শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:৩৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, December 26, 2016 9:27 am
A- A A+ Print

বাংলাদেশের সামনে রানের পাহাড়

4

ঢাকা: সেঞ্চুরিয়ান টম ল্যাথাম ও বিধ্বংসী ইনিংস খেলা কলিন মুনরোর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজেদের সর্বোচ্চ রানের সংগ্রহ গড়েছে নিউ জিল্যান্ড। বাংলাদেশকে জিততে হলে গড়তে হবে নিজেদের সর্বোচ্চ রান তাড়ার রেকর্ড। কিউইরা করেছে ৭ উইকেটে ৩৪১। এত বড় স্কোর তাড়া করে জয়ের রেকর্ড নেই টাইগারদের। ১৯৯০ সালে শারজায় দুই দলের প্রথম দেখায় ৪ উইকেটে ৩৩৮ রান করেছিল নিউ জিল্যান্ড। ২৬ বছর ধরে সেই রানই ছিল সর্বোচ্চ। এবার ক্রাইস্টচার্চে ৭ উইকেটে ৩৪১ রান করে নতুন রেকর্ড গড়লো উইলিয়ামসনের দল। টসটা জিতেছিলেন উইলিয়ামসন। বাংলাদেশ ফিল্ডিংয়ে। মার্টিন গাপ্তিল (১৫) ভয়ানক ব্যাটসম্যান। হালে একটু ইনজুরি ছিল। কিন্তু ইনজুরি থেকে ফিরে এসেই দলকে প্রথম উইকেটটা এনে দিলেন জাদুকর ফিজ। স্লোয়ারে হেরে গিয়ে গাপ্টিল বল তুলেছেন। মুস্তাফিজের জেলা সাতক্ষীরারই সৌম্য সহজে নিলেন ক্যাচটা।   মাশরাফি, মুস্তাফিজ ও তাসকিনের পেস আক্রমণ। এই মাঠে শেষ তিন ম্যাচে প্রথম ইনিংসে বড় রানও আসে না। তো মুস্তাফিজের পর আরেকটি বড় কাজ করে দিয়েছেন তাসকিন। তরুণ পেসার ব্যক্তিগত ৩১ রানেই ফিরিয়ে দিলেন কিউই অধিনায়ক উইলিয়ামসকে। ৭৯ রানে পড়ল দ্বিতীয় উইকেট। বাংলাদেশ আক্রমণেই যাচ্ছিল। মুস্তাফিজ প্রথম স্পেলেই ৪ ওভার করলেন। উইকেটও পেলেন। কিন্তু ওপেনার টম ল্যাথাম জেকে বসলেন। নেইল ব্রুম সঙ্গ দিলেন। এর মধ্যে মাহমুদউল্লাহ সাকিবের বলে ব্রুমের ক্যাচ ফেললেন। জুটি ভাঙতে পারলেন না। কিন্তু পরের ওভারে ঠিকই ২২ রান করা ব্রুমকে লেগ বিফোর উইকেটের ফাঁদে ফেলে ফেরালেন। ল্যাথামের সাথে তার ৫৫ রনের জুটিটা ভাঙলো। সাকিবই ভাঙলেন। ওটা নিউজিল্যান্ডের ১৩৪রানের সময়ের ঘটনা। কিন্তু তখনো যে কাঁটার মতো হয়ে বিধছেন ল্যাথাম! ল্যাথাম ফিফটি করলেন। কিন্তু ১৫৮ রানের সময় সাকিব তার দ্বিতীয় উইকেট বানালেন জেমস নিশামকে (১২)। কিন্তু ওই যে ল্যাথাম। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরিটা করেই ফেললেন। তার সাথে বিধ্বংসী কলিন মুনরো সঙ্গ দিলেন। কোনো বোলারই তখন আর রক্ষা পাননা। এভাবেই মুনরো-ল্যাথামের জুটি প্রায় ৯ গড়ে ১৫৮ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি হলো। সাকিব আবার এলেন। বিপজ্জনক মুনরোর ক্যাচও ছাড়লেন মাহমুদউল্লাহ। এক বল পরই শিকার করে ফেললেন। ৬১ বলে ৮টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৮৭ রান করে গেছেন। ল্যাথাম তবু আরো আগ্রাসী। ৪৮তম ওভারে আবার এলেন মোস্তাফিজ। তৃতীয় বলেই আউট ল্যাথাম। উইকেটের পেছনে মুশফিককে ক্যাচ দিয়ে। স্বস্তি। তবে ল্যাথাম ১২১ বলে ৭ চার ও ৬ ছক্কায় ১৩৭ রান করে ফিরলেন। এরপর আর একটি উইকেট হারিয়েই ৩৪১ এ গিয়ে দাঁড়ায়। সাকিব পান ৩ উইকেট। পুরো ১০ ওভার বল করে ৬২ রান দিয়েছেন মুস্তাফিজ। তাসকিন ৭০ রানে ২ উইকেট। মাশরাফি ১০ ওভারে ৬১ রান দিলেও উইকেট পাননি।
 

Comments

Comments!

