সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:০২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, September 10, 2016 3:06 pm
A- A A+ Print

রাবি শিক্ষিকার মৃত্যু নিয়ে যা বলছে পুলিশ

152826_1

রাজশাহী: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহানের (৪৫) মরদেহের সুরতহাল শেষে এটিকে আত্মহত্যা বলে ধারণা করছে পুলিশ। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সুরতহাল করার পর সাংবাদিকদের একথা বলেন রাজশাহী মহানগর পুলিশের উপকমিশনার আমীর জাফর। তিনি বলেন, মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদনে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি তিনি আত্মহত্যা করেছেন। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর আমরা বিষয়টি নিশ্চিতভাবে বলতে পারব। পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ দিলে সে অনুযায়ী তদন্ত করে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে বলেও তিনি জানান। এদিকে, খবর পেয়ে শনিবার সকাল ১০টায় আকতার জাহানের ছোটভাই, ভগ্নিপতি ও চাচাতো ভাইয়েরা রাবিতে আসেন। পরে তারা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসলে হিমঘর থেকে মরদেহ বের করা হয়। এ সময় তারা কান্নায় ভেঙে পড়েন। রাবি শিক্ষক আকতার জাহান গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাতিল সিরাজ বলেন, পরিবারের সদস্যরা আলোচনা করে মামলা ও দাফনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে রাবির জুবেরী ভবন থেকে নিজের আবাসিক কক্ষের দরজা ভেঙে সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহানের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। রাবির জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক মশিহুর রহমান জানান, ময়নাতদন্ত শেষে ক্যাম্পাসে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। তবে সময় এখনো ঠিক করা হয়নি। বিভাগ সূত্রে জানা যায়, আকতার জাহানের একমাত্র সন্তান আয়মান সোয়াদ ঢাকার একটি স্কুলে নবম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। প্রায় চার বছর আগে স্বামীর সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদ হয় আকতার জাহানের। তার সাবেক স্বামী একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তানভীর আহমদ। আকতার জাহান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আবাসিক ভবনের ৩০৩ নম্বর কক্ষে একাই থাকতেন। শিক্ষক আকতার জাহানের লেখা সুইসাইড নোট শিক্ষক আকতার জাহানের কক্ষে পাওয়া সুইসাইড নোটে লেখা ছিল ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। শারীরিক, মানসিক চাপের কারণে আত্মহত্যা করলাম। সোয়াদকে (একমাত্র সন্তান) যেনো ওর বাবা কোনোভাবেই নিজের হেফাজতে নিতে  না পারে। যে বাবা সন্তানের গলায় ছুরি ধরতে পারে সে যে কোনো সময় সন্তানকে মেরে ফেলতে বা মরতে বাধ্য করতে পারে। আমার মৃতদেহ ঢাকায় না নিয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দেয়ার অনুরোধ করছি।’
 

Comments

Comments!

 রাবি শিক্ষিকার মৃত্যু নিয়ে যা বলছে পুলিশAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

রাবি শিক্ষিকার মৃত্যু নিয়ে যা বলছে পুলিশ

Saturday, September 10, 2016 3:06 pm
152826_1

রাজশাহী: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহানের (৪৫) মরদেহের সুরতহাল শেষে এটিকে আত্মহত্যা বলে ধারণা করছে পুলিশ।

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সুরতহাল করার পর সাংবাদিকদের একথা বলেন রাজশাহী মহানগর পুলিশের উপকমিশনার আমীর জাফর।

তিনি বলেন, মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদনে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি তিনি আত্মহত্যা করেছেন। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর আমরা বিষয়টি নিশ্চিতভাবে বলতে পারব।

পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ দিলে সে অনুযায়ী তদন্ত করে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে বলেও তিনি জানান।

এদিকে, খবর পেয়ে শনিবার সকাল ১০টায় আকতার জাহানের ছোটভাই, ভগ্নিপতি ও চাচাতো ভাইয়েরা রাবিতে আসেন। পরে তারা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসলে হিমঘর থেকে মরদেহ বের করা হয়। এ সময় তারা কান্নায় ভেঙে পড়েন।

রাবি শিক্ষক আকতার জাহান

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাতিল সিরাজ বলেন, পরিবারের সদস্যরা আলোচনা করে মামলা ও দাফনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে রাবির জুবেরী ভবন থেকে নিজের আবাসিক কক্ষের দরজা ভেঙে সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহানের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

রাবির জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক মশিহুর রহমান জানান, ময়নাতদন্ত শেষে ক্যাম্পাসে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। তবে সময় এখনো ঠিক করা হয়নি।

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, আকতার জাহানের একমাত্র সন্তান আয়মান সোয়াদ ঢাকার একটি স্কুলে নবম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। প্রায় চার বছর আগে স্বামীর সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদ হয় আকতার জাহানের। তার সাবেক স্বামী একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তানভীর আহমদ। আকতার জাহান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আবাসিক ভবনের ৩০৩ নম্বর কক্ষে একাই থাকতেন।

শিক্ষক আকতার জাহানের লেখা সুইসাইড নোট

শিক্ষক আকতার জাহানের কক্ষে পাওয়া সুইসাইড নোটে লেখা ছিল ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। শারীরিক, মানসিক চাপের কারণে আত্মহত্যা করলাম। সোয়াদকে (একমাত্র সন্তান) যেনো ওর বাবা কোনোভাবেই নিজের হেফাজতে নিতে  না পারে। যে বাবা সন্তানের গলায় ছুরি ধরতে পারে সে যে কোনো সময় সন্তানকে মেরে ফেলতে বা মরতে বাধ্য করতে পারে। আমার মৃতদেহ ঢাকায় না নিয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দেয়ার অনুরোধ করছি।’

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X