শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৬:২৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, September 6, 2017 8:05 am
A- A A+ Print

ভারতে হিন্দুত্ববাদ-বিরোধী নারী সাংবাদিককে গুলি করে হত্যা

249524_178

ভারতের এক সিনিয়র সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশকে মঙ্গলবার রাতে ব্যাঙ্গালোরে তার বাড়ির সামনেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। গৌরী লঙ্কেশ ঘোষিতভাবেই হিন্দু দক্ষিণপন্থীদের সমালোচক ছিলেন তার লেখার মাধ্যমে। ব্যাঙ্গালোরের পুলিশ কমিশনার সুনীল কুমার বিবিসিকে জানিয়েছেন, "মঙ্গলবার রাতে যখন তিনি বাড়ি ফিরছিলেন, তখন বাড়ির ঠিক সামনেই গুলি চালানো হয়। ঠিক কী কারণে এই হামলা হয়েছে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না।" এক পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, "গৌরী যখন বাড়ির দরজা খুলছিলেন, ঠিক সেই সময়েই বুকে সরাসরি দুটো আর মাথায় একটা গুলি করা হয়।" চল্লিশ বছর আগে তার বাবা যে 'লঙ্কেশ পত্রিকে' শুরু করেছিলেন, মিজ লঙ্কেশ সেটির সম্পাদক ছিলেন। গৌরী লঙ্কেশ তার পত্রিকার মাধ্যমে 'কমিউনাল হারমনি ফোরাম' নামে একটি গোষ্ঠীকে ক্রমাগত উৎসাহ দিয়ে গেছেন, যেখানে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সপক্ষে এবং দক্ষিণপন্থী হিন্দুত্ববাদের বিপক্ষে মতামত প্রকাশ করা হয়। তাঁর পত্রিকায় ২০০৮ সালে ছাপা কয়েকটি লেখার জন্য মানহানির মামলা করেছিলেন বিজেপি-র সংসদ সদস্য প্রহ্লাদ যোশী। সেই মামলায় তিনি দোষী সাব্যস্ত হন ও ছয় মাসের জেল হয়। সম্প্রতি তিনি জামিনে মুক্তি পেয়েছিলেন। তবে তার হত্যার খবর ছড়িয়ে পরলে বিজেপিসহ বিভিন্ন দলের নেতার নিন্দা প্রকাশ করেন। "গৌরী লঙ্কেশের হত্যার খবরটা সাংঘাতিক। সাংবাদিকদের ওপরে যে কোন ধরণের হামলার নিন্দা জানাচ্ছি,'' ভারতের নবনিযুক্ত ক্রীড়া মন্ত্রী রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোর টুইট করে বলেন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গৌরী লঙ্কেশের হত্যায় দুঃখ প্রকাশ করে টুইট করেন। '' খুবই দুর্ভাগ্যজনক। খুবই ভীতিকর। আমরা বিচার চাই,'' মিজ বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর টুইটে। মিজ লঙ্কেশের হত্যার সঙ্গে তুলনা করা হচ্ছে আরো দুই যুক্তিবাদী ও হিন্দুত্ববাদ-বিরোধী লেখক এম এম কালবুর্গি ও ডঃ পানসারির হত্যার ঘটনার সঙ্গে। লঙ্কেশের মতাদর্শের সঙ্গে ওই দুই যুক্তিবাদীর মতামতের সম্পূর্ণ মিল ছিল। এই সিনিয়র সাংবাদিকের হত্যার পরে সামাজিক মাধ্যমে মতামত জানাতে শুরু করেছেন বিশিষ্টজনেরা। কবি জাভেদ আখতার লিখেছেন, "দাভোলকর, পানসারে, কালবুর্গি, এবং এখন গৌরী লঙ্কেশ। যদি পর পর একই ধরণের মানুষ নিহত হতে থাকেন, তাহলে হত্যাকারীরা কারা?" অভিনেত্রী রেণুকা সাহানে টুইট করেছেন, "আরেকজন যুক্তিবাদী কণ্ঠ রোধ করে দেওয়া হল, আততায়ীদের চিহ্নিত করা যায়নি। গৌরী লঙ্কেশ, দাভোলকর, কালবুর্গি, পানসারে - কারা মারল এদের সবাইকে?" কর্নাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা বি এস ইয়েদুরাপ্পা মিজ লঙ্কেশকে হত্যার ঘটনায় প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে বলেছেন, এই হত্যা 'মেনে নেওয়া যায় না'। '' নাগরিক সমাজের মাথা হেঁট হয়ে যাচ্ছে এটা দেখে যে একজন নারীকে এইভাবে হত্যা করা হল। আমি রাজ্য সরকারের কাছে আর্জি জানাচ্ছি যাতে হত্যাকারীদের খুঁজে বের করে গ্রেপ্তার করতে কোনও চেষ্টার ত্রুটি না রাখা হয়,'' তিনি বলেন।

Comments

Comments!

