শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:৩২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, May 4, 2017 9:19 am
A- A A+ Print

প্রথম আলো সম্পাদকের দাবি : গণমাধ্যমে সেলফ সেন্সরশিপের সত্যতা আছে

4

দৈনিক প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান বলেছেন, রাষ্ট্রীয় চাপে গণমাধ্যমগুলোতে সেলফ সেন্সরশিপ (স্বনিয়ন্ত্রণ) চলছে, যাতে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে সাংবাদিকতা। ‘মুক্ত গণমাধ্যম দিবস’ উপলক্ষে আজ বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় মতিউর রহমান এই মন্তব্য করেন। আলোচনায় মূল প্রবন্ধে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) একাংশের সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, দেশে বর্তমানে দৈনিক পত্রিকা প্রকাশিত হয় এক হাজার ১৩৩টি। এ ছাড়া, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক মাসিক মিলে প্রকাশনার সংখ্যা প্রায় তিন হাজার। আর লাইসেন্সপ্রাপ্ত ৪০টি টেলিভিশনের মধ্যে সম্প্রচারে আছে ২৮টি। এসব পরিসংখ্যানকে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার প্রমাণ হিসেবে মনে করেন তথ্যমন্ত্রী। বাংলাদেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার কণ্ঠ রোধ করা হচ্ছে বলে মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রতিবেদনের সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেন, ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রস্তাব, প্রতিবেদনটা, তারা তথ্যনির্ভর নয়, সঠিক নয়, বাংলাদেশের বাস্তবচিত্রের প্রতিফলন নয়। বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে আইনের শাসনে যে আমরা যাচ্ছি, উসকানিদাতা, চক্রান্তকারীদের চাপের ভেতরে ঠেলে দিয়েছি, এটা তারা পছন্দ করছেন না।’ মন্ত্রীর সঙ্গে বক্তব্যের বিপরীত কথা বলেছেন প্রথম আলোর সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘আমাদের জন্য সমস্যা আছে, চাপ আছে, কিছুটা ভয়ভীতিও আছে। কিন্তু আমরা এই বিষয়গুলো নিয়ে কি খুব ভেঙেচুরে, প্রকাশ্যে তর্ক-বিতর্ক, আলোচনা আমরা করতে পারি?’ ‘তো এই যে, সেলফ সেন্সরশিপ আমার, এই যে কথা বলতে পারা না পারার মধ্যে, লেখতে পারা না পারার মধ্যে এবং এটা তো বাস্তব সত্য যে, বিষয়টার মধ্যে সত্যতা আছে।’ গণমাধ্যমের ওপর সরকারের সরাসরি চাপের চেয়ে বিজ্ঞাপন, পরোক্ষ নিয়ন্ত্রণসহ অন্যান্য চাপ বেশি বলে মনে করেন কয়েকজন সাংবাদিক। তাঁরা মনে করেন, হত্যা-নির্যাতন ও হামলা, মামলার ক্ষেত্রে রাষ্ট্র যদি সাংবাদিকের পাশে না থাকে, তাহলে সেলফ সেন্সরশিপের মতো প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয় গণমাধ্যমে। এ বিষয়ে দৈনিক সমকালের সম্পাদক গোলাম সারওয়ার বলেন, ‘সাংবাদিক যদি পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় হত্যার শিকার হন, তাহলে দুটো বিচার আইনে তাঁর বিচার নিশ্চিত করতে হবে। এটা আমি দাবি জানাচ্ছি এখানে।’ প্রধানমন্ত্রী তথ্যবিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘আমি যে কর্মস্থলে চাকরি করি, সেখানে আমার কতটুকু নিরাপত্তা আছে? কতটুকু আমি, আমার চাকরির নিরাপত্তা আছে? আমার বেতন-ভাতা পাওয়ার নিরাপত্তা আছে? আমার সুযোগ-সুবিধা কতটুকু আমি পাই?’ জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান বলেন, ‘একজন বিসিএস ক্যাডারের অফিসার যেই প্রসেসে (প্রক্রিয়া), ব্যাকগ্রাউন্ডের (যোগ্যতা) কারণে নিয়োগটা পান, আমি তো মনে করি সাংবাদিকদের জন্য এ রকম কোনো একটা প্রসেস, এ রকম একটা কম্পিটেন্ট (প্রতিযোগী) প্রতিষ্ঠান থাকা উচিত, যার মাধ্যমে রিক্রুটমেন্টটা হবে।’

Comments

Comments!

