বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৭:০৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, September 26, 2016 1:36 pm
A- A A+ Print

পাকিস্তানে দফায় দফায় যুদ্ধবিমানের মহড়া

154215_1

ঢাকা: কাশ্মীরে উরি সেনাঘাঁটিতে হামলায় ১৮ ভারতীয় সৈন্য নিহত হওয়ার পর থেকে নয়াদিল্লি-ইসলামাবাদের মধ্যে সৃষ্ট তুমুল উত্তেজনা এখনো চলছে। দফায় দফায় যুদ্ধবিমানের মহড়ার খবর আসছে ইসলামাবাদ থেকে। আবার পাকিস্তান সীমান্তে ভারতের সেনা বাড়ানোর সংবাদও গণমাধ্যমে প্রকাশ হচ্ছে। পাকিস্তানের বেসামরিক বিমান পরিবহন কর্তৃপক্ষ (সিএএ) দেশের উত্তরাঞ্চলে বিমান চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির পাশাপাশি ওই আকাশসীমা দিয়ে চলাচলকারী ফ্লাইটগুলোর রুটও পরিবর্তন করার নির্দেশনা দিয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রবিবার কাশ্মীরি জনগণের উদ্দেশে এক ভাষণে উরির হামলা প্রসঙ্গে বলেছেন, কাশ্মীরের জনগণকে রক্ষার দায়িত্ব ভারত সরকারের এবং সেনাবাহিনী উরির মতো হামলা প্রতিহত করতেই থাকবে, যাতে আমাদের নাগরিকেরা শান্তিতে বসবাস করতে পারে। ‘মন কি বাত’ নামক একটি রেডিও প্রোগ্রামে তিনি বলেন, ১৮ সেপ্টেম্বরে উরিতে হামলায় ১৮ জন ভারতীয় সৈন্য নিহত হয়েছে। এটি গোটা ভারতের জন্য একটা ক্ষতি। তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘অপরাধীদের শায়েস্তা করা হবে।’ কাশ্মীরের জনগণের প্রসঙ্গে মোদি বলেন, ‘কারা আমাদের দেশের বিরোধিতা করেন, তারা তাদেরকে শনাক্ত করতে শুরু করেছেন।’ কাশ্মীরে দীর্ঘ অশান্তির পেছনে পাকিস্তানের হাত রয়েছে বলে বারবার দাবি করছিল ভারত। উরির হামলার পর সেই অভিযোগ আরো জোরালো হয়েছে। তবে পাকিস্তান বলছে, ওই হামলার সাথে তাদের কোনো যোগ নেই। ভারত বলছে, জঙ্গিরা যে পাকিস্তান থেকেই এসেছিল এবং পাকিস্তানের ছাপ মারা অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এসেছিল, তার অকাট্য প্রমাণ রয়েছে। এ পরিস্থিতিতে গোটা দেশে পাকবিরোধী আক্রোশ তুঙ্গে। কোনো কোনো মহল বলছে, ভারতীয় সেনার উচিত নিয়ন্ত্রণ রেখা লঙ্ঘন করে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে জঙ্গি ঘাঁটিগুলো গুঁড়িয়ে দিয়ে আসা। অন্য একটি মহল আবার যুদ্ধের বিরোধিতা করছে। তাদের মতে, আরো কৌশলী হতে হবে ভারতকে, কূটনৈতিকভাবে গোটা পৃথিবী থেকে পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করতে হবে। নরেন্দ্র মোদীর সরকার ঠিক কোন পথে হাঁটবে, তা এখনো স্পষ্ট নয়। ফলে তা নিয়ে সমালোচনাও শুরু হয়েছে বিভিন্ন শিবিরে। নরেন্দ্র মোদী কিন্তু ‘মন কি বাত’ ভাষণে বুঝিয়ে দিলেন, সিদ্ধান্ত নিতে তিনি দ্বিধাগ্রস্ত নন। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কূটনৈতিক লড়াই চলবে। কিন্তু জবাব সেনাবাহিনীও দেবে। পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করার অঙ্গীকার মোদীর এ দিকে পাকিস্তানকে সন্ত্রাসবাদের রপ্তানিকারক দেশ উল্লেখ করে দেশটিকে আন্তর্জাতিকভাবে বিচ্ছিন্ন করতে বিশ্বব্যাপী প্রচারণা চালানোর অঙ্গীকার করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শনিবার ভারতীয় জনতা পার্টির এক সভায় বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন। বক্তৃতায় মোদি বলেন, ‘পাকিস্তানের জনগণের উচিত তাদের দেশের নেতৃত্বকে প্রশ্ন করা। কেননা ভারত ও পাকিস্তান উভয়েই একই সময়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছে। ভারত যখন সফটওয়্যার রপ্তানি করছে, পাকিস্তান তখন সন্ত্রাসীদের রপ্তানি করছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘ভারত কখনো সন্ত্রাসবাদের কাছে মাথা নত করবে না।’ কিন্তু পাকিস্তান সতর্ক করে বলেছে, যেকোনো ধরনের ভারতীয় হামলায় তারাও পাল্টা আঘাত করবে। পরমাণু শক্তিধর দেশ দু’টির মধ্যে সর্বশেষ উত্তেজনায় প্রতিবেশীরাও চরম উদ্বেগের মধ্যে রয়েছে। দ্যা ডন, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, এএফপি অবলম্বনে
 

Comments

Comments!

