সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:২০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, September 19, 2017 8:35 pm
A- A A+ Print

বর্বরতার চিত্র স্বচক্ষে দেখতে মিয়ানমারে বাধাহীন প্রবেশাধিকার দাবি জাতিসংঘের

14

ঢাকা : জাতিসংঘের মানবাধিকার তদন্তকারীরা মিয়ানমারে চলমান সহিংস পরিস্থিতি তদন্তে পূর্ণাঙ্গ ও বাধাহীন প্রবেশের সুযোগ দাবি করেছে। জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলকে সংস্থাটির ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের প্রধান মারজুকি দারুসমান বলেন, ‘যেসব স্থানে অধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে সে জায়গাগুলো স্বচক্ষে দেখাটা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।’ মিয়ানমারে পূর্ণাঙ্গ ও বাধাহীন প্রবেশের সুযোগ চেয়ে দারুসমান বলেন, ‘গর্হিত এক মানবিক সঙ্কট চলছে যেখানে অবিলম্বে মনোযোগ দেয়া প্রয়োজন।’ এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি। খবরে বলা হয়, জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল মিয়ানমারে সম্ভাব্য অধিকার লঙ্ঘন তদন্ত করতে মার্চ মাসে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনটি প্রতিষ্ঠা করে। বিশেষভাবে এই মিশনের টার্গেট হলো রাখাইনের রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের অভিযোগগুলো তদন্ত করা। মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেতা অং সান সুচি একাধিকবার জাতিসংঘের এই তদন্তের নিন্দা জানিয়েছেন। তার সরকার এতে সহযোগিতা করবে না বলেও মন্তব্য করেন সুচি। আজ মঙ্গলবার রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে মিয়ানমারের টিভি চ্যানেলে বক্তব্য রাখেন সুচি। সেখানে তিনি বাইরের পর্যবেক্ষকদের মিয়ানমারে গিয়ে পরিস্থিতি দেখার আহ্বান জানান। এএফপির রিপোর্টে বলা হয়, রাখাইনে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে চলমান সহিংসতা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উদ্বেগ প্রশমিত করাই ছিল এই বক্তব্যের লক্ষ্য। সুচি বলেন, মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সমালোচনার ভয় পায় না। তার দেশ সঙ্কটের স্থায়ী সমাধান আনতে সংকল্পবদ্ধ। এর আগে জাতিসংঘ রাখাইনের সামরিক অভিযানকে জাতিগত নিধনযজ্ঞ আখ্যা দেয়। তবে, সুচি তার বক্তব্যের এর জবাব দেন নি। তার সরকার আইনের শাসনের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে তিনি দাবি করেন। এদিকে, সুচির ওই বক্তব্যের কয়েক ঘণ্টা পর জাতিসংঘে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত হতেন লিন ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন নিয়ে বলেন, ‘আমরা এখনও বিশ্বাস করি এমন একটি মিশন স্থাপন করা ইতিমধ্যে জটিল আকার ধারণ করা রাখাইন ইস্যু সমাধানে সহায়ক পদক্ষেপ নয়।’ আর মিশন প্রধান দারুসমান ফের প্রবেশের সুযোগ দাবি করে বলেছেন, মিয়ানমার সরকার ও দেশটির জনগণের স্বার্থেই তাদের দৃষ্টিভঙ্গি ও তথ্যপ্রমাণ সরাসরি জাতিসংঘ মিশনের কাছে তুলে ধরা উচিত। দারুসমান আরো জানিয়েছেন, তার মিশন জরুরি ভিত্তিতে একটি দল পাঠিয়েছে বাংলাদেশে। সাম্প্রতিত সপ্তাহগুলোতে সেনা অভিযান থেকে বাঁচতে ৪ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে।

Comments

Comments!

 বর্বরতার চিত্র স্বচক্ষে দেখতে মিয়ানমারে বাধাহীন প্রবেশাধিকার দাবি জাতিসংঘেরAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

বর্বরতার চিত্র স্বচক্ষে দেখতে মিয়ানমারে বাধাহীন প্রবেশাধিকার দাবি জাতিসংঘের

Tuesday, September 19, 2017 8:35 pm
14

ঢাকা : জাতিসংঘের মানবাধিকার তদন্তকারীরা মিয়ানমারে চলমান সহিংস পরিস্থিতি তদন্তে পূর্ণাঙ্গ ও বাধাহীন প্রবেশের সুযোগ দাবি করেছে। জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলকে সংস্থাটির ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের প্রধান মারজুকি দারুসমান বলেন, ‘যেসব স্থানে অধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে সে জায়গাগুলো স্বচক্ষে দেখাটা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।’ মিয়ানমারে পূর্ণাঙ্গ ও বাধাহীন প্রবেশের সুযোগ চেয়ে দারুসমান বলেন, ‘গর্হিত এক মানবিক সঙ্কট চলছে যেখানে অবিলম্বে মনোযোগ দেয়া প্রয়োজন।’ এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।
খবরে বলা হয়, জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল মিয়ানমারে সম্ভাব্য অধিকার লঙ্ঘন তদন্ত করতে মার্চ মাসে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনটি প্রতিষ্ঠা করে। বিশেষভাবে এই মিশনের টার্গেট হলো রাখাইনের রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের অভিযোগগুলো তদন্ত করা। মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেতা অং সান সুচি একাধিকবার জাতিসংঘের এই তদন্তের নিন্দা জানিয়েছেন। তার সরকার এতে সহযোগিতা করবে না বলেও মন্তব্য করেন সুচি।
আজ মঙ্গলবার রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে মিয়ানমারের টিভি চ্যানেলে বক্তব্য রাখেন সুচি। সেখানে তিনি বাইরের পর্যবেক্ষকদের মিয়ানমারে গিয়ে পরিস্থিতি দেখার আহ্বান জানান। এএফপির রিপোর্টে বলা হয়, রাখাইনে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে চলমান সহিংসতা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উদ্বেগ প্রশমিত করাই ছিল এই বক্তব্যের লক্ষ্য।
সুচি বলেন, মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সমালোচনার ভয় পায় না। তার দেশ সঙ্কটের স্থায়ী সমাধান আনতে সংকল্পবদ্ধ। এর আগে জাতিসংঘ রাখাইনের সামরিক অভিযানকে জাতিগত নিধনযজ্ঞ আখ্যা দেয়। তবে, সুচি তার বক্তব্যের এর জবাব দেন নি। তার সরকার আইনের শাসনের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে তিনি দাবি করেন।
এদিকে, সুচির ওই বক্তব্যের কয়েক ঘণ্টা পর জাতিসংঘে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত হতেন লিন ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন নিয়ে বলেন, ‘আমরা এখনও বিশ্বাস করি এমন একটি মিশন স্থাপন করা ইতিমধ্যে জটিল আকার ধারণ করা রাখাইন ইস্যু সমাধানে সহায়ক পদক্ষেপ নয়।’
আর মিশন প্রধান দারুসমান ফের প্রবেশের সুযোগ দাবি করে বলেছেন, মিয়ানমার সরকার ও দেশটির জনগণের স্বার্থেই তাদের দৃষ্টিভঙ্গি ও তথ্যপ্রমাণ সরাসরি জাতিসংঘ মিশনের কাছে তুলে ধরা উচিত।
দারুসমান আরো জানিয়েছেন, তার মিশন জরুরি ভিত্তিতে একটি দল পাঠিয়েছে বাংলাদেশে। সাম্প্রতিত সপ্তাহগুলোতে সেনা অভিযান থেকে বাঁচতে ৪ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X