শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৪:০২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, September 1, 2016 1:44 pm
A- A A+ Print

মীর কাসেমের মৃত্যুদণ্ড স্থগিত চেয়ে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ৩৫ এমপির চিঠি

151901_1

ঢাকা: মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড স্থগিতের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ৩৫ জন এমপি। চিঠিতে তারা কাসেম আলীর বিচার প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা ও যথার্থ বিচারিক প্রক্রিয়া অনুসরণের বিষয়টি যথাযথভাবে তদন্ত হবার আগ পর্যন্ত এই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর না করতে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের কাছে আহ্বান জানিয়েছেন। এর আগে গত মঙ্গলবার অ্যামনেস্টি ইন্টান্যাশনালও একই দাবি করে বিবৃতি দিয়েছিল। অ্যামনেস্টির বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ত্রুটিপূর্ণ বিচারে মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রাপ্ত রাজনৈতিক নেতার ফাঁসি অবশ্যই বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে স্থগিত করতে হবে।’ এছাড়াও গত ২৩ আগস্ট জাতিসংঘের মানবাধিকার বিশেষজ্ঞদের একটি দল মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড রদ এবং আন্তর্জাতিক মান অনুসরণ করে পুনর্বিচারের জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। জাতিসংঘের হিউম্যান রাইটস হাইকমিশনার কার্যালয় থেকে জারি করা ওই প্রেস রিলিজে বলা হয়, ‘বিরোধী দলের একজন সিনিয়র সদস্য মীর কাসেম আলীর বিচারকার্য এবং তার আপিল প্রক্রিয়ায় অনিয়ম করা হয়েছে এবং এ বিচার প্রক্রিয়া ন্যায় বিচারের আন্তর্জাতিক মান পূরণে ব্যর্থ হয়েছে।’ মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড স্থগিত চেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ৩৫ জন এমপির চিঠির বক্তব্য নিচে তোলে ধরা হলো। প্রিয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল (আইসিটি), যা যুদ্ধাপরাধ, গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত যেকোন বিচার করবার ক্ষমতা সম্পন্ন একটি দেশীয় আদালত, এর বিচার প্রক্রিয়ার বেআইনি দিকগুলো নিয়ে আমাদের উদ্বেগ প্রকাশ করতে আমরা আপনাকে লিখছি। আমরা স্মরণ করছি, ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে গৃহীত একটি রেজ্যুলুশনে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল, বিশেষ করে সেখানে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত মানদণ্ড থেকে অনেক দূরে থাকবার কারণে আইসিটি’র তীব্র সমালোচনা করা হয়েছিল। আমরা উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি যে, এই আদালত থেকে ইতোমধ্যে ১৭ জন ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে, যাদের মধ্যে পাঁচ জনের রায় কার্যকর করা হয়েছে। মীর কাসেম আলী, যিনি বাংলাদেশের রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীর একজন নেতা এবং মিথ্যা এবং রাজনৈতিক প্রভাবান্বিত প্রসিকিউশনের একজন ভিকটিম, তাকে ২০১৪ সালের ২ নভেম্বর মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। অসংখ্য সূত্র বলছে, তার এই বিচারটি সকল আন্তর্জাতিক স্বচ্ছতা এবং উন্মুক্ততার মানদণ্ডে ব্যর্থ হয়েছে। এই মামলায় তার রিভিউ পিটিশনের রায়ের দিন ধার্য করা হয়েছে আগামী ৩০শে আগস্ট। তবে ইতোপূর্বে যেভাবে অস্বচ্ছ পদ্ধতিতে এবং যথার্থ আইনি প্রক্রিয়ার গুরুতর লংঘনের মাধ্যমে পুরো মামলাটি পরিচালিত হয়েছে, তাতে এই রিভিউ প্রক্রিয়াটিও যে আইনের যথার্থ প্রক্রিয়া এবং স্বচ্ছতার মাধ্যমে পরিচালিত হবে, সেটা আমরা বাস্তবিকভাবে ভাবতে পারছি না। বিশেষত রিভিউ পিটিশনের রায়ের সাথে সাথেই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হতে পারে, এমন কিছু সংবাদে আমরা বিশেষভাবে উদ্বিগ্ন। আলীর এই বিচার প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা ও যথার্থ বিচারিক প্রক্রিয়া অনুসরণের বিষয়টি ভালোভাবে তদন্ত হবার আগ পর্যন্ত এই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর না করতে আমরা বাংলাদেশের সরকারি কর্তৃপক্ষের কাছে আহ্বান জানাচ্ছি। একই সাথে মীর কাসেম আলীর পুত্র মীর আহমাদ বিন কাসেম, যিনি তার বাবার মামলার মূল কৌসুলীর ভূমিকা পালন করেন, আমরা তার কথিত অপহরণের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমরা জেনেছি যে, তাকে তার বাসা থেকে ৯ই আগস্ট তুলে নেয়া হয়েছিল এবং এরপর তার আর কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। দ্রুত সময়ের মধ্যে তার সন্ধান খুঁজে বের করে তার অবস্থান এবং সুস্থতা নিশ্চিত করতে জোর পদক্ষেপ নেবার জন্যে আমরা বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি। ধন্যবাদান্তে ইউরোপীয়ান পার্লামেন্টের সদস্যবৃন্দ 1. হাইডি হৌতালা, 2. ইজাসকুন বিলবো বারাকান্দিকা, 3. মালিন বরক, 4. ফ্যাবিও মাসিমো কাস্ট্যালদো, 5. ফ্যাবিও দে মাসি, 6. স্টেফান ইক, 7. অ্যানা গোমেজ, 8. হ্যান্স ওলাফ হিঙ্কেল, 9. মারিয়া হিউবুক, 10. ইভা জোলি, 11. ইউসো জুরাইস্তি, 12. জ্যুড কিরটন ডার্লিং, 13. স্টেইলস কৌলুগ্লু, 14. মেরহা কিলোনেন, 15. বারন্ড লমেল, 16. উলরিখ লুনাসিক, 17. স্যাবিন লোসিং, 18. লুইস মিচেলস, 19. ম্যারিনা মিচেলস, 20. দিমিত্রিস পাপাদিমৌলিস, 21. কাতি পিরি, 22. মিশেল রিভাসি, 23. লিলিয়ানা রডরিগুয়েজ, 24. ব্রনিস হোপ, 25. হেলমুট শুলজ, 26. মলি স্কট কাতো, 27. বারবারা স্পিনেল্লি, 28. বারট স্টেস, 29. ইভান স্টেফানিক, 30. মারক তারাবেল্লা, 31. মিগুয়েল আরবান, 32. আরনেস্ট উরতাসুন, 33. ইভো ভাল, 34. ভ্যারি ক্রিস্টিন ভিজিয়েত, 35. জোসেফ উইডেনহোলজার।