 পাকিস্তানে দফায় দফায় যুদ্ধবিমানের মহড়াAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

পাকিস্তানে দফায় দফায় যুদ্ধবিমানের মহড়া

Monday, September 26, 2016 1:36 pm
154215_1

ঢাকা: কাশ্মীরে উরি সেনাঘাঁটিতে হামলায় ১৮ ভারতীয় সৈন্য নিহত হওয়ার পর থেকে নয়াদিল্লি-ইসলামাবাদের মধ্যে সৃষ্ট তুমুল উত্তেজনা এখনো চলছে।

দফায় দফায় যুদ্ধবিমানের মহড়ার খবর আসছে ইসলামাবাদ থেকে। আবার পাকিস্তান সীমান্তে ভারতের সেনা বাড়ানোর সংবাদও গণমাধ্যমে প্রকাশ হচ্ছে।

পাকিস্তানের বেসামরিক বিমান পরিবহন কর্তৃপক্ষ (সিএএ) দেশের উত্তরাঞ্চলে বিমান চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির পাশাপাশি ওই আকাশসীমা দিয়ে চলাচলকারী ফ্লাইটগুলোর রুটও পরিবর্তন করার নির্দেশনা দিয়েছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রবিবার কাশ্মীরি জনগণের উদ্দেশে এক ভাষণে উরির হামলা প্রসঙ্গে বলেছেন, কাশ্মীরের জনগণকে রক্ষার দায়িত্ব ভারত সরকারের এবং সেনাবাহিনী উরির মতো হামলা প্রতিহত করতেই থাকবে, যাতে আমাদের নাগরিকেরা শান্তিতে বসবাস করতে পারে।

‘মন কি বাত’ নামক একটি রেডিও প্রোগ্রামে তিনি বলেন, ১৮ সেপ্টেম্বরে উরিতে হামলায় ১৮ জন ভারতীয় সৈন্য নিহত হয়েছে। এটি গোটা ভারতের জন্য একটা ক্ষতি। তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘অপরাধীদের শায়েস্তা করা হবে।’

কাশ্মীরের জনগণের প্রসঙ্গে মোদি বলেন, ‘কারা আমাদের দেশের বিরোধিতা করেন, তারা তাদেরকে শনাক্ত করতে শুরু করেছেন।’

কাশ্মীরে দীর্ঘ অশান্তির পেছনে পাকিস্তানের হাত রয়েছে বলে বারবার দাবি করছিল ভারত। উরির হামলার পর সেই অভিযোগ আরো জোরালো হয়েছে।

তবে পাকিস্তান বলছে, ওই হামলার সাথে তাদের কোনো যোগ নেই।

ভারত বলছে, জঙ্গিরা যে পাকিস্তান থেকেই এসেছিল এবং পাকিস্তানের ছাপ মারা অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এসেছিল, তার অকাট্য প্রমাণ রয়েছে। এ পরিস্থিতিতে গোটা দেশে পাকবিরোধী আক্রোশ তুঙ্গে।

কোনো কোনো মহল বলছে, ভারতীয় সেনার উচিত নিয়ন্ত্রণ রেখা লঙ্ঘন করে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে জঙ্গি ঘাঁটিগুলো গুঁড়িয়ে দিয়ে আসা। অন্য একটি মহল আবার যুদ্ধের বিরোধিতা করছে। তাদের মতে, আরো কৌশলী হতে হবে ভারতকে, কূটনৈতিকভাবে গোটা পৃথিবী থেকে পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করতে হবে।

নরেন্দ্র মোদীর সরকার ঠিক কোন পথে হাঁটবে, তা এখনো স্পষ্ট নয়। ফলে তা নিয়ে সমালোচনাও শুরু হয়েছে বিভিন্ন শিবিরে।

নরেন্দ্র মোদী কিন্তু ‘মন কি বাত’ ভাষণে বুঝিয়ে দিলেন, সিদ্ধান্ত নিতে তিনি দ্বিধাগ্রস্ত নন। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কূটনৈতিক লড়াই চলবে। কিন্তু জবাব সেনাবাহিনীও দেবে।

পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করার অঙ্গীকার মোদীর

এ দিকে পাকিস্তানকে সন্ত্রাসবাদের রপ্তানিকারক দেশ উল্লেখ করে দেশটিকে আন্তর্জাতিকভাবে বিচ্ছিন্ন করতে বিশ্বব্যাপী প্রচারণা চালানোর অঙ্গীকার করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

শনিবার ভারতীয় জনতা পার্টির এক সভায় বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন।

বক্তৃতায় মোদি বলেন, ‘পাকিস্তানের জনগণের উচিত তাদের দেশের নেতৃত্বকে প্রশ্ন করা। কেননা ভারত ও পাকিস্তান উভয়েই একই সময়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছে। ভারত যখন সফটওয়্যার রপ্তানি করছে, পাকিস্তান তখন সন্ত্রাসীদের রপ্তানি করছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ভারত কখনো সন্ত্রাসবাদের কাছে মাথা নত করবে না।’

কিন্তু পাকিস্তান সতর্ক করে বলেছে, যেকোনো ধরনের ভারতীয় হামলায় তারাও পাল্টা আঘাত করবে। পরমাণু শক্তিধর দেশ দু’টির মধ্যে সর্বশেষ উত্তেজনায় প্রতিবেশীরাও চরম উদ্বেগের মধ্যে রয়েছে।

দ্যা ডন, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, এএফপি অবলম্বনে

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X