রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৫৭
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, December 3, 2016 6:20 pm
A- A A+ Print

বিদেশি চ্যানেলে বন্ধ হয়েছে দেশি বিজ্ঞাপন

photo-1480766016

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে গতকাল শুক্রবার রাত থেকে বাংলাদেশে সম্প্রচারিত বিদেশি চ্যানেলের বাংলাদেশ ফিডে দেশি বিজ্ঞাপন সম্প্রচার বন্ধ হয়েছে বলে জানিয়েছেন মিডিয়া ইউনিটির উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। সরকার শিগগিরই বিজ্ঞাপন সম্প্রচার নীতিমালা ও আইন করতে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি। একই অনুষ্ঠানে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সংস্কৃতিরক্ষায় সবার ঐক্য ধরে রাখার তাগিদ দিয়েছেন বেসরকারি টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্সের (অ্যাটকো) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ মোসাদ্দেক আলী। আজ শনিবার রাজধানীর ঢাকা ক্লাব মিলনায়তনে মিডিয়া ইউনিটি আয়োজিত আলোচনা সভায় তাঁরা এসব কথা বলেন। কয়েক বছর ধরে বিদেশি চ্যানেলের বাংলাদেশ ফিডে দেশীয় পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার হয়ে আসছিল, যা দেশের প্রচলিত আইনপরিপন্থী। এতে বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে বিজ্ঞাপনের বাজার সংকুচিত হয়ে যাওয়ায় আন্দোলনে নামে টেলিভিশন চ্যানেলের মালিক, কর্মকর্তা ও কলাকুশলীদের সমন্বয়ে গঠিত সংগঠন মিডিয়া ইউনিটি। অনুষ্ঠানে সালমান এফ রহমান বলেন, ‘এরই মধ্যে বিজ্ঞাপন যে আসত তা বন্ধ হয়ে গেছে। মাননীয় তথ্যমন্ত্রীও নোটিশ দিয়েছিলেন যাঁরা ডাউনলিংক করেন তাঁদের। বিদেশি চ্যানেলকেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে বিদেশি চ্যানেলে আমাদের বাংলাদেশি বিজ্ঞাপন দেখাতে পারবে না।’ অ্যাটকোর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, এনটিভির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব মোহাম্মদ মোসাদ্দেক আলী বলেন, ‘রাজপথে নেমেছিলেন। আমরা সেভাবে অ্যাক্ট করতে পারিনি। এটা সত্যি কথা। আজকের মতো আমরা যদি সংগঠিত হতে পারতাম, তাহলে হয়তো দুই-আড়াই বছর আগেই এটার সমাধান হয়ে যেত। আমি আজকের এ সমাধানের জন্য আমার নিজের এবং অ্যাটকোর বিদায়ী সভাপতি হিসেবে অ্যাটকোর পক্ষ থেকেও বাবু ভাই, আরিফ ভাইকে ধন্যবাদ জানাই। তাঁরা প্রচুর কষ্ট করেছেন এটার জন্য। আজকে হয়তো সবাই ভাবছে যে এক মাসে সমাধান হয়ে গেছে। এক মাসে এ ত্রিশ দিনেই এটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এটা চার মিটিংয়ে সমাধান না। প্রতিদিনই আলোচনা হয়েছে।’ চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, ‘আমি নিজেও মামলাটা করে খুব যে আনন্দিত হয়েছি তা না, আনন্দ শব্দটাই ছিল না, খুব কষ্ট ছিল। কিন্তু মামলাটা করার কারণেই হয়তো তড়িঘড়ি করে আমরা সবাই বসেছি। এবং বসার সাথে সাথে জিনিসটার সমাধান হয়ে গেছে।’ প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেছেন, ‘আমাদের সমঝোতা, ঐক্যের যে বন্ধন হয়েছে এটি দেখে আমি মনে করি অবশ্যই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্বেগ কমে যাবে।’ এটিএন বাংলার চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘আমরা ঘোষণা দিতে চাই আগামীতে এ মিডিয়া ইউনিটির সদস্য যাঁরা থাকবেন তাঁদের বিরুদ্ধে, তাঁদেরকে নিয়ে আমরা মিডিয়াতে কোনো রকম প্রচার করব না।’ চ্যানেল টোয়েন্টি ফোরের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে আজাদ বলেন, ‘যখনই মিডিয়াতে সরাসরি কোনো কিছু সম্প্রচার হয়, তখন এটা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। সরাসরি যদি আমরা মিডিয়াকে ব্যবহার না করতাম তাহলে ঘটনাটা এত দূর গড়াত না।’ একাত্তর টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল বাবু বলেন, ‘আমার একটা ইচ্ছা, যদি সবাই সমর্থন দেয়, আমি ইলেকট্রনিক মিডিয়াসহ অন্যান্য মিডিয়ার সকলকে নিয়ে মিডিয়া ইউনিটি নামে একটা ক্লাব করতে চাই।’ বাংলাদেশি বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেলগুলোতে দর্শক ধরে রাখতে অনুষ্ঠানের মান বাড়ানোর দিকে নজর দেওয়া এবং কোনো কিছু সরাসরি সম্প্রচারের ক্ষেত্রে গণমাধ্যমকে আরো সতর্ক ভূমিকা পালনের তাগিদ দেন টেলিভিশনগুলোর মালিকরা। গণমাধ্যমের সংকটময় মুহূর্তে আবারও আন্দোলনে নামার অঙ্গীকার ঘোষণা করে বর্তমান কর্মসূচি আপাতত স্থগিত ঘোষণা করে মিডিয়া ইউনিটি।

Comments

Comments!

