বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ২:২৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, December 9, 2016 7:17 am
A- A A+ Print

ফরিদপুরে ‘ডাকাত–পুলিশ’ গোলাগুলির পর দুজনের লাশ উদ্ধার : পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার দুজন ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

download

ঢাকার কেরানীগঞ্জে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার এক দিনের মাথায় ‘অভিযানের সময়’ দুই ব্যক্তি পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছেন। আর ফরিদপুরে ডাকাত ও পুলিশের মধ্যে ‘গোলাগুলির’ পর দুই ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার রাতে নিহত এই চারজনই ডাকাত দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন বলে দাবি করেছে পুলিশ। তবে তাৎক্ষণিকভাবে নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। কেরানীগঞ্জে নিহত ব্যক্তিরা হলেন মোনতাজুল ইসলাম ওরফে মন্তাজ (৩৫) ও সাঈদ আহমেদ ওরফে সবুজ (৩৪)। মোনতাজুলের একটি মুদিদোকান রয়েছে, যাকে পুলিশ ডাকাতির মাল বিক্রির কৌশল বলে দাবি করেছে। ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান বলেন, নিহত মোনতাজুল ডাকাত সর্দার। তিনি সহযোগী সাঈদসহ ঢাকা ও আশপাশের বিভিন্ন জেলায় স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি করে আসছিলেন। তাঁদের কাজের ধরন ছিল মাগরিবের আজানের পরপরই স্বর্ণের দোকান লুট করা। পুলিশ বলেছে, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ঢাকা-মাওয়া সংযোগ সড়ক এলাকা থেকে মঙ্গলবার রাতে ওই দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়। পরদিন বুধবার তাঁদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়। পুলিশ সুপার বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার হওয়া মোনতাজুল ও সাঈদ জানান, কেরানীগঞ্জের রোহিতপুর বিসিক লাখিরচরের পোড়াহাটি এলাকায় লুণ্ঠিত মালামাল ও অস্ত্র আছে। পরে বুধবার রাত পৌনে একটার দিকে তাঁদের নিয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল রোহিতপুর পোড়াহাটি এলাকায় অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদের অন্য সহযোগীরা গুলিবর্ষণ করেন। পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। পুলিশ সুপার বলেন, এ সময় মোনতাজুল ও সাঈদ পালানোর চেষ্টা করলে গুলিবিদ্ধ হন। গুরুতর আহত অবস্থায় স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁদের মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ বলেছে, নিহত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কেরানীগঞ্জ, ধামরাই, সিলেট, কুমিল্লা, ফরিদপুর থানায় ডাকাতি ও বিস্ফোরকের কয়েকটি মামলা রয়েছে। কামরাঙ্গীরচর থানার হুজুরপাড়া এলাকায় মোনতাজুলের একটি মুদিদোকান রয়েছে, যার আড়ালে স্বর্ণসহ লুণ্ঠিত মালামাল বিক্রি করা হতো। এদিকে ফরিদপুর শহরতলির মোল্লাবাড়ী-বাইপাস সড়কের পেয়ারপুরে বুধবার রাতে ডাকাতদের দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনায় দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাজিমউদ্দিন বলেন, বুধবার রাত সোয়া ১২টার দিকে ডাকাতদের দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হলে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ফাঁকা গুলি ছোড়েন। পরে ডাকাতেরা পিছু হটলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুই ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে। নিহত ব্যক্তিরা হলেন শরীয়তপুরের পালং উপজেলার চররোসন্দি গ্রামের ফারুক ফকির (৪৫) ও বরগুনার বেতাগী উপজেলার কদমতলা গ্রামের হৃদয় হোসেন মানিক (৩০)। পুলিশ বলছে, নিহত ফারুক ও হৃদয় গত ২০ জুলাই রাতে শহরের নিলটুলী মহল্লার স্বর্ণপট্টি এলাকার মেঘনা জুয়েলার্সে ১৫১ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ডাকাতির সঙ্গে জড়িত। তাঁরা সোনা ডাকাতি চক্রের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। নিহত দুজনের লাশ ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়। হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, তাঁদের মাথায় গুলি লেগেছে।

Comments

Comments!

