বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৮:৪১
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, December 4, 2016 9:48 am | আপডেটঃ December 04, 2016 9:49 AM
A- A A+ Print

ফারাক্কার উজানে গঙ্গায় পানি থৈ থৈ ভাটিতে পদ্মায় অসংখ্য চর

8

বাংলাদেশ অংশে পদ্মায় জেগে উঠেছে অসংখ্য চর ও ডুবোচর। ভারত গঙ্গা নদীতে (পদ্মা) বাঁধ দিয়ে ভাগীরথী নদীর মাধ্যমে পানির প্রবাহ ঘুরিয়ে নিয়েছে। ফলে ফারাক্কার উজানে গঙ্গায় ভরা যৌবন, পানি থৈ থৈ করছে। ভাটির বাংলাদেশ অংশে আশঙ্কাজনক পানির প্রবাহ কমে গেছে। ফলে পদ্মার ৫৩টি শাখা-প্রশাখা নদীর নাব্যতা সঙ্কটে নৌচলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। দেশের কৃষি, শিল্প ও ব্যবসাবাণিজ্যে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায়, ফরাক্কা ব্যারাজের ভাটিতে মুর্শিদাবাদের জঙ্গীপুরে আরো একটি ব্যারাজ তৈরি করা হয়েছে। এর সাথে যুক্ত হয়েছে লকগেট, বাঁধ ও ফিডার ক্যানেল। ফিডার ক্যানেল লম্বায় ৩৮ দশমিক ৩ কিলোমিটার। ফারাক্কা বাঁধ থেকে গঙ্গার পানি এই ক্যানেল দিয়েই ভাগীরথীতে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। ফারাক্কা বাঁধ প্রকল্পের মাধ্যমে ভাগীরথী-হুগলি নদীর প্রবাহ স্বাভাবিক রাখতে ফিডার ক্যানেলে দৈনিক ৪০ হাজার কিউসেক পানি ছাড়া হয়। এক মজা নদীকে জীবন দিতে গিয়ে পৃথিবীতে এ পর্যন্ত যতগুলো বৃহত্তম বাঁধ তৈরি করা হয়েছে ফারাক্কা বাঁধ তার মধ্যে অন্যতম। ভারত ফারাক্কার উজানে উত্তর প্রদেশ রাজ্যের কানপুর ব্যারাজ এবং উত্তর প্রদেশ ও বিহারে সেচের জন্য আরো প্রায় ৪০০ পয়েন্ট দিয়ে পানি সরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করেছে। সমুদ্র থেকে ৪২ ফুট উঁচুতে অবস্থিত হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্ট থেকে ভারত সীমান্ত ত্রিশ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে। ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের ১৮ কিলোমিটার উজানে ফারাক্কা বাঁধ অবস্থিত। ভারতের গোমুখিতে ভূমিষ্ঠ হয়ে বাংলাদেশের মেঘনা সঙ্গমস্থল পর্যন্ত এক হাজার ৬৮০ মাইলব্যাপী প্রবাহিত। মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে গঙ্গার মূল অংশ চলে আসে বাংলাদেশে। গঙ্গার নি¤œ স্রোতধারার নাম পদ্মা। পদ্মা রাজশাহীর চারঘাটে প্রবেশ করে পাবনার বেড়া উপজেলার নতিবপুরের কাছে বারকোদালিয়ায় যমুনা নদীর সাথে মিশেছে। পদ্মা ও যমুনার মিলিত প্রবাহ পদ্মা নামে অভিহিত। অবশ্য গঙ্গা বাংলাদেশে আসার পর থেকেই পদ্মা নামে পরিচিত। এক সময়ের প্রমত্তা পদ্মার বুকে এখন অসংখ্য চর। শুধু ফারাক্কার প্রভাবে বাংলাদেশের কৃষি, শিল্প-কারখানা সব কিছুতে মারাত্মক তি হচ্ছে। মিঠাপানি ছাড়া কৃষি তথা কোনো ধরনের শিল্পকারখানা চলতে পারে না। ফারাক্কার কারণে যশোর-খুলনা অঞ্চলে মিঠাপানির প্রবাহ কমে গেছে। ফারাক্কার কারণে পদ্মার তলদেশ ওপরে উঠে এসেছে। গাঙ্গেয় পানিব্যবস্থায় দুই শতাধিক প্রজাতির মিঠাপানির মাছ ও ১৮ প্রজাতির চিংড়ি ছিল। সেগুলোর বেশির ভাগই এখন বিলুপ্তির পথে। পদ্মা নদীতে পানি স্বল্পতার কারণে উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলে মরুকরণ অবস্থা স্থায়ী রূপ নিতে যাচ্ছে। জীববৈচিত্র্য অনেক আগেই হুমকির মুখে পড়েছে। পদ্মা সংযুক্ত বরেন্দ্র অঞ্চলের ওপর দিয়ে প্রবাহিত মহানন্দা, আত্রাই, বারনই, শিব, রানী ও ছোট যমুনাসহ ১২টি নদী ও ২০টি খালে এর প্রভাব পড়েছে। এসব নদী-খাল পলি ও বালু পড়ে ভরাট হয়ে যাওয়ায় এখন মৃতপ্রায়। ফলে এ অঞ্চলের কৃষি সম্পূর্ণ ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। ফলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে। প্রকৃতিতে বিরাজ করছে মরুরুক্ষতা। পদ্মা নদীতে পানি স্বল্পতার কারণে ভাটির বাংলাদেশে পানির তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে। উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ দেখছেন, নদী শুকিয়ে যাচ্ছে। পদ্মা নদীতে পর্যাপ্ত পানি না থাকায় এর প্রধান শাখা নদী আত্রাই ও গড়াই নদীতে পানির টান পড়েছে। গড়াই নদীর কুষ্টিয়া কয়ারা ব্রিজের নিচে বালুচর। জিকে প্রজেক্ট কার্যত অকার্যকর হয়ে পড়েছে। পদ্মা, মধুমতি, নবগঙ্গা, কাজলা, মাথাভাঙ্গা, গড়াই, আত্রাই, চিকনাই, হিনসা, কুমার, সাগরখালি, কপোতাক্ষ, চন্দনাসহ পদ্মার ৫৩টি শাখা-প্রশাখা নদীতে নাব্যতা সঙ্কটে নৌচলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। কোনো কোনো স্থানে বালু স্থায়ী মৃত্তিকায় রূপ নেয়ায় ফসল আবাদ করেছেন অনেকেই। পদ্মার প্রধান শাখা নদী হলো মাথাভাঙ্গা, কুমার, ইছামতি, গড়াই, আড়িয়ালখাঁ প্রভৃতি। প্রশাখা হলো মধুমতি, পশুর, কপোতা। উপনদী একটি মহানন্দা। মহানন্দা রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানায় এসে পদ্মায় মিলিত হয়েছে। পদ্মার পানি দিয়ে শুকনো মওসুমে রাজশাহী, পাবনা, কুষ্টিয়া, যশোর, ফরিদপুর প্রভৃতি জেলায় সেচকাজ চালানো হয়। এ নদীর পানি দিয়ে প্রায় ২০ ভাগ জমির সেচকাজ চলে। বাংলাদেশের কৃষি, শিল্প, ব্যবসাবাণিজ্যসহ বিভিন্ন েেত্র পদ্মা নদীর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। নদী বিশেষজ্ঞরা বলেন, পানি প্রবাহের মাত্রা ৪০ হাজার কিউসেক হলে নদীতে আর পলি জমতে পারে না। তলদেশও ভরাট হয় না। প্রবাহ কম বলে পদ্মার বুকে মাইলের পর মাইল চর জেগে উঠছে। যশোর-কুষ্টিয়ার নদীগুলো পদ্মার সাথে সংযোগ হারিয়ে ফেলেছে। পাবনায় ইছামতি, রতœাই, চন্দ্রাবতী এবং রাজশাহী ও নাটোরে কয়েকটি নদী রয়েছে। পদ্মার প্রধান শাখা নদীগুলোর মধ্যে রয়েছে মধুমতি, আড়িয়ালখাঁ, ভৈরব, মাথাভাঙ্গা, কুমার, কপোতাক্ষ, পশুর ও বড়াল। পাবনার মধ্য দিয়ে পদ্মার আরেকটি শাখা নদী মরা পদ্মা হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে মূল পদ্মা, গড়াই এবং পাবনার চাটমোহরের বড়াল, ছোট যমুনা, পুনর্ভবা, আত্রাই, ইছামতি, গুমানী, গোমতী, ভদ্রবতী, গোহালা, নন্দকুজা, গাড়াদহ, কাকন, কানেশ্বরী, সরস্বতী, মুক্তাহার ঝবঝবিয়া, ফুলজোর এলাকা ঘুরে দেখা যায়, এসব নদীর অস্তিত্ব হারিয়ে যাচ্ছে। পদ্মা নদীতে পানির প্রবল টান পড়ায় এসব নদী শুকিয়ে গেছে। কোনো কোনো স্থানে হাঁটু পর্যন্ত পানি আছে। এলাকার প্রবীণ লোকদের মতে, ফারাক্কা ব্যারাজের আগে এসব নদ-নদীতে সারা বছর পানি থাকত। অপর দিকে তিস্তা নদীতে পানি না থাকায় ব্রহ্মপুত্র নদে পানির টান পড়ায় যমুনা নদী শুকিয়ে যাচ্ছে। পাবনা নগরবাড়ী, বেড়া-নাকালিয়া যমুনা নদীর বুকজুড়ে অসংখ্য ছোট বড় চর। বেড়ার নিকটবর্তী শাহজাদপুরে বাঘাবাড়ি ব্রিজের নিচে বড়াল নদীতে অসংখ্য চর পড়েছে। যমুনায় নদীর নাব্যতা কমে যাওয়ায় রাসায়নিক সারবাহী জাহাজ অর্ধেক লোড নিয়ে বাঘাবাড়ী বন্দরে আসছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নদী বিশেষজ্ঞ কামরুন নেছা জানান, বাংলাদেশের পদ্মার যে বিপুল আয়তন তাতে স্বাভাবিক প্রবাহ থাকলে প্রাকৃতিক ও পরিবেশগত বিপর্যয় সৃষ্টির কথা উঠতো না; কিন্তু ভারত নেপালের কোশি থেকে শুরু করে ফারাক্কা পর্যন্ত সুদীর্ঘ পথে পানি প্রত্যাহারের যে একতরফা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে, তাতে বাংলাদেশের বিপর্যয় অবশ্যম্ভাবী হয়ে উঠে

