মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৮:০৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, December 1, 2016 6:27 pm
A- A A+ Print

মোদী স্বৈরাচারী ও কর্তৃত্ববাদী: অমর্ত্য সেন

222

নয়াদিল্লি: মোদী ‘স্বৈরাচারী’ ও ‘কর্তৃত্ববাদী’। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে এমন মন্তব্য করলেন অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন। এনডিটিভি-কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে অমর্ত্য সেনের স্পষ্ট বক্তব্য, ‘কালো টাকা রোধের যে কোনো প্রচেষ্টাকে সব ভারতীয়ই সাধুবাদ জানায়। কিন্তু আমাদের ভাবতে হবে এটাই কালো টাকা রোধের ভালো পথ কি না? আমার মনে হয়, এই সিদ্ধান্ত সর্বনিম্ন সাফল্য ও সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি নিয়ে আসবে।’ প্রসঙ্গত, গত ৮ নভেম্বর ৫০০ ও ১০০০ টাকার পুরোনো নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন মোদী। তার পর থেকে এই সিদ্ধান্ত নিয়ে সমালোচনা ও প্রশংসা দু’টোই শোনা গেছে। তবে নোবেলজয়ী এই অর্থনীতিবিদ প্রথম থেকেই মোদীর এই সিদ্ধান্তের বিরোধী। এর আগেও একটি সাক্ষাৎকারে তিনি মোদী সরকারকে ‘স্বৈরাচারী’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। কিন্তু কেন্দ্রের এই পদক্ষেপ নিয়ে এত নেতিবাচক মনোভাবের কারণ কী?
নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদের কথায়, ‘খুব কম পরিমাণ কালো টাকাই নগদে থাকে। পরিমাণটা ৬ শতাংশ বা একটু বেশি। মোট কথা, ১০ শতাংশের কম। এ ধরনের বড় অঙ্কের নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত সাফল্যের জন্য খুব কমই লাভজনক  কিন্তু ভারতীয় অর্থনীতির জন্য খুবই সমস্যা সৃষ্টিকারী। আমরা সকলেই চাই, কালো টাকা রুখতে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হোক। কিন্তু তাতে অবশ্যই বুদ্ধিমত্তা ও মানবিকতার ছোঁয়া থাকতে হবে। এক্ষেত্রে সেটাই হয়নি।’ অমর্ত্য সেনের মতে, এই পদক্ষেপের কারণে মুদ্রার উপর থেকে মানুষের বিশ্বাসই উঠে যাবে। তার কথায়, ‘টাকা আসলে আশ্বাসবাহক একটি নোট। যদি কোনো সরকার হঠাৎ বলে, আমি তোমাকে টাকা দিতে পারব না, সেটা তো স্বৈরাচার বটেই। আমি ধনতন্ত্রের ভক্ত নই, কিন্তু বিশ্বাস ধনতন্ত্রের মূল ভিত্তি। এই পদক্ষেপ পুরোপুরি বিশ্বাসের বিরোধী। এটা ধনতন্ত্র ও অর্থনীতির মূলে আঘাত। কাল সরকার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রেও একই পদক্ষেপ করতে পারে। লোকে যদি নিজেকে কালোটাকার কারবারী নয় বলে প্রমাণ করতে না পারে, তবে হয়তো তাকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণের বেশি টাকা তুলতে দেবে না।’ অমর্ত্য সেনের মুখে মোদী বিরোধী সুর অবশ্য এই প্রথম নয়। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় থেকেই মোদীর সমালোচনা করেছেন এই অর্থনীতিবিদ। ১৯৯৯ সালে অটল বিহারী বাজপেয়ীর আমলেই ভারতরত্ন সম্মানে ভূষিত হয়েছিলেন অমর্ত্য সেন। কিন্তু মোদী সরকারের নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারকে কখনোই সমর্থন করতে পারেননি তিনি। সে ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে বলেন, ‘কালো টাকার বাড়বাড়ন্ত রোধের জন্য আমি কখনোই মোদীর সমালোচনা করতাম না। উনি যদি সফলভাবে এটা করতেন, আমি তাকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিতাম। কিন্তু আমার চিন্তা এই পদক্ষেপ নিয়ে। এর ফলে আইন মেনে চলা ও সাদা টাকা হাতে থাকা নাগরিকরাই বেশি সমস্যায় পড়বেন। ভারতের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির বিচারেই আমার ও মোদীর মতপার্থক্য। আর আমার মতে, মাত্র ৩১ শতাংশ ভোটের বলে ক্ষমতায় আসা বিজেপি এভাবে কিছু লোককে দেশদ্রোহী বলে দাগিয়ে দিতে পারে না, তাও শুধুমাত্র সরকারের সঙ্গে তাদের মতের মিল না হওয়ার কারণে।’
 

Comments

Comments!

