বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১:১৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, November 23, 2016 7:29 pm | আপডেটঃ November 23, 2016 9:02 PM
A- A A+ Print

যাত্রীবাহী বাসে ভারতীয় হামলায় ৯ কাশ্মীরি নিহত

1111111111111111111111

কাশ্মীর: বুধবার সকাল থেকেই পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ জম্মু কাশ্মীর অংশে ভারতীয় সেনাবাহিনীর গোলাবর্ষণে কমপক্ষে ৯ জন নিহত ও ১৫ জন আহত হয়েছে বলে দাবি জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ছোড়া গোলার আঘাতে তিন ভারতীয় সেনার মৃত্যুর প্রতিশোধ নিতেই এই হামলা চালানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর ভারী গোলার আঘাতেই কাশ্মীরে যাত্রীবাহী বাস বিধ্বস্ত হয়। পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত নিলম ভ্যলির পুলিশ সুপার জামিল মির জানান, ‘সকাল সাড়ে আটটার দিকে যাত্রীবাহী বাসটিতে ভারতীয় গোলা এসে আঘাত করে। এতে পুরো বাসটিই বিধ্বস্ত হয়। ঘটনাস্থলেই নয় জন নিহত এবং অপর পনেরো জন আহত হয়।’ তিনি জানান, ‘এরপর উদ্ধারকারী অ্যাম্বুলেন্স এবং স্থানীয়দের ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করে আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।’ কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রন রেখা থেকে ৯০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে আপার ভ্যালির কাছেই লাওয়াত শহরের অবস্থান। যাত্রীবাহী বাসটি মুজাফ্ফরনগরের দিকে যাচ্ছিল বলে মির আরো জানান, ‘নিহতসহ আহতদের জেলা সদরদপ্তর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে এখনো পাঁচজনের দেহ বাসটির মধ্যে রয়েছে। ভোররাত তিনটা থেকে শুরু হয়েছে গোলাবর্ষণ।’ পার্শ্ববর্তী জেলা নাকায়ালের সহকারী পুলিশ কমিশনার সরদার জিশান নিসার জানান, ‘আমার এলাকায় সকাল আটটা চল্লিশ মিনিট নাগাদ গোলাবর্ষণ শুরু হয়। গোলায় আহত চারজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে আমার আশঙ্কা হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে, কারণ গোলাবর্ষণ অব্যাহত রয়েছে।’ স্থানীয় এক সরকারি কর্মকর্তা সরদার ওয়াহিদ জানান, ‘দুই দেশের পাল্টাপাল্টি গোলা বর্ষণের কারণে উদ্ধার কাজে ব্যাঘাত ঘটেছে। অ্যাম্বুলেন্সগুলোও ঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছুতে পারেনি।’ এ বিষয়ে অবশ্য ভারতীয় সেনা কতৃর্পক্ষ কোনো মন্তব্য করেনি। তবে ভারতীয় সেনার এক মুখপাত্র দাবি করেন, ‘পাকিস্তান সেনা বাহিনীই বুধবার থেকে ভারতীয় সেনা পোস্টগুলো লক্ষ্য করে ভারী গোলাবর্ষণ শুরু করে।’ এদিকে ভারী গোলার আঘাতে প্রাণহানির ঘটনা এমন সময় ঘটলো যখন পাকিস্তানি সেনাদের হামলায় ভারতের তিন বিএসএফ জওয়ান নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে ভারত। এর যোগ্য জবাব দেয়া হবে বলেও ঘোষণা দিয়েছিল দেশটির সেনা বাহিনী। সূত্র: আল জাজিরা
 

Comments

Comments!

 যাত্রীবাহী বাসে ভারতীয় হামলায় ৯ কাশ্মীরি নিহতAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

যাত্রীবাহী বাসে ভারতীয় হামলায় ৯ কাশ্মীরি নিহত

Wednesday, November 23, 2016 7:29 pm | আপডেটঃ November 23, 2016 9:02 PM
1111111111111111111111

কাশ্মীর: বুধবার সকাল থেকেই পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ জম্মু কাশ্মীর অংশে ভারতীয় সেনাবাহিনীর গোলাবর্ষণে কমপক্ষে ৯ জন নিহত ও ১৫ জন আহত হয়েছে বলে দাবি জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ছোড়া গোলার আঘাতে তিন ভারতীয় সেনার মৃত্যুর প্রতিশোধ নিতেই এই হামলা চালানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর ভারী গোলার আঘাতেই কাশ্মীরে যাত্রীবাহী বাস বিধ্বস্ত হয়।

পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত নিলম ভ্যলির পুলিশ সুপার জামিল মির জানান, ‘সকাল সাড়ে আটটার দিকে যাত্রীবাহী বাসটিতে ভারতীয় গোলা এসে আঘাত করে। এতে পুরো বাসটিই বিধ্বস্ত হয়। ঘটনাস্থলেই নয় জন নিহত এবং অপর পনেরো জন আহত হয়।’

তিনি জানান, ‘এরপর উদ্ধারকারী অ্যাম্বুলেন্স এবং স্থানীয়দের ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করে আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।’ কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রন রেখা থেকে ৯০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে আপার ভ্যালির কাছেই লাওয়াত শহরের অবস্থান।

যাত্রীবাহী বাসটি মুজাফ্ফরনগরের দিকে যাচ্ছিল বলে মির আরো জানান, ‘নিহতসহ আহতদের জেলা সদরদপ্তর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে এখনো পাঁচজনের দেহ বাসটির মধ্যে রয়েছে। ভোররাত তিনটা থেকে শুরু হয়েছে গোলাবর্ষণ।’

পার্শ্ববর্তী জেলা নাকায়ালের সহকারী পুলিশ কমিশনার সরদার জিশান নিসার জানান, ‘আমার এলাকায় সকাল আটটা চল্লিশ মিনিট নাগাদ গোলাবর্ষণ শুরু হয়। গোলায় আহত চারজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে আমার আশঙ্কা হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে, কারণ গোলাবর্ষণ অব্যাহত রয়েছে।’

স্থানীয় এক সরকারি কর্মকর্তা সরদার ওয়াহিদ জানান, ‘দুই দেশের পাল্টাপাল্টি গোলা বর্ষণের কারণে উদ্ধার কাজে ব্যাঘাত ঘটেছে। অ্যাম্বুলেন্সগুলোও ঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছুতে পারেনি।’

এ বিষয়ে অবশ্য ভারতীয় সেনা কতৃর্পক্ষ কোনো মন্তব্য করেনি।

তবে ভারতীয় সেনার এক মুখপাত্র দাবি করেন, ‘পাকিস্তান সেনা বাহিনীই বুধবার থেকে ভারতীয় সেনা পোস্টগুলো লক্ষ্য করে ভারী গোলাবর্ষণ শুরু করে।’

এদিকে ভারী গোলার আঘাতে প্রাণহানির ঘটনা এমন সময় ঘটলো যখন পাকিস্তানি সেনাদের হামলায় ভারতের তিন বিএসএফ জওয়ান নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে ভারত। এর যোগ্য জবাব দেয়া হবে বলেও ঘোষণা দিয়েছিল দেশটির সেনা বাহিনী।

সূত্র: আল জাজিরা

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X