শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:২৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, October 24, 2016 12:59 pm
A- A A+ Print

বর-১২, কনে-১১, ধুমধাম বিয়ে!

157488_1

   
ঢাকা: ১১ বছরের কনে রাজি হয়ে গেল ১২ বছর বয়সী তার কাজিনকে বিয়ে করতে। বরের বাবা তার বড় ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে এমন একটি সুযোগকে হাতছাড়া করলেন না। বিয়ের আনন্দকে দ্বিগুণ করার ঘোষণা দিয়ে বড় ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে ছোট ছেলেকেও বিয়ে দিয়ে দিলেন। ঘটনাটি ঘটেছে মিশরের কায়রো থেকে ৭৫ মাইল দূরে একটি শহরে। ব্যবসায়ী নাসের হোসেনের বড় ছেলে লাভিশের বিয়ের অনুষ্ঠান চলছিল। এমন সময় তিনি ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠান আরো আনন্দময় করার ঘোষণা দেন। উপস্থিত অথিতিরা তখনও ঘটনা বুঝতে পারেননি। পরে যখন ১২ বছর বয়সী ছোট ছেলের বিয়ের ঘোষণা দেন একই অনুষ্ঠানে তখন বিষয়টি পরিষ্কার হয়। উপস্থিত অথিতিরা ক্ষুদে বর-কনেকে আর্শিবাদ করেন। তবে আনন্দে ছেদ দেয় মিশরের বিদ্যমান আইন। দেশটির আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের নিচে কারো বিয়ে দেওয়া নিষিদ্ধ। তাই ১২ বছরের ওমর আর ১১ বছরের ঘারামের বিয়ের খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়।
নানা প্রশ্নের মুখে নাসের হোসেন আল ওয়াতান পত্রিকার মুখোমুখি হন এ ঘটনায়। তিনি পত্রিকাটিকে বলেন, এটা নিয়ে বাড়াবাড়ির তেমন কোনো সুযোগ নেই। কারণ, এটা সম্পূর্ণ বিয়ে নয়, এটা বাগদান (এনগেজমেন্ট)। দেশটির নারী বিষয়ক আইনজীবী রিদা এলডানবোকি শিশু অধিকার ও বিদ্যমান আইন লঙ্ঘনের বিষয়টি সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতর ও মন্ত্রণালয়ের নজরে এনেছেন বলে ওয়াশিংটন পোস্টের এক খবরে জানানো হয়েছে। ইতোমধ্যে তিনি দেশটির সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা বরাবর ঘটনাটি তদন্তের দাবি জানিয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এসব ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে নাসের হোসেন বলেছেন, এসব সমালোচনা ফালতু, আমি একজন স্বাধীন মানুষ হিসেবে কোনো ভুল করিনি। তিনি আরো বলেন, ওমর সব সময় ঘারেমকে খুবই ভালোবাসত। সব সময় বলত তারা বড় হলে অন্য মানুষের মতো একে অপরকে বিয়ে করবে। তারা বিবাহের সব শর্ত পূরণ করবে যখন তাদের বয়স আইন অনুযায়ী বিবাহযোগ্য হবে। আর তাদের প্রতি আমাদের অপরিসীম স্নেহ রয়েছে।

Comments

Comments!

 বর-১২, কনে-১১, ধুমধাম বিয়ে!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

বর-১২, কনে-১১, ধুমধাম বিয়ে!

Monday, October 24, 2016 12:59 pm
157488_1

 

 

ঢাকা: ১১ বছরের কনে রাজি হয়ে গেল ১২ বছর বয়সী তার কাজিনকে বিয়ে করতে। বরের বাবা তার বড় ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে এমন একটি সুযোগকে হাতছাড়া করলেন না। বিয়ের আনন্দকে দ্বিগুণ করার ঘোষণা দিয়ে বড় ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে ছোট ছেলেকেও বিয়ে দিয়ে দিলেন।

ঘটনাটি ঘটেছে মিশরের কায়রো থেকে ৭৫ মাইল দূরে একটি শহরে। ব্যবসায়ী নাসের হোসেনের বড় ছেলে লাভিশের বিয়ের অনুষ্ঠান চলছিল। এমন সময় তিনি ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠান আরো আনন্দময় করার ঘোষণা দেন। উপস্থিত অথিতিরা তখনও ঘটনা বুঝতে পারেননি। পরে যখন ১২ বছর বয়সী ছোট ছেলের বিয়ের ঘোষণা দেন একই অনুষ্ঠানে তখন বিষয়টি পরিষ্কার হয়। উপস্থিত অথিতিরা ক্ষুদে বর-কনেকে আর্শিবাদ করেন।

তবে আনন্দে ছেদ দেয় মিশরের বিদ্যমান আইন। দেশটির আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের নিচে কারো বিয়ে দেওয়া নিষিদ্ধ। তাই ১২ বছরের ওমর আর ১১ বছরের ঘারামের বিয়ের খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়।

নানা প্রশ্নের মুখে নাসের হোসেন আল ওয়াতান পত্রিকার মুখোমুখি হন এ ঘটনায়। তিনি পত্রিকাটিকে বলেন, এটা নিয়ে বাড়াবাড়ির তেমন কোনো সুযোগ নেই। কারণ, এটা সম্পূর্ণ বিয়ে নয়, এটা বাগদান (এনগেজমেন্ট)।

দেশটির নারী বিষয়ক আইনজীবী রিদা এলডানবোকি শিশু অধিকার ও বিদ্যমান আইন লঙ্ঘনের বিষয়টি সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতর ও মন্ত্রণালয়ের নজরে এনেছেন বলে ওয়াশিংটন পোস্টের এক খবরে জানানো হয়েছে।

ইতোমধ্যে তিনি দেশটির সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা বরাবর ঘটনাটি তদন্তের দাবি জানিয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

এসব ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে নাসের হোসেন বলেছেন, এসব সমালোচনা ফালতু, আমি একজন স্বাধীন মানুষ হিসেবে কোনো ভুল করিনি।

তিনি আরো বলেন, ওমর সব সময় ঘারেমকে খুবই ভালোবাসত। সব সময় বলত তারা বড় হলে অন্য মানুষের মতো একে অপরকে বিয়ে করবে। তারা বিবাহের সব শর্ত পূরণ করবে যখন তাদের বয়স আইন অনুযায়ী বিবাহযোগ্য হবে। আর তাদের প্রতি আমাদের অপরিসীম স্নেহ রয়েছে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X