শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৫:৪৭
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, October 7, 2017 5:25 pm
A- A A+ Print

পদ্মাসেতুর স্প্যানের ছবি দেখে দুই বোন কেঁদেছি: শেখ হাসিনা

1507368298

ঢাকা: আমেরিকায় বসে পদ্মা সেতুর স্প্যান বসানোর খবর জানতে পেরে, ঢাকা থেকে পাঠানো ছবি দেখে বোন শেখ রেহানাসহ আমরা দুই বোন কেঁদেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ অধিবেশনে অংশগ্রহণ এবং যুক্তরাজ্য সফর শেষে ফিরে ঢাকায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দেওয়া গণসংবর্ধনায় বক্তব্যদানকালে এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্রে থাকা অবস্থায় গত ৩০ সেপ্টেম্বর পদ্মা সেতুতে পিলারের ওপর বসানো হয় প্রথম স্প্যানটি। ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিলারের ওপর বসানো হয় এই স্প্যান। এতে দৃশ্যমান হয় পদ্মা সেতুটি। এখন পর্যন্ত পদ্মা সেতু প্রকল্পের সার্বিক কাজের অগ্রগতি ৪৭ শতাংশ হয়েছে। আওয়ামী লীগ সভাপতি পদ্মা সেতুর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, ‘পদ্মা সেতু বিরাট চ্যালেঞ্জ ছিল। এ নিয়ে আমাদের সরকার, আমার পরিবারের ওপর অনেক অপবাদ দেওয়া হয়েছে, হেয় করা হয়েছে বিভিন্ন স্থানে। মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চেয়েছে। আমাদের দেশে কিছু লোক তো আছেই যারা এগুলো পেলে আরো উৎসাহিত হয়। কিন্তু আমার আত্মবিশ্বাস ছিল, আমরা মানুষের জন্য রাজনীতি করতে এসেছি। নিজের ভাগ্য বদলের জন্য আসিনি।’ ‘বিশ্বব্যাংকের একজন এখানে এসে আমার নামে অপবাদ দিয়েছে। পরে দুর্নীতির কথা বলে এই পদ্মা সেতুর অর্থায়ন বন্ধ করে দেওয়া হয়। আমাকে, রেহানাকে, আমার ছেলে-মেয়েকে দুনীতির তদন্তের নামে আন্তর্জাতিক সংস্থা দিয়ে এমন মানসিক যন্ত্রণা দিয়েছে যেটা আপনারা কল্পনাও করতে পারবেন না। সেটা আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের জন্য ছিল দুঃসময়। কিন্তু আমরা চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। এখন শুনছি, সেই তদন্তকারীর নামেই দুর্নীতির নানা তথ্য বেরিয়ে আসছে।’ ৩০ সেপ্টেম্বরের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের বারবার ম্যাসেজ পাঠাচ্ছিল, ফোনে কথা হচ্ছিল। সে বলছিল, আপা আমি দেরি করব। আমি বললাম, না দেরি করবা না। কারণ, এটা নিয়ে অনেক ঘটনা ঘটে গেছে। অনেক চ্যালেঞ্জ। বিশেষ করে, রেহানা, আমার, অপমান কি যে অবস্থা কত কিছু যে হয়েছে বলার মতো না। আমাদের মন্ত্রী, সচিব সচিবের উপর তো মিথ্যা অপবাদ দিয়ে গ্রেপ্তার করে অত্যাচার হলো। এই যে এতগুলো মানুষকে অপমানিত করা কাজেই এটা এক সেকেন্ডও দেরি করবা না।’ ‘আমি আমেরিকার সময় রাত্রি ৩টার সময় মেসেজ পেলাম যে, সুপার স্ট্রাকচারটা বসে গেছে। আমি তখন জেড়ে ছিলাম। আমি বললাম, আমাকে ছবি পাঠাও। সঙ্গে সঙ্গে সমস্ত ছবি, ভিডিও ক্লিপিং তারা পাঠাল। ওই সময় বসে ওটা দেখে সত্যি কথা বলতে কী, আমরা দুই বোন এখানে কেঁদেছি। এটুকু বলতে পারি। এটা আমাদের অনেক অপমানের জবাব আমরা দিতে পারলাম। আমি এটা আল্লার কাছে শুকরিয়া আদায় করি’।

Comments

Comments!

