মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৫:২২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, December 7, 2016 7:22 am
A- A A+ Print

‘বললে তো অনেক কিছুই বলা যায়’

5

বিপিএলে চতুর্থ আসরে প্রথম ফিফটি হাঁকান তামিম ইকবাল। সেই ম্যাচে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ২৯ রানের দারুণ জয় পায় তারা। কিন্তু এরপরই হারেছে টানা চার ম্যাচ। ফের ঘুরে দাঁড়ায় তার দল। ৫টি ম্যাচ জিতে চলে আসে লড়াইয়ে। ১২ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে নিশ্চিত করে শেষ চার। অথচ এর আগের আসরে তারা দুটি ম্যাচে জয় দেখেছিল। কিন্তু রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে প্রথম এলিমিনেটর ম্যাচে ফাইনালের স্বপ্ন মিলিয়ে যায় ৩ উইকেটে হেরে। দলের শেষ ম্যাচেও ফিফটি হাঁকিয়ে দলকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলেন অধিনায়ক। কিন্তু বরাবরের মতো অন্যদের ব্যাটিং ব্যর্থতায় মাত্র ১৪২ রানে থামতে হয় তাদের। বল হাতে দারুণ শুরু করলেও শেষটা হয়েছে চরম বাজে। তবে এমন হারে বিপিএল থেকে বিদায় নেয়ার পর অধিনায়ক কাউকেই দোষ দিতে রাজি নন। তিনি বলেন, ‘বললে তো অনেক কিছুই বলা যায়। কিন্তু আমি এই হারের জন্য কাউকে দোষ দিতে চাই না। কারণ, দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার পর এই দলই কিন্তু দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। তার জন্য আমি দলের ক্রিকেটারদের নিয়ে ভীষণ গর্বিত। তবে যা হওয়ার হয়েছে। আমি মনে করি আমরা দারুণ ক্রিকেট খেলেছি।’ নিজেদের প্রথম আসরটা খারাপ হলেও দ্বিতীয় আসরে ফাইনালের অনেক কাছে চলে গিয়েছিল দল। কিন্তু শেষ ম্যাচে আর সেই স্বপ্ন ছোঁয়া হয়নি। অধিনায়ক হিসেবে হারের একটা ব্যাখ্যাও দিলেন তামিম। তিনি বলেন, ‘আমাদের কিছু ভুল ছিল ব্যাটিং ও বোলিংয়ে। বড় কথা হলো, আমরা মূলত ব্যাটিং শক্তির দল ছিলাম। কিন্তু সেটিই আজ (গতকাল) করতে পারিনি ঠিকভাবে। আরো একটু ভালো করার সুযোগ ছিল। হয়নি। তবে হতাশ হওয়ার কিছু নেই।’ এই আসরে অধিনায়ক তামিম ইকবাল ব্যাট হাতে ছিলেন দুর্দান্ত। ১৩ ম্যাচ খেলে ৬টি ম্যাচে তার ব্যাট থেকে ফিফটি এসেছে। বিপিএলের এক আসরে এত ফিফটি আর কারো নেই। তবে সুযোগ ছিল প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে এক আসরে প্রথম ৫০০ রান করে আহমেদ শেহজাদের ৪৮৬ রানকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার ব্যাট থেকে আসে ৪৭৬ রান। নিজের ব্যাটিং নিয়ে খুশি হলেও তামিম কোনো আনন্দ পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, ‘আসলে আমি যেভাবে ব্যাট করেছি ভালো লাগছে। কিন্তু আনন্দ পেতাম সেটি যদি দলের ফাইনালে যাওয়ার পথে কাজে আসতো।’

Comments

Comments!

 ‘বললে তো অনেক কিছুই বলা যায়’AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

‘বললে তো অনেক কিছুই বলা যায়’

Wednesday, December 7, 2016 7:22 am
5

বিপিএলে চতুর্থ আসরে প্রথম ফিফটি হাঁকান তামিম ইকবাল। সেই ম্যাচে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ২৯ রানের দারুণ জয় পায় তারা। কিন্তু এরপরই হারেছে টানা চার ম্যাচ। ফের ঘুরে দাঁড়ায় তার দল। ৫টি ম্যাচ জিতে চলে আসে লড়াইয়ে। ১২ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে নিশ্চিত করে শেষ চার। অথচ এর আগের আসরে তারা দুটি ম্যাচে জয় দেখেছিল। কিন্তু রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে প্রথম এলিমিনেটর ম্যাচে ফাইনালের স্বপ্ন মিলিয়ে যায় ৩ উইকেটে হেরে। দলের শেষ ম্যাচেও ফিফটি হাঁকিয়ে দলকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলেন অধিনায়ক। কিন্তু বরাবরের মতো অন্যদের ব্যাটিং ব্যর্থতায় মাত্র ১৪২ রানে থামতে হয় তাদের। বল হাতে দারুণ শুরু করলেও শেষটা হয়েছে চরম বাজে। তবে এমন হারে বিপিএল থেকে বিদায় নেয়ার পর অধিনায়ক কাউকেই দোষ দিতে রাজি নন। তিনি বলেন, ‘বললে তো অনেক কিছুই বলা যায়। কিন্তু আমি এই হারের জন্য কাউকে দোষ দিতে চাই না। কারণ, দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার পর এই দলই কিন্তু দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। তার জন্য আমি দলের ক্রিকেটারদের নিয়ে ভীষণ গর্বিত। তবে যা হওয়ার হয়েছে। আমি মনে করি আমরা দারুণ ক্রিকেট খেলেছি।’
নিজেদের প্রথম আসরটা খারাপ হলেও দ্বিতীয় আসরে ফাইনালের অনেক কাছে চলে গিয়েছিল দল। কিন্তু শেষ ম্যাচে আর সেই স্বপ্ন ছোঁয়া হয়নি। অধিনায়ক হিসেবে হারের একটা ব্যাখ্যাও দিলেন তামিম। তিনি বলেন, ‘আমাদের কিছু ভুল ছিল ব্যাটিং ও বোলিংয়ে। বড় কথা হলো, আমরা মূলত ব্যাটিং শক্তির দল ছিলাম। কিন্তু সেটিই আজ (গতকাল) করতে পারিনি ঠিকভাবে। আরো একটু ভালো করার সুযোগ ছিল। হয়নি। তবে হতাশ হওয়ার কিছু নেই।’ এই আসরে অধিনায়ক তামিম ইকবাল ব্যাট হাতে ছিলেন দুর্দান্ত। ১৩ ম্যাচ খেলে ৬টি ম্যাচে তার ব্যাট থেকে ফিফটি এসেছে। বিপিএলের এক আসরে এত ফিফটি আর কারো নেই। তবে সুযোগ ছিল প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে এক আসরে প্রথম ৫০০ রান করে আহমেদ শেহজাদের ৪৮৬ রানকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার ব্যাট থেকে আসে ৪৭৬ রান। নিজের ব্যাটিং নিয়ে খুশি হলেও তামিম কোনো আনন্দ পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, ‘আসলে আমি যেভাবে ব্যাট করেছি ভালো লাগছে। কিন্তু আনন্দ পেতাম সেটি যদি দলের ফাইনালে যাওয়ার পথে কাজে আসতো।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X