রবিবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং, ৭ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৯:১৭
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, April 10, 2017 11:53 am
A- A A+ Print

‘মা’ বলে ডেকে ঘনিষ্ঠতা, পরে বাসায় নিয়ে ধর্ষণ?

9

ইজিবাইকে হঠাৎ পরিচয়; এরপর ‘মা’ বলে ডেকে ঘনিষ্ঠতা তৈরি। কিছুদিন পর বাসায় নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ। এমন ঘটনার শিকার খুলনা নগরের এক কলেজছাত্রী এখন বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় আছেন।

অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম এনামুল হক ওরফে টিটো (৫৫)। তিনি খুলনা নগরের মৌলভীপাড়া এলাকার বাসিন্দা। ময়লাপোতা এলাকায় তাঁর ওষুধের একটি দোকান আছে।

ধর্ষণের অভিযোগে গত ১৫ মার্চ এনামুলের বিরুদ্ধে সোনাডাঙ্গা থানায় মামলা করেন নগরের একটি কলেজে স্নাতক (সম্মান) দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া মেয়েটি। পুলিশ এনামুলকে গ্রেপ্তারও করেছে। তবে প্রভাবশালী হওয়ায় তিনি দ্রুত ছাড়া পেতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন ধর্ষণের শিকার ছাত্রী।

মামলার এজাহার ও কলেজছাত্রীর ভাষ্যমতে, গত ১৬ জানুয়ারি কলেজ থেকে ইজিবাইকে চড়ে বাসায় ফেরার পথে এনামুলের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। প্রথম পরিচয়েই এনামুল তাঁকে ‘মা’ বলে সম্বোধন করেন। তিনি মেয়েটিকে বলেন, কিছুদিন আগে তাঁর মা মারা গেছেন। এনামুল বয়স্ক মানুষ হওয়ায় বিষয়টি মেনে নেন ওই কলেজছাত্রী। এরপর কলেজে যাওয়া-আসার পথে দেখা হলেই খাতির করতেন এনামুল। ১৯ জানুয়ারি তিনি মেয়েটিকে বলেন, তাঁকে তিনি তাঁর পরিবারের লোকজনের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে চান। এ কথা বলে মেয়েটিকে সোনাডাঙ্গা এলাকার একটি বাসায় নিয়ে তিনি ধর্ষণ করেন। লজ্জায় এ ঘটনা প্রথমে কাউকে বলেননি কলেজছাত্রী।

মেয়েটি বলেন, আত্মহত্যা করলে অপরাধী পার পেয়ে যেত। এ কারণে তিনি ওই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে পরিবারকে বিষয়টি জানান। কিন্তু কী করতে হবে, বুঝতে না পেরে প্রথমে যান পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে। সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা বিদ্রূপ করে তাড়িয়ে দেন। এরপর সদর থানায় গেলে সোনাডাঙ্গা থানায় মামলা করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এরপর এনামুলের নাম-ঠিকানা জোগাড় করে সোনাডাঙ্গা থানায় মামলা করেন। সোনাডাঙ্গা থানার ওসি মমতাজুল হক বলেন, মামলার একমাত্র আসামি কারাগারে আছেন। মামলাটি তদন্তাধীন। মেয়েটির স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন পেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

কিন্তু টাকার বিনিময়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন উল্টে যায় কি না, সেই শঙ্কায় রয়েছেন মেয়েটি। টাকার বিনিময়ে তাঁকে আপস করতে বলেছে একটি পক্ষ। ভয়ভীতিও দেখানো হয়েছে। কিন্তু মেয়েটি বিচার পেতে অনড়। তাই আদালত থেকে পুলিশ কমিশনার পর্যন্ত দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন তিনি।

ওই কলেজছাত্রী বলেন, ‘আমি চাই, যে করেই হোক অপরাধী সাজা পাক। পরবর্তী সময়ে যেন আর কোনো মেয়েকে এমন ঘটনার সম্মুখীন হতে না হয়।’

Comments

Comments!

