শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৮:৪০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, July 28, 2016 8:08 am
A- A A+ Print

ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা দপ্তরে বাংলাদেশের পুলিশ প্রধান

148295_1

ভারত ও বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের প্রাক্কালে বুধবার পুলিশের মহাপরিচালক একেএম শহীদুল হকের নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল দিল্লির জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ-র সদর দপ্তর পরিদর্শন করেছেন। ভারতে ইসলামিক স্টেট থেকে শুরু করে বিভিন্ন জঙ্গী সংগঠনের কার্যকলাপের বিরুদ্ধে যাবতীয় তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করে এনআইএ, সেই সংস্থার সদর দপ্তরে বাংলাদেশের পুলিশ-প্রধান ও অন্য কর্মকর্তাদের সফরকে যথেষ্ঠ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে। এই সব সংগঠন ভারতসহ সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ায় কীভাবে নিজেদের নেটওয়ার্ক বিস্তার করছে, তা নিয়ে এনআইএ কর্মকর্তাদের সঙ্গে শহীদুল হকের আলোচনা হয়েছে বলেও জানা যাচ্ছে। এদিকে জঙ্গী সমস্যার মোকাবিলায় ভারত ও বাংলাদেশ বহুদিন ধরেই একসঙ্গে লড়ার কথা বলছে–দুদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের প্রাক্কালে সেই সহযোগিতাকে একটা অন্য মাত্রায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা দেখা যাচ্ছে দুতরফ থেকেই। এনআইএ-র কর্মকর্তারা বলেছেন, ‘এতদিন দুদেশের মধ্যে গোয়েন্দা তথ্য বিনিময় হয়ে এসেছে–এখন সেটাকে পরের ধাপে উন্নীত করার সময় এসেছে বলেই তারা মনে করছেন। যেমন ধরুন, দুদেশের গোয়েন্দারা প্রয়োজনে যাতে যৌথভাবে তদন্ত পরিচালনা করতে পারেন বা একটি কমন ডেটাবেস থেকে তথ্য অ্যাক্মেস করতে পারেন সেগুলোও এখন নিশ্চিত করা দরকার। এদিকে প্রায় সাড়ে তিন বছরের ব্যবধানে প্রথম মুখোমুখি বৈঠকে বসছেন ভারত ও বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীরা–দিল্লিতে নরেন্দ্র মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথম। কিন্তু তার চেয়েও বড় কথা, এই বৈঠক হচ্ছে গুলশান ও শোলাকিয়াতে জোড়া জঙ্গী-হামরার ঠিক পর পরই, এবং এই বৈঠকে জঙ্গীবাদ দমনই যে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। বৃহস্পতিবার বিকেল চারটেয় দিল্লিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রধান কার্যালয় নর্থ ব্লকে দুদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ও আসাদুজ্জামান খান কামালের নেতৃত্বে দুই দেশের প্রতিনিধিদল বৈঠকে মিলিত হচ্ছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ছাড়াও ভারতের প্রতিনিধিদলে থাকবেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তারা, বিএসএফ, ভারতের নারকোটিক কন্ট্রোল ব্যুরো ও কোস্ট গার্ডের প্রধানরাও। বাংলাদেশ দলে আসাদুজ্জামান খান কামালের নেতৃত্বে আরও থাকছেন দেশের পুলিশ-প্রধান একেএম শহীদুল হক, সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি-র প্রধান মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ, কোস্ট গার্ডের প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী, নারকোটিকস কন্ট্রোল (মাদক নিয়ন্ত্রণ) বিভাগের ডিজি খন্দকার রকিবুল রহমানসহ আরো অনেকে। সূত্র: বিবিসি

Comments

Comments!

 ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা দপ্তরে বাংলাদেশের পুলিশ প্রধানAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা দপ্তরে বাংলাদেশের পুলিশ প্রধান

Thursday, July 28, 2016 8:08 am
148295_1

ভারত ও বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের প্রাক্কালে বুধবার পুলিশের মহাপরিচালক একেএম শহীদুল হকের নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল দিল্লির জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ-র সদর দপ্তর পরিদর্শন করেছেন।

ভারতে ইসলামিক স্টেট থেকে শুরু করে বিভিন্ন জঙ্গী সংগঠনের কার্যকলাপের বিরুদ্ধে যাবতীয় তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করে এনআইএ, সেই সংস্থার সদর দপ্তরে বাংলাদেশের পুলিশ-প্রধান ও অন্য কর্মকর্তাদের সফরকে যথেষ্ঠ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে।

এই সব সংগঠন ভারতসহ সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ায় কীভাবে নিজেদের নেটওয়ার্ক বিস্তার করছে, তা নিয়ে এনআইএ কর্মকর্তাদের সঙ্গে শহীদুল হকের আলোচনা হয়েছে বলেও জানা যাচ্ছে।

এদিকে জঙ্গী সমস্যার মোকাবিলায় ভারত ও বাংলাদেশ বহুদিন ধরেই একসঙ্গে লড়ার কথা বলছে–দুদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের প্রাক্কালে সেই সহযোগিতাকে একটা অন্য মাত্রায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা দেখা যাচ্ছে দুতরফ থেকেই।

এনআইএ-র কর্মকর্তারা বলেছেন, ‘এতদিন দুদেশের মধ্যে গোয়েন্দা তথ্য বিনিময় হয়ে এসেছে–এখন সেটাকে পরের ধাপে উন্নীত করার সময় এসেছে বলেই তারা মনে করছেন। যেমন ধরুন, দুদেশের গোয়েন্দারা প্রয়োজনে যাতে যৌথভাবে তদন্ত পরিচালনা করতে পারেন বা একটি কমন ডেটাবেস থেকে তথ্য অ্যাক্মেস করতে পারেন সেগুলোও এখন নিশ্চিত করা দরকার।

এদিকে প্রায় সাড়ে তিন বছরের ব্যবধানে প্রথম মুখোমুখি বৈঠকে বসছেন ভারত ও বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীরা–দিল্লিতে নরেন্দ্র মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথম।

কিন্তু তার চেয়েও বড় কথা, এই বৈঠক হচ্ছে গুলশান ও শোলাকিয়াতে জোড়া জঙ্গী-হামরার ঠিক পর পরই, এবং এই বৈঠকে জঙ্গীবাদ দমনই যে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

বৃহস্পতিবার বিকেল চারটেয় দিল্লিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রধান কার্যালয় নর্থ ব্লকে দুদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ও আসাদুজ্জামান খান কামালের নেতৃত্বে দুই দেশের প্রতিনিধিদল বৈঠকে মিলিত হচ্ছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ছাড়াও ভারতের প্রতিনিধিদলে থাকবেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তারা, বিএসএফ, ভারতের নারকোটিক কন্ট্রোল ব্যুরো ও কোস্ট গার্ডের প্রধানরাও।

বাংলাদেশ দলে আসাদুজ্জামান খান কামালের নেতৃত্বে আরও থাকছেন দেশের পুলিশ-প্রধান একেএম শহীদুল হক, সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি-র প্রধান মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ, কোস্ট গার্ডের প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী, নারকোটিকস কন্ট্রোল (মাদক নিয়ন্ত্রণ) বিভাগের ডিজি খন্দকার রকিবুল রহমানসহ আরো অনেকে।

সূত্র: বিবিসি

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X