তাগুলো চষে বেড়ান। খুঁজে ফেরেন আকর্ষণীয় যুবতীদের। এক্ষেত্রে তার বাছাই ২০ এর কোটার শুরুতে আছেন এমন যুবতী। বিশেষ করে কলেজ ছাত্রীদের তার পছন্দ। কখনোবা চোখ চলে যায় স্কুলগামী ছাত্রীদের দিকে। তিনি সেন্ট্রাল পার্কে, কোনো নদীর পাড়ে, ওষুধের দোকানে অথবা কোনো ফটোস্ট্যাট সেন্টারে এমন যুবতী, কিশোরীর পিছু নেন। শুরুতে তিনি নিজেকে পরিচয় দেন এভাবেÑ আমার নাম হলো জেমস টোব্যাকে। আমি চলচ্চিত্র পরিচালক। তুমি কি ‘ব্লাক অ্যান্ড হোয়াইট’ অথবা ‘টু গার্লস অ্যান্ড এ গাই’ ছবি দেখেছ? ওয়ারেন বেটির ছবি ‘বাগসি’র সংলাপ লেখার জন্য অস্কার মনোনয়ন পেয়েছিলেন জমস টোব্যাকে। তিনি পরিচালনা করেছেন রবার্ট ডাউনি জুনিয়রের তিনটি ছবি। তিনিই এমন সব কান্ড ঘটিয়ে বেড়িয়েছেন। ক্যারিয়ার গড়ে দেয়ার কথা বলে অভিনেত্রী বা যুবতীদের কাছ থেকে যৌন সুবিধা আদায় করেছেন জোর করে। সাক্ষাতকারে অনেক নারী বলেছেন, তাদেরকে সাক্ষাতকারে ডাকা হতো। কিন্তু সেই সাক্ষাতকারে আপত্তিকর প্রশ্ন করা হতো। এসব প্রশ্ন এখানে উল্লেখ করা সমীচীন নয়। এসব প্রশ্ন করে তিনি অভিনেত্রী বা যুবতীদের ঘায়েল করতেন। তখন তার আচরণ থাকতো জঘন্য। এসব যুবতীর শরীরের সঙ্গে নিজের শরীর ঠেকিয়ে দাঁড়াতেন। বাকিটা বলা কঠিন। সাক্ষাতকারে এসব নারী জমস টোব্যাকে’কে দশকের পর দশক যৌন নির্যাতক হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তারা বলেছেন, যেসব যুবতী তার কাছে কাজ করতে যান অথবা যাদেরকে রাস্তায় দেখেন তিনি তাদেরকে পছন্দ হলেই এমন হয়রান করতেন। ৩৮ জন নারীর মধ্যে ৩১ জনই অন রেকর্ড সাক্ষাতকার দিয়েছেন। তবে তারা ঘটনার সময়ে পুলিশের কাছে রিপোর্ট করেন নি। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে জমস টোব্যাকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। বলেছেন, তিনি এসব নারীর সঙ্গে কখনো সাক্ষাতই করেন নি। যদিও সাক্ষাত হয়ে থাকে তাহলে ৫ মিনিটের বেশি নয়। তারপর আর দেখা হয় নি। তিনি দাবি করেছেন, এসব নারী যে অভিযোগ করেছেন সে রকম আচরণ করার ক্ষেত্রে শারীরিকবাবে গত ২২ বছর তিনি অক্ষম। তিনি বলেছেন, তার ডায়াবেটিস আছে। হার্টে সমস্যা আছে। এ জন্য তার চিকিৎসা নেয়া প্রয়োজন। তবে তিনি এর বেশি কিছু বলতে রাজি হন নি।

Comments

Comments!

 নিজেকে পতিতার মতো মনে হচ্ছিল- আদ্রিয়েনে লাভ্যালিAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নিজেকে পতিতার মতো মনে হচ্ছিল- আদ্রিয়েনে লাভ্যালি

Monday, October 23, 2017 3:34 pm
88799_aro

প্রযোজক হারভে উইন্সটেনের পর এবার হলিউডের পরিচালক জেমস টোব্যাকের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ। কমপক্ষে ৩৮ জন নারী তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন। তারা বলেছেন, পরিচালক জেমস টোব্যাকে তাদের কাউকে ধর্ষণ করেছেন অথবা যৌন হয়রান করেছেন। একের পর এক এমন অভিযোগে হলিউডের অন্ধকার জগতের চেহারা ক্রমশ উন্মোচিত হচ্ছে। অভিনেত্রী, বিভিন্ন শ্রেণি, পেশার নারীদের এমন অভিযোগে দুনিয়াজুড়ে তোলপাড় চলছে। পরিচালক জেমস টোব্যাকের বিরুদ্ধে যেসব অভিনেত্রী এমন অভিযোগ এনেছেন তার মধ্যে অন্যতম আদ্রিয়েনে লাভ্যালি, টেরি কোন উল্লেখযোগ্য।

