রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৪০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, December 2, 2016 11:45 pm
A- A A+ Print

নৌকার পক্ষে সবাই একসঙ্গে কাজ করবে, আশা আ.লীগের

%e0%a7%a9%e0%a7%a9

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে কাজ করতে প্রধানমন্ত্রীর বার্তা স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়েছে। স্থানীয় নেতাদের বলা হয়েছে, নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর জয় দেখতে চান প্রধানমন্ত্রী। এ ব্যাপারে দলীয় নেতাদের কোনো গাফিলতি গ্রহণযোগ্য হবে না বলেও তাঁদের জানিয়ে দেওয়া হয়। অবশ্য স্থানীয় নেতারা কেন্দ্রীয় নেতাদের আশ্বস্ত করেছেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী, নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা আইভীকে জিতিয়ে আনতে তাঁরা এক হয়ে কাজ করবেন। প্রচার-প্রচারণা শুরু হওয়ার দিন থেকেই তাঁরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে থাকবেন। তবে তাঁরা কেন্দ্রীয় নেতাদের এ-ও বলেছেন, আইভী তাঁদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করছেন না। তিনি না চাইলে কীভাবে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবেন। আজ শুক্রবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ শহরের ২ নম্বর রেলগেটের কাছে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধিদল স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সেখানেই স্থানীয় নেতাদের কাছে প্রধানমন্ত্রীর এই কড়া বার্তা জানিয়ে দেওয়া হয়। কার্যালয়ের ভেতরে বৈঠকের সময় বাইরে বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা শেখ হাসিনা মনোনীত প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। সবাই মিলে নৌকার বিজয়কে সুনিশ্চিত করতে আমরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাব।’ আইভী-শামীম ওসমানের বিরোধিতার বিষয়টি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের মানুষের মধ্যে ও চায়ের টেবিলে যেসব মুখরোচক গল্প আছে, এই সভার পর তার অবসান ঘটবে। আমরা এগোচ্ছি নৌকার বিজয়কে সুনিশ্চিত করতে।’ বৈঠকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসিম কুমার উকিল, তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক আফজাল হোসেন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণবিষয়ক সম্পাদক সুজিত নন্দী, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সভাপতি মুজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন মিয়া, বন্দর থানার সভাপতি এম এ রশিদসহ স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন। তবে বৈঠকে সদ্য সাবেক মেয়র ও এবারের সরকারদলীয় প্রার্থী সেলিমা হায়াৎ আইভী এবং নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমান উপস্থিত ছিলেন না। তবে সভার একপর্যায়ে সেখানে আইভী উপস্থিত হন। কিন্তু তিনি কিছু বলেননি। সবাইকে সালাম দিয়েছেন। বৈঠক শেষে মহিবুল হাসান প্রথম আলোকে বলেন, স্থানীয় নেতাদের বলা হয়েছে, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। এখানে যদি আওয়ামী লীগ না জেতে, আর বিএনপি জিতে যায়, তাহলে বিএনপি সুযোগ পেয়ে যাবে। সেটা তো আওয়ামী লীগের জন্য ভালো হবে না। তিনি বলেন, স্থানীয় নেতারা আইভীর পক্ষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার কথা বলেছেন। মূলত শামীম ওসমানের সঙ্গে মেয়র আইভীর দ্বন্দ্বের কারণে এবারের সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্থানীয় আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী ও দায়িত্বশীল নেতারা এখনো পর্যন্ত আইভীর পক্ষে মাঠে নামেননি। যদিও নির্বাচনে আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা শুরু হয়নি, তারপরও স্থানীয় নেতারা আইভীর পাশে থাকছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। আইভী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় কেবল জেলা সভাপতি আবদুল হাই ছাড়া অন্য কোনো নেতাকে তাঁর পাশে দেখা যায়নি। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সভাপতি মুজিবুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘কেন্দ্রের নেতারা প্রধানমন্ত্রীর বার্তা দিয়েছেন। আমরা বলেছি, আমরা নৌকার পক্ষে কাজ করব। এর কোনো বিকল্প নেই। আবার এ-ও বলেছি, আইভী স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন না। নিজের মতো ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এভাবে দলীয় নির্বাচন হয় না। আমরা কেন্দ্রীয় নেতাদের বলেছি আইভীকে শোধরানোর জন্য।’ ভোটারদের দ্বারে আইভী ও সাখাওয়াত: শুক্রবার দুপুরে নগরের সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকায় ভোটারদের সঙ্গে কথা বলেন সেলিনা হায়াৎ আইভী। সেখানে পৌঁছালে স্থানীয় মানুষ, বিভিন্ন সংগঠন ও আওয়ামী লীগের কিছু নেতা-কর্মী আইভীকে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক ‘নৌকা’র রেপ্লিকা উপহার দেন। তা ছাড়া মাইকে আইভীকে ও নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়। অবশ্য সেখানে আইভী গণমাধ্যমের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। আইভীর প্রচার-প্রচারণা চালানো নির্বাচনী আইনের লঙ্ঘন বলে দাবি করেছেন বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান। তিনি বলেন, আইভী যেভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন, তা আইনের পরিপন্থী। তিনি আজ নগরের নিতাইগঞ্জসহ কয়েকটি স্থানে ভোটারদের সঙ্গে কথা বলেন। ওয়ার্ড পর্যায়ে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়ও করেন তিনি।

Comments

Comments!

