বুধবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৫ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:৩০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, September 12, 2017 11:15 am
A- A A+ Print

বিখ্যাতদের অদ্ভুত সব অভ্যাস!

26804dd06dccb89efc04ce09e6c87eaf-59b6acee4a5af

তাঁরা কেউ শিল্পী, কেউ লেখক, কেউ আবার আবিষ্কারক। প্রত্যেকেই নিজ নিজ ক্ষেত্রে বিখ্যাত এবং প্রতিভাবান বলে স্বীকৃত। কিন্তু তাঁদের ছিল অদ্ভুত সব অভ্যাস। এগুলো কখনোই ছাড়েননি তাঁরা, আমৃত্যু চালিয়ে গেছেন অদ্ভুত অভ্যাসের চর্চা। তাই বলে প্রতিভার ধারে কিন্তু কমতি হয়নি। নিজ গুণে প্রতিষ্ঠিত করেছেন নিজেদের। আসুন জেনে নিই এমনই কিছু বিখ্যাত মানুষের অদ্ভুত অভ্যাসের গল্প— পিথাগোরাস। ছবি: সংগৃহীত ১. পিথাগোরাস অঙ্ক ভালো লাগুক আর না-ই লাগুক—পিথাগোরাসের নাম শোনেননি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। গ্রিক এই গণিতবিদ শাকাহারী ছিলেন। কখনোই মাংসের ধারেকাছে যাননি। কিন্তু সারা জীবন শাকসবজি আর ফলমূল খেয়ে কাটিয়ে দিলেও মটরশুঁটি পছন্দ করতেন না তিনি। পিথাগোরাস নিজে যেমন খেতেন না, তেমনি তাঁর অনুসারীদেরও মটরশুঁটি খেতে বারণ করতেন তিনি। এমনকি মটরশুঁটি ছোঁয়াও যেত না! স্বাস্থ্যগত নাকি ধর্মীয়—কোন কারণে তিনি মটরশুঁটি খেতেন না, তা জানা যায়নি। গল্প প্রচলিত আছে, এই মটরশুঁটির কারণেই পিথাগোরাসের মৃত্যু হয়েছিল। দুর্বৃত্তরা তাঁর ওপর হামলা করার পর পালাতে চেয়েছিলেন পিথাগোরাস। কিন্তু একটি মটরশুঁটি খেতের মধ্য দিয়ে যেতে হবে বলে শেষে মৃত্যুকেই আলিঙ্গন করেন এই বিখ্যাত গণিতবিদ! লুডউইগ ফন বিটোফেন। ছবি: বিবিসি ২. বিটোফেন বিটোফেনের পুরো নাম লুডউইগ ফন বিটোফেন। জার্মানির এই বিখ্যাত সুরকার অসংখ্য কালজয়ী সুর সৃষ্টি করে গেছেন। কিন্তু সুর নিয়ে কাজ করার সময় সারা শরীরে পানি না ঢাললে চলত না তাঁর! সুর নিয়ে কাজ করার ফাঁকে ফাঁকে স্নানাগারে যেতেন তিনি। এরপর সারা শরীরে পানি ঢালতেন। এতে নাকি তাঁর কাজে গতি আসত। বালজাক। ছবি: সংগৃহীত ৩. বালজাক ফরাসি এই ঔপন্যাসিক ও নাট্য রচয়িতা মনে করতেন, কাজের গতি বাড়ানোর জন্য ক্যাফেইন অত্যন্ত জরুরি। প্রতিদিন কমপক্ষে ৫০ কাপ কফি পান করতেন তিনি। এই অভ্যাসের জন্য অবশ্য ভুগেছেনও বালজাক। অতিরিক্ত কফি পানের জন্য পাকস্থলীর সমস্যা, মাথাব্যথা ও উচ্চ রক্তচাপে ভুগতে হয়েছে তাঁকে। এডগার অ্যালান পো। ছবি: সংগৃহীত ৪. এডগার অ্যালান পো লেখক, সম্পাদক ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবে বিখ্যাত ছিলেন এডগার অ্যালান পো। আমেরিকান এই লেখক ছোট ছোট কাগজের টুকরোতে লিখতেন। এরপর সেগুলো আঠা দিয়ে লাগিয়ে একটি শক্ত জিনিসে পাকিয়ে রাখতেন। যেমনটা রাখতেন আগেকার দিনের রাজারা। এডগার মনে করতেন, এভাবে রাখলে লেখার ধারাবাহিকতা রাখা সহজ এবং এতে লেখা সহজে সংরক্ষণ করা যায়। তাই স্বাভাবিক কোনো খাতা বা ডায়েরি তিনি ব্যবহার করতেন না। নিকোলা টেসলা। ছবি: সংগৃহীত ৫. লেওনার্দো দা ভিঞ্চি ও নিকোলা টেসলা দুজনই বিখ্যাত আবিষ্কারক। ঘুম নিয়ে দুজনের ছিল দুই রকম অভ্যাস। লেওনার্দো দা ভিঞ্চি প্রতি ২৪ ঘণ্টায় একাধিকবার ঘুমাতেন। তবে এসব ঘুম হতো খুব অল্প সময়ের। বর্তমানে যে পদ্ধতিতে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়, সেটির জনক নিকোলা টেসলা। তিনি এতই কাজপাগল ছিলেন যে দিনে দুই ঘণ্টার বেশি ঘুমাতেন না কখনো। ৬. বেঞ্জামিন ফ্রাংকলিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতির জনক বেঞ্জামিন ফ্রাংকলিন। তাঁর ছিল এক অদ্ভুত অভ্যাস। প্রতিদিন নিত্যকার কাজ শুরু করার আগে ঘণ্টা খানেক খোলা জানালার সামনে বসে থাকতেন তিনি। তা-ও দিগম্বর হয়ে! কারণ, তিনি ‘বাতাসের স্নান’ (এয়ার বাথ) উপভোগ করতেন। এটি ছিল ফ্রাংকলিনের নিজেকে সতেজ করার উপায়। ভার্জিনিয়া উলফ। ছবি: সংগৃহীত ৭. ভার্জিনিয়া উলফ বিংশ শতাব্দীর অন্যতম আধুনিক ঔপন্যাসিক ভার্জিনিয়া উলফ। তাঁর লেখা বিখ্যাত উপন্যাসের মধ্যে রয়েছে ‘টু দ্য লাইটহাউস’, ‘দ্য ভয়েজ আউট’ ইত্যাদি। মজার ব্যাপার হলো, উলফ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে লিখতেন। তিনি মনে করতেন, লেখালেখির কাজটি হলো শব্দ দিয়ে ছবি আঁকার মতো। প্রায় সময়ই ইজেলে কাগজ এঁটে লিখতেন এই ব্রিটিশ লেখিকা। মেন্টাল ফ্লস অবলম্বনে অর্ণব সান্যাল