Comments

Comments!

 ফারাক্কার উজানে গঙ্গায় পানি থৈ থৈ ভাটিতে পদ্মায় অসংখ্য চরAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ফারাক্কার উজানে গঙ্গায় পানি থৈ থৈ ভাটিতে পদ্মায় অসংখ্য চর

Sunday, December 4, 2016 9:48 am | আপডেটঃ December 04, 2016 9:49 AM
8

বাংলাদেশ অংশে পদ্মায় জেগে উঠেছে অসংখ্য চর ও ডুবোচর। ভারত গঙ্গা নদীতে (পদ্মা) বাঁধ দিয়ে ভাগীরথী নদীর মাধ্যমে পানির প্রবাহ ঘুরিয়ে নিয়েছে। ফলে ফারাক্কার উজানে গঙ্গায় ভরা যৌবন, পানি থৈ থৈ করছে। ভাটির বাংলাদেশ অংশে আশঙ্কাজনক পানির প্রবাহ কমে গেছে। ফলে পদ্মার ৫৩টি শাখা-প্রশাখা নদীর নাব্যতা সঙ্কটে নৌচলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। দেশের কৃষি, শিল্প ও ব্যবসাবাণিজ্যে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।
প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায়, ফরাক্কা ব্যারাজের ভাটিতে মুর্শিদাবাদের জঙ্গীপুরে আরো একটি ব্যারাজ তৈরি করা হয়েছে। এর সাথে যুক্ত হয়েছে লকগেট, বাঁধ ও ফিডার ক্যানেল। ফিডার ক্যানেল লম্বায় ৩৮ দশমিক ৩ কিলোমিটার। ফারাক্কা বাঁধ থেকে গঙ্গার পানি এই ক্যানেল দিয়েই ভাগীরথীতে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। ফারাক্কা বাঁধ প্রকল্পের মাধ্যমে ভাগীরথী-হুগলি নদীর প্রবাহ স্বাভাবিক রাখতে ফিডার ক্যানেলে দৈনিক ৪০ হাজার কিউসেক পানি ছাড়া হয়। এক মজা নদীকে জীবন দিতে গিয়ে পৃথিবীতে এ পর্যন্ত যতগুলো বৃহত্তম বাঁধ তৈরি করা হয়েছে ফারাক্কা বাঁধ তার মধ্যে অন্যতম। ভারত ফারাক্কার উজানে উত্তর প্রদেশ রাজ্যের কানপুর ব্যারাজ এবং উত্তর প্রদেশ ও বিহারে সেচের জন্য আরো প্রায় ৪০০ পয়েন্ট দিয়ে পানি সরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করেছে।
সমুদ্র থেকে ৪২ ফুট উঁচুতে অবস্থিত হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্ট থেকে ভারত সীমান্ত ত্রিশ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে। ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের ১৮ কিলোমিটার উজানে ফারাক্কা বাঁধ অবস্থিত। ভারতের গোমুখিতে ভূমিষ্ঠ হয়ে বাংলাদেশের মেঘনা সঙ্গমস্থল পর্যন্ত এক হাজার ৬৮০ মাইলব্যাপী প্রবাহিত। মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে গঙ্গার মূল অংশ চলে আসে বাংলাদেশে। গঙ্গার নি¤œ স্রোতধারার নাম পদ্মা। পদ্মা রাজশাহীর চারঘাটে প্রবেশ করে পাবনার বেড়া উপজেলার নতিবপুরের কাছে বারকোদালিয়ায় যমুনা নদীর সাথে মিশেছে। পদ্মা ও যমুনার মিলিত প্রবাহ পদ্মা নামে অভিহিত। অবশ্য গঙ্গা বাংলাদেশে আসার পর থেকেই পদ্মা নামে পরিচিত। এক সময়ের প্রমত্তা পদ্মার বুকে এখন অসংখ্য চর।
