সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৫:৫৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, November 7, 2016 9:48 pm
A- A A+ Print

মোনায়েম খানের বাড়ি উচ্ছেদের ব্যাখ্যা চায় হাইকোর্ট

8

হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ সত্ত্বেও পূর্ব পাকিস্তানের সাবেক গভর্নর মোনায়েম খানের বনানীর বাড়িতে কেন উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে তার ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী সাত দিনের মধ্যে লিখিতভাবে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) কাছে এ ব্যাখ্যা জানতে চাওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে ৭ দিনের জন্য সকল উচ্ছেদ কার্যক্রম স্থগিত রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। রোববার আদেশ হলেও সোমবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের ল’ রিপোর্টার্স ফোরাম কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মোনায়েম খানের ছেলে এএইচএম কামরুজ্জামান খান বিষয়টি জানান। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বনানীর এ-ব্লকের ১১০ নম্বরের পাঁচ বিঘা ১৫ ছটাক প্লটটি তৎকালীন ডিআইটি হতে ১৯৬৬ সালে বরাদ্দপ্রাপ্ত হয়ে ১৯৬৭ সালে লিজ দলিল সম্পাদন ও রেজিস্ট্রি করা হয়। তবে ২০০৯ সালে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন তাদের জায়গা দাবি করে একটি চিঠি দেন। সিটি কর্পোরেশনের দেয়া ওই চিঠির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে মোনায়েম খানের পরিবারের পক্ষে হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করা হয়। ওই বছরের ২৬ জানুয়ারি হাইকোর্ট সিটি কর্পোরেশনের ওই চিঠির কার্যকারিতা স্থগিত করেন। আদালতের ওই আদেশ বলবৎ থাকা অবস্থায়ই সিটি কর্পোরেশন উচ্ছেদ কার্যক্রম চালিয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন কামরুজ্জামান খান। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মোনায়েম খানের নাতনি ও মামলার আইনজীবী ব্যারিস্টার নাসিম খান। তিনি বলেন, আদালত স্থিতাবস্থার আদেশ দিলেও উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত রেখেছে সিটি কর্পোরেশন। নাসিম খান জানান, এ পর্যন্ত ১৬ ফিট জায়গায় উচ্ছেদ করা হয়েছে। বাড়িটি সীমানা দেয়াল ও স্থাপনার একটি অংশ ভেঙে ফেলা হয়েছে। পানি, গ্যাস ও বিদ্যুতের লাইনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয়েছে। উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার বিকালে বনানীর ২৭ নম্বর রোডে ১১০ নম্বর বাড়িতে ডিএনসিসি'র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নুরুজ্জামান শরীফ ও মো. সাজিদ আনোয়ারের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন।

Comments

Comments!

 মোনায়েম খানের বাড়ি উচ্ছেদের ব্যাখ্যা চায় হাইকোর্টAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

মোনায়েম খানের বাড়ি উচ্ছেদের ব্যাখ্যা চায় হাইকোর্ট

Monday, November 7, 2016 9:48 pm
8

হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ সত্ত্বেও পূর্ব পাকিস্তানের সাবেক গভর্নর মোনায়েম খানের বনানীর বাড়িতে কেন উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে তার ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

আগামী সাত দিনের মধ্যে লিখিতভাবে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) কাছে এ ব্যাখ্যা জানতে চাওয়া হয়েছে।

একইসঙ্গে ৭ দিনের জন্য সকল উচ্ছেদ কার্যক্রম স্থগিত রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

রোববার আদেশ হলেও সোমবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের ল’ রিপোর্টার্স ফোরাম কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মোনায়েম খানের ছেলে এএইচএম কামরুজ্জামান খান বিষয়টি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বনানীর এ-ব্লকের ১১০ নম্বরের পাঁচ বিঘা ১৫ ছটাক প্লটটি তৎকালীন ডিআইটি হতে ১৯৬৬ সালে বরাদ্দপ্রাপ্ত হয়ে ১৯৬৭ সালে লিজ দলিল সম্পাদন ও রেজিস্ট্রি করা হয়। তবে ২০০৯ সালে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন তাদের জায়গা দাবি করে একটি চিঠি দেন।

সিটি কর্পোরেশনের দেয়া ওই চিঠির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে মোনায়েম খানের পরিবারের পক্ষে হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করা হয়। ওই বছরের ২৬ জানুয়ারি হাইকোর্ট সিটি কর্পোরেশনের ওই চিঠির কার্যকারিতা স্থগিত করেন।

আদালতের ওই আদেশ বলবৎ থাকা অবস্থায়ই সিটি কর্পোরেশন উচ্ছেদ কার্যক্রম চালিয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন কামরুজ্জামান খান।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মোনায়েম খানের নাতনি ও মামলার আইনজীবী ব্যারিস্টার নাসিম খান। তিনি বলেন, আদালত স্থিতাবস্থার আদেশ দিলেও উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত রেখেছে সিটি কর্পোরেশন।

নাসিম খান জানান, এ পর্যন্ত ১৬ ফিট জায়গায় উচ্ছেদ করা হয়েছে। বাড়িটি সীমানা দেয়াল ও স্থাপনার একটি অংশ ভেঙে ফেলা হয়েছে। পানি, গ্যাস ও বিদ্যুতের লাইনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার বিকালে বনানীর ২৭ নম্বর রোডে ১১০ নম্বর বাড়িতে ডিএনসিসি’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নুরুজ্জামান শরীফ ও মো. সাজিদ আনোয়ারের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X