Comments

Comments!

 মীর কাসেমের মৃত্যুদণ্ড স্থগিত চেয়ে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ৩৫ এমপির চিঠিAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

মীর কাসেমের মৃত্যুদণ্ড স্থগিত চেয়ে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ৩৫ এমপির চিঠি

Thursday, September 1, 2016 1:44 pm
151901_1

ঢাকা: মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড স্থগিতের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ৩৫ জন এমপি। চিঠিতে তারা কাসেম আলীর বিচার প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা ও যথার্থ বিচারিক প্রক্রিয়া অনুসরণের বিষয়টি যথাযথভাবে তদন্ত হবার আগ পর্যন্ত এই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর না করতে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের কাছে আহ্বান জানিয়েছেন।

এর আগে গত মঙ্গলবার অ্যামনেস্টি ইন্টান্যাশনালও একই দাবি করে বিবৃতি দিয়েছিল। অ্যামনেস্টির বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ত্রুটিপূর্ণ বিচারে মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রাপ্ত রাজনৈতিক নেতার ফাঁসি অবশ্যই বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে স্থগিত করতে হবে।’

এছাড়াও গত ২৩ আগস্ট জাতিসংঘের মানবাধিকার বিশেষজ্ঞদের একটি দল মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড রদ এবং আন্তর্জাতিক মান অনুসরণ করে পুনর্বিচারের জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। জাতিসংঘের হিউম্যান রাইটস হাইকমিশনার কার্যালয় থেকে জারি করা ওই প্রেস রিলিজে বলা হয়, ‘বিরোধী দলের একজন সিনিয়র সদস্য মীর কাসেম আলীর বিচারকার্য এবং তার আপিল প্রক্রিয়ায় অনিয়ম করা হয়েছে এবং এ বিচার প্রক্রিয়া ন্যায় বিচারের আন্তর্জাতিক মান পূরণে ব্যর্থ হয়েছে।’

মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড স্থগিত চেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ৩৫ জন এমপির চিঠির বক্তব্য নিচে তোলে ধরা হলো।

প্রিয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,

বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল (আইসিটি), যা যুদ্ধাপরাধ, গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত যেকোন বিচার করবার ক্ষমতা সম্পন্ন একটি দেশীয় আদালত, এর বিচার প্রক্রিয়ার বেআইনি দিকগুলো নিয়ে আমাদের উদ্বেগ প্রকাশ করতে আমরা আপনাকে লিখছি।

