মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:০৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, May 2, 2017 10:39 pm
A- A A+ Print

বিচারপতির মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার নির্দেশ নিয়ে তুলকালাম

173849_1

নয়া দিল্লি: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট কলকাতা হাইকোর্টের এক বিচারপতির মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে দেখার অভূতপূর্ব নির্দেশ দেয়ার পরে ওই বিচারক বলেছেন, তিনি মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে দেবেন না। বরং ভারতের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন সুপ্রিম কোর্টের যে বেঞ্চ ওই নির্দেশ দিয়েছিল, সেটির সদস্যদের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার নির্দেশ জারি করেছেন ওই বিচারক সি এস কারনান। বিচারক সি এস কারনানের বিরুদ্ধে স্বত:প্রণোদিত হয়ে আদালত অবমাননার মামলাও চলছে, জারি হয়েছে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা। ভারতের আইনের ইতিহাসে এরকম ঘটনা এর আগে কখনো শোনা যায়নি। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সি এস কারনান নিজের বাসভবনে এক বিশেষ আদালত বসিয়ে পাল্টা নির্দেশটি জারি করেছেন । যদিও তার কাছ থেকে সব বিচারিক ও প্রশাসনিক ক্ষমতা আগেই নিয়ে নিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত, তাই কারনানের জারি করা নির্দেশের কোনো আইনি অনুমোদন নেই বলেই মনে করছেন আইন বিশেষজ্ঞরা। বিচারপরিত কারনানের আইনজীবি পিটার রমেশ বলেন, ‘বিচারপতি কারনান মেডিকেল পরীক্ষায় সহযোগিতা করবেন না। সুপ্রিম কোর্টে একটি আদালত অবমাননার মামলা চলছে বিচারপতি কারনানের বিরুদ্ধে। এধরণের মামলায় মেডিকেল পরীক্ষার আদেশ দেয়া যায় না। সেটা করতে হলে ২০১৭ সালের মানসিক ব্যাধি আইন অনুযায়ী করতে হয়, যেটা ওই আদেশে উল্লেখিত নেই।’ তিনি বলেন, ‘বিচারপতি কারনান মনে করছেন, সর্বোচ্চ আদালতের যে মাননীয় বিচারকরা এই নির্দেশ দিয়েছেন, তাদেরই পরীক্ষার প্রয়োজন রয়েছে - কারণ তারা বিচারপতি কারনানের মতো একজন সুস্থ মস্তিষ্কের বিচারকের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানোর নির্দেশ দিয়েছেন।’ সোমবার ভারতের প্রধান বিচারপতি জে এস খেহারের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ জানিয়েছিল, যেভাবে বিচারপতি কারনান বেঞ্চের সাতজন বিচারককে কলকাতায় তার আদালতে হাজিরা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন, এবং সেই সংক্রান্ত যে বিবৃতি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে, সেগুলি দেখে সুপ্রিম কোর্টের মনে হয়েছে যে বিচারপতি কারনান হয়তো আদালত অবমাননার মূল মামলায় নিজের পক্ষে ঠিকমতো সওয়াল করতে পারবেন না। সেজন্যই কলকাতায় একটি চিকিৎসক দলকে তার মানসিক সুস্থতা খতিয়ে দেখে সুপ্রিম কোর্টের কাছে রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে। এই ঘটনাকে ভারতের ইতিহাসে অভূতপূর্ব ঘটনা বলে মন্তব্য করেছেন সংবিধান বিশেষজ্ঞ ও সিনিয়র আইনজীবি বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য। ‘এটা অভূতপূর্ব তো বটেই, এরকম ঘটনা আগে হয় নি। তবে আমার মনে হয়, সুপ্রিম কোর্ট বোধহয় একটু ভুল করে ফেলছে। বিচারপতি কারনানের বিরুদ্ধে যদি কোনো অভিযোগ থাকত, তাহলে তো সেটা তাদের নিজস্ব বিবাদ মেটানোর যে ব্যবস্থাপনা আছে, তা দিয়েই করা যেত। আদালত অবমাননার মামলা হলো কেন!’ ‘তিনি অন্য বিচারপতিদের বিরুদ্ধে যে দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছিলেন, সেগুলোর তদন্ত করে জনসমক্ষে তথ্য প্রকাশ করা যেত যে বিচারপতি কারনানের অভিযোগগুলো ভিত্তিহীন,’ বলেন তিনি। নির্দেশনা - পাল্টা নির্দেশনার এই ঘটনাক্রম চলছে বেশ কয়েক মাস ধরেই। সোমবার সর্বোচ্চ আদালত এই নির্দেশও দিয়েছে যে বিচারপতি কারনানের দেয়া ওইসব নির্দেশনা যেন ভারতের কোনো আদালত বা ট্রাইব্যুনাল না মানে। সূত্র: বিবিসি বাংলা

Comments

Comments!

