বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৭:০৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, November 8, 2016 9:57 pm
A- A A+ Print

‘মাশরাফি ভাইকে হারানো বেশি আনন্দের’

‘আসো ইকবাল’—সংবাদ সম্মেলন কক্ষে আগে থেকেই অপেক্ষারত তামিম ইকবালকে চেয়ারটা ছেড়ে ডায়াস থেকে হাসিমুখে নেমে এলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৫ বছর পূর্তিতে মাশরাফিকে অভিনন্দন জানিয়ে চেয়ারে বসলেন তামিম। গত বিপিএলে চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত ব্যাটিং করে তামিমের মুখে হাসি কেড়ে নিয়েছিলেন মাশরাফি। এবার বিপরীত ছবি। দারুণ এক হাফ সেঞ্চুরিতে কুমিল্লার বিপক্ষে চিটাগংয়ের জয়ের ভিত্তি গড়ে দিয়েছেন তামিমই। বিজয়ীর আসনটা তাই প্রতিপক্ষ অধিনায়কের কাছে ছেড়ে দিচ্ছেন মাশরাফি। এমনিতে দুজনের ব্যক্তিগত সম্পর্কটা চমৎকার—অনেকটা বড় ভাই-ছোট ভাইয়ের মতো। কিন্তু মাঠে নামলে একে অন্যকে হারানোর উপভোগ্য এক প্রতিদ্বন্দ্বিতা তৈরি হয় তাঁদের মধ্যে। এই প্রতিদ্বন্দ্বিতা নিখাদ আনন্দের। এই যেমন আজ মাশরাফিকে হারিয়ে তামিম ভীষণ খুশি, ‘কুমিল্লাকে হারানো যতটা না, মাশরাফি ভাইকে হারানো তার চেয়ে বেশি আনন্দের। আপনারা জানেন, আমার আর ওনার সম্পর্ক অনেক ভালো। আজ রাতটা অন্তত ভালো কাটবে (হেসে)!’ মাঠেও দুজনের খণ্ড লড়াইয়েও তামিম এগিয়ে। মাশরাফির দুটি ওভার খেলেছেন বাঁহাতি ওপেনার। দুই ওভারের শুরুতে কুমিল্লা অধিনায়ককে ডাউন দ্য উইকেটে বাউন্ডারি মেরে স্বাগত জানিয়েছেন চিটাগং অধিনায়ক। মাশরাফির জন্য এই বিশেষ দাওয়াই যে আগেই ঠিক করে রেখেছিলেন, সেটি বললেন তামিম, ‘মাশরাফি ভাইয়ের জন্য আমার একটা নির্দিষ্ট পরিকল্পনা আছে। তাঁরও আমার জন্য একটা পরিকল্পনা আছে। তিনি এমন বোলার, যদি তাঁকে সুযোগ দেন তবে ভয়ংকর হয়ে উঠবেন। আর যদি আপনি শুরুতেই ভালো অবস্থানে চলে যান তবে তিনি একটু ব্যাকফুটে চলে আসবেন। আমি হয়তো ওই শট মারতে গিয়ে আউট হয়ে যেতে পারতাম। তবে তাঁকে সুযোগ দিতে দিইনি।’ গতবার কুমিল্লার বিপক্ষে দুটি ম্যাচেই হেরেছে তামিমের চিটাগং। এবার যে কুমিল্লাকে জয়ের সুযোগ দিতে চান না তাঁরা, প্রথম ম্যাচেই দেখা গেল। পরের সাক্ষাতে তামিমকে রুখতে মাশরাফি কী ওষুধ নিয়ে আসেন, সেটিই দেখার।

Comments

Comments!

 ‘মাশরাফি ভাইকে হারানো বেশি আনন্দের’AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

‘মাশরাফি ভাইকে হারানো বেশি আনন্দের’

Tuesday, November 8, 2016 9:57 pm

‘আসো ইকবাল’—সংবাদ সম্মেলন কক্ষে আগে থেকেই অপেক্ষারত তামিম ইকবালকে চেয়ারটা ছেড়ে ডায়াস থেকে হাসিমুখে নেমে এলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৫ বছর পূর্তিতে মাশরাফিকে অভিনন্দন জানিয়ে চেয়ারে বসলেন তামিম।

গত বিপিএলে চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত ব্যাটিং করে তামিমের মুখে হাসি কেড়ে নিয়েছিলেন মাশরাফি। এবার বিপরীত ছবি। দারুণ এক হাফ সেঞ্চুরিতে কুমিল্লার বিপক্ষে চিটাগংয়ের জয়ের ভিত্তি গড়ে দিয়েছেন তামিমই। বিজয়ীর আসনটা তাই প্রতিপক্ষ অধিনায়কের কাছে ছেড়ে দিচ্ছেন মাশরাফি।
এমনিতে দুজনের ব্যক্তিগত সম্পর্কটা চমৎকার—অনেকটা বড় ভাই-ছোট ভাইয়ের মতো। কিন্তু মাঠে নামলে একে অন্যকে হারানোর উপভোগ্য এক প্রতিদ্বন্দ্বিতা তৈরি হয় তাঁদের মধ্যে। এই প্রতিদ্বন্দ্বিতা নিখাদ আনন্দের। এই যেমন আজ মাশরাফিকে হারিয়ে তামিম ভীষণ খুশি, ‘কুমিল্লাকে হারানো যতটা না, মাশরাফি ভাইকে হারানো তার চেয়ে বেশি আনন্দের। আপনারা জানেন, আমার আর ওনার সম্পর্ক অনেক ভালো। আজ রাতটা অন্তত ভালো কাটবে (হেসে)!’
মাঠেও দুজনের খণ্ড লড়াইয়েও তামিম এগিয়ে। মাশরাফির দুটি ওভার খেলেছেন বাঁহাতি ওপেনার। দুই ওভারের শুরুতে কুমিল্লা অধিনায়ককে ডাউন দ্য উইকেটে বাউন্ডারি মেরে স্বাগত জানিয়েছেন চিটাগং অধিনায়ক। মাশরাফির জন্য এই বিশেষ দাওয়াই যে আগেই ঠিক করে রেখেছিলেন, সেটি বললেন তামিম, ‘মাশরাফি ভাইয়ের জন্য আমার একটা নির্দিষ্ট পরিকল্পনা আছে। তাঁরও আমার জন্য একটা পরিকল্পনা আছে। তিনি এমন বোলার, যদি তাঁকে সুযোগ দেন তবে ভয়ংকর হয়ে উঠবেন। আর যদি আপনি শুরুতেই ভালো অবস্থানে চলে যান তবে তিনি একটু ব্যাকফুটে চলে আসবেন। আমি হয়তো ওই শট মারতে গিয়ে আউট হয়ে যেতে পারতাম। তবে তাঁকে সুযোগ দিতে দিইনি।’
গতবার কুমিল্লার বিপক্ষে দুটি ম্যাচেই হেরেছে তামিমের চিটাগং। এবার যে কুমিল্লাকে জয়ের সুযোগ দিতে চান না তাঁরা, প্রথম ম্যাচেই দেখা গেল। পরের সাক্ষাতে তামিমকে রুখতে মাশরাফি কী ওষুধ নিয়ে আসেন, সেটিই দেখার।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X