Comments

Comments!

 বিখ্যাতদের অদ্ভুত সব অভ্যাস!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

বিখ্যাতদের অদ্ভুত সব অভ্যাস!

Tuesday, September 12, 2017 11:15 am
26804dd06dccb89efc04ce09e6c87eaf-59b6acee4a5af

তাঁরা কেউ শিল্পী, কেউ লেখক, কেউ আবার আবিষ্কারক। প্রত্যেকেই নিজ নিজ ক্ষেত্রে বিখ্যাত এবং প্রতিভাবান বলে স্বীকৃত। কিন্তু তাঁদের ছিল অদ্ভুত সব অভ্যাস। এগুলো কখনোই ছাড়েননি তাঁরা, আমৃত্যু চালিয়ে গেছেন অদ্ভুত অভ্যাসের চর্চা। তাই বলে প্রতিভার ধারে কিন্তু কমতি হয়নি। নিজ গুণে প্রতিষ্ঠিত করেছেন নিজেদের।

আসুন জেনে নিই এমনই কিছু বিখ্যাত মানুষের অদ্ভুত অভ্যাসের গল্প—

পিথাগোরাস। ছবি: সংগৃহীত
১. পিথাগোরাস
অঙ্ক ভালো লাগুক আর না-ই লাগুক—পিথাগোরাসের নাম শোনেননি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। গ্রিক এই গণিতবিদ শাকাহারী ছিলেন। কখনোই মাংসের ধারেকাছে যাননি। কিন্তু সারা জীবন শাকসবজি আর ফলমূল খেয়ে কাটিয়ে দিলেও মটরশুঁটি পছন্দ করতেন না তিনি। পিথাগোরাস নিজে যেমন খেতেন না, তেমনি তাঁর অনুসারীদেরও মটরশুঁটি খেতে বারণ করতেন তিনি। এমনকি মটরশুঁটি ছোঁয়াও যেত না! স্বাস্থ্যগত নাকি ধর্মীয়—কোন কারণে তিনি মটরশুঁটি খেতেন না, তা জানা যায়নি। গল্প প্রচলিত আছে, এই মটরশুঁটির কারণেই পিথাগোরাসের মৃত্যু হয়েছিল। দুর্বৃত্তরা তাঁর ওপর হামলা করার পর পালাতে চেয়েছিলেন পিথাগোরাস। কিন্তু একটি মটরশুঁটি খেতের মধ্য দিয়ে যেতে হবে বলে শেষে মৃত্যুকেই আলিঙ্গন করেন এই বিখ্যাত গণিতবিদ!