 নৌকার পক্ষে সবাই একসঙ্গে কাজ করবে, আশা আ.লীগেরAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নৌকার পক্ষে সবাই একসঙ্গে কাজ করবে, আশা আ.লীগের

Friday, December 2, 2016 11:45 pm
%e0%a7%a9%e0%a7%a9

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে কাজ করতে প্রধানমন্ত্রীর বার্তা স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়েছে। স্থানীয় নেতাদের বলা হয়েছে, নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর জয় দেখতে চান প্রধানমন্ত্রী। এ ব্যাপারে দলীয় নেতাদের কোনো গাফিলতি গ্রহণযোগ্য হবে না বলেও তাঁদের জানিয়ে দেওয়া হয়।

অবশ্য স্থানীয় নেতারা কেন্দ্রীয় নেতাদের আশ্বস্ত করেছেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী, নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা আইভীকে জিতিয়ে আনতে তাঁরা এক হয়ে কাজ করবেন। প্রচার-প্রচারণা শুরু হওয়ার দিন থেকেই তাঁরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে থাকবেন। তবে তাঁরা কেন্দ্রীয় নেতাদের এ-ও বলেছেন, আইভী তাঁদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করছেন না। তিনি না চাইলে কীভাবে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবেন।

আজ শুক্রবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ শহরের ২ নম্বর রেলগেটের কাছে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধিদল স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সেখানেই স্থানীয় নেতাদের কাছে প্রধানমন্ত্রীর এই কড়া বার্তা জানিয়ে দেওয়া হয়। কার্যালয়ের ভেতরে বৈঠকের সময় বাইরে বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠক শেষে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা শেখ হাসিনা মনোনীত প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। সবাই মিলে নৌকার বিজয়কে সুনিশ্চিত করতে আমরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাব।’ আইভী-শামীম ওসমানের বিরোধিতার বিষয়টি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের মানুষের মধ্যে ও চায়ের টেবিলে যেসব মুখরোচক গল্প আছে, এই সভার পর তার অবসান ঘটবে। আমরা এগোচ্ছি নৌকার বিজয়কে সুনিশ্চিত করতে।’
বৈঠকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসিম কুমার উকিল, তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক আফজাল হোসেন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণবিষয়ক সম্পাদক সুজিত নন্দী, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সভাপতি মুজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন মিয়া, বন্দর থানার সভাপতি এম এ রশিদসহ স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন। তবে বৈঠকে সদ্য সাবেক মেয়র ও এবারের সরকারদলীয় প্রার্থী সেলিমা হায়াৎ আইভী এবং নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমান উপস্থিত ছিলেন না। তবে সভার একপর্যায়ে সেখানে আইভী উপস্থিত হন। কিন্তু তিনি কিছু বলেননি। সবাইকে সালাম দিয়েছেন।

বৈঠক শেষে মহিবুল হাসান প্রথম আলোকে বলেন, স্থানীয় নেতাদের বলা হয়েছে, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। এখানে যদি আওয়ামী লীগ না জেতে, আর বিএনপি জিতে যায়, তাহলে বিএনপি সুযোগ পেয়ে যাবে। সেটা তো আওয়ামী লীগের জন্য ভালো হবে না। তিনি বলেন, স্থানীয় নেতারা আইভীর পক্ষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার কথা বলেছেন।

মূলত শামীম ওসমানের সঙ্গে মেয়র আইভীর দ্বন্দ্বের কারণে এবারের সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্থানীয় আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী ও দায়িত্বশীল নেতারা এখনো পর্যন্ত আইভীর পক্ষে মাঠে নামেননি। যদিও নির্বাচনে আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা শুরু হয়নি, তারপরও স্থানীয় নেতারা আইভীর পাশে থাকছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। আইভী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় কেবল জেলা সভাপতি আবদুল হাই ছাড়া অন্য কোনো নেতাকে তাঁর পাশে দেখা যায়নি।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সভাপতি মুজিবুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘কেন্দ্রের নেতারা প্রধানমন্ত্রীর বার্তা দিয়েছেন। আমরা বলেছি, আমরা নৌকার পক্ষে কাজ করব। এর কোনো বিকল্প নেই। আবার এ-ও বলেছি, আইভী স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন না। নিজের মতো ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এভাবে দলীয় নির্বাচন হয় না। আমরা কেন্দ্রীয় নেতাদের বলেছি আইভীকে শোধরানোর জন্য।’

ভোটারদের দ্বারে আইভী ও সাখাওয়াত: শুক্রবার দুপুরে নগরের সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকায় ভোটারদের সঙ্গে কথা বলেন সেলিনা হায়াৎ আইভী। সেখানে পৌঁছালে স্থানীয় মানুষ, বিভিন্ন সংগঠন ও আওয়ামী লীগের কিছু নেতা-কর্মী আইভীকে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক ‘নৌকা’র রেপ্লিকা উপহার দেন। তা ছাড়া মাইকে আইভীকে ও নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়। অবশ্য সেখানে আইভী গণমাধ্যমের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি।

আইভীর প্রচার-প্রচারণা চালানো নির্বাচনী আইনের লঙ্ঘন বলে দাবি করেছেন বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান। তিনি বলেন, আইভী যেভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন, তা আইনের পরিপন্থী। তিনি আজ নগরের নিতাইগঞ্জসহ কয়েকটি স্থানে ভোটারদের সঙ্গে কথা বলেন। ওয়ার্ড পর্যায়ে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়ও করেন তিনি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X