রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ভোর ৫:১৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, December 28, 2016 9:06 am
A- A A+ Print

নিষেধ না মেনে ১১ সাংসদ সক্রিয় নিজ জেলার ভোটে

%e0%a7%ac

নির্বাচন কমিশন ও জাতীয় সংসদের স্পিকারের নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে বেশ কয়েকজন সাংসদ সক্রিয় প্রভাব বিস্তার করছেন জেলা পরিষদ নির্বাচনে। দেশের ৭ জেলায় অন্তত ১১ জন সরকারদলীয় সাংসদ নিজ নিজ এলাকায় অবস্থান করছেন। প্রার্থীদের অনেকেই অভিযোগ করেছেন, সাংসদেরা পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইছেন, কেউ কেউ ভোটের বিনিময়ে টিআর-কাবিখা বরাদ্দের কথাও বলছেন, যা নির্বাচনী আচরণবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

আজ বুধবার দেশের ৬১টি জেলায় জেলা পরিষদের ভোট গ্রহণ হবে।

নির্বাচনের আচরণবিধি অনুসারে, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী-উপমন্ত্রী ও সমমর্যাদার ব্যক্তি ও সাংসদেরা জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটে প্রচার চালাতে পারেন না। নির্বাচন কমিশন এই বিষয়টি উল্লেখ করে আগামী বৃহস্পতিবারের আগে সাংসদদের নিজ নির্বাচনী এলাকা কিংবা নির্বাচন হচ্ছে এমন স্থানে অবস্থান না করার নির্দেশনা দিয়েছে। গত সোমবার সন্ধ্যায় এই নির্দেশনাসংবলিত একটি চিঠি জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীকে দেয় কমিশন। স্পিকারের দপ্তর জানিয়েছে, গতকাল মঙ্গলবার বিষয়টি সাংসদদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 অনুসন্ধানে খুলনা, সাতক্ষীরা, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, দিনাজপুর, কুড়িগ্রাম ও সুনামগঞ্জে অন্তত ১১ জন সাংসদের অবস্থান করার তথ্য পাওয়া গেছে।

এর মধ্যে শুধু দিনাজপুরেই তিনজন সাংসদ অবস্থান করছেন। দিনাজপুর সদরের সাংসদ ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বেশ কিছুদিন ধরেই এলাকায় অবস্থান করছেন বলে স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে। এর বাইরে দিনাজপুর-১ আসনের সাংসদ মনোরঞ্জন শীল গোপাল এবং দিনাজপুর-৬ আসনের সাংসদ শিবলী সাদিক দিনাজপুরে অবস্থান করছেন।

জানতে চাইলে ইকবালুর রহিম জানান, নির্বাচন কমিশনের বা স্পিকারের নির্দেশনা তাঁর জানা নেই। তিনি বলেন, ‘আমার মা অসুস্থ বলেই বাড়িতে এসেছি। সারা দেশেই তো জেলা পরিষদ নির্বাচন হচ্ছে। তাহলে আমরা যাব কোথায়?’

পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনের সাংসদ ও সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুবুর রহমান তালুকদার কয়েক দিন ধরেই নিজ নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করছেন। সাংসদের স্ত্রী প্রীতি হায়দার জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী সদস্য পদের প্রার্থী। স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, সাংসদ স্ত্রী ছাড়াও পছন্দের প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চাইছেন। এই সাংসদের বিরুদ্ধে ভোটারদের চাপ প্রয়োগ, ভয়ভীতি দেখানো এবং নানা প্রতিশ্রুতি দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

মাহবুবুর রহমান  বলেন, ‘আমি এলাকায় আছি, এটা ঠিক। তবে নির্বাচনের বিষয়ে আমি কোনো হস্তক্ষেপ করিনি, কারও কাছে ভোটও চাইনি। কারণ, এখানে যাঁরা নির্বাচন করছেন, তাঁরা সবাই আমার দলের লোক। তাই কারও পক্ষে ভোট চাওয়া বা ভয়ভীতি দেখানোর প্রশ্নই আসে না। আমি আজ (গতকাল) রাতেই এলাকা ছাড়ব।’

সুনামগঞ্জ ১ (ধরমপাশা-জামালগঞ্জ ও তাহিরপুর) আসনের সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন ওরফে রতন গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে নির্বাচনে অংশ নেওয়া একাধিক প্রার্থী জানিয়েছেন, সাংসদ দীর্ঘদিন ধরেই এলাকায় অবস্থান করছেন। বাড়িতে ভোটারদের ডেকে পছন্দের প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চেয়েছেন। টিআর, কাবিখাসহ নানা সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

