শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১০:০৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, July 25, 2016 9:17 am
A- A A+ Print

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে ঋণ চুক্তি মঙ্গলবার

ruppur1469371818

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর হবে মঙ্গলবার। এটি হবে বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ঋণ চুক্তি। গত ১৮ জুলাই এ ঋণ অনুমোদন করে রাশিয়ার সরকার। ঋণ চুক্তি করতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল রাশিয়া যাচ্ছে। জানা গেছে, ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াটের দুটি বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হবে। এজন্য ১২ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার বা ১ লাখ ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা ঋণ নেওয়া হচ্ছে। বিজ্ঞান মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, পাঁচ সদস্যর প্রতিনিধিদলের অন্য সদস্যরা হলেন- অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, ইআরডি সচিব মেজবাহ উদ্দীন, অতিরিক্ত সচিব আবুল মনসুর মো. ফায়জুল্লাহ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আনোয়ার হোসেন। গত ২৭ জুন এই ঋণচুক্তির খসড়া অনুমোদন করে মন্ত্রিসভা কমিটি। এর আগে গত ২১ জুন বাংলাদেশ পারমাণবিক শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনকে এ কেন্দ্র স্থাপনের জায়গার জন্য লাইসেন্স দেয়। ঋণ নেওয়ার ১০ বছর পর এর সুদ শুরু হবে। ৩০ বছরের মধ্যে শোধ করতে হবে পুরো টাকা। মূল ঋণের প্রথম কিস্তি ২০২৭ সালের ১৫ মার্চ দিতে হবে। প্রতিবছর ১৫ মার্চ ও ১৫ সেপ্টেম্বর সমপরিমাণ কিস্তিতে বাংলাদেশ সরকারকে ঋণ শোধ করতে হবে। মূল অর্থের সঙ্গে ১ দশমিক ৭৫ শতাংশ যোগ করে ঋণের সুদের হার নির্ধারণ করা হবে। তবে সুদের হার বছরে ৪ শতাংশের বেশি হবে না। এর আগে এই কেন্দ্রের প্রাথমিক পর্যায়ের কাজের জন্য ৫০ কোটি ডলার ঋণ নেওয়া হয় রাশিয়ার কাছ থেকে। এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ ৫০ বছর। তবে ৯০ বছর একটানা একই হারে চলতে থাকবে। বাংলাদেশে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিট ২০২১ সালের মধ্যে চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। কেন্দ্রটি পরিচালনা করবে নিউক্লিয়ার পাওয়ার কোম্পানি বাংলাদেশ। বিদ্যুৎকেন্দ্রটির প্রথম পর্যায়ের কাজ আগামী ডিসেম্বরে শেষ হওয়ার কথা। এরপর পরমাণু চুল্লি তৈরির কাজ শুরু হবে। এরইমধ্যে কেন্দ্রটির নকশা তৈরির কাজ শেষ করেছে এটমস্ট্রয় এক্সপার্ট। নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে এই কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। কেন্দ্রের বর্জ্য রাশিয়ায় নিয়ে যাওয়া হবে।

Comments

Comments!

 পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে ঋণ চুক্তি মঙ্গলবারAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে ঋণ চুক্তি মঙ্গলবার

Monday, July 25, 2016 9:17 am
ruppur1469371818

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর হবে মঙ্গলবার। এটি হবে বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ঋণ চুক্তি।

গত ১৮ জুলাই এ ঋণ অনুমোদন করে রাশিয়ার সরকার। ঋণ চুক্তি করতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল রাশিয়া যাচ্ছে।

জানা গেছে, ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াটের দুটি বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হবে। এজন্য ১২ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার বা ১ লাখ ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা ঋণ নেওয়া হচ্ছে।

বিজ্ঞান মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, পাঁচ সদস্যর প্রতিনিধিদলের অন্য সদস্যরা হলেন- অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, ইআরডি সচিব মেজবাহ উদ্দীন, অতিরিক্ত সচিব আবুল মনসুর মো. ফায়জুল্লাহ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আনোয়ার হোসেন।

গত ২৭ জুন এই ঋণচুক্তির খসড়া অনুমোদন করে মন্ত্রিসভা কমিটি। এর আগে গত ২১ জুন বাংলাদেশ পারমাণবিক শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনকে এ কেন্দ্র স্থাপনের জায়গার জন্য লাইসেন্স দেয়।

ঋণ নেওয়ার ১০ বছর পর এর সুদ শুরু হবে। ৩০ বছরের মধ্যে শোধ করতে হবে পুরো টাকা। মূল ঋণের প্রথম কিস্তি ২০২৭ সালের ১৫ মার্চ দিতে হবে। প্রতিবছর ১৫ মার্চ ও ১৫ সেপ্টেম্বর সমপরিমাণ কিস্তিতে বাংলাদেশ সরকারকে ঋণ শোধ করতে হবে। মূল অর্থের সঙ্গে ১ দশমিক ৭৫ শতাংশ যোগ করে ঋণের সুদের হার নির্ধারণ করা হবে। তবে সুদের হার বছরে ৪ শতাংশের বেশি হবে না।

এর আগে এই কেন্দ্রের প্রাথমিক পর্যায়ের কাজের জন্য ৫০ কোটি ডলার ঋণ নেওয়া হয় রাশিয়ার কাছ থেকে।

এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ ৫০ বছর। তবে ৯০ বছর একটানা একই হারে চলতে থাকবে। বাংলাদেশে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিট ২০২১ সালের মধ্যে চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। কেন্দ্রটি পরিচালনা করবে নিউক্লিয়ার পাওয়ার কোম্পানি বাংলাদেশ।

বিদ্যুৎকেন্দ্রটির প্রথম পর্যায়ের কাজ আগামী ডিসেম্বরে শেষ হওয়ার কথা। এরপর পরমাণু চুল্লি তৈরির কাজ শুরু হবে। এরইমধ্যে কেন্দ্রটির নকশা তৈরির কাজ শেষ করেছে এটমস্ট্রয় এক্সপার্ট।

নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে এই কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। কেন্দ্রের বর্জ্য রাশিয়ায় নিয়ে যাওয়া হবে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X