শুক্রবার, ২৩শে জুন, ২০১৭ ইং, ৯ই আষাঢ়, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৯:২২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, April 2, 2017 11:12 pm
A- A A+ Print

বিশ্ব ফ্যাক্ট চেকিং দিবস, মানুষকে বোকা বানানোর দিন শেষ!

bd-fact-check_43740_1491149735

 কদরুদ্দীন শিশির  : একটি ভুল তথ্য ১৪ লাখ মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েছিল। এবং এখন পর্যন্ত প্রতিদিন কেড়ে নিচ্ছে। আজও হয়তো এক বা একাধিক আদম সন্তান জীবন দিয়ে মাশুল গুনছেন সেই ভুল তথ্যের। একটি দেশ ধ্বংস হয়ে গেছে। বহু দেশ ভুগছে তার কুফল। বর্তমান বিশ্বের অন্যতম জঠিল একটি সমস্যার উদ্ভবও ঘটেছে সেই ভুল তথ্যের ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেয়ার ফলশ্রুতিতে। ইরাকে পশ্চিমা সামরিক জোটের হামলার কথা বলা হচ্ছে। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ আর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার দেশটিতে হামলা করেন যে অজুহাতে, সেটি ছিল একটি ভুল তথ্য। এই দুই নেতা এবং তাদের সরকার দাবি করেছিল, ইরাকের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের কাছে 'গণবিধ্বংসী অস্ত্র' (Weapon of mass destruction) রয়েছে। তাদের এই দাবিকে সত্য বলে প্রতিষ্ঠিত করতে তখন কোমর বেঁধে নামে পশ্চিমা মিডিয়া। আমেরিকার এবং বিশ্বের সাধারণ মানুষের মনে গেঁথে দেয়া হয়, হ্যাঁ সাদ্দাম খুবই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে। তাকে থামাতেই হবে। নয়তো দুনিয়ায় না-জানি কোন মহাধ্বংসযজ্ঞ ঘটিয়ে ফেলেন এই লোক! এরপরের ইতিহাস তো সবারই জানা। শত শত বিমান দিয়ে বোমা মেরে ১০ বছর ধরে হত্যা করা হয় ১৪ লাখের বেশি ইরাকীকে। আহত, পঙ্গু, উদ্ভাস্তু হওয়া মানুষের সংখ্যা নিরূপন করতে না যাওয়াই ভাল। গৃহযুদ্ধ বাঁধিয়ে দেয়া হয় দেশটিতে বাস করা বিভিন্ন জাতি-উপজাতির মধ্যে। পশ্চিমা রাজনীতি ও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা এখন বলেন, ইরাক হামলার ফলই হচ্ছে আজকের ভয়ঙ্কর জঙ্গিগোষ্ঠি আইএসের উত্থান। এই জঙ্গি সংগঠনটি বিশ্বজুড়ে উগ্রপন্থায় নতুন মাত্রা যোগ করে। শুরুতেই বলেছি, এসবই হচ্ছে একটি ভুল তথ্যের ওপর নির্ভর করে নেয়া ভুল পদক্ষেপের ফল। কিছুদিন আগে টনি ব্লেয়ার নিজেও এ কথাটি স্বীকার করেছেন। যদি তখন বুশ ও ব্লেয়ার প্রশাসন ও তাদের স্বার্থের ভাগিদার পশ্চিমা মিডিয়ার সেই ভুল প্রচারণাকে কেউ চ্যালেঞ্জ করতো, তথ্য-প্রমাণ দিয়ে দেখিয়ে দিত যে, ইরাকে গণবিধ্বংসী কোনো অস্ত্র নেই, তাহলে হয়তোবা হামলার অজুহাত খুঁজে পেতে কষ্ট হতো যুদ্ধবাজ পশ্চিমা নেতাদের। ধ্বংসের মুখোমুখি হওয়া থেকে বেঁচে যেত একটি জাতি। তথ্যই শক্তি- এটি প্রমাণিত সত্য। যার কাছে সবচেয়ে বেশি, সবচেয়ে সঠিক এবং সবচেয়ে তাৎক্ষণিক তথ্য আছে সেই বর্তমান দুনিয়ায় সবচেয়ে বড় ক্ষমতাবান-শক্তিশালী। আবার উল্টোটাও আছে। ভুল তথ্যকে সঠিকের মতো করে প্রচার করেও কেউ ক্ষমতাবান হয়ে উঠে। একই সঙ্গে তা কারো জন্য হয়ে উঠে ধ্বংসের কারণ। যার ভয়াবহতম