বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৭:০৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, December 9, 2016 8:11 am
A- A A+ Print

মেডিকেলের ছাত্র জাকির তনয় কোথায়

43934_tonoy

পাবনা মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকসহ দুই ছাত্র নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে । এ বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ এবং পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় পৃথক দুটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। এমবিবিএস চতুর্থ বর্ষের দুই ছাত্র নিখোঁজের ঘটনায় কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। তারা আসলেই নিখোঁজ নাকি কোনো জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে স্বেচ্ছায় আত্মগোপন করেছে সে বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ। নিখোঁজ ছাত্ররা হলো রংপুরের কাউনিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোহাম্মদ সুরুজ্জামানের ছেলে জাকির হোসেন। সে পাবনা মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। অন্যদিকে রংপুর নগরীর শালবন মিস্ত্রিপাড়ার নুরুল আলম সরকারের ছেলে তানভীর আহমেদ তনয়। এরা দুজনই এমবিবিএস চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। এদের মধ্যে ১লা ডিসেম্বর সকালে বাড়ি থেকে ট্রেনে পাবনা মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে ফেরার পথে জাকির হোসেন এবং ৩০শে নভেম্বর সন্ধ্যায় তানভীর আহমেদ তনয় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে নিখোঁজ হয়। পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, পাবনা মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র তানভীর আহম্মেদ তনয় কলেজের ১ নম্বর হোস্টেলের আবাসিক শিক্ষার্থী ছিল। ৩০শে নভেম্বর বিকাল ৪টার দিকে সে হোস্টেল থেকে বেরিয়ে আর ফিরে আসেনি। এরপর থেকে তার মোবাইল নাম্বারও বন্ধ রয়েছে। পরদিন রুমমেট ও কলেজ কর্তৃপক্ষ তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে পারেন, তনয় গ্রামের বাড়িতেও যায়নি। পাবনা সদর থানার ডিউটি অফিসার এএসআই জাহাঙ্গীর আলম জানান, পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন (নম্বর ২০, তাং ১-১২-১৬)। পুলিশ তার অবস্থান জানার চেষ্টা করছে। এদিকে রংপুর জেলার কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল কাদের জিলানী জানান, পাবনা মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র জাকির হোসেন ২৪শে নভেম্বর বাড়িতে আসেন। পরে ১লা ডিসেম্বর বেলা সাড়ে ১১টায় জাকির কাউনিয়া রেলওয়ে স্টেশন থেকে আন্তনগর ট্রেন লালমনি এক্সপ্রেসে ক্যাম্পাসে রওনা দেন। গাইবান্ধায় পৌঁছার পর মোবাইল ফোনে পরিবারের সঙ্গে তার শেষ কথা হয়। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত তার মোবাইল বন্ধ রয়েছে এবং ক্যাম্পাসেও ফেরেননি বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। জাকিরের বাবা সুরুজ্জামান বলেন, থানায় জিডি করার পর ছেলের সন্ধান চেয়ে ৫ই ডিসেম্বর র‌্যাব-১৩ রংপুরে লিখিত অভিযোগ করেছি। পুলিশ-র‌্যাব কেউ সন্ধান দিতে পারছে না। পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. রিয়াজুল হক রেজা বলেন, ‘জাকির ও তনয় ক্যাম্পাসে বয়েজ ছাত্রাবাসের পাশাপাশি কক্ষে থাকতো। ৩০শে নভেম্বর ক্যাম্পাস থেকে তনয় এবং ১লা ডিসেম্বর বাড়ি থেকে ক্যাম্পাসে ফেরার পথে জাকির নিখোঁজ হয়। সন্ধান চেয়ে জিডি করা হলেও তাদের সন্ধান মিলছে না। দুই ছাত্র নিখোঁজের বিষয়টি আমাদের উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।’ পাবনা মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৌরভ হাসান বলেন, ‘জাকির আমাদের সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক। ভালো ছেলে। তনয় তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তাদের নিখোঁজের কারণ বুঝতে পারছি না। তনয়ের বাবা নুরুল আলম সরকার বলেন, ৬ই অক্টোবর তার ছোট বোনের মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষার আগের দিন বাড়িতে এসেছিল তনয়। দুদিন পর সে ফের পাবনায় চলে যায়। ৩০শে নভেম্বর তার নিখোঁজের সংবাদ পেয়ে ছুটে যাই। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেও ছেলের সন্ধান পাচ্ছি না। এদিকে জাকির ও তনয়ের সহপাঠীরা জানান, দুজনেই (জাকির-তনয়) নিয়মিত নামাজ পড়তো। তবে তারা জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত কিনা বলতে পারি না। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পাবনার পুলিশ সুপার জিহাদুল কবীর বলেন, পাবনা মেডিকেলের দুই শিক্ষার্থী নিখোঁজ হয়েছে এমন তথ্য জানার পর তদন্ত করা হচ্ছে। তিনি বলেন, তারা আসলেই নিখোঁজ নাকি কোনো জঙ্গি সংগঠনে সম্পৃক্ত হয়ে স্বেচ্ছায় আত্মগোপন করেছে তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। খুব দ্রুতই নিখোঁজের রহস্য বের হবে বলে তিনি আশাবাদী।

Comments

Comments!

