শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:৩৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, January 31, 2017 6:40 pm
A- A A+ Print

‘মাঝে মাঝে মনে হয় ব্যবসা ছেড়ে দিই’

৩০

তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেছেন, ‘মাঝে মাঝে মনে হয়, ব্যবসা ছেড়ে দিই। কিন্তু যখন অসহায় শ্রমিক ভাইবোনদের চেহারা মুখের সামনে ভেসে ওঠে, তখন আবার উদ্যমী হয়ে ব্যবসায় ঝাঁপিয়ে পড়ি।’ আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর বিজিএমইএর কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন সংগঠনটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান নজিবুর রহমানের একটি বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিজিএমইএর সভাপতি এ মন্তব্য করেন। গতকাল সোমবার একটি জাতীয় দৈনিকের প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী, অর্থ মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় এনবিআর চেয়ারম্যান বলেছেন, একজন কারখানার মালিক ২৪৭ কনটেইনার পোশাক রপ্তানি করেছেন, কিন্তু এর বিপরীতে একটি ডলারও দেশে আসেনি। তাহলে পোশাক রপ্তানি থেকে আয় করা বৈদেশিক মুদ্রা গেল কোথায়? ‘পোশাকশিল্পের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে’ উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহসভাপতি এস এম মান্নান ও মোহাম্মদ নাছির, পরিচালক মিরান আলী, মুনির হোসেন, শহীদুল হক প্রমুখ। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিজিএমইএর সভাপতি বলেন, ‘এনবিআর চেয়ারম্যান বলেছেন যে পোশাকশিল্প মালিকেরা পণ্য রপ্তানি করে আয় দেশে না এনে বিদেশে রাখছেন। সরকারের উচ্চপর্যায়ের একজন ব্যক্তি যখন গুরুত্বপূর্ণ শিল্প নিয়ে এ রকম ঢালাও মন্তব্য করেন, সেটি আমাদের পীড়া দেয়। তাঁর এই বক্তব্য আমাদের আহত করেছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের প্রশ্ন হচ্ছে, যদি কোনো ব্যক্তি অসৎ কাজ করেন, তাহলে কাস্টমস ও এনবিআর সুষ্ঠু তদন্ত করে সেই ব্যক্তিকে আইনের আওতায় আনছে না কেন? কেন তাঁর মুখোশ উন্মোচন করছে না?’ তৈরি পোশাক আমদানি ও রপ্তানির তথ্য কাস্টমস ও বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আছে জানিয়ে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, তথ্যের সমন্বয় করে অনিয়ম ধরা সম্ভব। ফলে কাস্টমস ও বাংলাদেশ ব্যাংক চাইলে সুষ্ঠু তদন্ত করে অসৎ ব্যবসায়ীকে আইনের আওতায় আনতে পারে। সে ক্ষেত্রে বিজিএমইএ কখনই তাঁর ব্যাপারে কোনো সুপারিশ করবে না। এ সময় এনবিআর চেয়ারম্যানের মন্তব্যের প্রতি ইঙ্গিত করে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘এটি অব্যাহত থাকলে আমাদের দ্বিতীয় প্রজন্ম এ ব্যবসায় আসবে না—এটি হলফ করেই বলা যায়।’ সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন বাজারে পোশাক রপ্তানি কমে যাওয়ার চিত্র তুলে ধরে সরকারের কাছে বিভিন্ন দাবিদাওয়া তুলে ধরেন বিজিএমইএর সভাপতি। দাবির মধ্যে রয়েছে পোশাক খাতের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঢাকা ও চট্টগ্রামের কাছাকাছি দুটি শিল্প এলাকা, ক্ষুদ্র ও মাঝারি কারখানা স্থানান্তর ও সংস্কারের জন্য বিশেষ পুনঃ অর্থায়ন তহবিল গঠন, ইউরো ও পাউন্ডের দরপতন মোকাবিলায় ব্যাংক সুদের ওপর বিশেষ ভর্তুকি ইত্যাদি।

Comments

Comments!

