বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:৪৭
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, November 3, 2016 12:16 pm
A- A A+ Print

নির্যাতিত শিশুটি বলল, আম্মু কামরাইসে

photo-1478152566

বৃহস্পতিবার সকাল। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কক্ষে দেখা গেল ফুটফুটে এক শিশুকে। তার শরীরে কিছু ক্ষতচিহ্ন। স্পষ্টতই আঘাতের চিহ্ন। হাতে কী জানতে চাইলে শিশুটি ক্ষতচিহ্ন দেখিয়ে বলে, ‘আম্মু কামরাইসে।’ খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের বল্লালবাড়ী এলাকার একটি বাড়িতে কাজ করে শিশুটি। গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে ওই এলাকার সিরাজ মিয়ার বাড়ি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে এলাকাবাসী। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)  মো. ইউনুচ আলী জানান, ওই শিশু গৃহকর্মী এখন সদর থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। নির্যাতনের অভিযোগ থাকা গৃহকর্ত্রী কল্পনা বেগমের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওসি আরো বলেন, শিশুটির বাবাকে পাওয়া গেছে। তাকে আদালতে পাঠানো হচ্ছে। শিশুটিকে কার হেফাজতে দেবে, সেটি আদালতের বিষয়। স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, মা মারা যাওয়ার পর শিশুটিকে সিরাজ মিয়ার স্ত্রী কল্পনা বেগম পালক আনেন। পরে ওই বাড়িতে  সিরাজ মিয়ার বাড়ির গৃহকর্মী হয়ে ওঠে শিশুটি। স্থানীয় কয়েকজনের অভিযোগ, দিনের পর দিন শিশুটিকে অমানুষিক নির্যাতন করে আসছে গৃহকর্ত্রী কল্পনা বেগম। তার শরীরে আগুনের ছ্যাঁকা ও চোখে-মুখে মারধর করা হয়েছে। বুধবার অমানুষিক নির্যাতন করার একপর্যায়ে এলাকাবাসী শিশুটিকে উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেয়। পরে পুলিশ নিজেদের হেফাজতে নিয়ে যায় শিশুকে। মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক শৈবাল বসাক জানান, শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়া দরকার। অন্যথায় সে বড় ধরনের ক্ষতির শিকার হতে পারে। নির্যাতনের বিষয়ে জানতে চাইলে গৃহকর্ত্রী কল্পনা বেগম বলেন, ‘আমার মেয়েকে আমি মারব, কাটব। আপনাদের কী? হউক সুবর্ণা আমার পালক মেয়ে।’

Comments

Comments!

 নির্যাতিত শিশুটি বলল, আম্মু কামরাইসেAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নির্যাতিত শিশুটি বলল, আম্মু কামরাইসে

Thursday, November 3, 2016 12:16 pm
photo-1478152566

বৃহস্পতিবার সকাল। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কক্ষে দেখা গেল ফুটফুটে এক শিশুকে। তার শরীরে কিছু ক্ষতচিহ্ন। স্পষ্টতই আঘাতের চিহ্ন। হাতে কী জানতে চাইলে শিশুটি ক্ষতচিহ্ন দেখিয়ে বলে, ‘আম্মু কামরাইসে।’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের বল্লালবাড়ী এলাকার একটি বাড়িতে কাজ করে শিশুটি। গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে ওই এলাকার সিরাজ মিয়ার বাড়ি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে এলাকাবাসী।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)  মো. ইউনুচ আলী জানান, ওই শিশু গৃহকর্মী এখন সদর থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। নির্যাতনের অভিযোগ থাকা গৃহকর্ত্রী কল্পনা বেগমের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ওসি আরো বলেন, শিশুটির বাবাকে পাওয়া গেছে। তাকে আদালতে পাঠানো হচ্ছে। শিশুটিকে কার হেফাজতে দেবে, সেটি আদালতের বিষয়।

স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, মা মারা যাওয়ার পর শিশুটিকে সিরাজ মিয়ার স্ত্রী কল্পনা বেগম পালক আনেন। পরে ওই বাড়িতে  সিরাজ মিয়ার বাড়ির গৃহকর্মী হয়ে ওঠে শিশুটি।

স্থানীয় কয়েকজনের অভিযোগ, দিনের পর দিন শিশুটিকে অমানুষিক নির্যাতন করে আসছে গৃহকর্ত্রী কল্পনা বেগম। তার শরীরে আগুনের ছ্যাঁকা ও চোখে-মুখে মারধর করা হয়েছে।

বুধবার অমানুষিক নির্যাতন করার একপর্যায়ে এলাকাবাসী শিশুটিকে উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেয়। পরে পুলিশ নিজেদের হেফাজতে নিয়ে যায় শিশুকে।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক শৈবাল বসাক জানান, শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়া দরকার। অন্যথায় সে বড় ধরনের ক্ষতির শিকার হতে পারে।

নির্যাতনের বিষয়ে জানতে চাইলে গৃহকর্ত্রী কল্পনা বেগম বলেন, ‘আমার মেয়েকে আমি মারব, কাটব। আপনাদের কী? হউক সুবর্ণা আমার পালক মেয়ে।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X