শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৫:৫৭
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, November 27, 2016 4:39 pm
A- A A+ Print

মায়ানমারে গণহত্যার প্রতিবাদে স্মৃতিসৌধে শিক্ষার্থীদের নির্বাক অবস্থান

30

গণবিশ্ববিদ্যালয়: মায়ানমারের আরাকান রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের গণহত্যা, হামলা, নির্যাতন এবং দেশত্যাগে বাধ্য করার প্রতিবাদে মুখে কালো কাপড় বেঁধে  জাতীয় স্মৃতিসৌধের সামনে নির্বাক অবস্থান পালন করেন গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। রবিবার সকাল ১১টায় সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধের সামনে নির্বাক অবস্থানের মধ্যদিয়ে এই অমানবিক নিষ্ঠুরতা বন্ধে মায়ানমার সরকার এবং জাতিসংঘসহ বিশ্বের মোড়ল দেশগুলোর সুদৃষ্টি কামনা করেন তারা। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক মাহবুবুর রহমান,আজিজুর রহমানসহ বিভিন্ন বিভাগের প্রায় ২ শতাধিক শিক্ষার্থী। এ সময় তারা মায়ানমারের রাখাইন প্রদেশের মুসলিম অধিবাসী রোহিঙ্গাদের উপর সেনাবাহিনীসহ স্থানীয় বৌদ্ধ চরমপন্থীদের সাম্প্রদায়িক হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানান এবং দ্রুত এ অমানবিক নির্যাতন ও নিপীড়ন বন্ধের দাবি জানান। কর্মসূচি শেষে আইন বিভাগের শিক্ষক মাহবুবুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, ‘আমরা ধর্মের নয়, মানবিকতার দাবি থেকে এসেছি। অবিলম্বে রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধ করুন।’ তিনি আরো বলেন, ‘মায়ানমারের এই নৈতিকতার অবক্ষয় রোধে জাতিসংঘ ও বিশ্বের মোড়ল রাষ্ট্রগুলোর উচিত এর স্থায়ী সমাধানের চেষ্টা করা। কিন্তু তারা তা না করে প্রতিবেশি দেশগুলোকে চাপ দিচ্ছে শরণার্থী নেয়ার জন্য। যা কোন দীর্ঘস্থায়ী সমাধান হতে পারেনা।’ উল্লেখ্য অক্টোবরের প্রথম থেকেই অশান্ত মিয়ানমারের পরিস্থিতি। বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী রোহিঙ্গা মুসলিম-অধ্যুষিত রাখাইন রাজ্যে কয়েকটি পুলিশ ফাঁড়িতে সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগে অভিযানে নামে মায়ানমারের সেনাবাহিনী। জঙ্গি দমনের নামে সেনাদের চালানো অব্যাহত অভিযানে এরই মধ্যে সেখানকার বহু মুসলিম প্রাণ হারিয়েছেন। সেনাবাহিনীর আক্রমনে ঘরবাড়ি, সহায়-সম্বল হারিয়ে রোহিঙ্গারা খোলা আকাশের নিচে বাস করছেন। নৌপথে পার্শ্ববর্তী দেশ সমূহে আশ্রয়ের জন্য যাওয়ার চেষ্টা করলেও এখনো পর্যন্ত কোনো দেশই তাদের শরনার্থী হিসেবে আশ্রয় দিতে রাজি নয়। ফলে, নিরুপায় হয়ে মানবেতর জীবনযাপনে বাধ্য হচ্ছে তারা।
 

Comments

Comments!

 মায়ানমারে গণহত্যার প্রতিবাদে স্মৃতিসৌধে শিক্ষার্থীদের নির্বাক অবস্থানAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

মায়ানমারে গণহত্যার প্রতিবাদে স্মৃতিসৌধে শিক্ষার্থীদের নির্বাক অবস্থান

Sunday, November 27, 2016 4:39 pm
30

গণবিশ্ববিদ্যালয়: মায়ানমারের আরাকান রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের গণহত্যা, হামলা, নির্যাতন এবং দেশত্যাগে বাধ্য করার প্রতিবাদে মুখে কালো কাপড় বেঁধে  জাতীয় স্মৃতিসৌধের সামনে নির্বাক অবস্থান পালন করেন গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

রবিবার সকাল ১১টায় সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধের সামনে নির্বাক অবস্থানের মধ্যদিয়ে এই অমানবিক নিষ্ঠুরতা বন্ধে মায়ানমার সরকার এবং জাতিসংঘসহ বিশ্বের মোড়ল দেশগুলোর সুদৃষ্টি কামনা করেন তারা।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক মাহবুবুর রহমান,আজিজুর রহমানসহ বিভিন্ন বিভাগের প্রায় ২ শতাধিক শিক্ষার্থী। এ সময় তারা মায়ানমারের রাখাইন প্রদেশের মুসলিম অধিবাসী রোহিঙ্গাদের উপর সেনাবাহিনীসহ স্থানীয় বৌদ্ধ চরমপন্থীদের সাম্প্রদায়িক হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানান এবং দ্রুত এ অমানবিক নির্যাতন ও নিপীড়ন বন্ধের দাবি জানান।

কর্মসূচি শেষে আইন বিভাগের শিক্ষক মাহবুবুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, ‘আমরা ধর্মের নয়, মানবিকতার দাবি থেকে এসেছি। অবিলম্বে রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধ করুন।’

তিনি আরো বলেন, ‘মায়ানমারের এই নৈতিকতার অবক্ষয় রোধে জাতিসংঘ ও বিশ্বের মোড়ল রাষ্ট্রগুলোর উচিত এর স্থায়ী সমাধানের চেষ্টা করা। কিন্তু তারা তা না করে প্রতিবেশি দেশগুলোকে চাপ দিচ্ছে শরণার্থী নেয়ার জন্য। যা কোন দীর্ঘস্থায়ী সমাধান হতে পারেনা।’

উল্লেখ্য অক্টোবরের প্রথম থেকেই অশান্ত মিয়ানমারের পরিস্থিতি। বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী রোহিঙ্গা মুসলিম-অধ্যুষিত রাখাইন রাজ্যে কয়েকটি পুলিশ ফাঁড়িতে সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগে অভিযানে নামে মায়ানমারের সেনাবাহিনী। জঙ্গি দমনের নামে সেনাদের চালানো অব্যাহত অভিযানে এরই মধ্যে সেখানকার বহু মুসলিম প্রাণ হারিয়েছেন।

সেনাবাহিনীর আক্রমনে ঘরবাড়ি, সহায়-সম্বল হারিয়ে রোহিঙ্গারা খোলা আকাশের নিচে বাস করছেন। নৌপথে পার্শ্ববর্তী দেশ সমূহে আশ্রয়ের জন্য যাওয়ার চেষ্টা করলেও এখনো পর্যন্ত কোনো দেশই তাদের শরনার্থী হিসেবে আশ্রয় দিতে রাজি নয়। ফলে, নিরুপায় হয়ে মানবেতর জীবনযাপনে বাধ্য হচ্ছে তারা।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X