রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:১৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, November 5, 2016 5:58 pm
A- A A+ Print

পরিচয় মিলেছে সেই ‘তরকারিওয়ালী’র

tarkariwali_top1478334652-1

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে রাতারাতি তারকা হওয়ার নজির কম নেই। বিশেষ করে ফেসবুকের কল্যাণে নিজের অজান্তেই সাধারণ ব্যক্তি থেকে কখন যে আপনি তারকা হয়ে যাবেন তার ঠিক নেই।
কিছুদিন আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে রাতারাতি খ্যাতি পান আরশাদ খান নামের এক পাকিস্তানি যুবক। তিনি খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের মার্দান শহরের বাসিন্দা। তার একটি ছবি ইন্টারনেটে রীতিমতো ঝড় তোলে। ছবিতে দেখা যায়, নীল চোখের আরশাদ কাপে চা ঢালছেন। ছবিটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রশংসায় ভাসতে থাকেন আরশাদ। আরশাদের মতো একই ঘটনা ঘটেছে নেপালি এক তরকারিওয়ালীর সঙ্গে। সম্প্রতি একটি মেয়ে পিঠে করে টমেটোর ঝুলি বহন করছেন এমন একটি ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে। ব্যাস সঙ্গে সঙ্গেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। আরশাদের মতো তিনিও সবার প্রশংসা পেতে থাকেন। কিন্তু এই তরকারিওয়ালী’র পরিচয় এতদিন জানা যায়নি। অবশেষে তার পরিচয় মিলেছে। মেয়েটির নাম কুসুম শ্রেষ্ঠা। তার বয়স ১৬। কুসুম কাঠমাণ্ডু থেকে ১৬০ কি.মি. দূরে অবস্থিত ওয়াংলিং, গোরখার বাসিন্দা। তিনি নোয়েস্ট মডেল কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী। তার বাবার নাম চন্দ্র নারায়ণ শ্রেষ্ঠা ও মায়ের নাম গ্যানু শ্রেষ্ঠা। তারা কৃষি পেশার সঙ্গে সম্পৃক্ত। Inner   তার ছবিগুলো তোলা হয়েছে দাশিন/থিহার পর্যটন এলাকায়। সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, টমেটো বিক্রির মাধ্যমে কুসুম তার পরিবারকে সাহায্য করছিল। তার ছবিগুলো ভাইরাল হওয়ার খবরটি তিনি তার বন্ধুদের কাছ থেকে পান। তাকে নিয়ে নেপাল, ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ এমনকি মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতেও সংবাদ হয়েছে। বিষয়টিতে তিনি খুবই খুশি। তবে তিনি তার কোনো ছবি আর ইন্টারনেটে দিতে রাজি নন। এমনকি মডেলিংয়েও তার কোনো আগ্রহ নেই। তবে মেয়েটি নাকি পুরো বিষয়টি নিয়ে দ্বিধায় পড়েছেন।   ফটোগ্রাফার রূপচন্দ্র মাহারজান জানান, বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরছিলেন তিনি। তখন তিনি কুসুমকে দেখেন এবং ছবি তোলেন। তবে তিনি জানতেন না ছবিটি ভাইরাল হবে। পরবর্তীতে হঠাৎ তিনি খেয়াল করেন ফেসবুকে ছবিটি ভাইরাল হয়ে গেছে। এরপর অবশ্য তিনি তার পোস্টটি মুছে ফেলেন। কিন্তু ততক্ষণে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়েছে।  

Comments

Comments!

 পরিচয় মিলেছে সেই ‘তরকারিওয়ালী’রAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

পরিচয় মিলেছে সেই ‘তরকারিওয়ালী’র

Saturday, November 5, 2016 5:58 pm
tarkariwali_top1478334652-1

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে রাতারাতি তারকা হওয়ার নজির কম নেই। বিশেষ করে ফেসবুকের কল্যাণে নিজের অজান্তেই সাধারণ ব্যক্তি থেকে কখন যে আপনি তারকা হয়ে যাবেন তার ঠিক নেই।

কিছুদিন আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে রাতারাতি খ্যাতি পান আরশাদ খান নামের এক পাকিস্তানি যুবক। তিনি খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের মার্দান শহরের বাসিন্দা। তার একটি ছবি ইন্টারনেটে রীতিমতো ঝড় তোলে। ছবিতে দেখা যায়, নীল চোখের আরশাদ কাপে চা ঢালছেন। ছবিটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রশংসায় ভাসতে থাকেন আরশাদ।

আরশাদের মতো একই ঘটনা ঘটেছে নেপালি এক তরকারিওয়ালীর সঙ্গে। সম্প্রতি একটি মেয়ে পিঠে করে টমেটোর ঝুলি বহন করছেন এমন একটি ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে। ব্যাস সঙ্গে সঙ্গেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। আরশাদের মতো তিনিও সবার প্রশংসা পেতে থাকেন। কিন্তু এই তরকারিওয়ালী’র পরিচয় এতদিন জানা যায়নি।

অবশেষে তার পরিচয় মিলেছে। মেয়েটির নাম কুসুম শ্রেষ্ঠা। তার বয়স ১৬। কুসুম কাঠমাণ্ডু থেকে ১৬০ কি.মি. দূরে অবস্থিত ওয়াংলিং, গোরখার বাসিন্দা। তিনি নোয়েস্ট মডেল কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী। তার বাবার নাম চন্দ্র নারায়ণ শ্রেষ্ঠা ও মায়ের নাম গ্যানু শ্রেষ্ঠা। তারা কৃষি পেশার সঙ্গে সম্পৃক্ত।

Inner

 

তার ছবিগুলো তোলা হয়েছে দাশিন/থিহার পর্যটন এলাকায়। সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, টমেটো বিক্রির মাধ্যমে কুসুম তার পরিবারকে সাহায্য করছিল। তার ছবিগুলো ভাইরাল হওয়ার খবরটি তিনি তার বন্ধুদের কাছ থেকে পান। তাকে নিয়ে নেপাল, ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ এমনকি মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতেও সংবাদ হয়েছে। বিষয়টিতে তিনি খুবই খুশি। তবে তিনি তার কোনো ছবি আর ইন্টারনেটে দিতে রাজি নন। এমনকি মডেলিংয়েও তার কোনো আগ্রহ নেই। তবে মেয়েটি নাকি পুরো বিষয়টি নিয়ে দ্বিধায় পড়েছেন।

 

ফটোগ্রাফার রূপচন্দ্র মাহারজান জানান, বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরছিলেন তিনি। তখন তিনি কুসুমকে দেখেন এবং ছবি তোলেন। তবে তিনি জানতেন না ছবিটি ভাইরাল হবে। পরবর্তীতে হঠাৎ তিনি খেয়াল করেন ফেসবুকে ছবিটি ভাইরাল হয়ে গেছে। এরপর অবশ্য তিনি তার পোস্টটি মুছে ফেলেন। কিন্তু ততক্ষণে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়েছে।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X