সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৭:৫৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, December 1, 2016 9:06 am
A- A A+ Print

মাঝ আকাশে মমতা ব্যানার্জিকে হত্যার ষড়যন্ত্র!

%e0%a7%a8%e0%a7%ac

জ্বালানি দ্রুত ফুরিয়ে আসা সত্ত্বেও দমদম বিমানবন্দরের রানওয়ে খালি না-থাকায়, আকাশে প্রায় আধঘণ্টা চক্কর কাটল পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির বিমান। আর এখানেই উঠছে 'ষড়যন্ত্র'-এর প্রশ্ন। কেন মুখ্যমন্ত্রীর এই বিমানটিকে আগে নামানোর ব্যবস্থা হলো না, কেনই-বা পর্যাপ্ত জ্বালানি বিমানে ছিল না, বিধাননগর কমিশনারেটের তরফে তা তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বিধাননগর থানাকে। বিমান মন্ত্রণালয়ের কাছে এ নিয়ে অভিযোগও জানাতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গের স্বরাষ্ট্র দফতর। কথা বলা হচ্ছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও। ​ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ডিরেক্টর জেনারেল অফ সিভিল অ্যাভিয়েশন। জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় ইন্ডিগোর একটি বিমানে বিহার রাজ্যের পাটনা থেকে কলকাতায় ফিরছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। ডিমনিটাইজেশনের বিরুদ্ধে প্রচারে বিহারে গিয়েছিলেন মমতা। সেখান প্রচার সেরে ইন্ডিগোর ফ্লাইট ধরতে পাটনা বিমানবন্দরে চলে আসেন মুখ্যমন্ত্রী। সূত্রের খবর, লখনউ থেকেই ইন্ডিগোর এই বিমানটি এক ঘণ্টা দেরিতে ছাড়ে। ফলে, সন্ধ্যা ৬-২৫-এর জায়গায় বিমানটি পটনায় পৌঁছোয় ৭-৩৫ মিনিটে। ৮-১৫-য় এই বিমানটির কলকাতায় নামার কথা ছিল। তার আগেই পাইলট জানতে পারেন আরো ৭টি বিমান অপেক্ষায় রয়েছে। অর্থাত্‍‌ আট নম্বরে রয়েছে বিমানটি। ফলে, পাইলট জানিয়ে দেন আরো ১৫-২০ মিনিট বেশি সময় লাগবে। এর মধ্যেই ৮-১৩ নাগাদ পাইলট এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল-কে জানান জ্বালানি ফুরিয়ে আসছে। তার পরও কেন এই বিমানটিকে আগে নামার সুযোগ করে দেয়া হলো না, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। কারণ, এই বিমানটিকে অবতরণ করতে আরো আধঘণ্টা সময় লেগে যায়। ৮-৪৫ নাগাদ বিমানটি দমদম বিমানবন্দরে অবতরণ করে। তার আগেই রানওয়েতে চলে যায় পুলিশ, দমকল, উদ্ধারকারীদের একটি দলসহ মেডিক্যালের একটি টিম। শেষ পর্যন্ত নিরাপদেই বিমানটি ল্যান্ডিং করে। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ অবশ্য জানিয়েছে, জ্বালানি ফুরিয়ে আসার কারণে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতেই মুখ্যমন্ত্রীর বিমানটিকে নামতে দেয়া হয়েছে। যদিও শাসকদলের নেতারা এর মধ্যে ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছেন।

Comments

Comments!

 মাঝ আকাশে মমতা ব্যানার্জিকে হত্যার ষড়যন্ত্র!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

মাঝ আকাশে মমতা ব্যানার্জিকে হত্যার ষড়যন্ত্র!

Thursday, December 1, 2016 9:06 am
%e0%a7%a8%e0%a7%ac

জ্বালানি দ্রুত ফুরিয়ে আসা সত্ত্বেও দমদম বিমানবন্দরের রানওয়ে খালি না-থাকায়, আকাশে প্রায় আধঘণ্টা চক্কর কাটল পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির বিমান। আর এখানেই উঠছে ‘ষড়যন্ত্র’-এর প্রশ্ন।

কেন মুখ্যমন্ত্রীর এই বিমানটিকে আগে নামানোর ব্যবস্থা হলো না, কেনই-বা পর্যাপ্ত জ্বালানি বিমানে ছিল না, বিধাননগর কমিশনারেটের তরফে তা তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বিধাননগর থানাকে। বিমান মন্ত্রণালয়ের কাছে এ নিয়ে অভিযোগও জানাতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গের স্বরাষ্ট্র দফতর। কথা বলা হচ্ছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও। ​ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ডিরেক্টর জেনারেল অফ সিভিল অ্যাভিয়েশন।

জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় ইন্ডিগোর একটি বিমানে বিহার রাজ্যের পাটনা থেকে কলকাতায় ফিরছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। ডিমনিটাইজেশনের বিরুদ্ধে প্রচারে বিহারে গিয়েছিলেন মমতা। সেখান প্রচার সেরে ইন্ডিগোর ফ্লাইট ধরতে পাটনা বিমানবন্দরে চলে আসেন মুখ্যমন্ত্রী।

সূত্রের খবর, লখনউ থেকেই ইন্ডিগোর এই বিমানটি এক ঘণ্টা দেরিতে ছাড়ে। ফলে, সন্ধ্যা ৬-২৫-এর জায়গায় বিমানটি পটনায় পৌঁছোয় ৭-৩৫ মিনিটে। ৮-১৫-য় এই বিমানটির কলকাতায় নামার কথা ছিল। তার আগেই পাইলট জানতে পারেন আরো ৭টি বিমান অপেক্ষায় রয়েছে। অর্থাত্‍‌ আট নম্বরে রয়েছে বিমানটি। ফলে, পাইলট জানিয়ে দেন আরো ১৫-২০ মিনিট বেশি সময় লাগবে। এর মধ্যেই ৮-১৩ নাগাদ পাইলট এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল-কে জানান জ্বালানি ফুরিয়ে আসছে। তার পরও কেন এই বিমানটিকে আগে নামার সুযোগ করে দেয়া হলো না, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। কারণ, এই বিমানটিকে অবতরণ করতে আরো আধঘণ্টা সময় লেগে যায়। ৮-৪৫ নাগাদ বিমানটি দমদম বিমানবন্দরে অবতরণ করে। তার আগেই রানওয়েতে চলে যায় পুলিশ, দমকল, উদ্ধারকারীদের একটি দলসহ মেডিক্যালের একটি টিম। শেষ পর্যন্ত নিরাপদেই বিমানটি ল্যান্ডিং করে।

বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ অবশ্য জানিয়েছে, জ্বালানি ফুরিয়ে আসার কারণে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতেই মুখ্যমন্ত্রীর বিমানটিকে নামতে দেয়া হয়েছে।
যদিও শাসকদলের নেতারা এর মধ্যে ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X