রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ভোর ৫:০৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, November 7, 2016 7:49 pm
A- A A+ Print

মুক্ত দাউদ মার্চেন্টের অবস্থান নিয়ে অস্পষ্টতা

ভারতীয় সন্ত্রাসী আবদুর রউফ ওরফে দাউদ মার্চেন্টকে কারাগার থেকে ছেড়ে দেওয়ার কথা জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ। গতকাল রোববার বিকেলে তাঁকে কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়। তবে ছাড়া পেয়ে তিনি কোথায় আছেন, সে বিষয়ে কোনো সংস্থাই কিছু বলছে না। কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির প্রথম আলোকে বলেন, ‘রোববার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে দাউদ মার্চেন্টকে মুক্তি দেওয়া হয়। এরপর তাঁর অবস্থান কোথায়, সে বিষয়ে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই।’ কারাগার থেকে দাউদ কীভাবে বেরিয়ে গেছেন, জানতে চাইলে জাহাঙ্গীর কবির বলেন, ‘কারাগারের অফিস কক্ষ থেকে তাঁকে ছেড়ে দেওয়ার পর তিনি কীভাবে গেছেন, সেটি জানা নেই। তাঁর মতো শত শত আসামি আছেন, যাঁরা ছাড়া পাচ্ছেন প্রতিদিন। কে কোন দিকে যান, তা দেখা সম্ভব নয়।’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল আজ সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, তাঁর সাজাভোগের মেয়াদ শেষ হয়েছে। এ জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পুশ ব্যাক-পুশ ইনের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না। তিনি (দাউদ) মুক্ত ব্যক্তি। তবে গত ১৮ জানুয়ারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, ‘যে বিদেশিদের সাজার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, তাঁদের কয়েকজন কারাগারে রয়েছেন। যাঁদের সাজার মেয়াদ শেষ হয়েছে, তাঁদের ফেরত পাঠাতে আমরা সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাসগুলোতে যোগাযোগ করি। দাউদ ইব্রাহিমের ঘনিষ্ঠ সহযোগী হিসেবে পরিচিত দাউদ মার্চেন্টের ক্ষেত্রেও সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিনিময়ের কিছু নেই।’ মুম্বাইয়ের সংগীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান টি-সিরিজের মালিক গুলশান কুমারকে ১৯৯৭ সালের ১২ আগস্ট হত্যা করা হয়। ওই মামলায় সন্দেহভাজন ভাড়াটে খুনি দাউদ মার্চেন্ট গ্রেপ্তার হলে ২০০২ সালে তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত। রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন দাউদ। ২০০৯ সালে ১৪ দিনের প্যারোলে মুক্তি পাওয়ার পর পালিয়ে যান তিনি। ওই বছরের ২৮ মে ভারত সীমান্তবর্তী বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে এক সহযোগীসহ দাউদকে গ্রেপ্তার করে বাংলাদেশের পুলিশ। ঘটনায় অনুপ্রবেশের অভিযোগে পাসপোর্ট আইনে মামলা হয় তাঁর বিরুদ্ধে। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে দাউদ জামিনে কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্তি পান। মুক্তির পরপরই তাঁকে আটক করে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ওই বছরের ৩ ডিসেম্বর আদালতে দেওয়া ডিবির প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, সন্দেহজনকভাবে ঘোরাঘুরি করায় দাউদ মার্চেন্টকে আটক করা হয়। তাঁর সঙ্গে তখন পাসপোর্ট ছিল না। পুলিশের ধারণা, বাংলাদেশে কোনো অপরাধ সংঘটন করতে বা ভারতে বড় কোনো অপরাধ করে তিনি পালিয়ে এসেছেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে তাঁকে রিমান্ডে নেওয়া প্রয়োজন। শুনানি শেষে আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন। ৩ নভেম্বর দাউদ মার্চেন্টকে ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ধারার অভিযোগ থেকেও অব্যাহতি দেন আদালত।

Comments

Comments!