উদাহরণ হচ্ছে ইরাক। প্রাত্যহিক জীবনে ভুল তথ্যের কারণে ছোট-বড় ক্ষতির মধ্যে পড়ার শঙ্কা আছে। ভুল তথ্যের কারণে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে কেউ ফতুর হয়ে যেতে পারে। রাজনীতিকরা প্রতিদিন ভুল ও মিথ্যা বলে আমাদেরকে বিভ্রান্ত করে থাকেন। সংবাদমাধ্যম ভুল ও বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করে আমাদের বোকা বানায়। ভুল তথ্য দেয়া বিজ্ঞাপনে বিশ্বাস করে ঠকার কথা তো আমরা বুঝতেও পারি না। ধর্মীয় নেতার ভুল ব্যাখ্যায় হাতে অস্ত্র তুলে নিয়ে অমানুষ হয়ে উঠছে কিছু যুবক। লেখক-ইতিহাসবিদরা ভুল তথ্য, বিকৃত ব্যাখ্যা দিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করার ঘটনাও আমাদের কাছে খুবই পরিচিত। এভাবে মিথ্যা, ভুল, বিকৃতি ও বিভ্রান্তি প্রতিনিয়ত আমাদের কেমন ক্ষতি করছে তা আমরা একটু খেয়াল করলেই অনুমান করতে পারবো। এমতাবস্থায় বর্তমানে সারাবিশ্বেই 'ফ্যাক্ট-চেকিং' বলে একটি পরিভাষা বেশ জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। এখন আর কোনো 'বড় লোক', 'সম্মানিত ব্যক্তি' বা প্রতিষ্ঠানের কথা বা বক্তব্যকে অন্ধভাবে বিশ্বাস করা হচ্ছে না। বেশ আগে থেকেই ফ্যাক্ট চেকিং পশ্চিমা দুনিয়ায় পেশাদারিত্বের সাথে চললেও বিগত কয়েক বছর ধরে এর চর্চা দ্রুত বাড়ছে। বিশেষ করে বিগত মার্কিন নিবার্চনকে কেন্দ্র করে রক্ষণশীল ও উদারবাদী রাজনীতিক এবং মিডিয়ার মধ্যে চলা লড়াইয়ে ফ্যাক্ট চেকিংয়ের বিষয়টি বেশ আলোচনায় আসে। বলা হয়ে থাকে, অবলীলায় মিথ্যাকে সত্য আর সত্যকে মিথ্যা বানিয়ে উপস্থাপনের বিশেষ দক্ষতা আছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের। আবার তার বিরোধীরাও যে মিথ্যা বলেন না, বা বিভ্রান্তি ছড়ান না তেমনটি নয়। ফ্যাক্ট চেকাররা এসব ধরিয়ে দেন। কোনো ইস্যুতে আসল তথ্যটি কী- তা জানার অধিকার সাধারণ মানুষের আছে। কিন্তু মূলধারার সংবাদমাধ্যমকে বিভিন্ন নিয়ন্ত্রণ ও সেন্সরশিপের মধ্য দিয়ে কাজ করতে হয় বিধায় তারা অনেক সময় ইচ্ছা থাকা সত্ত্বে সঠিক তথ্যটি তুলে ধরতে পারে না। আবার হয়তোবা কেউ তার আদর্শিক, রাজনৈতিক, বাণিজ্যিক স্বার্থের কারণে জেনে বুঝেই এড়িয়ে যান সত্যকে। অন্যান্য সীমাবদ্ধতাও আছে সংবাদকর্মীদের। খুবই সীমিত সময়ের মধ্যে কাজ করতে গিয়ে প্রায়ই একটি ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট সম্ভাব্য সবগুলো পক্ষ ও সূত্র যাচাই করে সংবাদ তৈরি করা সম্ভব হয় না। ফলে অনেক ক্ষেত্রে খুবই স্বাভাবিকভাবে প্রকৃত সত্যটা মার খেয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়। এ জন্য প্রয়োজন এমন কিছু সংস্থা বা ব্যক্তির যারা পর্যবেক্ষকের ভূমিকা পালন করবেন নিরাসক্তভাবে। দেখার চেষ্টা করবেন ঘটনার সবগুলো দিক। ঘাঁটবেন একটি প্রচারিত তথ্যের বিপরীতে কী প্রামাণ্য তথ্য আছে। তারপর সত্যের কোনো বিচ্যুতি ধরা পড়লে তা তুলে ধরবেন গ্রহণযোগ্য প্রমাণ সহকারে। এই কাজটিকেই ফ্যাক্ট চেকিং বলা হচ্ছে। যাবতীয় বায়াস ও পছন্দ-অপছন্দের উর্ধ্বে থেকে ফ্যাক্ট চেকারদের কাজ হচ্ছে, ফ্যাক্ট