বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:০৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, January 30, 2017 10:13 am
A- A A+ Print

রম্য: ডোনাল্ড ট্রাম্প ও পুলিশের ফোনালাপ

3e45f0d3a0307ec71f096fcb4d413325-Untitled-20

ডোনাল্ড ট্রাম্প: হ্যালো, দিস ইজ ডোনাল্ড ট্রাম্প ফ্রম ইউএসএ। আমি হোয়াইট হাউস থেকে বলছি। এটা পুলিশ না? পুলিশ: মাই গড! সত্যি সত্যি এটা আপনি? হাউ আনবিলিভেবল! কী সৌভাগ্য আমাদের! ইয়েস স্যার, এটাই জনগণের বন্ধু (সাংবাদিক ছাড়া) পুলিশ! ডো. ট্রা.: হে জনগণের বন্ধুগণ, আমার উষ্ণ ভালোবাসা আর প্রাণঢালা অভিনন্দন গ্রহণ করুন! হ্যাটস অফ বাডি। আপনারা যে কাজ করেছেন, তাতে ফোন না করে বরং হাওয়াই জাহাজে চড়ে সাঁই করে এসে যদি বুক মেলাতে পারতাম! আহা! বলিহারি সাহস আপনাদের! পু.: সরি স্যার, ঠিক বুঝতে পারছি না, কী কারণে আপনি এত উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন। একটু যদি খোলাসা করে... ডো. ট্রা.: থাক থাক আর বিনয় দেখাতে হবে না। আপনারা সত্যিই মহান। আপনারাই আসল পুলিশ। বাকিরা পুলিশ নামের কলঙ্ক! জাস্ট শেম অন দেম। পু.: স্যার, আমরা আসলেই কনফিউজড। একটু যদি দয়া করে ব্যাপারটা... ডো. ট্রা.: আরে, সেদিন যে কিছু অসৎ মানুষের প্রতিনিধিকে আচ্ছামতো ঠেঙিয়েছেন...। পু.: ও হো, সাংবাদিকের কথা বলছেন নিশ্চয়ই? ডো. ট্রা.: নেভার কল দেম সাংবাদিক। দে আর অসৎ মানুষ। বদের হাড্ডি একেকটা। তবে আপনারা যেভাবে ঠেঙিয়েছেন...জাস্ট অসাম ম্যান! একদম উচিত শিক্ষা হইছে। আমাকে নিয়ে যে কী সব উল্টাপাল্টা করতেছে, দেখতেছেন না? পু.: জানি স্যার, সবই জানি। সব ব্যাপারেই নাক গলানো চাই এদের। এ এটা কেন করল, ও ওইটা কেন করল না, এভাবে কেন করল, কেন ওইভাবে করে নাই...কত হাজার রকমের যে খুঁত বের করবে। এই দেখুন না, দেশে একটা বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে, সেটা এদের একদম সহ্য হচ্ছে না। বনের পাশে হইছে তো কী, তোরা কি বন ধুয়ে পানি খাবি? আর আলতুফালতু গাছ-লতা, বাঘ-ভালুকের জন্য দরদ একেবারে উথলে পড়ছে একেকটার। বেশি তেড়িবেড়ি করাতেই...। ডো. ট্রা.: একদম উচিত শিক্ষা হইছে। কোথায় কোটি টাকার বিদ্যুৎ আর কোথায় দুই টাকার লতা-পাতা, বাঘ-ভালুক! রাবিশ সবগুলা। বন বন করে এত মায়াকান্না যখন, তখন কাঁথা-বালিশ নিয়ে বনে গিয়ে বাঘ-ভালুকের কোলে নিয়া ঘুমালেই তো পারে! পু.: হা হা হা। উচিত কথা বলেছেন, স্যার। আরে, দেশে আরও তো হাজার হাজার বিষয় আছে, তোরা সেইগুলা নিয়ে লেখ। তা না, একটা কিছু পাইলেই হইল, সব দল বেঁধে ওইটা নিয়ে ঘ্যান ঘ্যান ঘ্যান ঘ্যান করবে খালি। দেশের একটু আয়-উন্নতিও সহ্য হয় না একচোখাগুলার। ডো. ট্রা.: ঠিক তা-ই। জন্ডিসমার্কাদের আমিও এবার দেখে নেব। এমন ঠ্যাঙানি যে দেব, জন্মের মতো সিধা হয়ে যাবে। আপনাদের বালুর ট্রাক থিওরি অ্যাপ্লাই করে দারুণ উপকার পেয়েছি। এবার এই ঠ্যাঙানি থিওরিও অ্যাপ্লাই করব। দেখি কোন বজ্জাত আমার পেছনে লাগে! পু.: ঠিক বলছেন, স্যার। দরকার হলে আওয়াজ দিয়েন। আমরা তো এই বিষয়ে এক্সপার্ট। হে হে হে। ডো. ট্রা.: অবশ্যই, অবশ্যই। সময় করে একদিন আসেন না, হোয়াইট হাউসে! এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত কথা হবে। পু.: আপনার মেহেরবানি, স্যার! ডো. ট্রা.: ওকে, বাই। মেক আমেরিকা সরি পুলিশ গ্রেট অ্যাগেইন! পু.: স্যার, পুলিশরে আর গ্রেট বানানো লাগবে না, এমনিতেই আমরা গ্রেট! বাই।

Comments

Comments!

