রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৭:৩৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, May 8, 2017 5:17 pm
A- A A+ Print

ব্যাংকে পারিবারিক প্রভাবের সুযোগ আরো বাড়ল

photo-1494233278

বেসরকারি ব্যাংকে পারিবারিক প্রভাবের সুযোগ আরো বাড়িয়ে আইনের সংশোধনী প্রস্তাব অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। আজ সোমবার সকালে মন্ত্রিসভায় ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধনের প্রস্তাব ওঠানো হলে তার অনুমোদন দেওয়া হয়। বেলা ১১টায় সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদের সম্মেলনে কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে প্রস্তাবটি উপস্থাপন করা হয়। পরে বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। এ সময় সচিব বলেন, ‘ব্যাংক কোম্পানি আইনের ১৫ ধারার ১০ উপধারার সংশোধনীর অনুমোদন দিয়েছেন মন্ত্রিসভা। সংশোধন অনুযায়ী, এখন থেকে একই পরিবারের সর্বোচ্চ চারজন সদস্য ব্যাংক পরিচালনার দায়িত্বে থাকতে পারবেন। পরিচালকরা তিন বছর করে তিন মেয়াদে টানা নয় বছর দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। মাঝে তিন বছরের বিরতি দিয়ে ফের নয় বছরের জন্য দায়িত্বে ফিরতে পারবেন তাঁরা।’ ‘আগে এ আইনে একই পরিবারের দুজন সদস্য পরিচালনা পর্ষদে থাকতে পারতেন এবং তাঁরা টানা তিন বছর দায়িত্ব পালন করতে পারতেন। তিন বছর বিরতি দিয়ে আবার তাঁরা পরিচালনা পর্ষদে ফিরতে পারতেন’, যোগ করেন সচিব। কেন এ ধরনের সংশোধনী আনা হয়েছে—জানতে চাইলে সচিব শফিউল আলম বলেন, বেসরকারি ব্যাংক উদ্যোক্তাদের এটা দীর্ঘদিনের দাবি ছিল। তাই মন্ত্রিসভা এতে অনুমোদন দিয়েছে। এর আগে বিভিন্ন সময়ে বেসরকারি ব্যাংকে পরিবারের সদস্যদের পরিচালক পদে বসিয়ে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, ১৯৯১ সালে সরকার ব্যাংক কোম্পানি আইন করে। এর পর আরো কয়েক দফা সংশোধনের মাধ্যমে এ আইনকে হালনাগাদ করা হয়। সম্প্রতি বেসরকারি ব্যাংকের উদ্যোক্তারা অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধনের দাবি জানান। বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর চেয়ারম্যানদের সংগঠন বিএবি এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের সংগঠন এবিবি পৃথকভাবে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে আইন সংশোধনের প্রস্তাব করে। অর্থমন্ত্রী তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধনে সায় দিয়েছিলেন।

Comments

Comments!

 ব্যাংকে পারিবারিক প্রভাবের সুযোগ আরো বাড়লAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ব্যাংকে পারিবারিক প্রভাবের সুযোগ আরো বাড়ল

Monday, May 8, 2017 5:17 pm
photo-1494233278

বেসরকারি ব্যাংকে পারিবারিক প্রভাবের সুযোগ আরো বাড়িয়ে আইনের সংশোধনী প্রস্তাব অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা।

আজ সোমবার সকালে মন্ত্রিসভায় ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধনের প্রস্তাব ওঠানো হলে তার অনুমোদন দেওয়া হয়। বেলা ১১টায় সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদের সম্মেলনে কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে প্রস্তাবটি উপস্থাপন করা হয়।

পরে বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

এ সময় সচিব বলেন, ‘ব্যাংক কোম্পানি আইনের ১৫ ধারার ১০ উপধারার সংশোধনীর অনুমোদন দিয়েছেন মন্ত্রিসভা। সংশোধন অনুযায়ী, এখন থেকে একই পরিবারের সর্বোচ্চ চারজন সদস্য ব্যাংক পরিচালনার দায়িত্বে থাকতে পারবেন। পরিচালকরা তিন বছর করে তিন মেয়াদে টানা নয় বছর দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। মাঝে তিন বছরের বিরতি দিয়ে ফের নয় বছরের জন্য দায়িত্বে ফিরতে পারবেন তাঁরা।’

‘আগে এ আইনে একই পরিবারের দুজন সদস্য পরিচালনা পর্ষদে থাকতে পারতেন এবং তাঁরা টানা তিন বছর দায়িত্ব পালন করতে পারতেন। তিন বছর বিরতি দিয়ে আবার তাঁরা পরিচালনা পর্ষদে ফিরতে পারতেন’, যোগ করেন সচিব।

কেন এ ধরনের সংশোধনী আনা হয়েছে—জানতে চাইলে সচিব শফিউল আলম বলেন, বেসরকারি ব্যাংক উদ্যোক্তাদের এটা দীর্ঘদিনের দাবি ছিল। তাই মন্ত্রিসভা এতে অনুমোদন দিয়েছে।

এর আগে বিভিন্ন সময়ে বেসরকারি ব্যাংকে পরিবারের সদস্যদের পরিচালক পদে বসিয়ে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, ১৯৯১ সালে সরকার ব্যাংক কোম্পানি আইন করে। এর পর আরো কয়েক দফা সংশোধনের মাধ্যমে এ আইনকে হালনাগাদ করা হয়। সম্প্রতি বেসরকারি ব্যাংকের উদ্যোক্তারা অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধনের দাবি জানান।

বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর চেয়ারম্যানদের সংগঠন বিএবি এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের সংগঠন এবিবি পৃথকভাবে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে আইন সংশোধনের প্রস্তাব করে।

অর্থমন্ত্রী তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধনে সায় দিয়েছিলেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X