বা বাস্তবতা খুঁজে বেড়ানো। এবং ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠিত বাস্তবতার সাথে নব্য প্রচারিত তথ্য বা বক্তব্যের গরমিল পেলেই তা মানুষকে জানানো। গবেষণা প্রতিষ্ঠান ডিউক রিপোর্টার্স ল্যাব এর তথ্য মতে, বিশ্বের ৪৪টি দেশে বর্তমানে ১১৪টি ফ্যাক্ট চেকিং টিম কাজ করছে। ৪৩টি ফ্যাক্ট চেকিং সংস্থার অধীনে এসব টিম পরিচালিত হয়। আমেরিকা এবং ইউরোপে ইতোমধ্যেই বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বড় কোনো কোম্পানি বা মিডিয়া হাউজের সাথে সংশ্লিষ্টতা না এসব সংস্থা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাথে সংশ্লিষ্ট হয়ে কাজ করে থাকেন ফ্যাক্ট চেকাররা। আবার ব্যক্তিগত উদ্যোগ আছে। জনপ্রিয়তার কথা বিবেচনা করে গত বছর গুগল তার নিউজ ফীডে ফ্যাক্ট চেকিং ফিচার যোগ করে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের টুইটগুলোর ফ্যাক্ট চেকিংয়ের জন্য আলাদা অ্যাপস বানিয়েছে ওয়াশিংটন পোস্ট। ২০০৯ সালে মর্যাদাপূর্ণ পুলিৎজার পুরস্কার পায় 'ফ্যাক্ট চেক' এবং 'পলিট ফ্যাক্ট' নামের দুটি সংস্থা। বারাক ওবামা ও জন ম্যাককেইনের মধ্যকার ২০০৮ সালের নির্বাচনের প্রতিশ্রুতিগুলো নিষ্ঠার সঙ্গে পর্যবেক্ষণের জন্য এই পুরস্কার পায় তারা। এশিয়ার মধ্যে ভারতে দুটি স্বীকৃত সংগঠন আছে যারা এ ধরনের কাজ করে থাকে। তবে বাংলাদেশে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে এমন কোনো প্রতিষ্ঠানের খোঁজ পায়নি ডিউক রিপোর্টার্স ল্যাব। এ বছর ২ এপ্রিল বিশ্ব ফ্যাক্ট চেকিং দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। প্রথমবারের মতো এ দিনটি পালনের আয়োজন করেছে আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট চেকিং নেটওয়ার্ক। নেটওয়ার্কের পরিচালক অ্যালেক্সিস মানজারলিস দিবস উপলক্ষে এক বিবৃতিতে বলেছেন, আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট চেকিং দিবস এই কাজের জন্য একমাত্র দিন নয়, বরং আমাদের প্রাত্যহিক জীবন, রাজনীতি ও সাংবাদিকতায় আরো বেশি করে প্রকৃত তথ্য যাচাই বাছাইয়ে উদ্বুদ্ধ করার একটি উপলক্ষ এটি। আজকের দিনটিতে বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করছে প্রথম ফ্যাক্ট চেকিং সংস্থা 'বিডি ফ্যাক্ট চেক'। বেসরকারি ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠানটির অফিসিয়াল ফেসবুক পাতায় বলা হয়েছে, পেশাদারিত্বের সাথে তথ্যের সঠিকতা যাচাইয়ের মাধ্যমে জনসাধারণের তথ্য জানার অধিকারকে আরো সংহত করতে কাজ করবে তারা। বাংলাদেশে ফ্যাক্ট চেকিং নিয়ে বিস্তারিত জানা যাবে www.bdfactcheck.com নামে সংস্থাটির ওয়েবসাইট থেকে। ভুল তথ্য ও বক্তব্য দিয়ে আমাদের মতো সাধারণ মানুষকে প্রতিনিয়ত বোকা বানাচ্ছেন সমাজের ক্ষমতাধর লোকেরা। আর আমরা বোকা হতে বাধ্য হচ্ছি কারণ প্রকৃত তথ্যটি আমাদের জানা নেই। প্রকৃত তথ্য জানাতে ফ্যাক্ট চেকিংয়ের পরিসর বৃদ্ধি পেলে সুন্দর বুলিতে মানুষকে বোকা বানানো কঠিন হয়ে পড়বে। ক্ষমতায়িত হবে সাধারণ মানুষ। লেখক: সিনিয়র রিসার্চার, যমুনা টেলিভিশন