 প্রথম আলো সম্পাদকের দাবি : গণমাধ্যমে সেলফ সেন্সরশিপের সত্যতা আছেAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

প্রথম আলো সম্পাদকের দাবি : গণমাধ্যমে সেলফ সেন্সরশিপের সত্যতা আছে

Thursday, May 4, 2017 9:19 am
4

দৈনিক প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান বলেছেন, রাষ্ট্রীয় চাপে গণমাধ্যমগুলোতে সেলফ সেন্সরশিপ (স্বনিয়ন্ত্রণ) চলছে, যাতে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে সাংবাদিকতা।

‘মুক্ত গণমাধ্যম দিবস’ উপলক্ষে আজ বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় মতিউর রহমান এই মন্তব্য করেন।

আলোচনায় মূল প্রবন্ধে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) একাংশের সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, দেশে বর্তমানে দৈনিক পত্রিকা প্রকাশিত হয় এক হাজার ১৩৩টি। এ ছাড়া, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক মাসিক মিলে প্রকাশনার সংখ্যা প্রায় তিন হাজার। আর লাইসেন্সপ্রাপ্ত ৪০টি টেলিভিশনের মধ্যে সম্প্রচারে আছে ২৮টি। এসব পরিসংখ্যানকে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার প্রমাণ হিসেবে মনে করেন তথ্যমন্ত্রী।

বাংলাদেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার কণ্ঠ রোধ করা হচ্ছে বলে মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রতিবেদনের সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেন, ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রস্তাব, প্রতিবেদনটা, তারা তথ্যনির্ভর নয়, সঠিক নয়, বাংলাদেশের বাস্তবচিত্রের প্রতিফলন নয়। বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে আইনের শাসনে যে আমরা যাচ্ছি, উসকানিদাতা, চক্রান্তকারীদের চাপের ভেতরে ঠেলে দিয়েছি, এটা তারা পছন্দ করছেন না।’

মন্ত্রীর সঙ্গে বক্তব্যের বিপরীত কথা বলেছেন প্রথম আলোর সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘আমাদের জন্য সমস্যা আছে, চাপ আছে, কিছুটা ভয়ভীতিও আছে। কিন্তু আমরা এই বিষয়গুলো নিয়ে কি খুব ভেঙেচুরে, প্রকাশ্যে তর্ক-বিতর্ক, আলোচনা আমরা করতে পারি?’

‘তো এই যে, সেলফ সেন্সরশিপ আমার, এই যে কথা বলতে পারা না পারার মধ্যে, লেখতে পারা না পারার মধ্যে এবং এটা তো বাস্তব সত্য যে, বিষয়টার মধ্যে সত্যতা আছে।’

গণমাধ্যমের ওপর সরকারের সরাসরি চাপের চেয়ে বিজ্ঞাপন, পরোক্ষ নিয়ন্ত্রণসহ অন্যান্য চাপ বেশি বলে মনে করেন কয়েকজন সাংবাদিক। তাঁরা মনে করেন, হত্যা-নির্যাতন ও হামলা, মামলার ক্ষেত্রে রাষ্ট্র যদি সাংবাদিকের পাশে না থাকে, তাহলে সেলফ সেন্সরশিপের মতো প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয় গণমাধ্যমে।

এ বিষয়ে দৈনিক সমকালের সম্পাদক গোলাম সারওয়ার বলেন, ‘সাংবাদিক যদি পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় হত্যার শিকার হন, তাহলে দুটো বিচার আইনে তাঁর বিচার নিশ্চিত করতে হবে। এটা আমি দাবি জানাচ্ছি এখানে।’

প্রধানমন্ত্রী তথ্যবিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘আমি যে কর্মস্থলে চাকরি করি, সেখানে আমার কতটুকু নিরাপত্তা আছে? কতটুকু আমি, আমার চাকরির নিরাপত্তা আছে? আমার বেতন-ভাতা পাওয়ার নিরাপত্তা আছে? আমার সুযোগ-সুবিধা কতটুকু আমি পাই?’

জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান বলেন, ‘একজন বিসিএস ক্যাডারের অফিসার যেই প্রসেসে (প্রক্রিয়া), ব্যাকগ্রাউন্ডের (যোগ্যতা) কারণে নিয়োগটা পান, আমি তো মনে করি সাংবাদিকদের জন্য এ রকম কোনো একটা প্রসেস, এ রকম একটা কম্পিটেন্ট (প্রতিযোগী) প্রতিষ্ঠান থাকা উচিত, যার মাধ্যমে রিক্রুটমেন্টটা হবে।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X