 মুক্ত দাউদ মার্চেন্টের অবস্থান নিয়ে অস্পষ্টতাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

মুক্ত দাউদ মার্চেন্টের অবস্থান নিয়ে অস্পষ্টতা

Monday, November 7, 2016 7:49 pm

ভারতীয় সন্ত্রাসী আবদুর রউফ ওরফে দাউদ মার্চেন্টকে কারাগার থেকে ছেড়ে দেওয়ার কথা জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ। গতকাল রোববার বিকেলে তাঁকে কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়। তবে ছাড়া পেয়ে তিনি কোথায় আছেন, সে বিষয়ে কোনো সংস্থাই কিছু বলছে না।

কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির প্রথম আলোকে বলেন, ‘রোববার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে দাউদ মার্চেন্টকে মুক্তি দেওয়া হয়। এরপর তাঁর অবস্থান কোথায়, সে বিষয়ে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই।’
কারাগার থেকে দাউদ কীভাবে বেরিয়ে গেছেন, জানতে চাইলে জাহাঙ্গীর কবির বলেন, ‘কারাগারের অফিস কক্ষ থেকে তাঁকে ছেড়ে দেওয়ার পর তিনি কীভাবে গেছেন, সেটি জানা নেই। তাঁর মতো শত শত আসামি আছেন, যাঁরা ছাড়া পাচ্ছেন প্রতিদিন। কে কোন দিকে যান, তা দেখা সম্ভব নয়।’
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল আজ সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, তাঁর সাজাভোগের মেয়াদ শেষ হয়েছে। এ জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পুশ ব্যাক-পুশ ইনের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না। তিনি (দাউদ) মুক্ত ব্যক্তি।
তবে গত ১৮ জানুয়ারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, ‘যে বিদেশিদের সাজার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, তাঁদের কয়েকজন কারাগারে রয়েছেন। যাঁদের সাজার মেয়াদ শেষ হয়েছে, তাঁদের ফেরত পাঠাতে আমরা সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাসগুলোতে যোগাযোগ করি। দাউদ ইব্রাহিমের ঘনিষ্ঠ সহযোগী হিসেবে পরিচিত দাউদ মার্চেন্টের ক্ষেত্রেও সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিনিময়ের কিছু নেই।’
মুম্বাইয়ের সংগীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান টি-সিরিজের মালিক গুলশান কুমারকে ১৯৯৭ সালের ১২ আগস্ট হত্যা করা হয়। ওই মামলায় সন্দেহভাজন ভাড়াটে খুনি দাউদ মার্চেন্ট গ্রেপ্তার হলে ২০০২ সালে তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত। রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন দাউদ। ২০০৯ সালে ১৪ দিনের প্যারোলে মুক্তি পাওয়ার পর পালিয়ে যান তিনি। ওই বছরের ২৮ মে ভারত সীমান্তবর্তী বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে এক সহযোগীসহ দাউদকে গ্রেপ্তার করে বাংলাদেশের পুলিশ। ঘটনায় অনুপ্রবেশের অভিযোগে পাসপোর্ট আইনে মামলা হয় তাঁর বিরুদ্ধে।
২০১৪ সালের ডিসেম্বরে দাউদ জামিনে কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্তি পান। মুক্তির পরপরই তাঁকে আটক করে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ওই বছরের ৩ ডিসেম্বর আদালতে দেওয়া ডিবির প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, সন্দেহজনকভাবে ঘোরাঘুরি করায় দাউদ মার্চেন্টকে আটক করা হয়। তাঁর সঙ্গে তখন পাসপোর্ট ছিল না। পুলিশের ধারণা, বাংলাদেশে কোনো অপরাধ সংঘটন করতে বা ভারতে বড় কোনো অপরাধ করে তিনি পালিয়ে এসেছেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে তাঁকে রিমান্ডে নেওয়া প্রয়োজন। শুনানি শেষে আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন। ৩ নভেম্বর দাউদ মার্চেন্টকে ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ধারার অভিযোগ থেকেও অব্যাহতি দেন আদালত।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X