শনিবার, ২৭শে মে, ২০১৭ ইং, ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৯:৪৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, March 9, 2017 6:56 am
A- A A+ Print

ভুল শোধরাতে চিঠি দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক : খেলাপির তথ্য গোপন করেছে অগ্রণী ব্যাংক

5

খেলাপি ঋণের তথ্য গোপন করেছে রাষ্ট্রমালিকানাধীন অগ্রণী ব্যাংক। এ প্রক্রিয়ায় আর্থিক অবস্থা ভালো দেখানোর চেষ্টা করেছে ব্যাংকটি। ফলে প্রয়োজনের তুলনায় কম সঞ্চিতি সংরক্ষণ (প্রভিশন) করে ব্যাংকটি মুনাফাও দেখিয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে এসব অনিয়ম বেরিয়ে আসার পর নতুন করে খেলাপি ঋণের হিসাব করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সাল শেষে অগ্রণী ব্যাংকের খেলাপি ঋণ দাঁড়ায় ৫ হাজার ৮৭৭ কোটি টাকা, যা ব্যাংকটির বিতরণ করা ঋণের ২৫ দশমিক ৪৪ শতাংশ। গত বছর শেষে ব্যাংকটি নিট মুনাফা দেখিয়েছে ৬০ কোটি টাকা। অগ্রণী ব্যাংকে পাঠানো চিঠিতে বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, বিধি মোতাবেক প্রতিটি ঋণের ক্ষেত্রে বস্তুগত মাপকাঠি ও গুণগত মান উভয় ভিত্তিতে প্রাথমিক শ্রেণিমান নির্ধারণ করার নিয়ম ছিল। কিন্তু ব্যাংকটি এ নিয়ম না মেনে আর্থিক বিবরণী তৈরি করেছে। ফলে প্রকৃত খেলাপি ঋণ বিবরণীতে উঠে আসেনি বলে বাংলাদেশ ব্যাংক জানিয়েছে। এ ছাড়া পুনঃ তফসিল করার ক্ষেত্রেও নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়েছে। অনেক ঋণের ক্ষেত্রে ডাউন পেমেন্ট পরিশোধ হয়নি, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনাপত্তি মেলেনি ও প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য ঋণ নিয়মিত না করারও নজির রয়েছে মিলেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলেছে, মেয়াদি ঋণের ক্ষেত্রে আদায়যোগ্য প্রথম ত্রৈমাসিক কিস্তি আদায় না হওয়ার পরও তা হিসাবে দেখানো হয়নি। অগ্রণী ব্যাংকের কয়েকটি শাখায় এসব অনিয়ম পাওয়ায় ব্যাংকটির মোট ৯২৫টি শাখায়ও নানা অনিয়ম ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। অগ্রণী ব্যাংকের ২০১৬ সালের আর্থিক হিসাব পর্যালোচনা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সেখানে ২০১৬ সালে ব্যাংকটির দুই হাজার সাত কোটি টাকা সুদ আয় দেখানো হয়েছে। একই সময়ে আমানতের সুদ বাবদ ব্যয় দেখানো হয়েছে ২ হাজার ৩৩ কোটি টাকা। এর ফলে সব মিলিয়ে ব্যাংকটির পরিচালন মুনাফা দেখানো হয় ২ হাজার ১১১ কোটি টাকা। এর মধ্যে কর্মীদের পেছনে ব্যয় হয়েছে ১ হাজার ৬ কোটি। খেলাপি ঋণের জন্য সঞ্চিতি সংরক্ষণ করা হয়েছে ৭৩১ কোটি টাকা। অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামস-উল-ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে সভার পরই আমাদের আর্থিক হিসাব চূড়ান্ত হবে। কোনো বিষয়ে ভুল-বোঝাবুঝি হয়ে থাকলেও আশা করছি তা ঠিক হয়ে যাবে।

Comments

Comments!