 মেডিকেলের ছাত্র জাকির তনয় কোথায়AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

মেডিকেলের ছাত্র জাকির তনয় কোথায়

Friday, December 9, 2016 8:11 am
43934_tonoy

পাবনা মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকসহ দুই ছাত্র নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে
। এ বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ এবং পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় পৃথক দুটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। এমবিবিএস চতুর্থ বর্ষের দুই ছাত্র নিখোঁজের ঘটনায় কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। তারা আসলেই নিখোঁজ নাকি কোনো জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে স্বেচ্ছায় আত্মগোপন করেছে সে বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ। নিখোঁজ ছাত্ররা হলো রংপুরের কাউনিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোহাম্মদ সুরুজ্জামানের ছেলে জাকির হোসেন। সে পাবনা মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। অন্যদিকে রংপুর নগরীর শালবন মিস্ত্রিপাড়ার নুরুল আলম সরকারের ছেলে তানভীর আহমেদ তনয়। এরা দুজনই এমবিবিএস চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। এদের মধ্যে ১লা ডিসেম্বর সকালে বাড়ি থেকে ট্রেনে পাবনা মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে ফেরার পথে জাকির হোসেন এবং ৩০শে নভেম্বর সন্ধ্যায় তানভীর আহমেদ তনয় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে নিখোঁজ হয়।
পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, পাবনা মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র তানভীর আহম্মেদ তনয় কলেজের ১ নম্বর হোস্টেলের আবাসিক শিক্ষার্থী ছিল। ৩০শে নভেম্বর বিকাল ৪টার দিকে সে হোস্টেল থেকে বেরিয়ে আর ফিরে আসেনি। এরপর থেকে তার মোবাইল নাম্বারও বন্ধ রয়েছে। পরদিন রুমমেট ও কলেজ কর্তৃপক্ষ তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে পারেন, তনয় গ্রামের বাড়িতেও যায়নি।
পাবনা সদর থানার ডিউটি অফিসার এএসআই জাহাঙ্গীর আলম জানান, পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন (নম্বর ২০, তাং ১-১২-১৬)। পুলিশ তার অবস্থান জানার চেষ্টা করছে।
এদিকে রংপুর জেলার কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল কাদের জিলানী জানান, পাবনা মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র জাকির হোসেন ২৪শে নভেম্বর বাড়িতে আসেন। পরে ১লা ডিসেম্বর বেলা সাড়ে ১১টায় জাকির কাউনিয়া রেলওয়ে স্টেশন থেকে আন্তনগর ট্রেন লালমনি এক্সপ্রেসে ক্যাম্পাসে রওনা দেন। গাইবান্ধায় পৌঁছার পর মোবাইল ফোনে পরিবারের সঙ্গে তার শেষ কথা হয়। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত তার মোবাইল বন্ধ রয়েছে এবং ক্যাম্পাসেও ফেরেননি বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। জাকিরের বাবা সুরুজ্জামান বলেন, থানায় জিডি করার পর ছেলের সন্ধান চেয়ে ৫ই ডিসেম্বর র‌্যাব-১৩ রংপুরে লিখিত অভিযোগ করেছি। পুলিশ-র‌্যাব কেউ সন্ধান দিতে পারছে না।
পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. রিয়াজুল হক রেজা বলেন, ‘জাকির ও তনয় ক্যাম্পাসে বয়েজ ছাত্রাবাসের পাশাপাশি কক্ষে থাকতো। ৩০শে নভেম্বর ক্যাম্পাস থেকে তনয় এবং ১লা ডিসেম্বর বাড়ি থেকে ক্যাম্পাসে ফেরার পথে জাকির নিখোঁজ হয়। সন্ধান চেয়ে জিডি করা হলেও তাদের সন্ধান মিলছে না। দুই ছাত্র নিখোঁজের বিষয়টি আমাদের উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।’
পাবনা মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৌরভ হাসান বলেন, ‘জাকির আমাদের সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক। ভালো ছেলে। তনয় তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তাদের নিখোঁজের কারণ বুঝতে পারছি না।
তনয়ের বাবা নুরুল আলম সরকার বলেন, ৬ই অক্টোবর তার ছোট বোনের মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষার আগের দিন বাড়িতে এসেছিল তনয়। দুদিন পর সে ফের পাবনায় চলে যায়। ৩০শে নভেম্বর তার নিখোঁজের সংবাদ পেয়ে ছুটে যাই। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেও ছেলের সন্ধান পাচ্ছি না।
এদিকে জাকির ও তনয়ের সহপাঠীরা জানান, দুজনেই (জাকির-তনয়) নিয়মিত নামাজ পড়তো। তবে তারা জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত কিনা বলতে পারি না।
সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পাবনার পুলিশ সুপার জিহাদুল কবীর বলেন, পাবনা মেডিকেলের দুই শিক্ষার্থী নিখোঁজ হয়েছে এমন তথ্য জানার পর তদন্ত করা হচ্ছে। তিনি বলেন, তারা আসলেই নিখোঁজ নাকি কোনো জঙ্গি সংগঠনে সম্পৃক্ত হয়ে স্বেচ্ছায় আত্মগোপন করেছে তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। খুব দ্রুতই নিখোঁজের রহস্য বের হবে বলে তিনি আশাবাদী।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X