শুধু ফারাক্কার প্রভাবে বাংলাদেশের কৃষি, শিল্প-কারখানা সব কিছুতে মারাত্মক তি হচ্ছে। মিঠাপানি ছাড়া কৃষি তথা কোনো ধরনের শিল্পকারখানা চলতে পারে না। ফারাক্কার কারণে যশোর-খুলনা অঞ্চলে মিঠাপানির প্রবাহ কমে গেছে। ফারাক্কার কারণে পদ্মার তলদেশ ওপরে উঠে এসেছে। গাঙ্গেয় পানিব্যবস্থায় দুই শতাধিক প্রজাতির মিঠাপানির মাছ ও ১৮ প্রজাতির চিংড়ি ছিল। সেগুলোর বেশির ভাগই এখন বিলুপ্তির পথে। পদ্মা নদীতে পানি স্বল্পতার কারণে উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলে মরুকরণ অবস্থা স্থায়ী রূপ নিতে যাচ্ছে। জীববৈচিত্র্য অনেক আগেই হুমকির মুখে পড়েছে। পদ্মা সংযুক্ত বরেন্দ্র অঞ্চলের ওপর দিয়ে প্রবাহিত মহানন্দা, আত্রাই, বারনই, শিব, রানী ও ছোট যমুনাসহ ১২টি নদী ও ২০টি খালে এর প্রভাব পড়েছে। এসব নদী-খাল পলি ও বালু পড়ে ভরাট হয়ে যাওয়ায় এখন মৃতপ্রায়। ফলে এ অঞ্চলের কৃষি সম্পূর্ণ ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। ফলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে। প্রকৃতিতে বিরাজ করছে মরুরুক্ষতা।
পদ্মা নদীতে পানি স্বল্পতার কারণে ভাটির বাংলাদেশে পানির তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে। উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ দেখছেন, নদী শুকিয়ে যাচ্ছে। পদ্মা নদীতে পর্যাপ্ত পানি না থাকায় এর প্রধান শাখা নদী আত্রাই ও গড়াই নদীতে পানির টান পড়েছে। গড়াই নদীর কুষ্টিয়া কয়ারা ব্রিজের নিচে বালুচর। জিকে প্রজেক্ট কার্যত অকার্যকর হয়ে পড়েছে। পদ্মা, মধুমতি, নবগঙ্গা, কাজলা, মাথাভাঙ্গা, গড়াই, আত্রাই, চিকনাই, হিনসা, কুমার, সাগরখালি, কপোতাক্ষ, চন্দনাসহ পদ্মার ৫৩টি শাখা-প্রশাখা নদীতে নাব্যতা সঙ্কটে নৌচলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। কোনো কোনো স্থানে বালু স্থায়ী মৃত্তিকায় রূপ নেয়ায় ফসল আবাদ করেছেন অনেকেই। পদ্মার প্রধান শাখা নদী হলো মাথাভাঙ্গা, কুমার, ইছামতি, গড়াই, আড়িয়ালখাঁ প্রভৃতি। প্রশাখা হলো মধুমতি, পশুর, কপোতা। উপনদী একটি মহানন্দা। মহানন্দা রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানায় এসে পদ্মায় মিলিত হয়েছে। পদ্মার পানি দিয়ে শুকনো মওসুমে রাজশাহী, পাবনা, কুষ্টিয়া, যশোর, ফরিদপুর প্রভৃতি জেলায় সেচকাজ চালানো হয়। এ নদীর পানি দিয়ে প্রায় ২০ ভাগ জমির সেচকাজ চলে। বাংলাদেশের কৃষি, শিল্প, ব্যবসাবাণিজ্যসহ বিভিন্ন েেত্র পদ্মা নদীর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।