 বিচারপতির মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার নির্দেশ নিয়ে তুলকালামAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

বিচারপতির মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার নির্দেশ নিয়ে তুলকালাম

Tuesday, May 2, 2017 10:39 pm
173849_1

নয়া দিল্লি: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট কলকাতা হাইকোর্টের এক বিচারপতির মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে দেখার অভূতপূর্ব নির্দেশ দেয়ার পরে ওই বিচারক বলেছেন, তিনি মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে দেবেন না।

বরং ভারতের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন সুপ্রিম কোর্টের যে বেঞ্চ ওই নির্দেশ দিয়েছিল, সেটির সদস্যদের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার নির্দেশ জারি করেছেন ওই বিচারক সি এস কারনান।

বিচারক সি এস কারনানের বিরুদ্ধে স্বত:প্রণোদিত হয়ে আদালত অবমাননার মামলাও চলছে, জারি হয়েছে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা।

ভারতের আইনের ইতিহাসে এরকম ঘটনা এর আগে কখনো শোনা যায়নি।

কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সি এস কারনান নিজের বাসভবনে এক বিশেষ আদালত বসিয়ে পাল্টা নির্দেশটি জারি করেছেন । যদিও তার কাছ থেকে সব বিচারিক ও প্রশাসনিক ক্ষমতা আগেই নিয়ে নিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত, তাই কারনানের জারি করা নির্দেশের কোনো আইনি অনুমোদন নেই বলেই মনে করছেন আইন বিশেষজ্ঞরা।

বিচারপরিত কারনানের আইনজীবি পিটার রমেশ বলেন, ‘বিচারপতি কারনান মেডিকেল পরীক্ষায় সহযোগিতা করবেন না। সুপ্রিম কোর্টে একটি আদালত অবমাননার মামলা চলছে বিচারপতি কারনানের বিরুদ্ধে। এধরণের মামলায় মেডিকেল পরীক্ষার আদেশ দেয়া যায় না। সেটা করতে হলে ২০১৭ সালের মানসিক ব্যাধি আইন অনুযায়ী করতে হয়, যেটা ওই আদেশে উল্লেখিত নেই।’

তিনি বলেন, ‘বিচারপতি কারনান মনে করছেন, সর্বোচ্চ আদালতের যে মাননীয় বিচারকরা এই নির্দেশ দিয়েছেন, তাদেরই পরীক্ষার প্রয়োজন রয়েছে – কারণ তারা বিচারপতি কারনানের মতো একজন সুস্থ মস্তিষ্কের বিচারকের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানোর নির্দেশ দিয়েছেন।’

সোমবার ভারতের প্রধান বিচারপতি জে এস খেহারের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ জানিয়েছিল, যেভাবে বিচারপতি কারনান বেঞ্চের সাতজন বিচারককে কলকাতায় তার আদালতে হাজিরা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন, এবং সেই সংক্রান্ত যে বিবৃতি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে, সেগুলি দেখে সুপ্রিম কোর্টের মনে হয়েছে যে বিচারপতি কারনান হয়তো আদালত অবমাননার মূল মামলায় নিজের পক্ষে ঠিকমতো সওয়াল করতে পারবেন না।

সেজন্যই কলকাতায় একটি চিকিৎসক দলকে তার মানসিক সুস্থতা খতিয়ে দেখে সুপ্রিম কোর্টের কাছে রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে।

এই ঘটনাকে ভারতের ইতিহাসে অভূতপূর্ব ঘটনা বলে মন্তব্য করেছেন সংবিধান বিশেষজ্ঞ ও সিনিয়র আইনজীবি বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য।

‘এটা অভূতপূর্ব তো বটেই, এরকম ঘটনা আগে হয় নি। তবে আমার মনে হয়, সুপ্রিম কোর্ট বোধহয় একটু ভুল করে ফেলছে। বিচারপতি কারনানের বিরুদ্ধে যদি কোনো অভিযোগ থাকত, তাহলে তো সেটা তাদের নিজস্ব বিবাদ মেটানোর যে ব্যবস্থাপনা আছে, তা দিয়েই করা যেত। আদালত অবমাননার মামলা হলো কেন!’

‘তিনি অন্য বিচারপতিদের বিরুদ্ধে যে দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছিলেন, সেগুলোর তদন্ত করে জনসমক্ষে তথ্য প্রকাশ করা যেত যে বিচারপতি কারনানের অভিযোগগুলো ভিত্তিহীন,’ বলেন তিনি।

নির্দেশনা – পাল্টা নির্দেশনার এই ঘটনাক্রম চলছে বেশ কয়েক মাস ধরেই।

সোমবার সর্বোচ্চ আদালত এই নির্দেশও দিয়েছে যে বিচারপতি কারনানের দেয়া ওইসব নির্দেশনা যেন ভারতের কোনো আদালত বা ট্রাইব্যুনাল না মানে।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X