সোমবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ভোর ৫:৫০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, July 27, 2016 11:31 am
A- A A+ Print

ভারতে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতিতে ‘বাংলাদেশী’

india_136363

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে দুটি স্বর্ণের দোকানে ডাকাতিতে কয়েকজন 'বাংলাদেশী' জড়িত ছিল বলে দাবি করেছে দেশটির পুলিশ। কয়েক মাসের ব্যবধানে হরিদেবপুর ও সোদপুরের দুটি স্বর্ণের দোকানে ওই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। পুলিশের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার জানায়, চলতি মাসের প্রথম দিনে সোদপুরের একটি নামী স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনায় কয়েকজন গ্রেফতার হলেও মূল অভিযুক্ত 'বাংলাদেশী' ডাকাতরা পলাতক। অন্যদিকে, গত অক্টোবরে হরিদেবপুরের স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনায় এখনো কেউ গ্রেফতার হয়নি। প্রায় ১০ মাস আগে হরিদেবপুরের কাষ্ঠডাঙায় ক্রেতা সেজে স্বর্ণের দোকানে ঢুকে ডাকাতি করে সশস্ত্র দুষ্কৃতীদের একটি দল। দলের সকলেই ছিল মধ্যবয়স্ক। দোকানে ঢুকেই তারা সিসিটিভি'র তার ছিঁড়ে দেয়। আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে কর্মীদের ভয় দেখিয়ে ভল্ট খুলে প্রায় ১৮ লাখ টাকার গয়না ও নগদ টাকা নিয়ে গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে পালায়। এ বছর জুলাই মাসের প্রথমে এই কায়দাতেই ডাকাতি হয় সোদপুরের স্বর্ণের দোকানে। এ ক্ষেত্রেও দুষ্কৃতীরা ছিল মধ্যবয়স্ক। পুলিশ জানতে পারে, এখানেও ঘটনাস্থলের কিছু দূরে ছোট মালবাহী গাড়ি রেখে হেঁটে এসে অস্ত্র দেখিয়ে লুঠপাট চালায় ডাকাতরা। কাজ শেষে চম্পট দেয় ওই গাড়িতেই। দুটি ঘটনাতেই দুষ্কৃতীরা একইভাবে কথা বলছিল। হরিদেবপুরের ঘটনায় কিছু সূত্র পেলেও তেমন এগোতে পারেননি তদন্তকারীরা। পরে সোদপুরের সঙ্গে এই ডাকাতির মিল পাওয়ায় তারা কথা বলেন ব্যারাকপুর পুলিশের সঙ্গে। ব্যারাকপুর পুলিশ প্রথমে গ্রেফতার করে নিউ ব্যারাকপুরের বাসিন্দা লীলা কীর্তনিয়া নামে এক মহিলাকে। তার বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় বেশ কিছু গয়না। জেরায় লীলা এই ঘটনায় তার ভাই গোলকের জড়িত থাকার কথা জানায়। গোলকের সঙ্গে বারাসতের বাসিন্দা গোপাল নামে একজন ছিল বলে জানতে পারে পুলিশ। তবে ওই দুজনকে ধরতে না পারলেও পুলিশ গ্রেফতার করে লীলার পরিচিত অনিমেষ মণ্ডল নামে এক ব্যক্তিকে। লীলা ও অনিমেষকে জেরা করে ধরা হয় অতীশ, দেব ও টুটুন নামে তিনজনকে। জেরায় পুলিশ জানতে পারে, দুটি ডাকাতিতেই জড়িত ছিল একই 'বাংলাদেশী' ডাকাত দল। গ্রেফতারকৃতরা 'বাংলাদেশী' ডাকাতদের আশ্রয় দেয়া থেকে শুরু করে সব রকম সাহায্য করত তারা। ওই ডাকাতদের বেআইনিভাবে পারাপার করানোর দায়িত্বও ছিল তাদের। এমনকি ডাকাতির সময়ে গাড়ি দিয়ে সাহায্যও করত তারা। পুলিশ জানায়, 'বাংলাদেশী' ডাকাতরা প্রথমে এসে ডাকাতির এলাকা রেকি করে যেত। দু-এক দিনে কাজ হাসিল করে তাদের সঙ্গে যুক্ত এ শহরের দুষ্কৃতীদের লুঠের ভাগ দিয়ে ফিরে যেত দেশে।

Comments

Comments!