নদী বিশেষজ্ঞরা বলেন, পানি প্রবাহের মাত্রা ৪০ হাজার কিউসেক হলে নদীতে আর পলি জমতে পারে না। তলদেশও ভরাট হয় না। প্রবাহ কম বলে পদ্মার বুকে মাইলের পর মাইল চর জেগে উঠছে। যশোর-কুষ্টিয়ার নদীগুলো পদ্মার সাথে সংযোগ হারিয়ে ফেলেছে। পাবনায় ইছামতি, রতœাই, চন্দ্রাবতী এবং রাজশাহী ও নাটোরে কয়েকটি নদী রয়েছে। পদ্মার প্রধান শাখা নদীগুলোর মধ্যে রয়েছে মধুমতি, আড়িয়ালখাঁ, ভৈরব, মাথাভাঙ্গা, কুমার, কপোতাক্ষ, পশুর ও বড়াল।
পাবনার মধ্য দিয়ে পদ্মার আরেকটি শাখা নদী মরা পদ্মা হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে মূল পদ্মা, গড়াই এবং পাবনার চাটমোহরের বড়াল, ছোট যমুনা, পুনর্ভবা, আত্রাই, ইছামতি, গুমানী, গোমতী, ভদ্রবতী, গোহালা, নন্দকুজা, গাড়াদহ, কাকন, কানেশ্বরী, সরস্বতী, মুক্তাহার ঝবঝবিয়া, ফুলজোর এলাকা ঘুরে দেখা যায়, এসব নদীর অস্তিত্ব হারিয়ে যাচ্ছে। পদ্মা নদীতে পানির প্রবল টান পড়ায় এসব নদী শুকিয়ে গেছে। কোনো কোনো স্থানে হাঁটু পর্যন্ত পানি আছে। এলাকার প্রবীণ লোকদের মতে, ফারাক্কা ব্যারাজের আগে এসব নদ-নদীতে সারা বছর পানি থাকত। অপর দিকে তিস্তা নদীতে পানি না থাকায় ব্রহ্মপুত্র নদে পানির টান পড়ায় যমুনা নদী শুকিয়ে যাচ্ছে। পাবনা নগরবাড়ী, বেড়া-নাকালিয়া যমুনা নদীর বুকজুড়ে অসংখ্য ছোট বড় চর। বেড়ার নিকটবর্তী শাহজাদপুরে বাঘাবাড়ি ব্রিজের নিচে বড়াল নদীতে অসংখ্য চর পড়েছে। যমুনায় নদীর নাব্যতা কমে যাওয়ায় রাসায়নিক সারবাহী জাহাজ অর্ধেক লোড নিয়ে বাঘাবাড়ী বন্দরে আসছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নদী বিশেষজ্ঞ কামরুন নেছা জানান, বাংলাদেশের পদ্মার যে বিপুল আয়তন তাতে স্বাভাবিক প্রবাহ থাকলে প্রাকৃতিক ও পরিবেশগত বিপর্যয় সৃষ্টির কথা উঠতো না; কিন্তু ভারত নেপালের কোশি থেকে শুরু করে ফারাক্কা পর্যন্ত সুদীর্ঘ পথে পানি প্রত্যাহারের যে একতরফা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে, তাতে বাংলাদেশের বিপর্যয় অবশ্যম্ভাবী হয়ে উঠে

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X