 ভুল শোধরাতে চিঠি দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক : খেলাপির তথ্য গোপন করেছে অগ্রণী ব্যাংকAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ভুল শোধরাতে চিঠি দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক : খেলাপির তথ্য গোপন করেছে অগ্রণী ব্যাংক

Thursday, March 9, 2017 6:56 am
5

খেলাপি ঋণের তথ্য গোপন করেছে রাষ্ট্রমালিকানাধীন অগ্রণী ব্যাংক। এ প্রক্রিয়ায় আর্থিক অবস্থা ভালো দেখানোর চেষ্টা করেছে ব্যাংকটি। ফলে প্রয়োজনের তুলনায় কম সঞ্চিতি সংরক্ষণ (প্রভিশন) করে ব্যাংকটি মুনাফাও দেখিয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে এসব অনিয়ম বেরিয়ে আসার পর নতুন করে খেলাপি ঋণের হিসাব করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সাল শেষে অগ্রণী ব্যাংকের খেলাপি ঋণ দাঁড়ায় ৫ হাজার ৮৭৭ কোটি টাকা, যা ব্যাংকটির বিতরণ করা ঋণের ২৫ দশমিক ৪৪ শতাংশ। গত বছর শেষে ব্যাংকটি নিট মুনাফা দেখিয়েছে ৬০ কোটি টাকা।
অগ্রণী ব্যাংকে পাঠানো চিঠিতে বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, বিধি মোতাবেক প্রতিটি ঋণের ক্ষেত্রে বস্তুগত মাপকাঠি ও গুণগত মান উভয় ভিত্তিতে প্রাথমিক শ্রেণিমান নির্ধারণ করার নিয়ম ছিল। কিন্তু ব্যাংকটি এ নিয়ম না মেনে আর্থিক বিবরণী তৈরি করেছে। ফলে প্রকৃত খেলাপি ঋণ বিবরণীতে উঠে আসেনি বলে বাংলাদেশ ব্যাংক জানিয়েছে।
এ ছাড়া পুনঃ তফসিল করার ক্ষেত্রেও নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়েছে। অনেক ঋণের ক্ষেত্রে ডাউন পেমেন্ট পরিশোধ হয়নি, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনাপত্তি মেলেনি ও প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য ঋণ নিয়মিত না করারও নজির রয়েছে মিলেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে।
কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলেছে, মেয়াদি ঋণের ক্ষেত্রে আদায়যোগ্য প্রথম ত্রৈমাসিক কিস্তি আদায় না হওয়ার পরও তা হিসাবে দেখানো হয়নি। অগ্রণী ব্যাংকের কয়েকটি শাখায় এসব অনিয়ম পাওয়ায় ব্যাংকটির মোট ৯২৫টি শাখায়ও নানা অনিয়ম ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
অগ্রণী ব্যাংকের ২০১৬ সালের আর্থিক হিসাব পর্যালোচনা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সেখানে ২০১৬ সালে ব্যাংকটির দুই হাজার সাত কোটি টাকা সুদ আয় দেখানো হয়েছে। একই সময়ে আমানতের সুদ বাবদ ব্যয় দেখানো হয়েছে ২ হাজার ৩৩ কোটি টাকা। এর ফলে সব মিলিয়ে ব্যাংকটির পরিচালন মুনাফা দেখানো হয় ২ হাজার ১১১ কোটি টাকা। এর মধ্যে কর্মীদের পেছনে ব্যয় হয়েছে ১ হাজার ৬ কোটি। খেলাপি ঋণের জন্য সঞ্চিতি সংরক্ষণ করা হয়েছে ৭৩১ কোটি টাকা।
অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামস-উল-ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে সভার পরই আমাদের আর্থিক হিসাব চূড়ান্ত হবে। কোনো বিষয়ে ভুল-বোঝাবুঝি হয়ে থাকলেও আশা করছি তা ঠিক হয়ে যাবে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X