 বাংলাদেশের সামনে রানের পাহাড়AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

বাংলাদেশের সামনে রানের পাহাড়

Monday, December 26, 2016 9:27 am
4

ঢাকা: সেঞ্চুরিয়ান টম ল্যাথাম ও বিধ্বংসী ইনিংস খেলা কলিন মুনরোর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজেদের সর্বোচ্চ রানের সংগ্রহ গড়েছে নিউ জিল্যান্ড। বাংলাদেশকে জিততে হলে গড়তে হবে নিজেদের সর্বোচ্চ রান তাড়ার রেকর্ড।

কিউইরা করেছে ৭ উইকেটে ৩৪১। এত বড় স্কোর তাড়া করে জয়ের রেকর্ড নেই টাইগারদের।

১৯৯০ সালে শারজায় দুই দলের প্রথম দেখায় ৪ উইকেটে ৩৩৮ রান করেছিল নিউ জিল্যান্ড। ২৬ বছর ধরে সেই রানই ছিল সর্বোচ্চ। এবার ক্রাইস্টচার্চে ৭ উইকেটে ৩৪১ রান করে নতুন রেকর্ড গড়লো উইলিয়ামসনের দল।

টসটা জিতেছিলেন উইলিয়ামসন। বাংলাদেশ ফিল্ডিংয়ে। মার্টিন গাপ্তিল (১৫) ভয়ানক ব্যাটসম্যান। হালে একটু ইনজুরি ছিল। কিন্তু ইনজুরি থেকে ফিরে এসেই দলকে প্রথম উইকেটটা এনে দিলেন জাদুকর ফিজ। স্লোয়ারে হেরে গিয়ে গাপ্টিল বল তুলেছেন। মুস্তাফিজের জেলা সাতক্ষীরারই সৌম্য সহজে নিলেন ক্যাচটা।

 

মাশরাফি, মুস্তাফিজ ও তাসকিনের পেস আক্রমণ। এই মাঠে শেষ তিন ম্যাচে প্রথম ইনিংসে বড় রানও আসে না। তো মুস্তাফিজের পর আরেকটি বড় কাজ করে দিয়েছেন তাসকিন। তরুণ পেসার ব্যক্তিগত ৩১ রানেই ফিরিয়ে দিলেন কিউই অধিনায়ক উইলিয়ামসকে। ৭৯ রানে পড়ল দ্বিতীয় উইকেট। বাংলাদেশ আক্রমণেই যাচ্ছিল।

মুস্তাফিজ প্রথম স্পেলেই ৪ ওভার করলেন। উইকেটও পেলেন। কিন্তু ওপেনার টম ল্যাথাম জেকে বসলেন। নেইল ব্রুম সঙ্গ দিলেন। এর মধ্যে মাহমুদউল্লাহ সাকিবের বলে ব্রুমের ক্যাচ ফেললেন। জুটি ভাঙতে পারলেন না। কিন্তু পরের ওভারে ঠিকই ২২ রান করা ব্রুমকে লেগ বিফোর উইকেটের ফাঁদে ফেলে ফেরালেন। ল্যাথামের সাথে তার ৫৫ রনের জুটিটা ভাঙলো। সাকিবই ভাঙলেন। ওটা নিউজিল্যান্ডের ১৩৪রানের সময়ের ঘটনা।

কিন্তু তখনো যে কাঁটার মতো হয়ে বিধছেন ল্যাথাম! ল্যাথাম ফিফটি করলেন। কিন্তু ১৫৮ রানের সময় সাকিব তার দ্বিতীয় উইকেট বানালেন জেমস নিশামকে (১২)। কিন্তু ওই যে ল্যাথাম। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরিটা করেই ফেললেন। তার সাথে বিধ্বংসী কলিন মুনরো সঙ্গ দিলেন। কোনো বোলারই তখন আর রক্ষা পাননা। এভাবেই মুনরো-ল্যাথামের জুটি প্রায় ৯ গড়ে ১৫৮ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি হলো।

সাকিব আবার এলেন। বিপজ্জনক মুনরোর ক্যাচও ছাড়লেন মাহমুদউল্লাহ। এক বল পরই শিকার করে ফেললেন। ৬১ বলে ৮টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৮৭ রান করে গেছেন। ল্যাথাম তবু আরো আগ্রাসী। ৪৮তম ওভারে আবার এলেন মোস্তাফিজ। তৃতীয় বলেই আউট ল্যাথাম। উইকেটের পেছনে মুশফিককে ক্যাচ দিয়ে। স্বস্তি। তবে ল্যাথাম ১২১ বলে ৭ চার ও ৬ ছক্কায় ১৩৭ রান করে ফিরলেন।

এরপর আর একটি উইকেট হারিয়েই ৩৪১ এ গিয়ে দাঁড়ায়। সাকিব পান ৩ উইকেট। পুরো ১০ ওভার বল করে ৬২ রান দিয়েছেন মুস্তাফিজ। তাসকিন ৭০ রানে ২ উইকেট। মাশরাফি ১০ ওভারে ৬১ রান দিলেও উইকেট পাননি।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X