 ‘মা’ বলে ডেকে ঘনিষ্ঠতা, পরে বাসায় নিয়ে ধর্ষণ?AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

‘মা’ বলে ডেকে ঘনিষ্ঠতা, পরে বাসায় নিয়ে ধর্ষণ?

Monday, April 10, 2017 11:53 am
9

ইজিবাইকে হঠাৎ পরিচয়; এরপর ‘মা’ বলে ডেকে ঘনিষ্ঠতা তৈরি। কিছুদিন পর বাসায় নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ। এমন ঘটনার শিকার খুলনা নগরের এক কলেজছাত্রী এখন বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় আছেন।

অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম এনামুল হক ওরফে টিটো (৫৫)। তিনি খুলনা নগরের মৌলভীপাড়া এলাকার বাসিন্দা। ময়লাপোতা এলাকায় তাঁর ওষুধের একটি দোকান আছে।

ধর্ষণের অভিযোগে গত ১৫ মার্চ এনামুলের বিরুদ্ধে সোনাডাঙ্গা থানায় মামলা করেন নগরের একটি কলেজে স্নাতক (সম্মান) দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া মেয়েটি। পুলিশ এনামুলকে গ্রেপ্তারও করেছে। তবে প্রভাবশালী হওয়ায় তিনি দ্রুত ছাড়া পেতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন ধর্ষণের শিকার ছাত্রী।

মামলার এজাহার ও কলেজছাত্রীর ভাষ্যমতে, গত ১৬ জানুয়ারি কলেজ থেকে ইজিবাইকে চড়ে বাসায় ফেরার পথে এনামুলের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। প্রথম পরিচয়েই এনামুল তাঁকে ‘মা’ বলে সম্বোধন করেন। তিনি মেয়েটিকে বলেন, কিছুদিন আগে তাঁর মা মারা গেছেন। এনামুল বয়স্ক মানুষ হওয়ায় বিষয়টি মেনে নেন ওই কলেজছাত্রী। এরপর কলেজে যাওয়া-আসার পথে দেখা হলেই খাতির করতেন এনামুল। ১৯ জানুয়ারি তিনি মেয়েটিকে বলেন, তাঁকে তিনি তাঁর পরিবারের লোকজনের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে চান। এ কথা বলে মেয়েটিকে সোনাডাঙ্গা এলাকার একটি বাসায় নিয়ে তিনি ধর্ষণ করেন। লজ্জায় এ ঘটনা প্রথমে কাউকে বলেননি কলেজছাত্রী।

মেয়েটি বলেন, আত্মহত্যা করলে অপরাধী পার পেয়ে যেত। এ কারণে তিনি ওই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে পরিবারকে বিষয়টি জানান। কিন্তু কী করতে হবে, বুঝতে না পেরে প্রথমে যান পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে। সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা বিদ্রূপ করে তাড়িয়ে দেন। এরপর সদর থানায় গেলে সোনাডাঙ্গা থানায় মামলা করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এরপর এনামুলের নাম-ঠিকানা জোগাড় করে সোনাডাঙ্গা থানায় মামলা করেন। সোনাডাঙ্গা থানার ওসি মমতাজুল হক বলেন, মামলার একমাত্র আসামি কারাগারে আছেন। মামলাটি তদন্তাধীন। মেয়েটির স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন পেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

কিন্তু টাকার বিনিময়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন উল্টে যায় কি না, সেই শঙ্কায় রয়েছেন মেয়েটি। টাকার বিনিময়ে তাঁকে আপস করতে বলেছে একটি পক্ষ। ভয়ভীতিও দেখানো হয়েছে। কিন্তু মেয়েটি বিচার পেতে অনড়। তাই আদালত থেকে পুলিশ কমিশনার পর্যন্ত দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন তিনি।

ওই কলেজছাত্রী বলেন, ‘আমি চাই, যে করেই হোক অপরাধী সাজা পাক। পরবর্তী সময়ে যেন আর কোনো মেয়েকে এমন ঘটনার সম্মুখীন হতে না হয়।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X