Comments

Comments!

 বিশ্ব ফ্যাক্ট চেকিং দিবস, মানুষকে বোকা বানানোর দিন শেষ!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

বিশ্ব ফ্যাক্ট চেকিং দিবস, মানুষকে বোকা বানানোর দিন শেষ!

Sunday, April 2, 2017 11:12 pm
bd-fact-check_43740_1491149735
 কদরুদ্দীন শিশির  : একটি ভুল তথ্য ১৪ লাখ মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েছিল। এবং এখন পর্যন্ত প্রতিদিন কেড়ে নিচ্ছে। আজও হয়তো এক বা একাধিক আদম সন্তান জীবন দিয়ে মাশুল গুনছেন সেই ভুল তথ্যের। একটি দেশ ধ্বংস হয়ে গেছে। বহু দেশ ভুগছে তার কুফল। বর্তমান বিশ্বের অন্যতম জঠিল একটি সমস্যার উদ্ভবও ঘটেছে সেই ভুল তথ্যের ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেয়ার ফলশ্রুতিতে। ইরাকে পশ্চিমা সামরিক জোটের হামলার কথা বলা হচ্ছে। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ আর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার দেশটিতে হামলা করেন যে অজুহাতে, সেটি ছিল একটি ভুল তথ্য। এই দুই নেতা এবং তাদের সরকার দাবি করেছিল, ইরাকের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের কাছে ‘গণবিধ্বংসী অস্ত্র’ (Weapon of mass destruction) রয়েছে। তাদের এই দাবিকে সত্য বলে প্রতিষ্ঠিত করতে তখন কোমর বেঁধে নামে পশ্চিমা মিডিয়া। আমেরিকার এবং বিশ্বের সাধারণ মানুষের মনে গেঁথে দেয়া হয়, হ্যাঁ সাদ্দাম খুবই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে। তাকে থামাতেই হবে। নয়তো দুনিয়ায় না-জানি কোন মহাধ্বংসযজ্ঞ ঘটিয়ে ফেলেন এই লোক! এরপরের ইতিহাস তো সবারই জানা। শত শত বিমান দিয়ে বোমা মেরে ১০ বছর ধরে হত্যা করা হয় ১৪ লাখের বেশি ইরাকীকে। আহত, পঙ্গু, উদ্ভাস্তু হওয়া মানুষের সংখ্যা নিরূপন করতে না যাওয়াই ভাল। গৃহযুদ্ধ বাঁধিয়ে দেয়া হয় দেশটিতে বাস করা বিভিন্ন জাতি-উপজাতির মধ্যে। পশ্চিমা রাজনীতি ও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা এখন বলেন, ইরাক হামলার ফলই হচ্ছে আজকের ভয়ঙ্কর জঙ্গিগোষ্ঠি আইএসের উত্থান। এই জঙ্গি সংগঠনটি বিশ্বজুড়ে উগ্রপন্থায় নতুন মাত্রা যোগ করে।
