বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:২০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, September 19, 2016 7:28 pm
A- A A+ Print

পাকিস্তানে ‘পাল্টা হামলা’র কথা ভাবছে ভারত

244440_1

ভারতের সঙ্গে পাকিস্তানের ৭৭৮ কিলোমিটার সীমান্তরেখা লাইন অব কন্ট্রোল (এলওসি) পেরিয়ে পাকিস্তানে হামলার কথা ভাবছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। পাকিস্তানকে ‘দ্ব্যর্থহীন জবাব’ দিতেই সীমান্তের ওপারে ‘সীমিত অথচ শাস্তিমূলক’ হামলায় সরকারের অনুমোদন চায় ভারতের সেনাবাহিনী। ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের উরিতে সেনা দফতরে হামলার পাল্টা আঘাত হিসেবেই সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানে হামলার বিষয়টি সরকারকে বিবেচনা করার আহ্বান জানিয়েছে সেনাবাহিনী। পাকিস্তান সীমান্তে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পাশাপাশি বিমানবাহিনীকেও পূর্ণ সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে। ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল ভিডিও প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে দেশটির মন্ত্রিসভার সামনে পাক-ভারত সীমান্তরেখা জুড়ে এখন যা চলছে, তা সীমিত যুদ্ধেরই ক্ষুদ্র সংস্করণ বলে তুলে ধরেন। পুরো দেশজুড়ে যা ছায়াযুদ্ধ আকারে সীমাবদ্ধ ছিল তা এখন এক সম্মুখযুদ্ধের দিকে এগিয়ে চলেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। কাশ্মীরে নতুন করে পাকিস্তানি সেনারা অন্তত ৪৫ বার সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ করে হামলা করেছে বলে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে অভিহিত করেন দোভাল। আরএসএস ও বিজেপির একটা বড় অংশ ‘পাকিস্তানি সন্ত্রাস’ দমনে কঠোর পাল্টা আঘাতের নীতি অনুসরণ করতে চাইছে। তবে বিষয়টি আরো পর্যবেক্ষণ করতে চান মোদী। এদিকে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, নরেন্দ্র মোদীও পাকিস্তানের সঙ্গে কঠোরতার পক্ষে। মন্ত্রিসভার বৈঠকেই এই ইঙ্গিত দিয়েছেন। মোদী সেনাদের আরো বেশি করে পাকিস্তান সীমান্তে প্রস্তুত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। সেনাদের প্রস্তুতিও বাড়ানো হচ্ছে। ভারতের সামরিক কর্মকর্তারা একাধিক সামরিক পদক্ষেপের কথা বিবেচনা করছেন। সেনা কর্মকর্তারা চান সরকার পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দিক- এমন হামলা সহ্য করা হবে না। সেনা কর্মকর্তারা সীমান্ত অতিক্রম করে অভিযান কিংবা সন্ত্রাসীদের লক্ষ্য স্পেশাল ফোর্সের অভিযানের পক্ষে মত দিয়েছেন। এছাড়া দূরপাল্লার অস্ত্র দিয়ে জঙ্গিদের স্থাপনার হামলার কথাও বিবেচনার আহ্বান জানিয়েছেন সেনা কর্মকর্তারা। এক্ষেত্রে সেনা বাহিনীর মিসাইল হামলার কথা বিবেচনা করছেন। সার্জিক্যাল বিমানহামলার মাধ্যমে লেজার নিয়ন্ত্রিত স্মার্ট বোমা ও ক্লাস্টার বোমা নিক্ষেপের কথাও ভাবা হচ্ছে। উল্লেখ্য, গত ১৮ সেপ্টেম্বর ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের উরিতে সেনাঘাঁটি লক্ষ্য করে আত্মঘাতি হামলা চালায় কাশ্মীরের একটি সশস্ত্র গোষ্ঠি। এতে ১৭ ভারতীয় সেনা এবং ৪ আত্মঘাতি নিহত হয়। ভারত সরকারের দাবি, ওই হামলার পেছনে পাকিস্তানের প্রত্যক্ষ মদদ রয়েছে। কাশ্মীরে গত প্রায় দুই মাস ধরে সহিংস বিক্ষোভ চলছে এবং এতে ৮৬ জন কাশ্মীরি বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। এর আগে কাশ্মীরের প্রধান শহর শ্রীনগরে ছররা গুলিতে ঝাঁঝরা হয়ে যাওয়া এক স্কুল ছাত্রের মৃতদেহ পাওয়ার পর পুরো রাজ্যজুড়ে জারি করা হয়েছে কঠোর সান্ধ্য আইন। সেখানে লোকজনের চলাফেরা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে এবং ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর এ যাবতকালের সবচেয়ে কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়েছে। কাশ্মীরে সম্প্রতি এক স্বাধীনতাকমী নেতাকে গুলি করে হত্যার পর সেখানে ভারতীয় শাসনের বিরুদ্ধে আবারও ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হয়।

Comments

Comments!

