শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৪১
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, January 30, 2017 10:02 am
A- A A+ Print

ফেদেরারের কাছে ১৮ এল নেমে

8

রজার ফেদেরার ১৮তম গ্র্যান্ড স্লাম জিতেছেন! এই বাক্যটা আর কখনো পড়তে পারবেন, কজন এমন ভেবেছিলেন? বিশেষ করে সর্বশেষ তিনবার গ্র্যান্ড স্লাম ফাইনালে উঠে সুইস কিংবদন্তি তিনবারই হেরে যাওয়ার পর তো নয়ই। তার ওপর তাঁর বয়সও হয়ে গেছে ৩৫। জোকোভিচ-মারেদের পাওয়ার টেনিসের যুগে এমন ‘বুড়ো’ কারোর গ্র্যান্ড স্লাম জেতার কথা কল্পনায় আসার কথাও নয়। অকল্পনীয় ব্যাপারটিই কাল বাস্তবে দেখিয়ে দিয়েছেন ফেদেরার। স্বপ্নের ফাইনালে নিজের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী রাফায়েল নাদালকে হারিয়ে জিতেছেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেন। ২০১২ সালের উইম্বলডনের পর তাঁর প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপা! চোটের কারণে গত বছরের জুলাইয়ের পর থেকে আর খেলতেই পারেননি। তার প্রভাব পড়েছে র‍্যাঙ্কিংয়েও, এবার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে ফেদেরার খেলতেই এসেছেন ১৭তম বাছাই হিসেবে। মাত্র এক সপ্তাহ আগেও ফেদেরারের ফাইনালে খেলার সম্ভাবনা কেউ দেখননি। তা উঠলেন ফাইনালে, কিন্তু তাতে প্রতিপক্ষ কে? তাঁর সবচেয়ে বড় ঘাতক—নাদাল। ফাইনালের আগে গ্র্যান্ড স্লামে যাঁর সঙ্গে রেকর্ডটা ছিল এমন: ফেদেরার ১১: নাদাল ২৩! শুধু রেকর্ড? ৩০ বছর বয়সী নাদাল তো বয়সেও তাঁর চেয়ে পাঁচ বছরের ছোট। সেই নাদালকেই কাল ৩ ঘণ্টা ৩৫ মিনিটের লড়াইয়ে ফেদেরার হারিয়ে দিয়েছেন ৬-৪, ৩-৬, ৬-১, ৩-৬, ৬-৩ গেমে। ম্যাচটা অবশ্য ওরকম ধ্রুপদি হয়নি। একটা সেটও গড়ায়নি টাইব্রেকারে। যেন বক্সিংয়ের মতো, এক সেটে ফেদেরার সহজে জেতেন তো পরের সেট সহজেই নাদাল। শেষ সেটটাই হলো নাটকীয়। ফেদেরারের প্রথম সার্ভিস গেমই ভাঙেন নাদাল। তবে দুর্দান্তভাবে ফিরে আসেন সুইস গ্রেট, ৩-২ গেমে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় টানা দুবার নাদালের সার্ভিস ভেঙে এগিয়ে যান। শেষ পয়েন্টটি পান হক-আই সিদ্ধান্তে, জিতে যান ম্যাচও। তবে যে-ই জিতুন, এই ম্যাচে জয়ী টেনিস। সেটি ফেদেরার-নাদালের কল্যাণেই। কোর্টে দুজনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা, কোর্টের বাইরের বন্ধুত্ব মিলিয়ে এই দ্বৈরথ যে অন্য যেকোনো দ্বৈরথের চেয়ে আলাদা। ২০১১ ফ্রেঞ্চ ওপেনের পর আবার কোনো গ্র্যান্ড স্লামের ফাইনালে দুজনের ম্যাচ নিয়ে তাই রোমাঞ্চ ছিল অনেক বেশি।

ম্যাচে র‍্যাকেটের দ্যুতিতে, আর ম্যাচের পর মুখের কথায় রোমাঞ্চটাকে নাদাল-ফেদেরার রূপ দিয়েছেন মুগ্ধতায়। ফেদেরার জেতার পর নাদালের প্রথম অভিব্যক্তি, ‘আমি ওর জন্য খুশি।’ আর ফেদেরার? চ্যাম্পিয়ন হয়েও তিনি ভোলেননি বন্ধুর কথা, ‘টেনিসে ড্র নেই। তবে ট্রফিটা ওর সঙ্গে ভাগাভাগি করে নেওয়ার সুযোগ থাকলে আমি ড্র-ই মেনে নিতাম।’

কে বলে ফেদেরার শুধু কোর্টে চ্যাম্পিয়ন!

Comments

Comments!