 পদ্মাসেতুর স্প্যানের ছবি দেখে দুই বোন কেঁদেছি: শেখ হাসিনাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

পদ্মাসেতুর স্প্যানের ছবি দেখে দুই বোন কেঁদেছি: শেখ হাসিনা

Saturday, October 7, 2017 5:25 pm
1507368298

ঢাকা: আমেরিকায় বসে পদ্মা সেতুর স্প্যান বসানোর খবর জানতে পেরে, ঢাকা থেকে পাঠানো ছবি দেখে বোন শেখ রেহানাসহ আমরা দুই বোন কেঁদেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ অধিবেশনে অংশগ্রহণ এবং যুক্তরাজ্য সফর শেষে ফিরে ঢাকায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দেওয়া গণসংবর্ধনায় বক্তব্যদানকালে এ কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্রে থাকা অবস্থায় গত ৩০ সেপ্টেম্বর পদ্মা সেতুতে পিলারের ওপর বসানো হয় প্রথম স্প্যানটি। ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিলারের ওপর বসানো হয় এই স্প্যান। এতে দৃশ্যমান হয় পদ্মা সেতুটি। এখন পর্যন্ত পদ্মা সেতু প্রকল্পের সার্বিক কাজের অগ্রগতি ৪৭ শতাংশ হয়েছে।
আওয়ামী লীগ সভাপতি পদ্মা সেতুর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, ‘পদ্মা সেতু বিরাট চ্যালেঞ্জ ছিল। এ নিয়ে আমাদের সরকার, আমার পরিবারের ওপর অনেক অপবাদ দেওয়া হয়েছে, হেয় করা হয়েছে বিভিন্ন স্থানে। মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চেয়েছে। আমাদের দেশে কিছু লোক তো আছেই যারা এগুলো পেলে আরো উৎসাহিত হয়। কিন্তু আমার আত্মবিশ্বাস ছিল, আমরা মানুষের জন্য রাজনীতি করতে এসেছি। নিজের ভাগ্য বদলের জন্য আসিনি।’
‘বিশ্বব্যাংকের একজন এখানে এসে আমার নামে অপবাদ দিয়েছে। পরে দুর্নীতির কথা বলে এই পদ্মা সেতুর অর্থায়ন বন্ধ করে দেওয়া হয়। আমাকে, রেহানাকে, আমার ছেলে-মেয়েকে দুনীতির তদন্তের নামে আন্তর্জাতিক সংস্থা দিয়ে এমন মানসিক যন্ত্রণা দিয়েছে যেটা আপনারা কল্পনাও করতে পারবেন না। সেটা আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের জন্য ছিল দুঃসময়। কিন্তু আমরা চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। এখন শুনছি, সেই তদন্তকারীর নামেই দুর্নীতির নানা তথ্য বেরিয়ে আসছে।’
৩০ সেপ্টেম্বরের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের বারবার ম্যাসেজ পাঠাচ্ছিল, ফোনে কথা হচ্ছিল। সে বলছিল, আপা আমি দেরি করব। আমি বললাম, না দেরি করবা না। কারণ, এটা নিয়ে অনেক ঘটনা ঘটে গেছে। অনেক চ্যালেঞ্জ। বিশেষ করে, রেহানা, আমার, অপমান কি যে অবস্থা কত কিছু যে হয়েছে বলার মতো না। আমাদের মন্ত্রী, সচিব সচিবের উপর তো মিথ্যা অপবাদ দিয়ে গ্রেপ্তার করে অত্যাচার হলো। এই যে এতগুলো মানুষকে অপমানিত করা কাজেই এটা এক সেকেন্ডও দেরি করবা না।’
‘আমি আমেরিকার সময় রাত্রি ৩টার সময় মেসেজ পেলাম যে, সুপার স্ট্রাকচারটা বসে গেছে। আমি তখন জেড়ে ছিলাম। আমি বললাম, আমাকে ছবি পাঠাও। সঙ্গে সঙ্গে সমস্ত ছবি, ভিডিও ক্লিপিং তারা পাঠাল। ওই সময় বসে ওটা দেখে সত্যি কথা বলতে কী, আমরা দুই বোন এখানে কেঁদেছি। এটুকু বলতে পারি। এটা আমাদের অনেক অপমানের জবাব আমরা দিতে পারলাম। আমি এটা আল্লার কাছে শুকরিয়া আদায় করি’।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X