শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:৪৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, November 2, 2016 7:16 pm
A- A A+ Print

ব্যানার-ফেস্টুন অপসারণে হাইকোর্টের নির্দেশ

hi_court1478086820

ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ, রোড মিডিয়ানে ব্যানার-ফেস্টুন লাগালে তা তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে সিটি করপোরেশন এলাকায় অননুমোদিত বিলবোর্ড, ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন, তোরণ, দেয়াল লিখন ইত্যাদি অপসারণে করপোরেশনের কার্যক্রম অব্যাহত রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি মো. খুরশীদ আলম সরকারের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে সিটি করপোরেশনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান। রিটকারী সংগঠন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মিনহাজুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. খুরশিদুল আলম। এর আগে গত ২২ আগস্ট দক্ষিণ ও উত্তর সিটি করপোরেশন হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করে। দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত এক বছরে বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ, রোড মিডিয়ান ইত্যাদি থেকে প্রায় ৪৪ হাজার ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার অপসারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে অপসারিত ব্যানার ১১ হাজার ২৭৪টি, ফেস্টুন ১৩ হাজার ৯০৫টি এবং পোস্টার ১৮ হাজার ৭২৪টি। এ ছাড়া ৫৭৭টি বিলবোর্ড অপসারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া নগরীকে সুন্দর, পরিচ্ছন্ন ও বসবাসযোগ্য রাখার লক্ষ্যে এ অপসারণ কার্যক্রম চলমান আছে। উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে দেওয়া এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ সিটি করপোরেশন এলাকায় অননুমোদিত বিভিন্ন প্রকার বিলবোর্ড, ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন, তোরণ, দেয়াল লিখন ইত্যাদি অপসারণে করপোরেশনের কার্যক্রম চলমান আছে। ইতিমধ্যে এই অপসারণ কার্যক্রম ৯০ ভাগ বাস্তবায়ন হয়েছে। এ ছাড়া করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তাকে এ অপসারণ কার্যক্রম বাস্তবায়নে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সব আঞ্চলিক কর্মকর্তাকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। রাজধানীতে অননুমোদিত সব পোস্টার, ব্যানার ও তোরণ ২২ আগস্টের মধ্যে অপসারণের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে দেয়াল লিখনও মুছে ফেলতে বলা হয়। হাইকোর্টের ওই নির্দেশ মোতাবেক এই হলফনামা দাখিল করা হয়। বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১২ সালের ১৮ মার্চ হাইকোর্ট এক আদেশে অননুমোদিত সব পোস্টার, ব্যানার ও তোরণ অপসারণের নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে রুল জারি করেন। সেই রুল নিষ্পত্তি করে বুধবার হাইকোর্ট বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ, রোড মিডিয়ানে ব্যানার-ফেস্টুন লাগালে তা তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণের নির্দেশ দেন।

Comments

Comments!

 ব্যানার-ফেস্টুন অপসারণে হাইকোর্টের নির্দেশAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ব্যানার-ফেস্টুন অপসারণে হাইকোর্টের নির্দেশ

Wednesday, November 2, 2016 7:16 pm
hi_court1478086820

ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ, রোড মিডিয়ানে ব্যানার-ফেস্টুন লাগালে তা তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

একই সঙ্গে সিটি করপোরেশন এলাকায় অননুমোদিত বিলবোর্ড, ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন, তোরণ, দেয়াল লিখন ইত্যাদি অপসারণে করপোরেশনের কার্যক্রম অব্যাহত রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি মো. খুরশীদ আলম সরকারের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে সিটি করপোরেশনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান। রিটকারী সংগঠন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মিনহাজুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. খুরশিদুল আলম।

এর আগে গত ২২ আগস্ট দক্ষিণ ও উত্তর সিটি করপোরেশন হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করে।

দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত এক বছরে বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ, রোড মিডিয়ান ইত্যাদি থেকে প্রায় ৪৪ হাজার ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার অপসারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে অপসারিত ব্যানার ১১ হাজার ২৭৪টি, ফেস্টুন ১৩ হাজার ৯০৫টি এবং পোস্টার ১৮ হাজার ৭২৪টি। এ ছাড়া ৫৭৭টি বিলবোর্ড অপসারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া নগরীকে সুন্দর, পরিচ্ছন্ন ও বসবাসযোগ্য রাখার লক্ষ্যে এ অপসারণ কার্যক্রম চলমান আছে।

উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে দেওয়া এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ সিটি করপোরেশন এলাকায় অননুমোদিত বিভিন্ন প্রকার বিলবোর্ড, ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন, তোরণ, দেয়াল লিখন ইত্যাদি অপসারণে করপোরেশনের কার্যক্রম চলমান আছে। ইতিমধ্যে এই অপসারণ কার্যক্রম ৯০ ভাগ বাস্তবায়ন হয়েছে। এ ছাড়া করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তাকে এ অপসারণ কার্যক্রম বাস্তবায়নে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সব আঞ্চলিক কর্মকর্তাকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

রাজধানীতে অননুমোদিত সব পোস্টার, ব্যানার ও তোরণ ২২ আগস্টের মধ্যে অপসারণের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে দেয়াল লিখনও মুছে ফেলতে বলা হয়। হাইকোর্টের ওই নির্দেশ মোতাবেক এই হলফনামা দাখিল করা হয়।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১২ সালের ১৮ মার্চ হাইকোর্ট এক আদেশে অননুমোদিত সব পোস্টার, ব্যানার ও তোরণ অপসারণের নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে রুল জারি করেন। সেই রুল নিষ্পত্তি করে বুধবার হাইকোর্ট বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ, রোড মিডিয়ানে ব্যানার-ফেস্টুন লাগালে তা তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণের নির্দেশ দেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X