শুরুতেই বলেছি, এসবই হচ্ছে একটি ভুল তথ্যের ওপর নির্ভর করে নেয়া ভুল পদক্ষেপের ফল। কিছুদিন আগে টনি ব্লেয়ার নিজেও এ কথাটি স্বীকার করেছেন। যদি তখন বুশ ও ব্লেয়ার প্রশাসন ও তাদের স্বার্থের ভাগিদার পশ্চিমা মিডিয়ার সেই ভুল প্রচারণাকে কেউ চ্যালেঞ্জ করতো, তথ্য-প্রমাণ দিয়ে দেখিয়ে দিত যে, ইরাকে গণবিধ্বংসী কোনো অস্ত্র নেই, তাহলে হয়তোবা হামলার অজুহাত খুঁজে পেতে কষ্ট হতো যুদ্ধবাজ পশ্চিমা নেতাদের। ধ্বংসের মুখোমুখি হওয়া থেকে বেঁচে যেত একটি জাতি।

তথ্যই শক্তি- এটি প্রমাণিত সত্য। যার কাছে সবচেয়ে বেশি, সবচেয়ে সঠিক এবং সবচেয়ে তাৎক্ষণিক তথ্য আছে সেই বর্তমান দুনিয়ায় সবচেয়ে বড় ক্ষমতাবান-শক্তিশালী। আবার উল্টোটাও আছে। ভুল তথ্যকে সঠিকের মতো করে প্রচার করেও কেউ ক্ষমতাবান হয়ে উঠে। একই সঙ্গে তা কারো জন্য হয়ে উঠে ধ্বংসের কারণ। যার ভয়াবহতম উদাহরণ হচ্ছে ইরাক। প্রাত্যহিক জীবনে ভুল তথ্যের কারণে ছোট-বড় ক্ষতির মধ্যে পড়ার শঙ্কা আছে। ভুল তথ্যের কারণে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে কেউ ফতুর হয়ে যেতে পারে। রাজনীতিকরা প্রতিদিন ভুল ও মিথ্যা বলে আমাদেরকে বিভ্রান্ত করে থাকেন। সংবাদমাধ্যম ভুল ও বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করে আমাদের বোকা বানায়। ভুল তথ্য দেয়া বিজ্ঞাপনে বিশ্বাস করে ঠকার কথা তো আমরা বুঝতেও পারি না। ধর্মীয় নেতার ভুল ব্যাখ্যায় হাতে অস্ত্র তুলে নিয়ে অমানুষ হয়ে উঠছে কিছু যুবক। লেখক-ইতিহাসবিদরা ভুল তথ্য, বিকৃত ব্যাখ্যা দিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করার ঘটনাও আমাদের কাছে খুবই পরিচিত। এভাবে মিথ্যা, ভুল, বিকৃতি ও বিভ্রান্তি প্রতিনিয়ত আমাদের কেমন ক্ষতি করছে তা আমরা একটু খেয়াল করলেই অনুমান করতে পারবো।

