সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৪৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, December 6, 2016 9:45 am
A- A A+ Print

যে কীর্তি দেখাতে পারেনি অন্য কেউ

us11480994324

গত ৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হয়ে গেল মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। দেশটিতে কাউকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে হলে মোট ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে কমপক্ষে ২৭০টি ভোট পেতে হয়। এবারের নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প ৩০৬টি ভোট পেয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। অর্থাৎ প্রয়োজনের চেয়েও ৩৬টি ইলেকটোরাল ভোট বেশি পেয়েছেন ধনাঢ্য ব্যবসায়ী থেকে রাজনীতিবিদ হওয়া ট্রাম্প। অন্যদিকে ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী পরাজিত হিলারি ক্লিনটন পেয়েছেন ২৩২টি ইলেকটোরাল ভোট।২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বারাক ওবামা পেয়েছিলেন ৩৩২ ইলেকটোরাল ভোট। এর আগে ২০০৪ সালে জর্জ ডব্লিউ বুশ ২৮৬ ইলেকটোরাল ভোট।   বারাক ওবামা ২০০৮ সালেও প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। সেবার তিনি ৩৬৫ ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে প্রথমবারের মতো হোয়াইট হাউসের চাবি হাতে পান। তবে তিনিই কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে সর্বোচ্চ ইলেকটোরাল ভোট পাওয়া প্রেসিডেন্ট নন। US                    ১৯৮৪ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রচারণাকালে রোনাল্ড রিগ্যান    মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এ যাবৎকালের সবচেয়ে বেশি ইলেকটোরাল ভোট পেয়েছেন রোনাল্ড রিগ্যান। যুক্তরাষ্ট্রের ৪০তম এ প্রেসিডেন্ট ৫৩৮ ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে একাই পেয়েছিলেন ৫২৫টি।   ১৯৮৪ সালের ৬ নভেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের কথা এটি। রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন রিগ্যান। সেবার মাত্র ১৩টি ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে ভরাডুবি হয় ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী ওয়াল্টার মানডেলের।   সেবারের নির্বাচনে রিগ্যান মোট ইলেকটোরাল ভোটের ৯৭.৫৮ শতাংশ পান। যুক্তরাষ্ট্রের ৫০ রাজ্যের মধ্যে ৪৯টিতেই জয় পেয়েছিলেন তিনি। তার পক্ষে পপুলার ভোট পড়েছিল ৫৮ দশমিক ৮ শতাংশ।   রিগ্যান এ কীর্তি গড়েছিলেন যখন তার বয়স ছিল ৭৩ বছর। যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়াই করা ও সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ব্যক্তিও তিনি।   দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিগ্যানের স্লোগান ছিল ‘মর্নিং ইন আমেরিকা’। দায়িত্ব পালনকালে তিনি তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নকে ‘শয়তানের সাম্রাজ্য’ হিসেবে আখ্যা দেন। তবে তার নেতৃত্বেই স্নায়ুযুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। রিগ্যান দ্বিতীয় মেয়াদে উল্লেখযোগ্য ঘটনা হলো ‘লিবিয়ায় মার্কিন বাহিনীর বোমাবর্ষণ’ ও ‘ইরান-কন্ট্রা বিষয়াবলি’।   US        চলচ্চিত্রে অভিনয়ের একটি দৃশ্যে রোনাল্ড রিগ্যান   রিগ্যান ১৯৮০ সালের ৪ নভেম্বরের মার্কিন নির্বাচনে অংশ নিয়ে প্রথমবারের মতো প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তবে সেবার তিনি পেয়েছিলেন ৪৮৯ ইলেকটোরাল ভোট। ১৯৮১ সালের জানুয়ারিতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথমবারের মতো দায়িত্ব নেন তিনি।   রিগ্যান ১৯১১ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় রাজ্যের ট্যাম্পিকোতে এক দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। জীবনের শুরুর দিকে তিনি খেলোধুলায় ঘোষক ও বিভিন্ন রেডিও স্টেশনে কাজ করেন। রাজনীতিতে প্রবেশের আগে রিগ্যান হলিউডের বিখ্যাত অভিনেতা ছিলেন। তার আলোচিত কয়েকটি চলচ্চিত্র হলো ‘লাভ ইজ অন দি এয়ার’, ‘ডার্ক ভিক্টোরি’, ‘সান্তা ফে ট্রেইল’, ‘নুটে রকনে, অল আমেরিকান’। রাজনৈতিক জীবনে তিনি ১৯৬৭-৭৫ পর্যন্ত ক্যালিফোর্নিয়ার গর্ভনর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।   ২০০৪ সালের ৫ জুন ক্যালিফোর্নিয়ার বেল এয়ারে ৯৩ বছর বয়সে মারা যান রিগ্যান। তাকে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম সফল প্রেসিডেন্ট হিসেবে গণ্য করা হয়।    

Comments

Comments!

