বুধবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৫ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:৩২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, September 13, 2017 10:02 am
A- A A+ Print

‘পাহাড়ি বনে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে আছে রোহিঙ্গাদের লাশ’

2

মিয়ানমারে পাহাড়ি বনের আনাচে-কানাচে পড়ে আছে রোহিঙ্গাদের লাশ। গণমাধ্যমকে এমনই তথ্য জানালেন মিয়ানমার থেকে প্রাণ ভয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা জাহিদুল্লাহ। মিয়ানমারের সেনা ও দুর্বৃত্তদের ভয়ে পাহাড়ের বনে পাঁচ দিন লুকিয়ে ছিলেন জাহিদুল্লাহ। তিনি রাখাইন রাজ্যের রাসিডং গ্রামের বাসিন্দা। ষষ্ঠ দিনের মাথায় বাংলাদেশের দিকে রওনা দেন তিনি। কিন্তু বন থেকে বেরিয়ে আসার সময় পথে দেখেন লাশের মিছিল। পাহাড়ি বনের আনাচে-কানাচে পড়ে রয়েছে লাশ। মঙ্গলবার নাফ নদী পাড়ি দিয়ে টেকনাফের হাড়িয়াখালীতে পৌঁছায় জাহিদুল্লাহ ও তাঁর পরিবার। জাহিদুল্লাহ জানান, মিয়ানমারের সেনা ও দুর্বৃত্তদের নৃশংসতা থেকে শিশুরাও রেহাই পাচ্ছে না। শিশুদের নির্বিচারে হত্যা করা হয়েছে। অত্যাচার-নির্যাতন ও খুন হয়ে যাওয়ার ভয়ে রোহিঙ্গারা কোনোমতে ঘর ছেড়ে পাহাড়ের বনে আশ্রয় নেয়। সেখানেও আছে বিপদ। সেনারা বনের ভেতরও অভিযান চালিয়ে গুলি করে। বাংলাদেশে আসা এই রোহিঙ্গা মুসলিম জানান, বন থেকে যখন তাঁরা বের হয়ে আসেন, তখন দেখেন বনে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে লাশ। সেখানে আছে নারী-পুরুষ, এমনকি অনেক শিশু। লাশের ওপর দিয়ে, লাশ পাশ কাটিয়ে বন থেকে বেরিয়ে আসতে হয়েছে তাঁদের। মিয়ানমারের রাসিডং বাজারে তরিতরকারিসহ বিভিন্ন নিত্যব্যবহৃত পণ্যের দোকান ছিল জাহিদুল্লাহর। এখন কিছুই নেই তাঁর। ঘরবাড়িও পুড়িয়ে দিয়েছে। কেবল পরনের পোশাকটা পরেই চলে আসেন তিনি। নির্যাতনটা করে কারা—জানতে চাইলে জাহিদুল্লাহ বলেন, ৫০ জন সেনাসদস্য এলে তাদের সঙ্গে আরো ৫০ জন স্থানীয় প্রভাবশালী আসে। এরা মিলেই আগুন লাগায়, নির্বিচারে গুলি করে।

Comments

Comments!

 ‘পাহাড়ি বনে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে আছে রোহিঙ্গাদের লাশ’AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

‘পাহাড়ি বনে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে আছে রোহিঙ্গাদের লাশ’

Wednesday, September 13, 2017 10:02 am
2

মিয়ানমারে পাহাড়ি বনের আনাচে-কানাচে পড়ে আছে রোহিঙ্গাদের লাশ। গণমাধ্যমকে এমনই তথ্য জানালেন মিয়ানমার থেকে প্রাণ ভয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা জাহিদুল্লাহ।
মিয়ানমারের সেনা ও দুর্বৃত্তদের ভয়ে পাহাড়ের বনে পাঁচ দিন লুকিয়ে ছিলেন জাহিদুল্লাহ। তিনি রাখাইন রাজ্যের রাসিডং গ্রামের বাসিন্দা। ষষ্ঠ দিনের মাথায় বাংলাদেশের দিকে রওনা দেন তিনি। কিন্তু বন থেকে বেরিয়ে আসার সময় পথে দেখেন লাশের মিছিল। পাহাড়ি বনের আনাচে-কানাচে পড়ে রয়েছে লাশ।
মঙ্গলবার নাফ নদী পাড়ি দিয়ে টেকনাফের হাড়িয়াখালীতে পৌঁছায় জাহিদুল্লাহ ও তাঁর পরিবার।
জাহিদুল্লাহ জানান, মিয়ানমারের সেনা ও দুর্বৃত্তদের নৃশংসতা থেকে শিশুরাও রেহাই পাচ্ছে না। শিশুদের নির্বিচারে হত্যা করা হয়েছে। অত্যাচার-নির্যাতন ও খুন হয়ে যাওয়ার ভয়ে রোহিঙ্গারা কোনোমতে ঘর ছেড়ে পাহাড়ের বনে আশ্রয় নেয়। সেখানেও আছে বিপদ। সেনারা বনের ভেতরও অভিযান চালিয়ে গুলি করে।
বাংলাদেশে আসা এই রোহিঙ্গা মুসলিম জানান, বন থেকে যখন তাঁরা বের হয়ে আসেন, তখন দেখেন বনে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে লাশ। সেখানে আছে নারী-পুরুষ, এমনকি অনেক শিশু। লাশের ওপর দিয়ে, লাশ পাশ কাটিয়ে বন থেকে বেরিয়ে আসতে হয়েছে তাঁদের।
মিয়ানমারের রাসিডং বাজারে তরিতরকারিসহ বিভিন্ন নিত্যব্যবহৃত পণ্যের দোকান ছিল জাহিদুল্লাহর। এখন কিছুই নেই তাঁর। ঘরবাড়িও পুড়িয়ে দিয়েছে। কেবল পরনের পোশাকটা পরেই চলে আসেন তিনি।
নির্যাতনটা করে কারা—জানতে চাইলে জাহিদুল্লাহ বলেন, ৫০ জন সেনাসদস্য এলে তাদের সঙ্গে আরো ৫০ জন স্থানীয় প্রভাবশালী আসে। এরা মিলেই আগুন লাগায়, নির্বিচারে গুলি করে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X