এমতাবস্থায় বর্তমানে সারাবিশ্বেই ‘ফ্যাক্ট-চেকিং’ বলে একটি পরিভাষা বেশ জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। এখন আর কোনো ‘বড় লোক’, ‘সম্মানিত ব্যক্তি’ বা প্রতিষ্ঠানের কথা বা বক্তব্যকে অন্ধভাবে বিশ্বাস করা হচ্ছে না। বেশ আগে থেকেই ফ্যাক্ট চেকিং পশ্চিমা দুনিয়ায় পেশাদারিত্বের সাথে চললেও বিগত কয়েক বছর ধরে এর চর্চা দ্রুত বাড়ছে। বিশেষ করে বিগত মার্কিন নিবার্চনকে কেন্দ্র করে রক্ষণশীল ও উদারবাদী রাজনীতিক এবং মিডিয়ার মধ্যে চলা লড়াইয়ে ফ্যাক্ট চেকিংয়ের বিষয়টি বেশ আলোচনায় আসে। বলা হয়ে থাকে, অবলীলায় মিথ্যাকে সত্য আর সত্যকে মিথ্যা বানিয়ে উপস্থাপনের বিশেষ দক্ষতা আছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের। আবার তার বিরোধীরাও যে মিথ্যা বলেন না, বা বিভ্রান্তি ছড়ান না তেমনটি নয়। ফ্যাক্ট চেকাররা এসব ধরিয়ে দেন। কোনো ইস্যুতে আসল তথ্যটি কী- তা জানার অধিকার সাধারণ মানুষের আছে। কিন্তু মূলধারার সংবাদমাধ্যমকে বিভিন্ন নিয়ন্ত্রণ ও সেন্সরশিপের মধ্য দিয়ে কাজ করতে হয় বিধায় তারা অনেক সময় ইচ্ছা থাকা সত্ত্বে সঠিক তথ্যটি তুলে ধরতে পারে না। আবার হয়তোবা কেউ তার আদর্শিক, রাজনৈতিক, বাণিজ্যিক স্বার্থের কারণে জেনে বুঝেই এড়িয়ে যান সত্যকে। অন্যান্য সীমাবদ্ধতাও আছে সংবাদকর্মীদের। খুবই সীমিত সময়ের মধ্যে কাজ করতে গিয়ে প্রায়ই একটি ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট সম্ভাব্য সবগুলো পক্ষ ও সূত্র যাচাই করে সংবাদ তৈরি করা সম্ভব হয় না। ফলে অনেক ক্ষেত্রে খুবই স্বাভাবিকভাবে প্রকৃত সত্যটা মার খেয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়। এ জন্য প্রয়োজন এমন কিছু সংস্থা বা ব্যক্তির যারা পর্যবেক্ষকের ভূমিকা পালন করবেন নিরাসক্তভাবে। দেখার চেষ্টা করবেন ঘটনার সবগুলো দিক। ঘাঁটবেন একটি প্রচারিত তথ্যের বিপরীতে কী প্রামাণ্য তথ্য আছে। তারপর সত্যের কোনো বিচ্যুতি ধরা পড়লে তা তুলে ধরবেন গ্রহণযোগ্য প্রমাণ সহকারে। এই কাজটিকেই ফ্যাক্ট চেকিং বলা হচ্ছে। যাবতীয় বায়াস ও পছন্দ-অপছন্দের উর্ধ্বে থেকে ফ্যাক্ট চেকারদের কাজ হচ্ছে, ফ্যাক্ট বা বাস্তবতা খুঁজে বেড়ানো। এবং ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠিত বাস্তবতার সাথে নব্য প্রচারিত তথ্য বা বক্তব্যের গরমিল পেলেই তা মানুষকে জানানো।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান ডিউক রিপোর্টার্স ল্যাব এর তথ্য মতে, বিশ্বের ৪৪টি দেশে বর্তমানে ১১৪টি ফ্যাক্ট চেকিং টিম কাজ করছে। ৪৩টি ফ্যাক্ট চেকিং সংস্থার অধীনে এসব টিম পরিচালিত হয়। আমেরিকা এবং ইউরোপে ইতোমধ্যেই বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বড় কোনো কোম্পানি বা মিডিয়া হাউজের সাথে সংশ্লিষ্টতা না এসব সংস্থা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাথে সংশ্লিষ্ট হয়ে কাজ করে থাকেন ফ্যাক্ট চেকাররা। আবার ব্যক্তিগত উদ্যোগ আছে। জনপ্রিয়তার কথা বিবেচনা করে গত বছর গুগল তার নিউজ ফীডে ফ্যাক্ট চেকিং ফিচার যোগ করে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের টুইটগুলোর ফ্যাক্ট চেকিংয়ের জন্য আলাদা অ্যাপস বানিয়েছে ওয়াশিংটন পোস্ট। ২০০৯ সালে মর্যাদাপূর্ণ পুলিৎজার পুরস্কার পায় ‘ফ্যাক্ট চেক’ এবং ‘পলিট ফ্যাক্ট’ নামের দুটি সংস্থা। বারাক ওবামা ও জন ম্যাককেইনের মধ্যকার ২০০৮ সালের নির্বাচনের প্রতিশ্রুতিগুলো নিষ্ঠার সঙ্গে পর্যবেক্ষণের জন্য এই পুরস্কার পায় তারা। এশিয়ার মধ্যে ভারতে দুটি স্বীকৃত সংগঠন আছে যারা এ ধরনের কাজ করে থাকে। তবে বাংলাদেশে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে এমন কোনো প্রতিষ্ঠানের খোঁজ পায়নি ডিউক রিপোর্টার্স ল্যাব।