 যে কীর্তি দেখাতে পারেনি অন্য কেউAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

যে কীর্তি দেখাতে পারেনি অন্য কেউ

Tuesday, December 6, 2016 9:45 am
us11480994324

গত ৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হয়ে গেল মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। দেশটিতে কাউকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে হলে মোট ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে কমপক্ষে ২৭০টি ভোট পেতে হয়।

এবারের নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প ৩০৬টি ভোট পেয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। অর্থাৎ প্রয়োজনের চেয়েও ৩৬টি ইলেকটোরাল ভোট বেশি পেয়েছেন ধনাঢ্য ব্যবসায়ী থেকে রাজনীতিবিদ হওয়া ট্রাম্প। অন্যদিকে ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী পরাজিত হিলারি ক্লিনটন পেয়েছেন ২৩২টি ইলেকটোরাল ভোট।২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বারাক ওবামা পেয়েছিলেন ৩৩২ ইলেকটোরাল ভোট। এর আগে ২০০৪ সালে জর্জ ডব্লিউ বুশ ২৮৬ ইলেকটোরাল ভোট।

 

বারাক ওবামা ২০০৮ সালেও প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। সেবার তিনি ৩৬৫ ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে প্রথমবারের মতো হোয়াইট হাউসের চাবি হাতে পান। তবে তিনিই কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে সর্বোচ্চ ইলেকটোরাল ভোট পাওয়া প্রেসিডেন্ট নন।

US

                   ১৯৮৪ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রচারণাকালে রোনাল্ড রিগ্যান 

 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এ যাবৎকালের সবচেয়ে বেশি ইলেকটোরাল ভোট পেয়েছেন রোনাল্ড রিগ্যান। যুক্তরাষ্ট্রের ৪০তম এ প্রেসিডেন্ট ৫৩৮ ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে একাই পেয়েছিলেন ৫২৫টি।

 

১৯৮৪ সালের ৬ নভেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের কথা এটি। রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন রিগ্যান। সেবার মাত্র ১৩টি ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে ভরাডুবি হয় ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী ওয়াল্টার মানডেলের।

 

সেবারের নির্বাচনে রিগ্যান মোট ইলেকটোরাল ভোটের ৯৭.৫৮ শতাংশ পান। যুক্তরাষ্ট্রের ৫০ রাজ্যের মধ্যে ৪৯টিতেই জয় পেয়েছিলেন তিনি। তার পক্ষে পপুলার ভোট পড়েছিল ৫৮ দশমিক ৮ শতাংশ।

 

রিগ্যান এ কীর্তি গড়েছিলেন যখন তার বয়স ছিল ৭৩ বছর। যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়াই করা ও সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ব্যক্তিও তিনি।

 

দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিগ্যানের স্লোগান ছিল ‘মর্নিং ইন আমেরিকা’। দায়িত্ব পালনকালে তিনি তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নকে ‘শয়তানের সাম্রাজ্য’ হিসেবে আখ্যা দেন। তবে তার নেতৃত্বেই স্নায়ুযুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। রিগ্যান দ্বিতীয় মেয়াদে উল্লেখযোগ্য ঘটনা হলো ‘লিবিয়ায় মার্কিন বাহিনীর বোমাবর্ষণ’ ও ‘ইরান-কন্ট্রা বিষয়াবলি’।

 

US

       চলচ্চিত্রে অভিনয়ের একটি দৃশ্যে রোনাল্ড রিগ্যান

 

রিগ্যান ১৯৮০ সালের ৪ নভেম্বরের মার্কিন নির্বাচনে অংশ নিয়ে প্রথমবারের মতো প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তবে সেবার তিনি পেয়েছিলেন ৪৮৯ ইলেকটোরাল ভোট। ১৯৮১ সালের জানুয়ারিতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথমবারের মতো দায়িত্ব নেন তিনি।

 

রিগ্যান ১৯১১ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় রাজ্যের ট্যাম্পিকোতে এক দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। জীবনের শুরুর দিকে তিনি খেলোধুলায় ঘোষক ও বিভিন্ন রেডিও স্টেশনে কাজ করেন। রাজনীতিতে প্রবেশের আগে রিগ্যান হলিউডের বিখ্যাত অভিনেতা ছিলেন। তার আলোচিত কয়েকটি চলচ্চিত্র হলো ‘লাভ ইজ অন দি এয়ার’, ‘ডার্ক ভিক্টোরি’, ‘সান্তা ফে ট্রেইল’, ‘নুটে রকনে, অল আমেরিকান’। রাজনৈতিক জীবনে তিনি ১৯৬৭-৭৫ পর্যন্ত ক্যালিফোর্নিয়ার গর্ভনর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

 

২০০৪ সালের ৫ জুন ক্যালিফোর্নিয়ার বেল এয়ারে ৯৩ বছর বয়সে মারা যান রিগ্যান। তাকে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম সফল প্রেসিডেন্ট হিসেবে গণ্য করা হয়।

 

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X