 রম্য: ডোনাল্ড ট্রাম্প ও পুলিশের ফোনালাপAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

রম্য: ডোনাল্ড ট্রাম্প ও পুলিশের ফোনালাপ

Monday, January 30, 2017 10:13 am
3e45f0d3a0307ec71f096fcb4d413325-Untitled-20

ডোনাল্ড ট্রাম্প: হ্যালো, দিস ইজ ডোনাল্ড ট্রাম্প ফ্রম ইউএসএ। আমি হোয়াইট হাউস থেকে বলছি। এটা পুলিশ না?
পুলিশ: মাই গড! সত্যি সত্যি এটা আপনি? হাউ আনবিলিভেবল! কী সৌভাগ্য আমাদের! ইয়েস স্যার, এটাই জনগণের বন্ধু (সাংবাদিক ছাড়া) পুলিশ!
ডো. ট্রা.: হে জনগণের বন্ধুগণ, আমার উষ্ণ ভালোবাসা আর প্রাণঢালা অভিনন্দন গ্রহণ করুন! হ্যাটস অফ বাডি। আপনারা যে কাজ করেছেন, তাতে ফোন না করে বরং হাওয়াই জাহাজে চড়ে সাঁই করে এসে যদি বুক মেলাতে পারতাম! আহা! বলিহারি সাহস আপনাদের!
পু.: সরি স্যার, ঠিক বুঝতে পারছি না, কী কারণে আপনি এত উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন। একটু যদি খোলাসা করে…
ডো. ট্রা.: থাক থাক আর বিনয় দেখাতে হবে না। আপনারা সত্যিই মহান। আপনারাই আসল পুলিশ। বাকিরা পুলিশ নামের কলঙ্ক! জাস্ট শেম অন দেম।
পু.: স্যার, আমরা আসলেই কনফিউজড। একটু যদি দয়া করে ব্যাপারটা…
ডো. ট্রা.: আরে, সেদিন যে কিছু অসৎ মানুষের প্রতিনিধিকে আচ্ছামতো ঠেঙিয়েছেন…।
পু.: ও হো, সাংবাদিকের কথা বলছেন নিশ্চয়ই?
ডো. ট্রা.: নেভার কল দেম সাংবাদিক। দে আর অসৎ মানুষ। বদের হাড্ডি একেকটা। তবে আপনারা যেভাবে ঠেঙিয়েছেন…জাস্ট অসাম ম্যান! একদম উচিত শিক্ষা হইছে। আমাকে নিয়ে যে কী সব উল্টাপাল্টা করতেছে, দেখতেছেন না?
পু.: জানি স্যার, সবই জানি। সব ব্যাপারেই নাক গলানো চাই এদের। এ এটা কেন করল, ও ওইটা কেন করল না, এভাবে কেন করল, কেন ওইভাবে করে নাই…কত হাজার রকমের যে খুঁত বের করবে। এই দেখুন না, দেশে একটা বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে, সেটা এদের একদম সহ্য হচ্ছে না। বনের পাশে হইছে তো কী, তোরা কি বন ধুয়ে পানি খাবি? আর আলতুফালতু গাছ-লতা, বাঘ-ভালুকের জন্য দরদ একেবারে উথলে পড়ছে একেকটার। বেশি তেড়িবেড়ি করাতেই…।
ডো. ট্রা.: একদম উচিত শিক্ষা হইছে। কোথায় কোটি টাকার বিদ্যুৎ আর কোথায় দুই টাকার লতা-পাতা, বাঘ-ভালুক! রাবিশ সবগুলা। বন বন করে এত মায়াকান্না যখন, তখন কাঁথা-বালিশ নিয়ে বনে গিয়ে বাঘ-ভালুকের কোলে নিয়া ঘুমালেই তো পারে!
পু.: হা হা হা। উচিত কথা বলেছেন, স্যার। আরে, দেশে আরও তো হাজার হাজার বিষয় আছে, তোরা সেইগুলা নিয়ে লেখ। তা না, একটা কিছু পাইলেই হইল, সব দল বেঁধে ওইটা নিয়ে ঘ্যান ঘ্যান ঘ্যান ঘ্যান করবে খালি। দেশের একটু আয়-উন্নতিও সহ্য হয় না একচোখাগুলার।

ডো. ট্রা.: ঠিক তা-ই। জন্ডিসমার্কাদের আমিও এবার দেখে নেব। এমন ঠ্যাঙানি যে দেব, জন্মের মতো সিধা হয়ে যাবে। আপনাদের বালুর ট্রাক থিওরি অ্যাপ্লাই করে দারুণ উপকার পেয়েছি। এবার এই ঠ্যাঙানি থিওরিও অ্যাপ্লাই করব। দেখি কোন বজ্জাত আমার পেছনে লাগে!

পু.: ঠিক বলছেন, স্যার। দরকার হলে আওয়াজ দিয়েন। আমরা তো এই বিষয়ে এক্সপার্ট। হে হে হে।

ডো. ট্রা.: অবশ্যই, অবশ্যই। সময় করে একদিন আসেন না, হোয়াইট হাউসে! এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত কথা হবে।

পু.: আপনার মেহেরবানি, স্যার!

ডো. ট্রা.: ওকে, বাই। মেক আমেরিকা সরি পুলিশ গ্রেট অ্যাগেইন!

পু.: স্যার, পুলিশরে আর গ্রেট

বানানো লাগবে না, এমনিতেই

আমরা গ্রেট! বাই।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X