 ফরিদপুরে ‘ডাকাত–পুলিশ’ গোলাগুলির পর দুজনের লাশ উদ্ধার : পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার দুজন ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহতAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ফরিদপুরে ‘ডাকাত–পুলিশ’ গোলাগুলির পর দুজনের লাশ উদ্ধার : পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার দুজন ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

Friday, December 9, 2016 7:17 am
download

ঢাকার কেরানীগঞ্জে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার এক দিনের মাথায় ‘অভিযানের সময়’ দুই ব্যক্তি পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছেন। আর ফরিদপুরে ডাকাত ও পুলিশের মধ্যে ‘গোলাগুলির’ পর দুই ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার রাতে নিহত এই চারজনই ডাকাত দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন বলে দাবি করেছে পুলিশ। তবে তাৎক্ষণিকভাবে নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
কেরানীগঞ্জে নিহত ব্যক্তিরা হলেন মোনতাজুল ইসলাম ওরফে মন্তাজ (৩৫) ও সাঈদ আহমেদ ওরফে সবুজ (৩৪)। মোনতাজুলের একটি মুদিদোকান রয়েছে, যাকে পুলিশ ডাকাতির মাল বিক্রির কৌশল বলে দাবি করেছে।
ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান বলেন, নিহত মোনতাজুল ডাকাত সর্দার। তিনি সহযোগী সাঈদসহ ঢাকা ও আশপাশের বিভিন্ন জেলায় স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি করে আসছিলেন। তাঁদের কাজের ধরন ছিল মাগরিবের আজানের পরপরই স্বর্ণের দোকান লুট করা।
পুলিশ বলেছে, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ঢাকা-মাওয়া সংযোগ সড়ক এলাকা থেকে মঙ্গলবার রাতে ওই দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়। পরদিন বুধবার তাঁদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়।
পুলিশ সুপার বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার হওয়া মোনতাজুল ও সাঈদ জানান, কেরানীগঞ্জের রোহিতপুর বিসিক লাখিরচরের পোড়াহাটি এলাকায় লুণ্ঠিত মালামাল ও অস্ত্র আছে। পরে বুধবার রাত পৌনে একটার দিকে তাঁদের নিয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল রোহিতপুর পোড়াহাটি এলাকায় অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদের অন্য সহযোগীরা গুলিবর্ষণ করেন। পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। পুলিশ সুপার বলেন, এ সময় মোনতাজুল ও সাঈদ পালানোর চেষ্টা করলে গুলিবিদ্ধ হন। গুরুতর আহত অবস্থায় স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁদের মৃত ঘোষণা করেন।
পুলিশ বলেছে, নিহত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কেরানীগঞ্জ, ধামরাই, সিলেট, কুমিল্লা, ফরিদপুর থানায় ডাকাতি ও বিস্ফোরকের কয়েকটি মামলা রয়েছে। কামরাঙ্গীরচর থানার হুজুরপাড়া এলাকায় মোনতাজুলের একটি মুদিদোকান রয়েছে, যার আড়ালে স্বর্ণসহ লুণ্ঠিত মালামাল বিক্রি করা হতো।
এদিকে ফরিদপুর শহরতলির মোল্লাবাড়ী-বাইপাস সড়কের পেয়ারপুরে বুধবার রাতে ডাকাতদের দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনায় দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।
ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাজিমউদ্দিন বলেন, বুধবার রাত সোয়া ১২টার দিকে ডাকাতদের দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হলে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ফাঁকা গুলি ছোড়েন। পরে ডাকাতেরা পিছু হটলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুই ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে। নিহত ব্যক্তিরা হলেন শরীয়তপুরের পালং উপজেলার চররোসন্দি গ্রামের ফারুক ফকির (৪৫) ও বরগুনার বেতাগী উপজেলার কদমতলা গ্রামের হৃদয় হোসেন মানিক (৩০)।
পুলিশ বলছে, নিহত ফারুক ও হৃদয় গত ২০ জুলাই রাতে শহরের নিলটুলী মহল্লার স্বর্ণপট্টি এলাকার মেঘনা জুয়েলার্সে ১৫১ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ডাকাতির সঙ্গে জড়িত। তাঁরা সোনা ডাকাতি চক্রের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।
নিহত দুজনের লাশ ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়। হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, তাঁদের মাথায় গুলি লেগেছে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X