 মোদী স্বৈরাচারী ও কর্তৃত্ববাদী: অমর্ত্য সেনAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

মোদী স্বৈরাচারী ও কর্তৃত্ববাদী: অমর্ত্য সেন

Thursday, December 1, 2016 6:27 pm
222

নয়াদিল্লি: মোদী ‘স্বৈরাচারী’ ও ‘কর্তৃত্ববাদী’। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে এমন মন্তব্য করলেন অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন।

এনডিটিভি-কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে অমর্ত্য সেনের স্পষ্ট বক্তব্য, ‘কালো টাকা রোধের যে কোনো প্রচেষ্টাকে সব ভারতীয়ই সাধুবাদ জানায়। কিন্তু আমাদের ভাবতে হবে এটাই কালো টাকা রোধের ভালো পথ কি না? আমার মনে হয়, এই সিদ্ধান্ত সর্বনিম্ন সাফল্য ও সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি নিয়ে আসবে।’

প্রসঙ্গত, গত ৮ নভেম্বর ৫০০ ও ১০০০ টাকার পুরোনো নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন মোদী। তার পর থেকে এই সিদ্ধান্ত নিয়ে সমালোচনা ও প্রশংসা দু’টোই শোনা গেছে। তবে নোবেলজয়ী এই অর্থনীতিবিদ প্রথম থেকেই মোদীর এই সিদ্ধান্তের বিরোধী। এর আগেও একটি সাক্ষাৎকারে তিনি মোদী সরকারকে ‘স্বৈরাচারী’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। কিন্তু কেন্দ্রের এই পদক্ষেপ নিয়ে এত নেতিবাচক মনোভাবের কারণ কী?

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদের কথায়, ‘খুব কম পরিমাণ কালো টাকাই নগদে থাকে। পরিমাণটা ৬ শতাংশ বা একটু বেশি। মোট কথা, ১০ শতাংশের কম। এ ধরনের বড় অঙ্কের নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত সাফল্যের জন্য খুব কমই লাভজনক  কিন্তু ভারতীয় অর্থনীতির জন্য খুবই সমস্যা সৃষ্টিকারী। আমরা সকলেই চাই, কালো টাকা রুখতে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হোক। কিন্তু তাতে অবশ্যই বুদ্ধিমত্তা ও মানবিকতার ছোঁয়া থাকতে হবে। এক্ষেত্রে সেটাই হয়নি।’

অমর্ত্য সেনের মতে, এই পদক্ষেপের কারণে মুদ্রার উপর থেকে মানুষের বিশ্বাসই উঠে যাবে। তার কথায়, ‘টাকা আসলে আশ্বাসবাহক একটি নোট। যদি কোনো সরকার হঠাৎ বলে, আমি তোমাকে টাকা দিতে পারব না, সেটা তো স্বৈরাচার বটেই। আমি ধনতন্ত্রের ভক্ত নই, কিন্তু বিশ্বাস ধনতন্ত্রের মূল ভিত্তি। এই পদক্ষেপ পুরোপুরি বিশ্বাসের বিরোধী। এটা ধনতন্ত্র ও অর্থনীতির মূলে আঘাত। কাল সরকার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রেও একই পদক্ষেপ করতে পারে। লোকে যদি নিজেকে কালোটাকার কারবারী নয় বলে প্রমাণ করতে না পারে, তবে হয়তো তাকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণের বেশি টাকা তুলতে দেবে না।’

অমর্ত্য সেনের মুখে মোদী বিরোধী সুর অবশ্য এই প্রথম নয়। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় থেকেই মোদীর সমালোচনা করেছেন এই অর্থনীতিবিদ। ১৯৯৯ সালে অটল বিহারী বাজপেয়ীর আমলেই ভারতরত্ন সম্মানে ভূষিত হয়েছিলেন অমর্ত্য সেন। কিন্তু মোদী সরকারের নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারকে কখনোই সমর্থন করতে পারেননি তিনি।

সে ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে বলেন, ‘কালো টাকার বাড়বাড়ন্ত রোধের জন্য আমি কখনোই মোদীর সমালোচনা করতাম না। উনি যদি সফলভাবে এটা করতেন, আমি তাকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিতাম। কিন্তু আমার চিন্তা এই পদক্ষেপ নিয়ে। এর ফলে আইন মেনে চলা ও সাদা টাকা হাতে থাকা নাগরিকরাই বেশি সমস্যায় পড়বেন। ভারতের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির বিচারেই আমার ও মোদীর মতপার্থক্য। আর আমার মতে, মাত্র ৩১ শতাংশ ভোটের বলে ক্ষমতায় আসা বিজেপি এভাবে কিছু লোককে দেশদ্রোহী বলে দাগিয়ে দিতে পারে না, তাও শুধুমাত্র সরকারের সঙ্গে তাদের মতের মিল না হওয়ার কারণে।’

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X