শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:৫৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, July 26, 2017 8:38 am
A- A A+ Print

পুরান ঢাকায় জলাবদ্ধতা

1

বৃষ্টিতে গতকাল মঙ্গলবার পুরান ঢাকার বকশীবাজারের উমেশ দত্ত রোড ও হোসেনি দালান রোডে জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। এতে পথচারীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়।

দেখা যায়, বকশীবাজারের ড. শহীদুল্লাহ কলেজের সামনে থেকে কারা অধিদপ্তরের দক্ষিণ সীমানা পর্যন্ত উমেশ দত্ত রোডে পানি জমে আছে।

কারা অধিদপ্তরের প্রধান ফটকের সামনে কর্তব্যরত একজন কারারক্ষী বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলে এই রোডে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এই পানি সরতে কয়েক দিন সময় লেগে যায়। আর বেশি বৃষ্টি হলে অধিদপ্তরের ভেতরেও পানি জমে যায়। ফুটপাত দিয়েও পথচারীরা চলাচল করতে পারে না। এ ছাড়া খানাখন্দে ভরা এই সড়কে রিকশা উল্টে প্রায়ই ঘটে দুর্ঘটনা।

২০১৫ সালের ২৪ আগস্ট উমেশ দত্ত রোড সংস্কার ও জলাবদ্ধতা নিরসনে কারা অধিদপ্তর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলালের বরাবর আবেদন করে। কিন্তু কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় গত বছরের ১৯ জুন আবার সিটি করপোরেশনকে চিঠি দেয় কারা অধিদপ্তর।

তলিয়ে গেছে রাস্তা। এই চিত্র উমেশ দত্ত রোডেরঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের উত্তর-পূর্ব পাশে নাজিমুদ্দিন রোডের সঙ্গে হোসেনি দালান রোডের পৃথক দুটি লেন আছে। এর মধ্যে হোসেনি দালান দ্বিতীয় লেনে জলাবদ্ধতা বেশি হয়। গতকাল দেখা যায়, এই রোডের বকশীবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ সড়কের দুপাশের বাসাবাড়ি ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের ভেতর পানি ঢোকার উপক্রম হয়েছে। একইভাবে হোসেনি দালান প্রথম লেনে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এই সড়কের চারটি বাড়ির ভেতর পানি ঢুকে গেছে।

হোসেনি দালান রোডের বাসিন্দা শামিম আহমেদের অভিযোগ, এক যুগের বেশি সময় ধরে হোসেনি দালান এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টির পরিমাণ বেশি হলে নাজিমুদ্দিন রোডেও পানি জমে। এই পানি সরতে চার থেকে পাঁচ দিনও সময় লাগে।

স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ, সামান্য বৃষ্টিতেই উমেশ দত্ত রোড ও হোসেনি দালান রোডে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। আর বেশি বৃষ্টি হলে এই দুটি সড়কে হাঁটুপানি জমে। কিন্তু এই জলাবদ্ধতা নিরসনে ডিএসসিসির উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না।

উমেশ দত্ত রোড, হোসেনি দালান রোড ও নাজিমুদ্দিন রোডের জলাবদ্ধতার বিষয়ে জানতে চাইলে ডিএসসিসির মেয়র সাঈদ খোকন প্রথম আলোকে বলেন, এই তিনটি রোডের জলাবদ্ধতা নিরসনে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের জন্য নালা তৈরি করা হবে। ইতিমধ্যে দরপত্র চূড়ান্ত করা হয়েছে। কার্যাদেশ প্রায় চূড়ান্ত। শিগগিরই নালা নির্মাণের কাজ শুরু হবে। পরে সড়কগুলো সংস্কার করা হবে। তিনি বলেন, এবার বৃষ্টি বেশি হওয়ায় নগরবাসীকে কিছুটা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

নগরের যানজটের বিষয়ে ডিএসসিসির মেয়র বলেন, বৃষ্টি হলে বাসচালক, যাত্রী ও পথচারীরা তাড়াহুড়ো শুরু করেন। ট্রাফিক পুলিশও বৃষ্টি থেকে বাঁচতে পুলিশ বক্সে আশ্রয় নেন। এতে সড়কে যানজট লেগে যায়। পরে এই যানজট কমাতে কয়েক ঘণ্টা সময় লাগে।

Comments

Comments!