এ বছর ২ এপ্রিল বিশ্ব ফ্যাক্ট চেকিং দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। প্রথমবারের মতো এ দিনটি পালনের আয়োজন করেছে আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট চেকিং নেটওয়ার্ক। নেটওয়ার্কের পরিচালক অ্যালেক্সিস মানজারলিস দিবস উপলক্ষে এক বিবৃতিতে বলেছেন, আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট চেকিং দিবস এই কাজের জন্য একমাত্র দিন নয়, বরং আমাদের প্রাত্যহিক জীবন, রাজনীতি ও সাংবাদিকতায় আরো বেশি করে প্রকৃত তথ্য যাচাই বাছাইয়ে উদ্বুদ্ধ করার একটি উপলক্ষ এটি। আজকের দিনটিতে বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করছে প্রথম ফ্যাক্ট চেকিং সংস্থা ‘বিডি ফ্যাক্ট চেক’। বেসরকারি ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠানটির অফিসিয়াল ফেসবুক পাতায় বলা হয়েছে, পেশাদারিত্বের সাথে তথ্যের সঠিকতা যাচাইয়ের মাধ্যমে জনসাধারণের তথ্য জানার অধিকারকে আরো সংহত করতে কাজ করবে তারা। বাংলাদেশে ফ্যাক্ট চেকিং নিয়ে বিস্তারিত জানা যাবে www.bdfactcheck.com নামে সংস্থাটির ওয়েবসাইট থেকে।

ভুল তথ্য ও বক্তব্য দিয়ে আমাদের মতো সাধারণ মানুষকে প্রতিনিয়ত বোকা বানাচ্ছেন সমাজের ক্ষমতাধর লোকেরা। আর আমরা বোকা হতে বাধ্য হচ্ছি কারণ প্রকৃত তথ্যটি আমাদের জানা নেই। প্রকৃত তথ্য জানাতে ফ্যাক্ট চেকিংয়ের পরিসর বৃদ্ধি পেলে সুন্দর বুলিতে মানুষকে বোকা বানানো কঠিন হয়ে পড়বে। ক্ষমতায়িত হবে সাধারণ মানুষ।

লেখক: সিনিয়র রিসার্চার, যমুনা টেলিভিশন

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X