এ বিষয়ে সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘আমার সন্তানদের স্কুল বন্ধ। তাই আমি বাড়িতে এসেছি। নিজ বাড়িতে থাকা যাবে না—নির্বাচন কমিশন থেকে এমনটি বলা হয়নি। কেন্দ্রে না যাওয়া, ভোটারদের প্রভাবিত না করার কথা বলেছে। আমি এসব কিছু করছি না।’

পিরোজপুর-১ আসনের সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম এ আউয়ালের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে নিজ দল থেকেই। গতকাল পিরোজপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শাহ আলম অভিযোগ করেন, সাংসদ এলাকায় অবস্থান করে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মহিউদ্দিন মহারাজের পক্ষে প্রচার চালাচ্ছেন। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের ডেকে মহারাজকে ভোট দিতে চাপ দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে সাংসদ এ কে এম এ আউয়াল মুঠোফোনে বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগত কাজে পিরোজপুরে অবস্থান করছি। আমার ব্যবসা দেখাশোনা ও আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স নবায়ন করা শেষে ঢাকা চলে যাব। নির্বাচনে আমি কারও পক্ষে কোনো প্রচারণা চালাচ্ছি না। আমার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ ভিত্তিহীন।’

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অমান্য করে আরও যেসব সাংসদ এলাকায় অবস্থান করছেন তাঁরা হলেন সাতক্ষীরা-২ আসনের মীর মোস্তাক আহমেদ, খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের শেখ মো. নূরুল হক, খুলনা-২ (সদর-সোনাডাঙ্গা) আসনের মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, কুড়িগ্রাম-১ (নাগেশ্বরী-ভূরুঙ্গামারী) আসনের এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান ও কুড়িগ্রাম-৪ (রৌমারী, রাজীবপুর ও চিলমারী) আসনের রুহুল আমিন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলের মন্ত্রী ও সাংসদদের জেলা পরিষদ নির্বাচনের আচরণবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি গতকাল সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের বলেন, কোনো অবস্থাতেই তাঁরা এলাকায় অবস্থান করতে পারবেন না। নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারবেন না।

Comments

Comments!

 নিষেধ না মেনে ১১ সাংসদ সক্রিয় নিজ জেলার ভোটেAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নিষেধ না মেনে ১১ সাংসদ সক্রিয় নিজ জেলার ভোটে

Wednesday, December 28, 2016 9:06 am
%e0%a7%ac

নির্বাচন কমিশন ও জাতীয় সংসদের স্পিকারের নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে বেশ কয়েকজন সাংসদ সক্রিয় প্রভাব বিস্তার করছেন জেলা পরিষদ নির্বাচনে। দেশের ৭ জেলায় অন্তত ১১ জন সরকারদলীয় সাংসদ নিজ নিজ এলাকায় অবস্থান করছেন। প্রার্থীদের অনেকেই অভিযোগ করেছেন, সাংসদেরা পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইছেন, কেউ কেউ ভোটের বিনিময়ে টিআর-কাবিখা বরাদ্দের কথাও বলছেন, যা নির্বাচনী আচরণবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

আজ বুধবার দেশের ৬১টি জেলায় জেলা পরিষদের ভোট গ্রহণ হবে।

নির্বাচনের আচরণবিধি অনুসারে, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী-উপমন্ত্রী ও সমমর্যাদার ব্যক্তি ও সাংসদেরা জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটে প্রচার চালাতে পারেন না। নির্বাচন কমিশন এই বিষয়টি উল্লেখ করে আগামী বৃহস্পতিবারের আগে সাংসদদের নিজ নির্বাচনী এলাকা কিংবা নির্বাচন হচ্ছে এমন স্থানে অবস্থান না করার নির্দেশনা দিয়েছে। গত সোমবার সন্ধ্যায় এই নির্দেশনাসংবলিত একটি চিঠি জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীকে দেয় কমিশন। স্পিকারের দপ্তর জানিয়েছে, গতকাল মঙ্গলবার বিষয়টি সাংসদদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 অনুসন্ধানে খুলনা, সাতক্ষীরা, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, দিনাজপুর, কুড়িগ্রাম ও সুনামগঞ্জে অন্তত ১১ জন সাংসদের অবস্থান করার তথ্য পাওয়া গেছে।