এর মধ্যে আদ্রয়েনে লাভ্যালি বলেছেন, জমস টোব্যাকের হাতে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়ে আমার কাছে নিজেকে একজন পতিতা বলে মনে হচ্ছিল। নিজের ভিতর ভয়াবহ এক হতাশা কাজ করছিল। পিতামাতা, পরিবারের বন্ধুবান্ধব কারো কাছে সেই হতাশার কথা বলতে পারি নি। এটা কারো কাছে বলার মতো কথা নয়। অন্যদিকে টেরি কোন বলেছেন, আমি বিস্মিত হয়ে গিয়েছিলাম জমস টোব্যাকের আচরণে। আমি মুহূর্তে জমে গিয়েছিলাম। বুঝতে পারছিলাম না কি করতে হবে। আমার তখন মনে হচ্ছিল যদি আমি তাকে থামিয়ে দিই তাহলে পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে। তাই তিনি আমার ওপর শক্তিপ্রয়োগ করেন। নিউ ইয়র্ক টাইমস ও নিউ ইয়র্কার ফাঁস করেছে প্রযোজক হারভে উইন্সটেনের যৌনতার রগরগে কাহিনী। আর পরিচালক জমস টোব্যাকের কাহিনী ফাঁস করলো যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যানজেলেস টাইমস। তারা নির্যাতিত ৩৮ জন নারীর আলাদা আলাদাভাবে সাক্ষাতকার নিয়েচে। এতে বরা হয়েছে, অডিশনের নামে, সাক্ষাতকারের নামে, কোনো হোটেল রুমে, মুভি ট্রেলারের নামে, কোনো খোলা পার্কে দ্রুত যৌন সুবিধা নিতেন জমস টোব্যাকে। লস অ্যানজেলেস টাইমস লিখেছে, তিনি ম্যানহাটানের রাস্তাগুলো চষে বেড়ান। খুঁজে ফেরেন আকর্ষণীয় যুবতীদের। এক্ষেত্রে তার বাছাই ২০ এর কোটার শুরুতে আছেন এমন যুবতী। বিশেষ করে কলেজ ছাত্রীদের তার পছন্দ। কখনোবা চোখ চলে যায় স্কুলগামী ছাত্রীদের দিকে। তিনি সেন্ট্রাল পার্কে, কোনো নদীর পাড়ে, ওষুধের দোকানে অথবা কোনো ফটোস্ট্যাট সেন্টারে এমন যুবতী, কিশোরীর পিছু নেন। শুরুতে তিনি নিজেকে পরিচয় দেন এভাবেÑ আমার নাম হলো জেমস টোব্যাকে। আমি চলচ্চিত্র পরিচালক। তুমি কি ‘ব্লাক অ্যান্ড হোয়াইট’ অথবা ‘টু গার্লস অ্যান্ড এ গাই’ ছবি দেখেছ?
ওয়ারেন বেটির ছবি ‘বাগসি’র সংলাপ লেখার জন্য অস্কার মনোনয়ন পেয়েছিলেন জমস টোব্যাকে। তিনি পরিচালনা করেছেন রবার্ট ডাউনি জুনিয়রের তিনটি ছবি। তিনিই এমন সব কান্ড ঘটিয়ে বেড়িয়েছেন। ক্যারিয়ার গড়ে দেয়ার কথা বলে অভিনেত্রী বা যুবতীদের কাছ থেকে যৌন সুবিধা আদায় করেছেন জোর করে। সাক্ষাতকারে অনেক নারী বলেছেন, তাদেরকে সাক্ষাতকারে ডাকা হতো। কিন্তু সেই সাক্ষাতকারে আপত্তিকর প্রশ্ন করা হতো। এসব প্রশ্ন এখানে উল্লেখ করা সমীচীন নয়। এসব প্রশ্ন করে তিনি অভিনেত্রী বা যুবতীদের ঘায়েল করতেন। তখন তার আচরণ থাকতো জঘন্য। এসব যুবতীর শরীরের সঙ্গে নিজের শরীর ঠেকিয়ে দাঁড়াতেন। বাকিটা বলা কঠিন। সাক্ষাতকারে এসব নারী জমস টোব্যাকে’কে দশকের পর দশক যৌন নির্যাতক হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তারা বলেছেন, যেসব যুবতী তার কাছে কাজ করতে যান অথবা যাদেরকে রাস্তায় দেখেন তিনি তাদেরকে পছন্দ হলেই এমন হয়রান করতেন। ৩৮ জন নারীর মধ্যে ৩১ জনই অন রেকর্ড সাক্ষাতকার দিয়েছেন। তবে তারা ঘটনার সময়ে পুলিশের কাছে রিপোর্ট করেন নি। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে জমস টোব্যাকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। বলেছেন, তিনি এসব নারীর সঙ্গে কখনো সাক্ষাতই করেন নি। যদিও সাক্ষাত হয়ে থাকে তাহলে ৫ মিনিটের বেশি নয়। তারপর আর দেখা হয় নি। তিনি দাবি করেছেন, এসব নারী যে অভিযোগ করেছেন সে রকম আচরণ করার ক্ষেত্রে শারীরিকবাবে গত ২২ বছর তিনি অক্ষম। তিনি বলেছেন, তার ডায়াবেটিস আছে। হার্টে সমস্যা আছে। এ জন্য তার চিকিৎসা নেয়া প্রয়োজন। তবে তিনি এর বেশি কিছু বলতে রাজি হন নি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X