 পাকিস্তানে ‘পাল্টা হামলা’র কথা ভাবছে ভারতAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

পাকিস্তানে ‘পাল্টা হামলা’র কথা ভাবছে ভারত

Monday, September 19, 2016 7:28 pm
244440_1

ভারতের সঙ্গে পাকিস্তানের ৭৭৮ কিলোমিটার সীমান্তরেখা লাইন অব কন্ট্রোল (এলওসি) পেরিয়ে পাকিস্তানে হামলার কথা ভাবছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। পাকিস্তানকে ‘দ্ব্যর্থহীন জবাব’ দিতেই সীমান্তের ওপারে ‘সীমিত অথচ শাস্তিমূলক’ হামলায় সরকারের অনুমোদন চায় ভারতের সেনাবাহিনী।

ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের উরিতে সেনা দফতরে হামলার পাল্টা আঘাত হিসেবেই সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানে হামলার বিষয়টি সরকারকে বিবেচনা করার আহ্বান জানিয়েছে সেনাবাহিনী। পাকিস্তান সীমান্তে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পাশাপাশি বিমানবাহিনীকেও পূর্ণ সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে।

ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল ভিডিও প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে দেশটির মন্ত্রিসভার সামনে পাক-ভারত সীমান্তরেখা জুড়ে এখন যা চলছে, তা সীমিত যুদ্ধেরই ক্ষুদ্র সংস্করণ বলে তুলে ধরেন। পুরো দেশজুড়ে যা ছায়াযুদ্ধ আকারে সীমাবদ্ধ ছিল তা এখন এক সম্মুখযুদ্ধের দিকে এগিয়ে চলেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

কাশ্মীরে নতুন করে পাকিস্তানি সেনারা অন্তত ৪৫ বার সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ করে হামলা করেছে বলে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে অভিহিত করেন দোভাল। আরএসএস ও বিজেপির একটা বড় অংশ ‘পাকিস্তানি সন্ত্রাস’ দমনে কঠোর পাল্টা আঘাতের নীতি অনুসরণ করতে চাইছে। তবে বিষয়টি আরো পর্যবেক্ষণ করতে চান মোদী।

এদিকে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, নরেন্দ্র মোদীও পাকিস্তানের সঙ্গে কঠোরতার পক্ষে। মন্ত্রিসভার বৈঠকেই এই ইঙ্গিত দিয়েছেন। মোদী সেনাদের আরো বেশি করে পাকিস্তান সীমান্তে প্রস্তুত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। সেনাদের প্রস্তুতিও বাড়ানো হচ্ছে।

ভারতের সামরিক কর্মকর্তারা একাধিক সামরিক পদক্ষেপের কথা বিবেচনা করছেন। সেনা কর্মকর্তারা চান সরকার পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দিক- এমন হামলা সহ্য করা হবে না। সেনা কর্মকর্তারা সীমান্ত অতিক্রম করে অভিযান কিংবা সন্ত্রাসীদের লক্ষ্য স্পেশাল ফোর্সের অভিযানের পক্ষে মত দিয়েছেন।

এছাড়া দূরপাল্লার অস্ত্র দিয়ে জঙ্গিদের স্থাপনার হামলার কথাও বিবেচনার আহ্বান জানিয়েছেন সেনা কর্মকর্তারা। এক্ষেত্রে সেনা বাহিনীর মিসাইল হামলার কথা বিবেচনা করছেন। সার্জিক্যাল বিমানহামলার মাধ্যমে লেজার নিয়ন্ত্রিত স্মার্ট বোমা ও ক্লাস্টার বোমা নিক্ষেপের কথাও ভাবা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ১৮ সেপ্টেম্বর ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের উরিতে সেনাঘাঁটি লক্ষ্য করে আত্মঘাতি হামলা চালায় কাশ্মীরের একটি সশস্ত্র গোষ্ঠি। এতে ১৭ ভারতীয় সেনা এবং ৪ আত্মঘাতি নিহত হয়। ভারত সরকারের দাবি, ওই হামলার পেছনে পাকিস্তানের প্রত্যক্ষ মদদ রয়েছে।

কাশ্মীরে গত প্রায় দুই মাস ধরে সহিংস বিক্ষোভ চলছে এবং এতে ৮৬ জন কাশ্মীরি বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। এর আগে কাশ্মীরের প্রধান শহর শ্রীনগরে ছররা গুলিতে ঝাঁঝরা হয়ে যাওয়া এক স্কুল ছাত্রের মৃতদেহ পাওয়ার পর পুরো রাজ্যজুড়ে জারি করা হয়েছে কঠোর সান্ধ্য আইন।

সেখানে লোকজনের চলাফেরা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে এবং ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর এ যাবতকালের সবচেয়ে কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়েছে। কাশ্মীরে সম্প্রতি এক স্বাধীনতাকমী নেতাকে গুলি করে হত্যার পর সেখানে ভারতীয় শাসনের বিরুদ্ধে আবারও ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হয়।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X