 পুরান ঢাকায় জলাবদ্ধতাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

পুরান ঢাকায় জলাবদ্ধতা

Wednesday, July 26, 2017 8:38 am
1

বৃষ্টিতে গতকাল মঙ্গলবার পুরান ঢাকার বকশীবাজারের উমেশ দত্ত রোড ও হোসেনি দালান রোডে জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। এতে পথচারীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়।

দেখা যায়, বকশীবাজারের ড. শহীদুল্লাহ কলেজের সামনে থেকে কারা অধিদপ্তরের দক্ষিণ সীমানা পর্যন্ত উমেশ দত্ত রোডে পানি জমে আছে।

কারা অধিদপ্তরের প্রধান ফটকের সামনে কর্তব্যরত একজন কারারক্ষী বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলে এই রোডে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এই পানি সরতে কয়েক দিন সময় লেগে যায়। আর বেশি বৃষ্টি হলে অধিদপ্তরের ভেতরেও পানি জমে যায়। ফুটপাত দিয়েও পথচারীরা চলাচল করতে পারে না। এ ছাড়া খানাখন্দে ভরা এই সড়কে রিকশা উল্টে প্রায়ই ঘটে দুর্ঘটনা।

২০১৫ সালের ২৪ আগস্ট উমেশ দত্ত রোড সংস্কার ও জলাবদ্ধতা নিরসনে কারা অধিদপ্তর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলালের বরাবর আবেদন করে। কিন্তু কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় গত বছরের ১৯ জুন আবার সিটি করপোরেশনকে চিঠি দেয় কারা অধিদপ্তর।

তলিয়ে গেছে রাস্তা। এই চিত্র উমেশ দত্ত রোডেরঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের উত্তর-পূর্ব পাশে নাজিমুদ্দিন রোডের সঙ্গে হোসেনি দালান রোডের পৃথক দুটি লেন আছে। এর মধ্যে হোসেনি দালান দ্বিতীয় লেনে জলাবদ্ধতা বেশি হয়। গতকাল দেখা যায়, এই রোডের বকশীবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ সড়কের দুপাশের বাসাবাড়ি ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের ভেতর পানি ঢোকার উপক্রম হয়েছে। একইভাবে হোসেনি দালান প্রথম লেনে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এই সড়কের চারটি বাড়ির ভেতর পানি ঢুকে গেছে।

হোসেনি দালান রোডের বাসিন্দা শামিম আহমেদের অভিযোগ, এক যুগের বেশি সময় ধরে হোসেনি দালান এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টির পরিমাণ বেশি হলে নাজিমুদ্দিন রোডেও পানি জমে। এই পানি সরতে চার থেকে পাঁচ দিনও সময় লাগে।

স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ, সামান্য বৃষ্টিতেই উমেশ দত্ত রোড ও হোসেনি দালান রোডে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। আর বেশি বৃষ্টি হলে এই দুটি সড়কে হাঁটুপানি জমে। কিন্তু এই জলাবদ্ধতা নিরসনে ডিএসসিসির উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না।

উমেশ দত্ত রোড, হোসেনি দালান রোড ও নাজিমুদ্দিন রোডের জলাবদ্ধতার বিষয়ে জানতে চাইলে ডিএসসিসির মেয়র সাঈদ খোকন প্রথম আলোকে বলেন, এই তিনটি রোডের জলাবদ্ধতা নিরসনে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের জন্য নালা তৈরি করা হবে। ইতিমধ্যে দরপত্র চূড়ান্ত করা হয়েছে। কার্যাদেশ প্রায় চূড়ান্ত। শিগগিরই নালা নির্মাণের কাজ শুরু হবে। পরে সড়কগুলো সংস্কার করা হবে। তিনি বলেন, এবার বৃষ্টি বেশি হওয়ায় নগরবাসীকে কিছুটা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

নগরের যানজটের বিষয়ে ডিএসসিসির মেয়র বলেন, বৃষ্টি হলে বাসচালক, যাত্রী ও পথচারীরা তাড়াহুড়ো শুরু করেন। ট্রাফিক পুলিশও বৃষ্টি থেকে বাঁচতে পুলিশ বক্সে আশ্রয় নেন। এতে সড়কে যানজট লেগে যায়। পরে এই যানজট কমাতে কয়েক ঘণ্টা সময় লাগে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X