লুডউইগ ফন বিটোফেন। ছবি: বিবিসি
২. বিটোফেন
বিটোফেনের পুরো নাম লুডউইগ ফন বিটোফেন। জার্মানির এই বিখ্যাত সুরকার অসংখ্য কালজয়ী সুর সৃষ্টি করে গেছেন। কিন্তু সুর নিয়ে কাজ করার সময় সারা শরীরে পানি না ঢাললে চলত না তাঁর! সুর নিয়ে কাজ করার ফাঁকে ফাঁকে স্নানাগারে যেতেন তিনি। এরপর সারা শরীরে পানি ঢালতেন। এতে নাকি তাঁর কাজে গতি আসত।

বালজাক। ছবি: সংগৃহীত
৩. বালজাক
ফরাসি এই ঔপন্যাসিক ও নাট্য রচয়িতা মনে করতেন, কাজের গতি বাড়ানোর জন্য ক্যাফেইন অত্যন্ত জরুরি। প্রতিদিন কমপক্ষে ৫০ কাপ কফি পান করতেন তিনি। এই অভ্যাসের জন্য অবশ্য ভুগেছেনও বালজাক। অতিরিক্ত কফি পানের জন্য পাকস্থলীর সমস্যা, মাথাব্যথা ও উচ্চ রক্তচাপে ভুগতে হয়েছে তাঁকে।

এডগার অ্যালান পো। ছবি: সংগৃহীত
৪. এডগার অ্যালান পো
লেখক, সম্পাদক ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবে বিখ্যাত ছিলেন এডগার অ্যালান পো। আমেরিকান এই লেখক ছোট ছোট কাগজের টুকরোতে লিখতেন। এরপর সেগুলো আঠা দিয়ে লাগিয়ে একটি শক্ত জিনিসে পাকিয়ে রাখতেন। যেমনটা রাখতেন আগেকার দিনের রাজারা। এডগার মনে করতেন, এভাবে রাখলে লেখার ধারাবাহিকতা রাখা সহজ এবং এতে লেখা সহজে সংরক্ষণ করা যায়। তাই স্বাভাবিক কোনো খাতা বা ডায়েরি তিনি ব্যবহার করতেন না।

নিকোলা টেসলা। ছবি: সংগৃহীত
৫. লেওনার্দো দা ভিঞ্চি ও নিকোলা টেসলা
দুজনই বিখ্যাত আবিষ্কারক। ঘুম নিয়ে দুজনের ছিল দুই রকম অভ্যাস। লেওনার্দো দা ভিঞ্চি প্রতি ২৪ ঘণ্টায় একাধিকবার ঘুমাতেন। তবে এসব ঘুম হতো খুব অল্প সময়ের।
বর্তমানে যে পদ্ধতিতে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়, সেটির জনক নিকোলা টেসলা। তিনি এতই কাজপাগল ছিলেন যে দিনে দুই ঘণ্টার বেশি ঘুমাতেন না কখনো।

৬. বেঞ্জামিন ফ্রাংকলিন
যুক্তরাষ্ট্রের জাতির জনক বেঞ্জামিন ফ্রাংকলিন। তাঁর ছিল এক অদ্ভুত অভ্যাস। প্রতিদিন নিত্যকার কাজ শুরু করার আগে ঘণ্টা খানেক খোলা জানালার সামনে বসে থাকতেন তিনি। তা-ও দিগম্বর হয়ে! কারণ, তিনি ‘বাতাসের স্নান’ (এয়ার বাথ) উপভোগ করতেন। এটি ছিল ফ্রাংকলিনের নিজেকে সতেজ করার উপায়।

ভার্জিনিয়া উলফ। ছবি: সংগৃহীত
৭. ভার্জিনিয়া উলফ
বিংশ শতাব্দীর অন্যতম আধুনিক ঔপন্যাসিক ভার্জিনিয়া উলফ। তাঁর লেখা বিখ্যাত উপন্যাসের মধ্যে রয়েছে ‘টু দ্য লাইটহাউস’, ‘দ্য ভয়েজ আউট’ ইত্যাদি। মজার ব্যাপার হলো, উলফ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে লিখতেন। তিনি মনে করতেন, লেখালেখির কাজটি হলো শব্দ দিয়ে ছবি আঁকার মতো। প্রায় সময়ই ইজেলে কাগজ এঁটে লিখতেন এই ব্রিটিশ লেখিকা।

মেন্টাল ফ্লস অবলম্বনে অর্ণব সান্যাল

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X