 ভারতে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতিতে ‘বাংলাদেশী’AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ভারতে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতিতে ‘বাংলাদেশী’

Wednesday, July 27, 2016 11:31 am
india_136363
ভারতের পশ্চিমবঙ্গে দুটি স্বর্ণের দোকানে ডাকাতিতে কয়েকজন ‘বাংলাদেশী’ জড়িত ছিল বলে দাবি করেছে দেশটির পুলিশ।

কয়েক মাসের ব্যবধানে হরিদেবপুর ও সোদপুরের দুটি স্বর্ণের দোকানে ওই ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

পুলিশের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার জানায়, চলতি মাসের প্রথম দিনে সোদপুরের একটি নামী স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনায় কয়েকজন গ্রেফতার হলেও মূল অভিযুক্ত ‘বাংলাদেশী’ ডাকাতরা পলাতক।

অন্যদিকে, গত অক্টোবরে হরিদেবপুরের স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনায় এখনো কেউ গ্রেফতার হয়নি।

প্রায় ১০ মাস আগে হরিদেবপুরের কাষ্ঠডাঙায় ক্রেতা সেজে স্বর্ণের দোকানে ঢুকে ডাকাতি করে সশস্ত্র দুষ্কৃতীদের একটি দল। দলের সকলেই ছিল মধ্যবয়স্ক। দোকানে ঢুকেই তারা সিসিটিভি’র তার ছিঁড়ে দেয়। আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে কর্মীদের ভয় দেখিয়ে ভল্ট খুলে প্রায় ১৮ লাখ টাকার গয়না ও নগদ টাকা নিয়ে গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে পালায়।

এ বছর জুলাই মাসের প্রথমে এই কায়দাতেই ডাকাতি হয় সোদপুরের স্বর্ণের দোকানে। এ ক্ষেত্রেও দুষ্কৃতীরা ছিল মধ্যবয়স্ক।

পুলিশ জানতে পারে, এখানেও ঘটনাস্থলের কিছু দূরে ছোট মালবাহী গাড়ি রেখে হেঁটে এসে অস্ত্র দেখিয়ে লুঠপাট চালায় ডাকাতরা। কাজ শেষে চম্পট দেয় ওই গাড়িতেই। দুটি ঘটনাতেই দুষ্কৃতীরা একইভাবে কথা বলছিল।

হরিদেবপুরের ঘটনায় কিছু সূত্র পেলেও তেমন এগোতে পারেননি তদন্তকারীরা। পরে সোদপুরের সঙ্গে এই ডাকাতির মিল পাওয়ায় তারা কথা বলেন ব্যারাকপুর পুলিশের সঙ্গে।

ব্যারাকপুর পুলিশ প্রথমে গ্রেফতার করে নিউ ব্যারাকপুরের বাসিন্দা লীলা কীর্তনিয়া নামে এক মহিলাকে। তার বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় বেশ কিছু গয়না। জেরায় লীলা এই ঘটনায় তার ভাই গোলকের জড়িত থাকার কথা জানায়।

গোলকের সঙ্গে বারাসতের বাসিন্দা গোপাল নামে একজন ছিল বলে জানতে পারে পুলিশ। তবে ওই দুজনকে ধরতে না পারলেও পুলিশ গ্রেফতার করে লীলার পরিচিত অনিমেষ মণ্ডল নামে এক ব্যক্তিকে। লীলা ও অনিমেষকে জেরা করে ধরা হয় অতীশ, দেব ও টুটুন নামে তিনজনকে।

জেরায় পুলিশ জানতে পারে, দুটি ডাকাতিতেই জড়িত ছিল একই ‘বাংলাদেশী’ ডাকাত দল। গ্রেফতারকৃতরা ‘বাংলাদেশী’ ডাকাতদের আশ্রয় দেয়া থেকে শুরু করে সব রকম সাহায্য করত তারা। ওই ডাকাতদের বেআইনিভাবে পারাপার করানোর দায়িত্বও ছিল তাদের। এমনকি ডাকাতির সময়ে গাড়ি দিয়ে সাহায্যও করত তারা।

পুলিশ জানায়, ‘বাংলাদেশী’ ডাকাতরা প্রথমে এসে ডাকাতির এলাকা রেকি করে যেত। দু-এক দিনে কাজ হাসিল করে তাদের সঙ্গে যুক্ত এ শহরের দুষ্কৃতীদের লুঠের ভাগ দিয়ে ফিরে যেত দেশে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X