সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:২৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, November 4, 2016 9:19 pm
A- A A+ Print

‘মনে হয় না আমরা এদেশে টিকতে পারবো’

158511_1

ঢাকা: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে প্রথম হামলার পর যখন সেখানে গিয়েছিলাম, তখন দেখা হয়েছিল এই পরিবারটির সঙ্গে। আক্রান্ত হয়েছিল তাদের বাড়ি। ভেঙ্গে তছনছ করা হয়েছিল বাড়ির সামনের পূজামন্ডপ। পরিবারটি অবস্থাপন্ন। এলাকার অনেকেই তাদের একনামে চেনে। এরকম একটি হামলার পর পরিবারের কর্তা ছিলেন মানসিকভাবে ভীষণ বিপর্যস্ত। তার আশংকা ছিল, আবারো হামলা হতে পারে। তার আশংকা সত্য হয়েছে। নাসিরনগরে আবারো হামলা হয়েছে কয়েকটি বাড়িতে। তবে দ্বিতীয় দফা হামলা থেকে রেহাই পেয়েছে এই পরিবারটি। এবার টেলিফোনে কথা হয় এই পরিবারের একটি ছেলের সঙ্গে। নিরাপত্তার কারণে ছেলেটি বার বার অনুরোধ করেছে তার বা তার পরিবারের পরিচয় যেন প্রকাশ করা না হয়। টেলিফোনে দেয়া সাক্ষাৎকারে ছেলেটি বর্ণনা করেছে নাসিরনগরের এখনকার পরিস্থিতি- ‘সকালে ঘুম থেকে উঠে শুনলাম গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় আগুন লাগছে। গিয়ে দেখলাম, সবার বাড়ি বাড়ি আগুন। প্রত্যেক বাড়িতেই অন্তত একটা ঘর আগুনে পুড়ছে। আগের ঘটনার পর সবাই একটু সজাগ ছিল। তাই আগুন বেশি ছড়াতে পারেনি। সবার বাড়িতে ভালোই ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অনেকের পুরো ঘরই পুড়ে গেছে। একটা পুরাতন মন্দির ছিল। ওই মন্দির পুরোটাই পুড়ে গেছে। আজকে আমাদের মানববন্ধন করার কথা ছিল। কিন্তু আমাদের এমপি গতকালই নিষেধ করেছে, মানববন্ধন করা যাবে না। তারপরও আমরা কয়েকজন মিলে মানববন্ধন করেছি। আমাদের এখানে এত নিরাপত্তার মাঝেও যদি এরকম ঘটনা ঘটে, তাহলে আমরা কি করবো? প্রশাসন তো আমাদের জন্য কিছুই করতেছে না। আমরা কোথায় যাবো? এখন তো মনে হচ্ছে আমরা এদেশের নাগরিক না। নাগরিক হলে অন্তত একটু নিরাপত্তা তো পেতাম। যখন নিরাপত্তা উঠে যাবে, তখন কি হবে? আমার তো মনে হয় না, আমরা এদেশে টিকতে পারবো। আমরা এখন দিশেহারা হয়ে পড়ছি। আমরা কোথায় যাবো? প্রশাসন যদি নিরাপত্তা দিত, তাহলে কালকে আটটা বাড়িতে আগুন লাগে না। মন্দির পুড়ে না। কারা কি করছে আমরা কিছুই বলতে পারছি না। সবগুলোই অজ্ঞাত। আমরা কাউকেই চিনি না। এখন ঘরেও তো থাকতে পারছি না। রাতের অন্ধকারে কখন এসে আগুন দেয়। আমরা তো বলতে পারছি না, আমরা বাঁচবো, নাকি মরবো।’ সূত্র: বিবিসি

Comments

Comments!

 ‘মনে হয় না আমরা এদেশে টিকতে পারবো’AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

‘মনে হয় না আমরা এদেশে টিকতে পারবো’

Friday, November 4, 2016 9:19 pm
158511_1

ঢাকা: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে প্রথম হামলার পর যখন সেখানে গিয়েছিলাম, তখন দেখা হয়েছিল এই পরিবারটির সঙ্গে। আক্রান্ত হয়েছিল তাদের বাড়ি। ভেঙ্গে তছনছ করা হয়েছিল বাড়ির সামনের পূজামন্ডপ।

পরিবারটি অবস্থাপন্ন। এলাকার অনেকেই তাদের একনামে চেনে। এরকম একটি হামলার পর পরিবারের কর্তা ছিলেন মানসিকভাবে ভীষণ বিপর্যস্ত। তার আশংকা ছিল, আবারো হামলা হতে পারে। তার আশংকা সত্য হয়েছে।

নাসিরনগরে আবারো হামলা হয়েছে কয়েকটি বাড়িতে। তবে দ্বিতীয় দফা হামলা থেকে রেহাই পেয়েছে এই পরিবারটি।

এবার টেলিফোনে কথা হয় এই পরিবারের একটি ছেলের সঙ্গে। নিরাপত্তার কারণে ছেলেটি বার বার অনুরোধ করেছে তার বা তার পরিবারের পরিচয় যেন প্রকাশ করা না হয়। টেলিফোনে দেয়া সাক্ষাৎকারে ছেলেটি বর্ণনা করেছে নাসিরনগরের এখনকার পরিস্থিতি-

‘সকালে ঘুম থেকে উঠে শুনলাম গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় আগুন লাগছে।

গিয়ে দেখলাম, সবার বাড়ি বাড়ি আগুন। প্রত্যেক বাড়িতেই অন্তত একটা ঘর আগুনে পুড়ছে। আগের ঘটনার পর সবাই একটু সজাগ ছিল। তাই আগুন বেশি ছড়াতে পারেনি।

সবার বাড়িতে ভালোই ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অনেকের পুরো ঘরই পুড়ে গেছে। একটা পুরাতন মন্দির ছিল। ওই মন্দির পুরোটাই পুড়ে গেছে।

আজকে আমাদের মানববন্ধন করার কথা ছিল। কিন্তু আমাদের এমপি গতকালই নিষেধ করেছে, মানববন্ধন করা যাবে না। তারপরও আমরা কয়েকজন মিলে মানববন্ধন করেছি।

আমাদের এখানে এত নিরাপত্তার মাঝেও যদি এরকম ঘটনা ঘটে, তাহলে আমরা কি করবো? প্রশাসন তো আমাদের জন্য কিছুই করতেছে না।

আমরা কোথায় যাবো? এখন তো মনে হচ্ছে আমরা এদেশের নাগরিক না। নাগরিক হলে অন্তত একটু নিরাপত্তা তো পেতাম।

যখন নিরাপত্তা উঠে যাবে, তখন কি হবে? আমার তো মনে হয় না, আমরা এদেশে টিকতে পারবো। আমরা এখন দিশেহারা হয়ে পড়ছি। আমরা কোথায় যাবো?

প্রশাসন যদি নিরাপত্তা দিত, তাহলে কালকে আটটা বাড়িতে আগুন লাগে না। মন্দির পুড়ে না।

কারা কি করছে আমরা কিছুই বলতে পারছি না। সবগুলোই অজ্ঞাত। আমরা কাউকেই চিনি না।

এখন ঘরেও তো থাকতে পারছি না। রাতের অন্ধকারে কখন এসে আগুন দেয়। আমরা তো বলতে পারছি না, আমরা বাঁচবো, নাকি মরবো।’

সূত্র: বিবিসি

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X