 ভারতে হিন্দুত্ববাদ-বিরোধী নারী সাংবাদিককে গুলি করে হত্যাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ভারতে হিন্দুত্ববাদ-বিরোধী নারী সাংবাদিককে গুলি করে হত্যা

Wednesday, September 6, 2017 8:05 am
249524_178

ভারতের এক সিনিয়র সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশকে মঙ্গলবার রাতে ব্যাঙ্গালোরে তার বাড়ির সামনেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।
গৌরী লঙ্কেশ ঘোষিতভাবেই হিন্দু দক্ষিণপন্থীদের সমালোচক ছিলেন তার লেখার মাধ্যমে।
ব্যাঙ্গালোরের পুলিশ কমিশনার সুনীল কুমার বিবিসিকে জানিয়েছেন, “মঙ্গলবার রাতে যখন তিনি বাড়ি ফিরছিলেন, তখন বাড়ির ঠিক সামনেই গুলি চালানো হয়। ঠিক কী কারণে এই হামলা হয়েছে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না।”
এক পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, “গৌরী যখন বাড়ির দরজা খুলছিলেন, ঠিক সেই সময়েই বুকে সরাসরি দুটো আর মাথায় একটা গুলি করা হয়।”
চল্লিশ বছর আগে তার বাবা যে ‘লঙ্কেশ পত্রিকে’ শুরু করেছিলেন, মিজ লঙ্কেশ সেটির সম্পাদক ছিলেন।
গৌরী লঙ্কেশ তার পত্রিকার মাধ্যমে ‘কমিউনাল হারমনি ফোরাম’ নামে একটি গোষ্ঠীকে ক্রমাগত উৎসাহ দিয়ে গেছেন, যেখানে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সপক্ষে এবং দক্ষিণপন্থী হিন্দুত্ববাদের বিপক্ষে মতামত প্রকাশ করা হয়।
তাঁর পত্রিকায় ২০০৮ সালে ছাপা কয়েকটি লেখার জন্য মানহানির মামলা করেছিলেন বিজেপি-র সংসদ সদস্য প্রহ্লাদ যোশী।
সেই মামলায় তিনি দোষী সাব্যস্ত হন ও ছয় মাসের জেল হয়। সম্প্রতি তিনি জামিনে মুক্তি পেয়েছিলেন।
তবে তার হত্যার খবর ছড়িয়ে পরলে বিজেপিসহ বিভিন্ন দলের নেতার নিন্দা প্রকাশ করেন।
“গৌরী লঙ্কেশের হত্যার খবরটা সাংঘাতিক। সাংবাদিকদের ওপরে যে কোন ধরণের হামলার নিন্দা জানাচ্ছি,” ভারতের নবনিযুক্ত ক্রীড়া মন্ত্রী রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোর টুইট করে বলেন।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গৌরী লঙ্কেশের হত্যায় দুঃখ প্রকাশ করে টুইট করেন।
” খুবই দুর্ভাগ্যজনক। খুবই ভীতিকর। আমরা বিচার চাই,” মিজ বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর টুইটে।
মিজ লঙ্কেশের হত্যার সঙ্গে তুলনা করা হচ্ছে আরো দুই যুক্তিবাদী ও হিন্দুত্ববাদ-বিরোধী লেখক এম এম কালবুর্গি ও ডঃ পানসারির হত্যার ঘটনার সঙ্গে।
লঙ্কেশের মতাদর্শের সঙ্গে ওই দুই যুক্তিবাদীর মতামতের সম্পূর্ণ মিল ছিল।
এই সিনিয়র সাংবাদিকের হত্যার পরে সামাজিক মাধ্যমে মতামত জানাতে শুরু করেছেন বিশিষ্টজনেরা।
কবি জাভেদ আখতার লিখেছেন, “দাভোলকর, পানসারে, কালবুর্গি, এবং এখন গৌরী লঙ্কেশ। যদি পর পর একই ধরণের মানুষ নিহত হতে থাকেন, তাহলে হত্যাকারীরা কারা?”
অভিনেত্রী রেণুকা সাহানে টুইট করেছেন, “আরেকজন যুক্তিবাদী কণ্ঠ রোধ করে দেওয়া হল, আততায়ীদের চিহ্নিত করা যায়নি। গৌরী লঙ্কেশ, দাভোলকর, কালবুর্গি, পানসারে – কারা মারল এদের সবাইকে?”
কর্নাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা বি এস ইয়েদুরাপ্পা মিজ লঙ্কেশকে হত্যার ঘটনায় প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে বলেছেন, এই হত্যা ‘মেনে নেওয়া যায় না’।
” নাগরিক সমাজের মাথা হেঁট হয়ে যাচ্ছে এটা দেখে যে একজন নারীকে এইভাবে হত্যা করা হল। আমি রাজ্য সরকারের কাছে আর্জি জানাচ্ছি যাতে হত্যাকারীদের খুঁজে বের করে গ্রেপ্তার করতে কোনও চেষ্টার ত্রুটি না রাখা হয়,” তিনি বলেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X