রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ২:৪৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, December 2, 2016 10:10 am
A- A A+ Print

পশ্চিমবঙ্গে সেনা মোতায়েনের প্রতিবাদে রাতভর দপ্তরে মমতা

162945_1

কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জাতীয় মহাসড়কগুলিতে সেনা মোতায়েন করার প্রতিবাদে রাতভর নিজের দপ্তরে অবস্থান করেছেন ওই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। পশ্চিমবঙ্গের যেসব এলাকায় হঠাৎ করেই সেনা মোতায়েন হয়েছে, তার অন্যতম হল মমতা ব্যানার্জীর দপ্তর - যেটি রাজ্যের সচিবালয়ও - তার খুব কাছেই। মমতা ব্যানার্জী বলছেন যে গণতন্ত্রকে রক্ষা করার স্বার্থেই তিনি রাতভর দপ্তরে অবস্থান করছেন।
বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আড়াইটা পর্যন্তও তিনি সেনা মোতায়েনের প্রতিবাদে নিজের দপ্তরেই ছিলেন। তার সঙ্গে রয়েছেন রাজ্য প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তা আর কয়েকজন মন্ত্রীও। মমতা ব্যানার্জী জানিয়েছেন, যতক্ষণ না তার দপ্তরের কাছ থেকে সেনা সরছে, ততক্ষণ তিনি অফিসেই থাকবেন। রাজ্য সরকারের সদর দপ্তরের খুব কাছেই কলকাতা লাগোয়া হাওড়া জেলায় ভাগীরথী নদীর ওপরে একটি মহাসড়কের টোল প্লাজাতে সেনা সদস্যরা সারাদিন অবস্থান করছিলেন। তবে মমতা ব্যানার্জী রাতে প্রতিবাদের সুর চড়ানোর বেশ কয়েক ঘণ্টা পরে ওই জায়গা থেকে সেনাবাহিনী সরে গেছে। তবুও এখন তিনি অফিসেই আছেন। সেনাবাহিনী জানিয়েছে যে তারা জাতীয় মহাসড়কগুলিতে চলাচল করা ভারী যানবাহনের ওপরে একটি সমীক্ষা চালাচ্ছে, যেটা সারা দেশেই তারা নিয়মিত চালিয়ে থাকে। ট্রাকসহ ভারী যানবাহনগুলির আকার, বহনক্ষমতা প্রভৃতির বিস্তারিত তথ্য সেনাবাহিনী যোগাড় করছে বলে এক আনুষ্ঠানিক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। ভারতীয় সামরিক বাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, কোনো আপদকালীন পরিস্থিতিতে কোনো এলাকায় কী ধরণের কত যানবাহন সেনাবাহিনী যোগাড় করতে পারে, সেটা জানার জন্যই এই তথ্যপঞ্জি নিয়মিত তৈরি করা হয়। এই প্রক্রিয়া চলে সারা দেশ জুড়ে। এজন্য প্রয়োজনীয় রাজ্য সরকারি অনুমোদনও নেওয়া হয়েছিল। তাদেরই কথামতো এই প্রক্রিয়াটি আমরা কয়েকদিন পিছিয়ে দিয়েছি। তিনি জানিয়েছেন যে পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও উত্তরপূর্বাঞ্চলের আরো সাতটি রাজ্যের মোট ৬৮ টি জায়গায় একইভাবে ভারী যানবাহনের তথ্য যোগাড় করছেন সেনাসদস্যরা। এই প্রক্রিয়াটি বুধবার থেকে শুরু হয়েছে এবং শুক্রবারেও তা চলার কথা বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনী। রাজ্য সরকার, সেনাবাহিনী এবং পুলিশ কর্মকর্তারা সন্ধ্যে থেকেই যেসব বিবৃতি দিতে থাকেন, তাতে বিভ্রান্তি আরো ছড়ায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যাবেলা থেকে। সূত্র: বিবিসি

Comments

Comments!

