বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ভোর ৫:১৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, January 14, 2017 6:24 pm
A- A A+ Print

রেকর্ডের পরও বাংলাদেশের হার

২৯

এভাবেও কেউ ম্যাচ হারে! দুর্দান্ত একটা জুটি হয়েছে, বেশির ভাগ সময় ম্যাচের লাগাম নিজেদের হাতে থেকেছে। তবুও কক্সবাজারে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও হারের হতাশা নিয়ে মাঠ ছেড়েছেন বাংলাদেশের মেয়েরা। ২২৪ রান তাড়া করতে নামা বাংলাদেশের এক সময় দরকার ছিল ৬০ বলে ৬৮ রান। হাতে ছিল ৮ উইকেট। ওভার প্রতি ৬ রানের বেশি লাগত। কিন্তু অসাধারণ ব্যাটিং করা শারমিন আক্তার ও রুমানা আহমেদ উইকেটে ছিলেন। এ কারণেই জয়ের স্বপ্ন দেখছিল বাংলাদেশ। তবে শেষ পর্যন্ত সমীকরণটা মেলাতে পারেনি মেয়েরা। স্নায়ুক্ষয়ী ম্যাচটা হেরেছে ১৭ রানে। ৪৩ রানে ২ উইকেট হারিয়ে ফেলা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়েছে তৃতীয় উইকেটে ফারজানা-রুমানার ১২৭ রানের জুটি। মেয়েদের ওয়ানডেতে যেকোনো উইকেটে এটিই সর্বোচ্চ রানের জুটি বাংলাদেশের। শারমিনের ওয়ানডে ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল ফিফটি দিয়ে। ভালো শুরুর পরও বাংলাদেশের এই ব্যাটার পরের ১০ ম্যাচে দুই অঙ্কেই পৌঁছাতে পেরেছেন মাত্র একবার। শারমিন অবশেষে রানের দেখা পেয়েছেন। পেয়েছেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি। সালমার সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হওয়ার আগে করেছেন ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ৭৪ রান। ফিফটি পেয়েছেন রুমানাও। মারিজান্নে কাপের বলে বোল্ড হওয়ার আগে অধিনায়ক করেছেন ৬৮। কিন্তু শেষ দিকে বাকিদের ব্যাটিং ছিল ছন্ন ছড়া। তাই জয় পেতে পেতেও হারতে হলো বাংলাদেশের। তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে ৩২ রানের মধ্যে পড়েছে পরের ৬ উইকেট। পুরো ৫০ ওভার ব্যাট করে ৮ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ করতে পারে ২০৬ রান। প্রথম ম্যাচের মতো আজও প্রোটিয়াদের ভালো শুরু এনে দেন দুই ওপেনার লিজলে লি ও আন্দ্রে স্টেইন। তাঁদের ওপেনিং জুটিতে আসে ১১৫ রান। অবশ্য এই জুটি ৬৫ রানেই ভাঙতে পারত। খাদিজাতুল কুবরার বল ওপরে তুলে দেন লি। কিন্তু লং অন থেকে দৌড়ে বলের কাছে আসতে পারলেও ক্যাচটা নিতে পারেননি ফারজানা হক। লির রান তখন ৩৫। ’জীবন’ পেয়ে সিরিজে টানা দ্বিতীয় ফিফটি তুলে নেন তিনি। বাংলাদেশের মাথায় রানের বোঝা চাপিয়ে দিতে যখন স্বচ্ছন্দে এগোচ্ছিলেন দুই প্রোটিয়া ওপেনার, তখন গুরুত্বপূর্ণ ব্রেক থ্রুটা এনে দেন লতা মণ্ডল। লতাকে কাট করতে গিয়ে বোল্ড হওয়ার আগে লি করেন ৭০। বাংলাদেশকে ভোগাতে আরেক ওপেনার স্টেইন অবশ্য টিকে ছিলেন আরও কিছুক্ষণ। তিনিও পেয়েছেন সিরিজের টানা দ্বিতীয় ফিফটি। পান্না ঘোষের বলে স্টাম্পড হওয়ার আগে করেন ৬৬ রান। দক্ষিণ আফ্রিকা যেভাবে শুরু করেছিল, শেষটা সেভাবে করতে পারেনি। প্রোটিয়া মেয়েদের মিডল অর্ডার ও লোয়ার মিডল অর্ডার একাই ধসিয়ে দিয়েছেন খাদিজা। ৩ উইকেটে ১৬২ থেকে ৯ উইকেটে ২০৪, ৪২ রানে পড়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার ৬ উইকেট। এর ৪টিই অফ স্পিনার খাদিজার। ক্যারিয়ার সেরা বোলিং উপহার দেওয়া খাদিজা ৪ উইকেট নিতে দিয়েছেন ৫৬ রান। এই জয়ে ৫ ম্যাচের সিরিজে ২-০তে এগিয়ে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। কক্সবাজারের তৃতীয় ম্যাচটি হবে আগামী পরশু। সংক্ষিপ্ত স্কোর: দক্ষিণ আফ্রিকা: ৪৯ ওভারে ২২৩ (লি ৭০, স্টেইন ৬৬, ফন নিকর্ক ২৭, ফৌরি ১৬*; খাদিজা ৪/৫৬, নাহিদা ১/১৭, লতা ১/২৯, জাহানারা ১/৩৮, পান্না ১/৩৯)। বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২০৬/৮ (শারমিন ৭২, রুমানা ৫৫, নিগার ১৪; কাপ ২/৪১, লুস ২/৩৭, ফন নিকর্ক ১/৩২)। ফল: দক্ষিণ আফ্রিকা ১৭ রানে জয়ী। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ: লিজলে লি।

Comments

Comments!