এর মধ্যে শুধু দিনাজপুরেই তিনজন সাংসদ অবস্থান করছেন। দিনাজপুর সদরের সাংসদ ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বেশ কিছুদিন ধরেই এলাকায় অবস্থান করছেন বলে স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে। এর বাইরে দিনাজপুর-১ আসনের সাংসদ মনোরঞ্জন শীল গোপাল এবং দিনাজপুর-৬ আসনের সাংসদ শিবলী সাদিক দিনাজপুরে অবস্থান করছেন।

জানতে চাইলে ইকবালুর রহিম জানান, নির্বাচন কমিশনের বা স্পিকারের নির্দেশনা তাঁর জানা নেই। তিনি বলেন, ‘আমার মা অসুস্থ বলেই বাড়িতে এসেছি। সারা দেশেই তো জেলা পরিষদ নির্বাচন হচ্ছে। তাহলে আমরা যাব কোথায়?’

পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনের সাংসদ ও সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুবুর রহমান তালুকদার কয়েক দিন ধরেই নিজ নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করছেন। সাংসদের স্ত্রী প্রীতি হায়দার জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী সদস্য পদের প্রার্থী। স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, সাংসদ স্ত্রী ছাড়াও পছন্দের প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চাইছেন। এই সাংসদের বিরুদ্ধে ভোটারদের চাপ প্রয়োগ, ভয়ভীতি দেখানো এবং নানা প্রতিশ্রুতি দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

মাহবুবুর রহমান  বলেন, ‘আমি এলাকায় আছি, এটা ঠিক। তবে নির্বাচনের বিষয়ে আমি কোনো হস্তক্ষেপ করিনি, কারও কাছে ভোটও চাইনি। কারণ, এখানে যাঁরা নির্বাচন করছেন, তাঁরা সবাই আমার দলের লোক। তাই কারও পক্ষে ভোট চাওয়া বা ভয়ভীতি দেখানোর প্রশ্নই আসে না। আমি আজ (গতকাল) রাতেই এলাকা ছাড়ব।’

সুনামগঞ্জ ১ (ধরমপাশা-জামালগঞ্জ ও তাহিরপুর) আসনের সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন ওরফে রতন গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে নির্বাচনে অংশ নেওয়া একাধিক প্রার্থী জানিয়েছেন, সাংসদ দীর্ঘদিন ধরেই এলাকায় অবস্থান করছেন। বাড়িতে ভোটারদের ডেকে পছন্দের প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চেয়েছেন। টিআর, কাবিখাসহ নানা সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

এ বিষয়ে সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘আমার সন্তানদের স্কুল বন্ধ। তাই আমি বাড়িতে এসেছি। নিজ বাড়িতে থাকা যাবে না—নির্বাচন কমিশন থেকে এমনটি বলা হয়নি। কেন্দ্রে না যাওয়া, ভোটারদের প্রভাবিত না করার কথা বলেছে। আমি এসব কিছু করছি না।’

পিরোজপুর-১ আসনের সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম এ আউয়ালের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে নিজ দল থেকেই। গতকাল পিরোজপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শাহ আলম অভিযোগ করেন, সাংসদ এলাকায় অবস্থান করে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মহিউদ্দিন মহারাজের পক্ষে প্রচার চালাচ্ছেন। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের ডেকে মহারাজকে ভোট দিতে চাপ দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে সাংসদ এ কে এম এ আউয়াল মুঠোফোনে বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগত কাজে পিরোজপুরে অবস্থান করছি। আমার ব্যবসা দেখাশোনা ও আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স নবায়ন করা শেষে ঢাকা চলে যাব। নির্বাচনে আমি কারও পক্ষে কোনো প্রচারণা চালাচ্ছি না। আমার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ ভিত্তিহীন।’

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অমান্য করে আরও যেসব সাংসদ এলাকায় অবস্থান করছেন তাঁরা হলেন সাতক্ষীরা-২ আসনের মীর মোস্তাক আহমেদ, খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের শেখ মো. নূরুল হক, খুলনা-২ (সদর-সোনাডাঙ্গা) আসনের মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, কুড়িগ্রাম-১ (নাগেশ্বরী-ভূরুঙ্গামারী) আসনের এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান ও কুড়িগ্রাম-৪ (রৌমারী, রাজীবপুর ও চিলমারী) আসনের রুহুল আমিন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলের মন্ত্রী ও সাংসদদের জেলা পরিষদ নির্বাচনের আচরণবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি গতকাল সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের বলেন, কোনো অবস্থাতেই তাঁরা এলাকায় অবস্থান করতে পারবেন না। নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারবেন না।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X