 পশ্চিমবঙ্গে সেনা মোতায়েনের প্রতিবাদে রাতভর দপ্তরে মমতাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

পশ্চিমবঙ্গে সেনা মোতায়েনের প্রতিবাদে রাতভর দপ্তরে মমতা

Friday, December 2, 2016 10:10 am
162945_1

কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জাতীয় মহাসড়কগুলিতে সেনা মোতায়েন করার প্রতিবাদে রাতভর নিজের দপ্তরে অবস্থান করেছেন ওই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী।

পশ্চিমবঙ্গের যেসব এলাকায় হঠাৎ করেই সেনা মোতায়েন হয়েছে, তার অন্যতম হল মমতা ব্যানার্জীর দপ্তর – যেটি রাজ্যের সচিবালয়ও – তার খুব কাছেই।

মমতা ব্যানার্জী বলছেন যে গণতন্ত্রকে রক্ষা করার স্বার্থেই তিনি রাতভর দপ্তরে অবস্থান করছেন।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আড়াইটা পর্যন্তও তিনি সেনা মোতায়েনের প্রতিবাদে নিজের দপ্তরেই ছিলেন। তার সঙ্গে রয়েছেন রাজ্য প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তা আর কয়েকজন মন্ত্রীও।

মমতা ব্যানার্জী জানিয়েছেন, যতক্ষণ না তার দপ্তরের কাছ থেকে সেনা সরছে, ততক্ষণ তিনি অফিসেই থাকবেন।

রাজ্য সরকারের সদর দপ্তরের খুব কাছেই কলকাতা লাগোয়া হাওড়া জেলায় ভাগীরথী নদীর ওপরে একটি মহাসড়কের টোল প্লাজাতে সেনা সদস্যরা সারাদিন অবস্থান করছিলেন।

তবে মমতা ব্যানার্জী রাতে প্রতিবাদের সুর চড়ানোর বেশ কয়েক ঘণ্টা পরে ওই জায়গা থেকে সেনাবাহিনী সরে গেছে। তবুও এখন তিনি অফিসেই আছেন।

সেনাবাহিনী জানিয়েছে যে তারা জাতীয় মহাসড়কগুলিতে চলাচল করা ভারী যানবাহনের ওপরে একটি সমীক্ষা চালাচ্ছে, যেটা সারা দেশেই তারা নিয়মিত চালিয়ে থাকে।

ট্রাকসহ ভারী যানবাহনগুলির আকার, বহনক্ষমতা প্রভৃতির বিস্তারিত তথ্য সেনাবাহিনী যোগাড় করছে বলে এক আনুষ্ঠানিক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

ভারতীয় সামরিক বাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, কোনো আপদকালীন পরিস্থিতিতে কোনো এলাকায় কী ধরণের কত যানবাহন সেনাবাহিনী যোগাড় করতে পারে, সেটা জানার জন্যই এই তথ্যপঞ্জি নিয়মিত তৈরি করা হয়। এই প্রক্রিয়া চলে সারা দেশ জুড়ে। এজন্য প্রয়োজনীয় রাজ্য সরকারি অনুমোদনও নেওয়া হয়েছিল। তাদেরই কথামতো এই প্রক্রিয়াটি আমরা কয়েকদিন পিছিয়ে দিয়েছি।

তিনি জানিয়েছেন যে পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও উত্তরপূর্বাঞ্চলের আরো সাতটি রাজ্যের মোট ৬৮ টি জায়গায় একইভাবে ভারী যানবাহনের তথ্য যোগাড় করছেন সেনাসদস্যরা।

এই প্রক্রিয়াটি বুধবার থেকে শুরু হয়েছে এবং শুক্রবারেও তা চলার কথা বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনী।

রাজ্য সরকার, সেনাবাহিনী এবং পুলিশ কর্মকর্তারা সন্ধ্যে থেকেই যেসব বিবৃতি দিতে থাকেন, তাতে বিভ্রান্তি আরো ছড়ায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যাবেলা থেকে।

সূত্র: বিবিসি

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X