 রেকর্ডের পরও বাংলাদেশের হারAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

রেকর্ডের পরও বাংলাদেশের হার

Saturday, January 14, 2017 6:24 pm
২৯

এভাবেও কেউ ম্যাচ হারে! দুর্দান্ত একটা জুটি হয়েছে, বেশির ভাগ সময় ম্যাচের লাগাম নিজেদের হাতে থেকেছে। তবুও কক্সবাজারে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও হারের হতাশা নিয়ে মাঠ ছেড়েছেন বাংলাদেশের মেয়েরা।
২২৪ রান তাড়া করতে নামা বাংলাদেশের এক সময় দরকার ছিল ৬০ বলে ৬৮ রান। হাতে ছিল ৮ উইকেট। ওভার প্রতি ৬ রানের বেশি লাগত। কিন্তু অসাধারণ ব্যাটিং করা শারমিন আক্তার ও রুমানা আহমেদ উইকেটে ছিলেন। এ কারণেই জয়ের স্বপ্ন দেখছিল বাংলাদেশ। তবে শেষ পর্যন্ত সমীকরণটা মেলাতে পারেনি মেয়েরা। স্নায়ুক্ষয়ী ম্যাচটা হেরেছে ১৭ রানে।
৪৩ রানে ২ উইকেট হারিয়ে ফেলা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়েছে তৃতীয় উইকেটে ফারজানা-রুমানার ১২৭ রানের জুটি। মেয়েদের ওয়ানডেতে যেকোনো উইকেটে এটিই সর্বোচ্চ রানের জুটি বাংলাদেশের। শারমিনের ওয়ানডে ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল ফিফটি দিয়ে। ভালো শুরুর পরও বাংলাদেশের এই ব্যাটার পরের ১০ ম্যাচে দুই অঙ্কেই পৌঁছাতে পেরেছেন মাত্র একবার। শারমিন অবশেষে রানের দেখা পেয়েছেন। পেয়েছেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি। সালমার সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হওয়ার আগে করেছেন ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ৭৪ রান। ফিফটি পেয়েছেন রুমানাও। মারিজান্নে কাপের বলে বোল্ড হওয়ার আগে অধিনায়ক করেছেন ৬৮। কিন্তু শেষ দিকে বাকিদের ব্যাটিং ছিল ছন্ন ছড়া। তাই জয় পেতে পেতেও হারতে হলো বাংলাদেশের। তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে ৩২ রানের মধ্যে পড়েছে পরের ৬ উইকেট। পুরো ৫০ ওভার ব্যাট করে ৮ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ করতে পারে ২০৬ রান।
প্রথম ম্যাচের মতো আজও প্রোটিয়াদের ভালো শুরু এনে দেন দুই ওপেনার লিজলে লি ও আন্দ্রে স্টেইন। তাঁদের ওপেনিং জুটিতে আসে ১১৫ রান। অবশ্য এই জুটি ৬৫ রানেই ভাঙতে পারত। খাদিজাতুল কুবরার বল ওপরে তুলে দেন লি। কিন্তু লং অন থেকে দৌড়ে বলের কাছে আসতে পারলেও ক্যাচটা নিতে পারেননি ফারজানা হক। লির রান তখন ৩৫। ’জীবন’ পেয়ে সিরিজে টানা দ্বিতীয় ফিফটি তুলে নেন তিনি। বাংলাদেশের মাথায় রানের বোঝা চাপিয়ে দিতে যখন স্বচ্ছন্দে এগোচ্ছিলেন দুই প্রোটিয়া ওপেনার, তখন গুরুত্বপূর্ণ ব্রেক থ্রুটা এনে দেন লতা মণ্ডল। লতাকে কাট করতে গিয়ে বোল্ড হওয়ার আগে লি করেন ৭০। বাংলাদেশকে ভোগাতে আরেক ওপেনার স্টেইন অবশ্য টিকে ছিলেন আরও কিছুক্ষণ। তিনিও পেয়েছেন সিরিজের টানা দ্বিতীয় ফিফটি। পান্না ঘোষের বলে স্টাম্পড হওয়ার আগে করেন ৬৬ রান।

দক্ষিণ আফ্রিকা যেভাবে শুরু করেছিল, শেষটা সেভাবে করতে পারেনি। প্রোটিয়া মেয়েদের মিডল অর্ডার ও লোয়ার মিডল অর্ডার একাই ধসিয়ে দিয়েছেন খাদিজা। ৩ উইকেটে ১৬২ থেকে ৯ উইকেটে ২০৪, ৪২ রানে পড়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার ৬ উইকেট। এর ৪টিই অফ স্পিনার খাদিজার। ক্যারিয়ার সেরা বোলিং উপহার দেওয়া খাদিজা ৪ উইকেট নিতে দিয়েছেন ৫৬ রান।
এই জয়ে ৫ ম্যাচের সিরিজে ২-০তে এগিয়ে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। কক্সবাজারের তৃতীয় ম্যাচটি হবে আগামী পরশু।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
দক্ষিণ আফ্রিকা: ৪৯ ওভারে ২২৩ (লি ৭০, স্টেইন ৬৬, ফন নিকর্ক ২৭, ফৌরি ১৬*; খাদিজা ৪/৫৬, নাহিদা ১/১৭, লতা ১/২৯, জাহানারা ১/৩৮, পান্না ১/৩৯)।
বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২০৬/৮ (শারমিন ৭২, রুমানা ৫৫, নিগার ১৪; কাপ ২/৪১, লুস ২/৩৭, ফন নিকর্ক ১/৩২)।
ফল: দক্ষিণ আফ্রিকা ১৭ রানে জয়ী।
প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ: লিজলে লি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X