আমরা স্মরণ করছি, ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে গৃহীত একটি রেজ্যুলুশনে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল, বিশেষ করে সেখানে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত মানদণ্ড থেকে অনেক দূরে থাকবার কারণে আইসিটি’র তীব্র সমালোচনা করা হয়েছিল। আমরা উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি যে, এই আদালত থেকে ইতোমধ্যে ১৭ জন ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে, যাদের মধ্যে পাঁচ জনের রায় কার্যকর করা হয়েছে।

মীর কাসেম আলী, যিনি বাংলাদেশের রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীর একজন নেতা এবং মিথ্যা এবং রাজনৈতিক প্রভাবান্বিত প্রসিকিউশনের একজন ভিকটিম, তাকে ২০১৪ সালের ২ নভেম্বর মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। অসংখ্য সূত্র বলছে, তার এই বিচারটি সকল আন্তর্জাতিক স্বচ্ছতা এবং উন্মুক্ততার মানদণ্ডে ব্যর্থ হয়েছে। এই মামলায় তার রিভিউ পিটিশনের রায়ের দিন ধার্য করা হয়েছে আগামী ৩০শে আগস্ট। তবে ইতোপূর্বে যেভাবে অস্বচ্ছ পদ্ধতিতে এবং যথার্থ আইনি প্রক্রিয়ার গুরুতর লংঘনের মাধ্যমে পুরো মামলাটি পরিচালিত হয়েছে, তাতে এই রিভিউ প্রক্রিয়াটিও যে আইনের যথার্থ প্রক্রিয়া এবং স্বচ্ছতার মাধ্যমে পরিচালিত হবে, সেটা আমরা বাস্তবিকভাবে ভাবতে পারছি না। বিশেষত রিভিউ পিটিশনের রায়ের সাথে সাথেই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হতে পারে, এমন কিছু সংবাদে আমরা বিশেষভাবে উদ্বিগ্ন। আলীর এই বিচার প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা ও যথার্থ বিচারিক প্রক্রিয়া অনুসরণের বিষয়টি ভালোভাবে তদন্ত হবার আগ পর্যন্ত এই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর না করতে আমরা বাংলাদেশের সরকারি কর্তৃপক্ষের কাছে আহ্বান জানাচ্ছি।

একই সাথে মীর কাসেম আলীর পুত্র মীর আহমাদ বিন কাসেম, যিনি তার বাবার মামলার মূল কৌসুলীর ভূমিকা পালন করেন, আমরা তার কথিত অপহরণের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমরা জেনেছি যে, তাকে তার বাসা থেকে ৯ই আগস্ট তুলে নেয়া হয়েছিল এবং এরপর তার আর কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। দ্রুত সময়ের মধ্যে তার সন্ধান খুঁজে বের করে তার অবস্থান এবং সুস্থতা নিশ্চিত করতে জোর পদক্ষেপ নেবার জন্যে আমরা বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি।

ধন্যবাদান্তে

ইউরোপীয়ান পার্লামেন্টের সদস্যবৃন্দ

1. হাইডি হৌতালা, 2. ইজাসকুন বিলবো বারাকান্দিকা, 3. মালিন বরক, 4. ফ্যাবিও মাসিমো কাস্ট্যালদো, 5. ফ্যাবিও দে মাসি, 6. স্টেফান ইক, 7. অ্যানা গোমেজ, 8. হ্যান্স ওলাফ হিঙ্কেল, 9. মারিয়া হিউবুক, 10. ইভা জোলি, 11. ইউসো জুরাইস্তি, 12. জ্যুড কিরটন ডার্লিং, 13. স্টেইলস কৌলুগ্লু, 14. মেরহা কিলোনেন, 15. বারন্ড লমেল, 16. উলরিখ লুনাসিক, 17. স্যাবিন লোসিং, 18. লুইস মিচেলস, 19. ম্যারিনা মিচেলস, 20. দিমিত্রিস পাপাদিমৌলিস, 21. কাতি পিরি, 22. মিশেল রিভাসি, 23. লিলিয়ানা রডরিগুয়েজ, 24. ব্রনিস হোপ, 25. হেলমুট শুলজ, 26. মলি স্কট কাতো, 27. বারবারা স্পিনেল্লি, 28. বারট স্টেস, 29. ইভান স্টেফানিক, 30. মারক তারাবেল্লা, 31. মিগুয়েল আরবান, 32. আরনেস্ট উরতাসুন, 33. ইভো ভাল, 34. ভ্যারি ক্রিস্টিন ভিজিয়েত, 35. জোসেফ উইডেনহোলজার।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X