 বিদেশি চ্যানেলে বন্ধ হয়েছে দেশি বিজ্ঞাপনAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

বিদেশি চ্যানেলে বন্ধ হয়েছে দেশি বিজ্ঞাপন

Saturday, December 3, 2016 6:20 pm
photo-1480766016

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে গতকাল শুক্রবার রাত থেকে বাংলাদেশে সম্প্রচারিত বিদেশি চ্যানেলের বাংলাদেশ ফিডে দেশি বিজ্ঞাপন সম্প্রচার বন্ধ হয়েছে বলে জানিয়েছেন মিডিয়া ইউনিটির উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। সরকার শিগগিরই বিজ্ঞাপন সম্প্রচার নীতিমালা ও আইন করতে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

একই অনুষ্ঠানে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সংস্কৃতিরক্ষায় সবার ঐক্য ধরে রাখার তাগিদ দিয়েছেন বেসরকারি টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্সের (অ্যাটকো) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ মোসাদ্দেক আলী।

আজ শনিবার রাজধানীর ঢাকা ক্লাব মিলনায়তনে মিডিয়া ইউনিটি আয়োজিত আলোচনা সভায় তাঁরা এসব কথা বলেন।

কয়েক বছর ধরে বিদেশি চ্যানেলের বাংলাদেশ ফিডে দেশীয় পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার হয়ে আসছিল, যা দেশের প্রচলিত আইনপরিপন্থী। এতে বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে বিজ্ঞাপনের বাজার সংকুচিত হয়ে যাওয়ায় আন্দোলনে নামে টেলিভিশন চ্যানেলের মালিক, কর্মকর্তা ও কলাকুশলীদের সমন্বয়ে গঠিত সংগঠন মিডিয়া ইউনিটি।

অনুষ্ঠানে সালমান এফ রহমান বলেন, ‘এরই মধ্যে বিজ্ঞাপন যে আসত তা বন্ধ হয়ে গেছে। মাননীয় তথ্যমন্ত্রীও নোটিশ দিয়েছিলেন যাঁরা ডাউনলিংক করেন তাঁদের। বিদেশি চ্যানেলকেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে বিদেশি চ্যানেলে আমাদের বাংলাদেশি বিজ্ঞাপন দেখাতে পারবে না।’

অ্যাটকোর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, এনটিভির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব মোহাম্মদ মোসাদ্দেক আলী বলেন, ‘রাজপথে নেমেছিলেন। আমরা সেভাবে অ্যাক্ট করতে পারিনি। এটা সত্যি কথা। আজকের মতো আমরা যদি সংগঠিত হতে পারতাম, তাহলে হয়তো দুই-আড়াই বছর আগেই এটার সমাধান হয়ে যেত। আমি আজকের এ সমাধানের জন্য আমার নিজের এবং অ্যাটকোর বিদায়ী সভাপতি হিসেবে অ্যাটকোর পক্ষ থেকেও বাবু ভাই, আরিফ ভাইকে ধন্যবাদ জানাই। তাঁরা প্রচুর কষ্ট করেছেন এটার জন্য। আজকে হয়তো সবাই ভাবছে যে এক মাসে সমাধান হয়ে গেছে। এক মাসে এ ত্রিশ দিনেই এটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এটা চার মিটিংয়ে সমাধান না। প্রতিদিনই আলোচনা হয়েছে।’

চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, ‘আমি নিজেও মামলাটা করে খুব যে আনন্দিত হয়েছি তা না, আনন্দ শব্দটাই ছিল না, খুব কষ্ট ছিল। কিন্তু মামলাটা করার কারণেই হয়তো তড়িঘড়ি করে আমরা সবাই বসেছি। এবং বসার সাথে সাথে জিনিসটার সমাধান হয়ে গেছে।’

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেছেন, ‘আমাদের সমঝোতা, ঐক্যের যে বন্ধন হয়েছে এটি দেখে আমি মনে করি অবশ্যই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্বেগ কমে যাবে।’

এটিএন বাংলার চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘আমরা ঘোষণা দিতে চাই আগামীতে এ মিডিয়া ইউনিটির সদস্য যাঁরা থাকবেন তাঁদের বিরুদ্ধে, তাঁদেরকে নিয়ে আমরা মিডিয়াতে কোনো রকম প্রচার করব না।’

চ্যানেল টোয়েন্টি ফোরের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে আজাদ বলেন, ‘যখনই মিডিয়াতে সরাসরি কোনো কিছু সম্প্রচার হয়, তখন এটা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। সরাসরি যদি আমরা মিডিয়াকে ব্যবহার না করতাম তাহলে ঘটনাটা এত দূর গড়াত না।’

একাত্তর টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল বাবু বলেন, ‘আমার একটা ইচ্ছা, যদি সবাই সমর্থন দেয়, আমি ইলেকট্রনিক মিডিয়াসহ অন্যান্য মিডিয়ার সকলকে নিয়ে মিডিয়া ইউনিটি নামে একটা ক্লাব করতে চাই।’

বাংলাদেশি বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেলগুলোতে দর্শক ধরে রাখতে অনুষ্ঠানের মান বাড়ানোর দিকে নজর দেওয়া এবং কোনো কিছু সরাসরি সম্প্রচারের ক্ষেত্রে গণমাধ্যমকে আরো সতর্ক ভূমিকা পালনের তাগিদ দেন টেলিভিশনগুলোর মালিকরা।

গণমাধ্যমের সংকটময় মুহূর্তে আবারও আন্দোলনে নামার অঙ্গীকার ঘোষণা করে বর্তমান কর্মসূচি আপাতত স্থগিত ঘোষণা করে মিডিয়া ইউনিটি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X