বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:৪৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, September 29, 2017 9:49 am
A- A A+ Print

রাখাইনে সেনা অভিযান অবশ্যই বন্ধ করতে হবে: জাতিসংঘ মহাসচিব

5

রাখাইন থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকটের সমাধানে মিয়ানমার সরকারকে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস। তিনি মিয়ানমার সরকারকে বলেন, রাখাইনে সেনাবাহিনীর অভিযান অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। এছাড়া দ্বন্দ্ব-সংঘাতপূর্ণ রাখাইনে মানবাধিকার কর্মী প্রবেশ নিশ্চিত করতে হবে। রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের উন্মুক্ত আলোচনায় অ্যান্তেনিও গুতেরেস এ কথা বলেন। রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতা নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদে উন্মুক্ত আলোচনায় জাতিসংঘ মহাসচিব সহিংসতা ছাড়াই রোহিঙ্গাদের নিজ গ্রামে ফেরত নেয়ার ব্যবস্থা করতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা, রাখাইনে সেনা অভিযান বন্ধ করা, মানবাধিকার কর্মী ও গণমাধ্যমকর্মীদের রাখাইনে প্রবেশ নিশ্চিত করার তাগিদ দেন। ২০০৫ সালের পর প্রথমবারের মতো পূর্বনির্ধারিত আলোচ্যসূচিতে এসেছে রোহিঙ্গা প্রসঙ্গ। ১৩ সেপ্টেম্বরের পর এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো রোহিঙ্গা পরিস্থিতি আলোচনা হয় নিরাপত্তা পরিষদে। এদিকে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন বন্ধের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের কাছে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব আশা করে বাংলাদেশ। কিন্তু রাশিয়া ও চীনের বিরোধীতার কারণে কোনও সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়েছে নিরাপত্তা পরিষদের তৃতীয় বৈঠকটিও। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বলছে, নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে মিয়ানমারে সহিংসতার জন্য রাশিয়া রোঙ্গিাদের সংগঠন আরসাকে দায়ী করেছে। রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের সাত সদস্য যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, সুইডেন, মিসর, কাজাখস্তান ও সেনেগাল ২৩ সেপ্টেম্বর ওই আলোচনার প্রস্তাব দেয়। এসব দেশ জাতিসংঘের মহাসচিবকে রোহিঙ্গা পরিস্থিতির বিষয়ে পরিষদকে বিস্তারিত জানানোরও অনুরোধ জানায়। মহাসচিব গুতেরেস অধিবেশনের শুরুতে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরে বক্তব্য দেন। তিনি গণমাধ্যমে প্রকাশিত রাখাইনে সহিংসতার খবরে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। নিরাপত্তা পরিষদের সভায় জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন উপস্থিত আছেন। তিনি বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান তুলে ধরে বক্তব্য দেন।

Comments

Comments!

 রাখাইনে সেনা অভিযান অবশ্যই বন্ধ করতে হবে: জাতিসংঘ মহাসচিবAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

রাখাইনে সেনা অভিযান অবশ্যই বন্ধ করতে হবে: জাতিসংঘ মহাসচিব

Friday, September 29, 2017 9:49 am
5

রাখাইন থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকটের সমাধানে মিয়ানমার সরকারকে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস।

তিনি মিয়ানমার সরকারকে বলেন, রাখাইনে সেনাবাহিনীর অভিযান অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। এছাড়া দ্বন্দ্ব-সংঘাতপূর্ণ রাখাইনে মানবাধিকার কর্মী প্রবেশ নিশ্চিত করতে হবে।

রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের উন্মুক্ত আলোচনায় অ্যান্তেনিও গুতেরেস এ কথা বলেন।

রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতা নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদে উন্মুক্ত আলোচনায় জাতিসংঘ মহাসচিব সহিংসতা ছাড়াই রোহিঙ্গাদের নিজ গ্রামে ফেরত নেয়ার ব্যবস্থা করতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা, রাখাইনে সেনা অভিযান বন্ধ করা, মানবাধিকার কর্মী ও গণমাধ্যমকর্মীদের রাখাইনে প্রবেশ নিশ্চিত করার তাগিদ দেন।

২০০৫ সালের পর প্রথমবারের মতো পূর্বনির্ধারিত আলোচ্যসূচিতে এসেছে রোহিঙ্গা প্রসঙ্গ। ১৩ সেপ্টেম্বরের পর এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো রোহিঙ্গা পরিস্থিতি আলোচনা হয় নিরাপত্তা পরিষদে।

এদিকে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন বন্ধের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের কাছে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব আশা করে বাংলাদেশ। কিন্তু রাশিয়া ও চীনের বিরোধীতার কারণে কোনও সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়েছে নিরাপত্তা পরিষদের তৃতীয় বৈঠকটিও।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বলছে, নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে মিয়ানমারে সহিংসতার জন্য রাশিয়া রোঙ্গিাদের সংগঠন আরসাকে দায়ী করেছে।

রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের সাত সদস্য যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, সুইডেন, মিসর, কাজাখস্তান ও সেনেগাল ২৩ সেপ্টেম্বর ওই আলোচনার প্রস্তাব দেয়। এসব দেশ জাতিসংঘের মহাসচিবকে রোহিঙ্গা পরিস্থিতির বিষয়ে পরিষদকে বিস্তারিত জানানোরও অনুরোধ জানায়।

মহাসচিব গুতেরেস অধিবেশনের শুরুতে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরে বক্তব্য দেন।

তিনি গণমাধ্যমে প্রকাশিত রাখাইনে সহিংসতার খবরে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

নিরাপত্তা পরিষদের সভায় জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন উপস্থিত আছেন। তিনি বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান তুলে ধরে বক্তব্য দেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X