 ‘মাঝে মাঝে মনে হয় ব্যবসা ছেড়ে দিই’AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

‘মাঝে মাঝে মনে হয় ব্যবসা ছেড়ে দিই’

Tuesday, January 31, 2017 6:40 pm
৩০

তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেছেন, ‘মাঝে মাঝে মনে হয়, ব্যবসা ছেড়ে দিই। কিন্তু যখন অসহায় শ্রমিক ভাইবোনদের চেহারা মুখের সামনে ভেসে ওঠে, তখন আবার উদ্যমী হয়ে ব্যবসায় ঝাঁপিয়ে পড়ি।’

আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর বিজিএমইএর কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন সংগঠনটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান নজিবুর রহমানের একটি বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিজিএমইএর সভাপতি এ মন্তব্য করেন। গতকাল সোমবার একটি জাতীয় দৈনিকের প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী, অর্থ মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় এনবিআর চেয়ারম্যান বলেছেন, একজন কারখানার মালিক ২৪৭ কনটেইনার পোশাক রপ্তানি করেছেন, কিন্তু এর বিপরীতে একটি ডলারও দেশে আসেনি। তাহলে পোশাক রপ্তানি থেকে আয় করা বৈদেশিক মুদ্রা গেল কোথায়?

‘পোশাকশিল্পের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে’ উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহসভাপতি এস এম মান্নান ও মোহাম্মদ নাছির, পরিচালক মিরান আলী, মুনির হোসেন, শহীদুল হক প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিজিএমইএর সভাপতি বলেন, ‘এনবিআর চেয়ারম্যান বলেছেন যে পোশাকশিল্প মালিকেরা পণ্য রপ্তানি করে আয় দেশে না এনে বিদেশে রাখছেন। সরকারের উচ্চপর্যায়ের একজন ব্যক্তি যখন গুরুত্বপূর্ণ শিল্প নিয়ে এ রকম ঢালাও মন্তব্য করেন, সেটি আমাদের পীড়া দেয়। তাঁর এই বক্তব্য আমাদের আহত করেছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের প্রশ্ন হচ্ছে, যদি কোনো ব্যক্তি অসৎ কাজ করেন, তাহলে কাস্টমস ও এনবিআর সুষ্ঠু তদন্ত করে সেই ব্যক্তিকে আইনের আওতায় আনছে না কেন? কেন তাঁর মুখোশ উন্মোচন করছে না?’

তৈরি পোশাক আমদানি ও রপ্তানির তথ্য কাস্টমস ও বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আছে জানিয়ে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, তথ্যের সমন্বয় করে অনিয়ম ধরা সম্ভব। ফলে কাস্টমস ও বাংলাদেশ ব্যাংক চাইলে সুষ্ঠু তদন্ত করে অসৎ ব্যবসায়ীকে আইনের আওতায় আনতে পারে। সে ক্ষেত্রে বিজিএমইএ কখনই তাঁর ব্যাপারে কোনো সুপারিশ করবে না।

এ সময় এনবিআর চেয়ারম্যানের মন্তব্যের প্রতি ইঙ্গিত করে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘এটি অব্যাহত থাকলে আমাদের দ্বিতীয় প্রজন্ম এ ব্যবসায় আসবে না—এটি হলফ করেই বলা যায়।’

সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন বাজারে পোশাক রপ্তানি কমে যাওয়ার চিত্র তুলে ধরে সরকারের কাছে বিভিন্ন দাবিদাওয়া তুলে ধরেন বিজিএমইএর সভাপতি। দাবির মধ্যে রয়েছে পোশাক খাতের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঢাকা ও চট্টগ্রামের কাছাকাছি দুটি শিল্প এলাকা, ক্ষুদ্র ও মাঝারি কারখানা স্থানান্তর ও সংস্কারের জন্য বিশেষ পুনঃ অর্থায়ন তহবিল গঠন, ইউরো ও পাউন্ডের দরপতন মোকাবিলায় ব্যাংক সুদের ওপর বিশেষ ভর্তুকি ইত্যাদি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X