 ফেদেরারের কাছে ১৮ এল নেমেAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ফেদেরারের কাছে ১৮ এল নেমে

Monday, January 30, 2017 10:02 am
8

রজার ফেদেরার ১৮তম গ্র্যান্ড স্লাম জিতেছেন!

এই বাক্যটা আর কখনো পড়তে পারবেন, কজন এমন ভেবেছিলেন? বিশেষ করে সর্বশেষ তিনবার গ্র্যান্ড স্লাম ফাইনালে উঠে সুইস কিংবদন্তি তিনবারই হেরে যাওয়ার পর তো নয়ই। তার ওপর তাঁর বয়সও হয়ে গেছে ৩৫। জোকোভিচ-মারেদের পাওয়ার টেনিসের যুগে এমন ‘বুড়ো’ কারোর গ্র্যান্ড স্লাম জেতার কথা কল্পনায় আসার কথাও নয়।

অকল্পনীয় ব্যাপারটিই কাল বাস্তবে দেখিয়ে দিয়েছেন ফেদেরার। স্বপ্নের ফাইনালে নিজের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী রাফায়েল নাদালকে হারিয়ে জিতেছেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেন। ২০১২ সালের উইম্বলডনের পর তাঁর প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপা!

চোটের কারণে গত বছরের জুলাইয়ের পর থেকে আর খেলতেই পারেননি। তার প্রভাব পড়েছে র‍্যাঙ্কিংয়েও, এবার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে ফেদেরার খেলতেই এসেছেন ১৭তম বাছাই হিসেবে। মাত্র এক সপ্তাহ আগেও ফেদেরারের ফাইনালে খেলার সম্ভাবনা কেউ দেখননি। তা উঠলেন ফাইনালে, কিন্তু তাতে প্রতিপক্ষ কে? তাঁর সবচেয়ে বড় ঘাতক—নাদাল। ফাইনালের আগে গ্র্যান্ড স্লামে যাঁর সঙ্গে রেকর্ডটা ছিল এমন: ফেদেরার ১১: নাদাল ২৩! শুধু রেকর্ড? ৩০ বছর বয়সী নাদাল তো বয়সেও তাঁর চেয়ে পাঁচ বছরের ছোট। সেই নাদালকেই কাল ৩ ঘণ্টা ৩৫ মিনিটের লড়াইয়ে ফেদেরার হারিয়ে দিয়েছেন ৬-৪, ৩-৬, ৬-১, ৩-৬, ৬-৩ গেমে।

ম্যাচটা অবশ্য ওরকম ধ্রুপদি হয়নি। একটা সেটও গড়ায়নি টাইব্রেকারে। যেন বক্সিংয়ের মতো, এক সেটে ফেদেরার সহজে জেতেন তো পরের সেট সহজেই নাদাল। শেষ সেটটাই হলো নাটকীয়। ফেদেরারের প্রথম সার্ভিস গেমই ভাঙেন নাদাল। তবে দুর্দান্তভাবে ফিরে আসেন সুইস গ্রেট, ৩-২ গেমে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় টানা দুবার নাদালের সার্ভিস ভেঙে এগিয়ে যান। শেষ পয়েন্টটি পান হক-আই সিদ্ধান্তে, জিতে যান ম্যাচও।

তবে যে-ই জিতুন, এই ম্যাচে জয়ী টেনিস। সেটি ফেদেরার-নাদালের কল্যাণেই। কোর্টে দুজনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা, কোর্টের বাইরের বন্ধুত্ব মিলিয়ে এই দ্বৈরথ যে অন্য যেকোনো দ্বৈরথের চেয়ে আলাদা। ২০১১ ফ্রেঞ্চ ওপেনের পর আবার কোনো গ্র্যান্ড স্লামের ফাইনালে দুজনের ম্যাচ নিয়ে তাই রোমাঞ্চ ছিল অনেক বেশি।

ম্যাচে র‍্যাকেটের দ্যুতিতে, আর ম্যাচের পর মুখের কথায় রোমাঞ্চটাকে নাদাল-ফেদেরার রূপ দিয়েছেন মুগ্ধতায়। ফেদেরার জেতার পর নাদালের প্রথম অভিব্যক্তি, ‘আমি ওর জন্য খুশি।’ আর ফেদেরার? চ্যাম্পিয়ন হয়েও তিনি ভোলেননি বন্ধুর কথা, ‘টেনিসে ড্র নেই। তবে ট্রফিটা ওর সঙ্গে ভাগাভাগি করে নেওয়ার সুযোগ থাকলে আমি ড্র-ই মেনে নিতাম।’

কে বলে ফেদেরার শুধু কোর্টে চ্যাম্পিয়ন!

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X