বুধবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং, ৩রা কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৮:৪৭
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, August 1, 2017 9:29 am
A- A A+ Print

রুমকি ৪ দিনের রিমান্ডে

5

বগুড়ায় এক ছাত্রীকে ধর্ষণ এবং তাকে ও তার মাকে পিটিয়ে মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনার আসামি পৌর কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকিসহ সাতজনকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। রুমকিকে চার দিনের, বাকি ছয় আসামিকে দুই দিন করে রিমান্ড দিয়েছে আদালত। আসামিরা হলেন- নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকি, তার মা রুমি বেগম, বাবা রুনু, তুফানের স্ত্রী আশা বেগম, সহযোগী মুন্না, জিতু এবং চুল কাটার সহযোগী নাপিত জীবন। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি আমিরুল ইসলাম বলেন, এই সাত আসামিকে বগুড়ার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে সাত দিন করে  রিমান্ড চাওয়া হয়। আদালত আসামি রুমকির চার দিন এবং অন্য ছয়জনের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। এর আগে বিকেলে পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গত রোববার রাতে নারী কাউন্সিলর রুমকি ও তার মা রুমি বেগমকে পাবনা জেলা শহর থেকে এবং তুফানের স্ত্রী আশা বেগম, সহযোগী জিতু ও মুন্নাকে ঢাকার সাভার থেকে গ্রেপ্তার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। রুমকির বাবাকে বগুড়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ছাড়া এ ঘটনায় চুলকাটার নাপিত জীবনকে বিকেলে জেলার গাবতলী থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনার পর হোতা তুফান সরকার ও তার সহযোগীসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। অন্যরা হলেন- আলী আজম দিপু, রূপম হোসেন ও আতিকুর। আতিকুর রহমান ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। পাশাপাশি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন। বাকিদের গত রোববার তিন দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এর আগে নির্যাতনের শিকার মা বাদী হয়ে নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকিসহ ১০ জনকে আসামি করে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। বগুড়ার এক কিশোরীকে ভালো কলেজে ভর্তির প্রলোভন দেখিয়ে ১৭ জুলাই ও পরে কয়েকবার ধর্ষণ করেন জাতীয় শ্রমিক লীগের বগুড়া শহর শাখার আহ্বায়ক তুফান সরকার। এ কাজে তাকে সহায়তা করেন তার কয়েকজন সহযোগী। বিষয়টি জানতে পেরে তুফানের স্ত্রী আশা ও তার বড় বোন বগুড়া পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকিসহ ‘একদল সন্ত্রাসী’ গত শুক্রবার দুপুরে ওই কিশোরী এবং তার মাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যান। পরে মারধর করে নাপিত দিয়ে মা ও মেয়ের মাথা ন্যাড়া করে দেন। এ ঘটনার পর রোববার তুফানকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

Comments

Comments!

 রুমকি ৪ দিনের রিমান্ডেAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

রুমকি ৪ দিনের রিমান্ডে

Tuesday, August 1, 2017 9:29 am
5

বগুড়ায় এক ছাত্রীকে ধর্ষণ এবং তাকে ও তার মাকে পিটিয়ে মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনার আসামি পৌর কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকিসহ সাতজনকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

রুমকিকে চার দিনের, বাকি ছয় আসামিকে দুই দিন করে রিমান্ড দিয়েছে আদালত। আসামিরা হলেন- নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকি, তার মা রুমি বেগম, বাবা রুনু, তুফানের স্ত্রী আশা বেগম, সহযোগী মুন্না, জিতু এবং চুল কাটার সহযোগী নাপিত জীবন।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি আমিরুল ইসলাম বলেন, এই সাত আসামিকে বগুড়ার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে সাত দিন করে  রিমান্ড চাওয়া হয়। আদালত আসামি রুমকির চার দিন এবং অন্য ছয়জনের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

এর আগে বিকেলে পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গত রোববার রাতে নারী কাউন্সিলর রুমকি ও তার মা রুমি বেগমকে পাবনা জেলা শহর থেকে এবং তুফানের স্ত্রী আশা বেগম, সহযোগী জিতু ও মুন্নাকে ঢাকার সাভার থেকে গ্রেপ্তার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। রুমকির বাবাকে বগুড়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ছাড়া এ ঘটনায় চুলকাটার নাপিত জীবনকে বিকেলে জেলার গাবতলী থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ঘটনার পর হোতা তুফান সরকার ও তার সহযোগীসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। অন্যরা হলেন- আলী আজম দিপু, রূপম হোসেন ও আতিকুর। আতিকুর রহমান ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। পাশাপাশি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন। বাকিদের গত রোববার তিন দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

এর আগে নির্যাতনের শিকার মা বাদী হয়ে নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকিসহ ১০ জনকে আসামি করে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।

বগুড়ার এক কিশোরীকে ভালো কলেজে ভর্তির প্রলোভন দেখিয়ে ১৭ জুলাই ও পরে কয়েকবার ধর্ষণ করেন জাতীয় শ্রমিক লীগের বগুড়া শহর শাখার আহ্বায়ক তুফান সরকার। এ কাজে তাকে সহায়তা করেন তার কয়েকজন সহযোগী।

বিষয়টি জানতে পেরে তুফানের স্ত্রী আশা ও তার বড় বোন বগুড়া পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকিসহ ‘একদল সন্ত্রাসী’ গত শুক্রবার দুপুরে ওই কিশোরী এবং তার মাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যান। পরে মারধর করে নাপিত দিয়ে মা ও মেয়ের মাথা ন্যাড়া করে দেন।

এ ঘটনার পর রোববার তুফানকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X